বৃহস্পতিবার, ১৫ আগ ২০১৯ ০৭:০৮ ঘণ্টা

প্রসঙ্গ :চামড়া নষ্ট করে দেয়া

Share Button

প্রসঙ্গ :চামড়া নষ্ট করে দেয়া

মুফতী নুরুল আলম জাবেরঃঃ

কোরবানীর চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পেয়ে চামড়া নদীতে ভাসিয়ে দেয়া কিংবা মাটিতে পুতে ফেলা কী জায়েজ?

জবাব: কোরবানীদাতাগণ যেহেতু কোরবানীর চামড়া মাদরাসার গরীব ছাত্রদের দান করে মালিক বানিয়ে দিয়েছেন।মালিক হবার পর তারা চাইলে যেকোনো কিছু করতে পারেন।তাই কোরবানীদাতার দায়িত্ব শেষ হয়ে গেছে বিধায় কোরবানী আদায় হতে কোনো অসুবিধা নেই।
তবে আসল বিষয় হলো,চামড়ার মতো মূল্যবান সম্পদ মাটিতে পুঁতে ফেলা কী জায়েজ হয়েছে?
প্রথম কথা হলো আমাদের জানতে হবে চামড়া দাবাগতের অনেক পদ্ধতি রয়েছে ,তন্মধ্যে প্রসিদ্ধ হলো লবন দেয়া।আর মাটিতে পুঁতে রাখাও দাবাগতের পদ্ধতিগুলোর মধ্যে একটি।তাই মাটিতে পুঁতে রাখা যদি দাবাগতের উদ্দেশ্য হয়ে থাকে,তাহলে মাল নষ্ট করার প্রশ্নই আসে না ।হ্যাঁ, তবে যদি মাটিতে স্থায়ীভাবে পুঁতে রাখা হয় অথবা নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়,তাহলে মাল নষ্ট করার প্রশ্ন আসতে পারে
। তবে যে ভাবে চামড়া শিল্পকে ধ্বংশ করে দেয়া হচ্ছ, চামড়ার প্রথম বিক্রেতা বা জোগানদাতাকে চরমভাবে ঠেকানোর এ প্রক্রিয়াটি শুরু হয়েছে মাত্র ৫ বছর আগে থেকে ২০১৪ সালে কমিয়ে দিয়ে যে দাম ঠিক করে দেওয়া হয়েছিল, প্রতি বছর সেটা কমেছে। এবছর সেটা লিখিতভাবে অর্ধেকে নেমে এলেও বাস্তবে এক চতুর্থাংশে এসে ঠেকেছে। কোনো বোকাও বিশ্বাস করবে না যে, এর পেছনে কোনো কারসাজি নেই। কাঁচা চামড়ার দামের এই কারসাজি বোঝার জন্য ‘বাণিজ্যমন্ত্রী’ হওয়ার দরকার নেই। শুধু দেশীয় বাজারের চামড়াজাত জিনিসের দাম দেখুন। ৫ বছর আগে যে চামড়ার জুতাজোড়া আপনি ১০০০ থেকে ১২০০ টাকায় কিনতে পারতেন, বর্তমানে সেটিই ২৫০০ থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে কিনতে আপনাকে বেগ পেতে হবে। ব্যাগ আর জেকেটের দামচিত্রও একই রকম। আর আন্তর্জাতিক বাজার? চামড়াজাত পণ্যের দাম আরো চড়া। শুধু এবং শুধুমাত্র কাঁচা চামড়ার বিক্রেতা কিংবা চামড়ার প্রথম জোগানদাতাদের ঠকানোর জন্য এই আয়োজন। প্রসেসিং করা চামড়ার দামও অনেক বেশি। খোঁজ নিয়ে দেখুন। এ দেশে কাঁচা চামড়ার বিক্রেতা কারা? ক্ষুদ্র গরিব ব্যবসায়ী-ফড়িয়া এবং বিশেষকরে লাখো এতিমখানা ও গরিবদের ফান্ড পরিচালনাকারী মাদরাসাগুলোই হচ্ছে কাঁচা চামড়ার বিক্রেতা। হাতেগোণা বিত্তের কুমিরদের পেটের ক্ষুধা ভরার জন্য এই দুটি শ্রেণীকে ঠকাতে কারসাজির খেলাটা শুরু হয়েছে। উদ্দেশ্য দ্বিমুখী শিকার। ১.গরিব ঠকিয়ে ধনীর শোষণের দাঁতটাকে আরো ধারালো করা। ২. এতিমখানা ও কওমী মাদরাসাগুলোর গরিব ছাত্র পালনের সামর্থ্য কমিয়ে দিয়ে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইসলামী শিক্ষা বিরোধী শক্তিগুলির সঙ্গে হাসি বিনিময় করা।
তাই কোনো মাদরাসা যদি ১০০/১৫০ টাকায় চামড়া বিক্রির (লুটেরা ট্যানারী মালিকদের পকেট মোটা করার আয়োজন) কথা না বলে সেই চামড়া মাটিতে পচিয়ে জৈবসার বানানোর উদ্দেশ্যে মাটিতে পুঁতে রাখেন তাহলেও তো মূল্যবান সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে বলা যাবে না। বরং তাতেও রয়েছে বিরাট উপকার।

