বুধবার, ২১ আগ ২০১৯ ০৩:০৮ ঘণ্টা

কাশ্মীরে মুসলিম গণহত্যা বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত জমিয়ত মাঠে থাকবে: শাহীনুর পাশা চৌধুরী

Share Button

কাশ্মীরে মুসলিম গণহত্যা বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত জমিয়ত মাঠে থাকবে: শাহীনুর পাশা চৌধুরী

সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ সভাপতি সাবেক সাংসদ এডভোকেট মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী বলেছেন, ‘কাশ্মীরে মুসলিম গণহত্যা বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত জমিয়ত কর্মীরা মাঠে থাকবে। ভারত সরকার কাশ্মীরীদের অধিকার ছিনিয়ে নিয়েছে। তাদের অধিকার তাদের কাছেই ফিরিয়ে দিতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ভারত উপমাহাদেশ স্বাধীন করেন জমিয়ত নেতৃবৃন্দ এবং আকাবিরে দেওবন্দ। অল পাকিস্থান স্বাধীনের পর পশ্চিম পাকিস্থানে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেছিলেন, জমিয়ত নেতা মাও. শিব্বির আহমদ উসমানী এবং পূর্ব পাকিস্থানে জমিয়ত নেতা মাও. যফর আহমদ উসমানী। কাশ্মীরকেও স্বাধীন করতে আমাদের উলামায়ে কেরাম অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

তিনি বলেন, কাশ্মীরে নির্যাতিত মুসলমানদের উপর ভারতীয়দের ন্যক্কারজনক অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে অনতিবিলম্বে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষথেকে বিবৃতি আসুক। অন্যথায় আবার শাপলা চত্বর কায়েম হবে।

ছাত্র জমিয় বাংলাদেশ ৫নং ফতেপুর (হরিপুর) ইউ/পি শাখার উদ্যোগে আয়োজিত ১৯ আগস্ট (সোমবার) বিকাল ৫টায় কাউন্সিল অধিবেশন এবং কাশ্মীরে ভারতীয় আগ্রাসন ও গণহত্যা চক্রান্তের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী এসব কথা বলেন।

মাওলানা জাকারিয়া আহমাদের সভাপতিত্বে ও হাফেজ জামাল উদ্দীন ও ফয়সল আহমাদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পবিত্র কুর’আনে কারীম থেকে তিলাওয়াত করেন হাফেজ আব্দুল কাইয়্যুম, সঙ্গীত পরিবেশন করেছে, আব্দুস সালাম।

প্রাধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাও. জয়নাল আবেদীন। তিনি বলেন, ভারত কাশ্মীর যুদ্ধ হলে আমরা বাংলাদেশের মুসলমানরা কাশ্মীরের পক্ষে থাকবো। ভারত কাশ্মীরে যা করছে, যা নিপীড়ন এবং কাশ্মীরিদের ন্যায্য অধিকারকে হরণ করা। মানবাধিকার প্রশ্নে পশ্চিমা সম্প্রদায় একচোখা নীতি পালন করছে। তারা মানবাধিকারের মিথ্যা প্রশ্ন তুলে একের পর এক মুসলিম দেশ ধ্বংস ও ছারখার করে দিচ্ছে। অন্যদিকে কাশ্মীরের বিষয়ে মুখ খুলছে না। মুসলিম নিধনে গোটা বিশ্বের অমুসলিম সম্প্রদায় ঐক্যবদ্ধ। দুর্ভাগ্যজনক হচ্ছে, আমরা মুসলমানরা নিজেদের অধিকার ও স্বার্থ রক্ষায় এক হতে পারছি না। দুশমনরা এই সুযোগটাকে ভালভাবে কাজে লাগাচ্ছে।

মাওলানা জয়নাল আবেদীন মুসলিম ঐক্যের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, গোয়াইনঘাট উপজেলার জননন্দিত ভাইস চেয়ারম্যান, সিলেট জেলা জমিয়তের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক, মাও গোলাম আম্বিয়া কয়েস, জৈন্তাপুর উপজেলা জমিয়তের সেক্রেটারি মাও. কবির আহমাদ, সিলেট মহানগর যুব জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাও. আব্দুল করিম দিলদার, সিলেট মহানগর যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মাও. মাহদী হাসান মিনহাজ, যুব জমিয়ত গোয়াইনঘাট উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাও. আবুল হাসনাত।

প্রধান বক্তা হিশেবে বক্তব্য রাখেন, যুব জমিয়ত সিলেট জেলা শাখার সহ সভাপতি মাও. জফির উদ্দীন, বিশেষ বক্তা হিশেবে বক্তব্য রখেন, ছাত্র জমিয়ত সিলেট জেলা শাখার প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাও. লুকমান হাকিম।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, মাও. সালমান বিন বিলাল, মাও. সেলিম আহমাদ, হা. জুনাইদ, লুৎফুর রহমান, হারুনুর রশিদ, সুহাইল আহমাদ, রায়হান আহমদ, কবির আহমদ প্রমূখ।

সববশেষে মাও. সেলিম আহমাদকে সভাপতি ও ফয়সল আহমাদকে সাধারণ সম্পাদক, রায়হান আহমাদকে সাংগঠনিক সম্পাদক, হা. জুবায়েরকে প্রচার সম্পাদক, হা. কবির আহমাদকে অর্থ সম্পাদক করে ৪১ সদস্য বিশিষ্ট ১৯-২০ সেশনের কমিঠি ঘোষণা করা হয়।

এই সংবাদটি 1,032 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com