রবিবার, ১৮ আগ ২০১৯ ০৯:০৮ ঘণ্টা

কানাইঘাটে মাওলানা শিহাব উদ্দিন (রহ.) স্মরণ সভায় জমিয়ত মহাসচিব : অধিকার আদায়ে মাঠে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে

Share Button

কানাইঘাটে মাওলানা শিহাব উদ্দিন (রহ.) স্মরণ সভায় জমিয়ত মহাসচিব : অধিকার আদায়ে মাঠে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে

সিলেট রিপোর্ট:

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরের আমীর আল্লামা নূর হুসাইন কাসেমী বলেছেন, বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের উপর আজ দমন নিপিড়ন চলছে, তারপরও ইসলামের অগ্রযাত্রা কোন অপশক্তি থামিয়ে রাখতে পারবে না। তিনি বলেন, কাশ্মীর একটি স্বাধীন রাজ্য, কাশ্মীর ভারতের অংশ নয়। যারা কাশ্মীর কে ভারতের অংশ বলে তারা ইতিহাস জানে না।

আল্লামা ক্বাসেমী আরো বলেন, কাশ্মীর আজ হাহাকার করছে। তাদের আর্তচিৎকার দেখার কেউ নেই। বিশ্ববাসীকে একদিন এর জবাবদিহীতার কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। শুধু কাশ্মীর নয়, দুনিয়াজুড়ে মুসলমানরা আজ নির্যাতিত, অবহেলিত। দুনিয়াব্যাপী নির্যাতিত মুসলমানদের অধিকার আদায়ে মাঠে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। তিনি বলেন, ১৯৪৮ সালের জাতিসংঘের চুক্তি লঙ্ঘন করে ৩৭০ ধারা বাতিল পূর্বক গায়ের জোড়ে ভারত সরকার কাশ্মীরি নিরাপদ বনি আদমের উপর জুলুম নির্যাতন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের আয়োজন করছে। অবিলম্বে তাদের স্বাধীনতা ও মৌলিক অধিকার ফেরত দিতে হবে। জুলুম নির্যাতন বন্ধ করতে হবে, ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার করে মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপনের সুযোগ করে দিতে হবে। তাদের মৌলিক মানবাধিকার অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত তৌহিদি জনতা দূর্বার আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, ঈমানী চেতনার বলিয়ান হয়ে নির্যাতিত কাশ্মীরিদের অধিকার আদায়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, জমিয়তের নেতাকর্মীদের আল্লামা শিহাব উদ্দিনের মতো একেকজন সিপাহশালা’র হয়ে সকল বাঁধা উপেক্ষা করে সংগঠনের কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে হবে। সভা শেষে আল্লামা শায়খ শিহাব উদ্দিন (রহ.) রুহের মাগফেরাত ও বিশ্বে নির্যাতিত মুসলিম উম্মাহর জন্য বিশেষ মোনাজাত করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি।

শনিবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে কানাইঘাট উপজেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের উদ্যোগে পৌরসভাস্থ ইউনিক কমিউনিটি সেন্টারে শায়খুল হাদীস আল্লামা শিহাব উদ্দিন (রহ.) এর জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি আল্লামা শফিকুল হক ও নির্বাহী সভাপতি মাওলানা নুর আহমদ ক্বাসেমী। উপজেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মুফতি এবাদুর রহমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা খলিলুর রহমানের যৌথ পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি আল্লামা শায়খ যিয়া উদ্দিন, সহ-সভাপতি আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক, প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাফিজ হুসাইন আহমদ, স্বাগত বক্তব্য রাখেন কানাইঘাট উপজেলা জমিয়তের নির্বাহী সভাপতি মাওলানা নুর আহমদ ক্বাসেমী।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন সিলেট মহানগর জমিয়তের সাধারন সম্পাদক মাওলানা ফখরুজ্জামান, কানাইঘাট পৌর বিএনপির সভাপতি কাউন্সিলর শরিফুল হক, গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা জমিয়তের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা গোলাম আম্বিয়া কয়েছ, জেলা জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক হাজী জসিম উদ্দিন, উপজেলা খেলাফত মজলিসের সভাপতি এবাদুর রহমান, সাধারন সম্পাদক ও ইউপি সদস্য ছাব্বির আহমদ, চতুল ঈদগাহ মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা তবারক আলী, শায়খ শিহাব উদ্দিনের পুত্র মাওলানা নজমুদ্দীন, উপজেলা যুবদলের সেক্রেটারী খসরুজ্জামান, সহ সভাপতি মাওলানা হেলাল আহমদ, মাওলানা সামসুল ইসলাম, মাওলানা কামাল আহমদ, মাওলানা নজির আহমদ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা সালিম আহমদ, হাফিজ আলবাবুর রহমান, মুফতি মোহাম্মদ আলী, জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক হাফিজ ফয়েজ উদ্দিন, আব্দুর রহমান নাদিম, উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হাফিজ রিয়াজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন, উপজেলা যুব জমিয়তের সভাপতি মাওলানা কামাল উদ্দিন, সেক্রেটারী আব্দুশ শাকুর, ইমরান হোসাইন চৌধুরী, মুসলেহ উদ্দিন, কাওছার আহমদ, আলী আহমদ, আব্দুশ শহিদ, আতিকুর রহমান, শিব্বির আহমদ, মাওলানা নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

ইসলামী সংগীত পরিবেশন করেন জাগরণ ইসলামী সাংস্কৃতিক দলের পরিচালক হাফিজ মাওলানা আব্দুল করিম দিলদার।

এই সংবাদটি 1,029 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com