চামড়ার ন্যায্যমূল্য নেই এটা নতুন নয়,এবছরও চামড়ার ন্যায্যমূল্য পাও যাবে না, তা ঈদের ২/৩ দিন পূর্ব থেকেই অনুমান হচ্ছিল। তাই উচিত ছিলো আমাদের বিকল্প পরিকল্পণা করার। যদি আমরা ন্যায্যমূল্য না পাই তাহলে আমাদের করনীয় কী হবে ?সে বিষয়ে শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরামগণের সাথে পরামর্শ করে বিকল্প সিদ্ধান্ত গ্রহন করে পূর্বপ্রস্তুতি নিয়ে রাখা।কিন্তু আমার মনে হয় আমরা তা করিনি। এরপরেও আমরা যখন ঈদের দিন বিকাল বেলা দেখলাম চামড়ার কোনো দাম নেই বললেই চলে কিংবা কোনো ব্যবসায়ী চামড়া দাম ক্রয় করতেই আসছে না তখনও আমরা বর্তমান প্রযুক্তির যুগে পরামর্শ করে সম্মিলিত সিদ্ধান্ত নিতে পারতাম।চামড়া ২৪ ঘন্টা থাকলেও নষ্ট না হবারই কথা।তাই আমরা সম্মিলিতভাবে তাৎক্ষণিক ঘোষনা দিতে পারতাম যে,আগামী ১২ ঘন্টার ভিতরে চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পেলে আমরা বিকল্প সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হব।ন্যায্যমূল্য না পেলে আমারা একটি চামড়াও বিক্রি করব না। তাতে দেনদরবার করে অবশ্যই একটি সফলতার মূখ দেখা সম্ভব ছিলো এবং চামড়া মাটিতে পুঁতে রাখা কিংবা নদীতে ভাসিয়ে দেবার প্রয়োজন হত না ।কিন্তু আমরা সেটি না করে সিংহভাগ মাদরাসা কর্তৃপক্ষ অসহায়ের মতো যত মূল্য পেয়েছি তত মূল্যেই রাজি হয়ে আত্মসমর্পণ করেছি।
মাত্র হাতেগোণা কয়েকটি মাদরাসা আমরা প্রতিবাদের অংশ হিসেবে চামড়া বিক্রি না করে মাটি পুঁতে ফেলেছি।এতে সম্মিলিতভাবে ঘোষনা দিয়ে বিক্রি করা থেকে বিরত থাকলে যে উপকার হতো তার সিকিভাগও অর্জন হয়নি।
এতকিছুর পরেও আমাদের যে সমস্ত মাদরাসা চামড়া বিক্রি না করে মাটিতে পুঁতে ফেলেছেন বা নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছেন কিংবা রাস্তায় ফেলে গিয়েছেন।তাদের এ কাজটি কী শরীয়ত সমর্থিত ? তাতে ভবিষ্যতে কোনো লাভ হবে বলে আশা করা যায়?

