শনিবার, ১২ নভে ২০১৬ ০৫:১১ ঘণ্টা

জিয়ার নির্দেশেই ব্লগার হত্যার সব ঘটনা: ডিবি

Share Button

জিয়ার নির্দেশেই ব্লগার হত্যার সব ঘটনা: ডিবি

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশে এ পর্যন্ত যত ব্লগার হত্যার ঘটনা ঘটেছে, তার সব কটিই হয়েছে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নেতা চাকরিচ্যুত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হকের নির্দেশে হয়েছে বলে জানিয়েছে ডিবি।

শনিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন এসব কথা জানান।

শনিবার দুপুরের দিকে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন ও ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নিলয় হত্যার ঘটনায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের এক সদস্যকে গ্রেফতারের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানাতে গিয়ে জিয়ার প্রসঙ্গে এমন কথা বলেন।

ডিবির এই যুগ্ম কমিশনার বলেন, ব্লগার হত্যার প্রতিটি ঘটনাই জিয়ার নির্দেশে হয়েছে। হত্যাসংক্রান্ত বিভিন্ন দায়িত্ব সদস্যদের মধ্যে তিনিই ভাগ করে দিতেন।

চাকরিচ্যুত মেজর জিয়া আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সামরিক শাখার নেতা। তিনি ২০১১ সালের ডিসেম্বরে সেনা অভ্যুত্থানে প্ররোচনা চালিয়ে ব্যর্থ হন। এরপর থেকে তিনি পলাতক। তাকে সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। তাকে ধরিয়ে দিতে ২০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছে পুলিশ।

ডিবির যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর কমলাপুর থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের এক সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি দীপন ও নিলয় হত্যার সঙ্গে জড়িত।

ডিবি জানায়, গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তির নাম খাইরুল ইসলাম (২৪)। তিনি জামিল, রিফাত, ফাহিম ও জিসান নামেও পরিচিত। তার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ জেলার চণ্ডীপুরে।

আবদুল বাতেন বলেন, খাইরুলকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, ২০১৩ সালে এক ‘বড় ভাই’ মেজর জিয়ার সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তার মাধ্যমেই তিনি আনসারুল্লাহ বাংলা টিমে যোগ দেন। ২০১৪ সাল থেকে সংগঠনের তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করে আসছিলেন তিনি। তিনি ইন্টারনেটে নজরদারি করতেন। তথ্য বিশ্লেষণ করতেন। সম্ভাব্য টার্গেটের বিষয়ে বড় ভাইকে তথ্য জানাতেন। এই তথ্যের ওপর ভিত্তি করে ‘টার্গেট’ ঠিক করতেন বড় ভাই। পরে টার্গেটের বিষয়ে আরো তথ্য সংগ্রহ করা হতো। বড় ভাইকে তা জানানো হতো।

আবদুল বাতেনের দাবি, জিজ্ঞাসাবাদে খাইরুল জানিয়েছেন, চাকরিচ্যুত মেজর জিয়ার নির্দেশেই দীপন ও নিলয়কে হত্যা করা করা হয়।

গত বছরের ৩১ অক্টোবর রাজধানীর আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর অফিসে দীপনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যার পর আনসারুল্লাহ বাংলা টিম (আনসার আল ইসলাম) ওই খুনের দায় স্বীকার করে।

একই বছরের ৭ আগস্ট রাজধানীর গোড়ানে নিজ বাসায় ব্লগার নিলয়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ওই দিনই এ হত্যার দায় স্বীকার করে জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার ভারতীয় উপমহাদেশ (একিউআইএস) শাখার নামে বিবৃতি দেয়া হয়। এ হত্যাকাণ্ডের পর আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের বেশ কয়েকজন সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

এই সংবাদটি 1,035 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com