যারা চামড়া বিক্রয় করতে না পেরে নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছেন কিংবা রাস্তায় ফেলে গেছেন।তা কী শরীয়তসম্মত?
যেহেতু এ বিষয়ে শরীয়তের কোনো সুস্পস্ট বিবরণ পাওয়া যায় নাই।তাই এর জবাব দেবার পূর্বে প্রথমে শরীয়তের কিছু মূলনীতি উল্লেখ করছি ।
(١) الضرريزال (٢) يتحمل الضرر الخاص لأجل دفع الضررالعام (٣) الضرر الأشد يزال بالضرر الأخف (٤) درء المفاسد أولى من جلب المصالح (٥) الأمور بمقاصدها (الأشباه والنظائر)
১.ক্ষতি দূর করা হয়েছে ।২. নির্দিষ্ট এবং ব্যক্তিগত ক্ষতি বরদাশত করা যাবে ব্যাপক ক্ষতি দূর করার নিমিত্তে।
৩.বড় ক্ষতি দূর করা হবে ছোট ক্ষতির মাধ্যমে।
৪.কল্যাণ ও উপকার লাভ করার চেয়ে অকল্যাণ ও ক্ষতির কারণ দূর করাই উত্তম।
৫.প্রত্যেক বিষয় নিয়তের উপর নির্ভরশীল ।
এই সকল মূলনীতি সামনে রেখে বলতে চাই।
إن أصبت فمن الله وإن أخطئت فمني ومن الشيطان
চামড়া বিক্রি না করে নদীতে ভাসিয়ে দেয়া কিংবা রাস্তায় ফেলে রেখে চলে যাওয়া অবশ্যই মূল্যবান সম্পদ নষ্ট করা যা শরীয়তের দৃষ্টিতে না জায়েজ।কিন্তু একবার চিন্তা করে দেখুন এই সমস্ত মাদরাসা কর্তৃপক্ষ কেন এমন কাজ করলেন?এর পিছনে কারণ কী? এর একমাত্র কারণই হচ্ছে যেভাবে সেন্ডিকেট করে বিগত কয়েক বছর থেকে চামড়া মূল্যহীন করে কওমী মাদরাসার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তারা মনে করছে কওমী মাদরাসা চামড়ার মূল্যের উপর নির্ভরশীল ।তাই তারা এমন ন্যাক্কারজনক কাজে মেতে উঠেছে।যদিও ওরা বাহ্যিকভাবে কওমী মাদরাসার ক্ষতি করছে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে তবে প্রকৃতপক্ষে ওরা দেশের চামড়া শিল্পকেই ধ্বংশ করে দিচ্ছে।(কিন্তু তারা জানেনা যে, কওমী মাদরাসা আল্লাহর উপর নির্ভরশীল ।) তাই কওমী মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তাদের এই নীলনকশা এবং অপচেষ্টাকে প্রতিহত করতে ও মাদরাসার বিরুদ্ধে সুদূরপ্রসারী চক্রান্ত প্রতিরোধ করতে সর্বোপরি দেশের চামড়া খাতকে উদ্ধার করতে চামড়া পানিতে ভাসিয়ে দিয়ে সাময়িক ক্ষতিকে বরদাশত করেছেন মাত্র। যদিও সম্মিলিতভাবে চামড়া বিক্রি করা থেকে বিরত থেকে আল্টিমেটাম দিলে যে লাভ হতো তা বিক্ষিপ্তভাবে করায় হবে না ।তার পরও এই মাদরাসাগুলি সাহসীকতার পরিচয় দিয়ে এ কাজটি করায় দেশের মধ্যে একটা চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে ।দেশের মূলধারার গনমাধ্যমসহ অনলাইনে এই সংবাদ প্রচারিত হচ্ছে।এর একটা প্রভাব যে পরবে না তা বলা যাবে না বরং অবশ্যই এটি একটা প্রভাব বিস্তার লাভ করবে ।অন্ততপক্ষে আগামীতে চামড়ার একটা ন্যায্যমূল্য পাওয়া যাবে ।আর যদি না পাওয়া যায় তাহলে এবারের ন্যায় অসহায়ের মত কেহ আত্মসমর্পণ করবে না বরং বিকল্প চিন্তা অবশ্যই রাখা হবে।তাই চামড়া মাটিতে পুঁতে রাখা বা নদীতে ভাসিয়ে দেয়া কিংবা রাস্তায় ফেলে যাওয়া শুধু শুধু মূল্যবান সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে বলা যাবে না বরং এখানে ব্যক্তিগত ক্ষতি মেনে নেয়া হয়েছে ব্যাপক ক্ষতি থেকে বাঁচার জন্য। কল্যাণ ও উপকার লাভ করার চেয়ে অকল্যাণ ও ক্ষতির কারণ দূর করা হয়েছে। বৃহত্তর স্বার্থের জন্য ক্ষুদ্রতম স্বার্থ ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
সুতরাং চামড়া মাটিতে পুঁতে রাখায় কিংবা নদীতে ভাসিয়ে দেয়ায় মূল্যবান সম্পদ নষ্ট করা হয়েছে বলে না জায়েজ বলা যাবে না । والله اعلم بالصواب
(বি.দ্র.এটি লেখকের ব্যক্তিগত অভিমত। এতে অনেকের দ্বিমত থাকতেই পারে আবার কাহারও সহমত থাকতে পারে।)

এই সংবাদটি 1,057 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com