বুধবার, ২১ আগ ২০১৯ ০৩:০৮ ঘণ্টা

ভয়াল ২১শে আগস্ট আজ

Share Button

ভয়াল ২১শে আগস্ট আজ

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশের ইতিহাসে নৃশংস সহিংসতার ঘটনাগুলির একটি অন্যতম হচ্ছে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে জড়ো হয়েছিলেন সিনিয়র নেতারা। দলটির প্রধান এবং তখনকার বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনা ছিলেন ওই সমাবেশের প্রধান অতিথি।

আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে রাস্তায় একটি ট্রাকে অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছিল। বিকাল ৩টা থেকে দলটির কিছু মধ্যম সারির নেতা বক্তব্য দেয়া শুরু করেন।

বিকাল ৪টার দিকে শুরু হয় আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের বক্তব্য দেয়ার পালা। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা তখনও এসে পৌঁছাননি। দলের নেতাকর্মী এবং সমর্থকরা শেখ হাসিনার বক্তব্য শোনার অপেক্ষায় ছিলেন।

শেখ হাসিনার বক্তব্য শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দফায়-দফায় বিস্ফোরণের শব্দে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে। সমাবেশে উপস্থিত আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রথমে বুঝতে পারেননি যে এটি ছিল গ্রেনেড হামলা। অনেকেই ভেবেছিলেন বোমা হামলা। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা ঘটনার ভয়াবহতা সম্পর্কে আঁচ করেছিলেন।

যখন গ্রেনেড হামলা শুরু হয়, তখন মঞ্চে বসা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা শেখ হাসিনার চারপাশে ঘিরে মানবঢাল তৈরি করেন, যাতে তার গায়ে কোনো আঘাত না লাগে।

ইতিহাসের বর্বরোচিত ও নৃশংস ছিল এ হামলা, যা আগে কোনো দিন কেউ প্রত্যক্ষ করেনি। এ সময় দ্রুত মানবঢাল বানিয়ে শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়েছিলেন উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীরা। ভয়াবহ সেই গ্রেনেড হামলায় নিহত হয়েছিলেন ২৪ জন, আহত হন ৪০০ জন। অনেকে পঙ্গুত্ব বরণ করেন। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর বুধবার, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষণা করেন রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন। নারকীয় গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেন আদালত। যাবজ্জীবন দন্ড দেয়া হয় তারেক রহমানসহ ১৯ জনকে। এ ছাড়াও ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়।

এই নৃশংস ঘটনায় তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রয়াত প্রেসিডেন্ট জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই গ্রেনেড হামলা থেকে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান। এতে অল্পের জন্য শেখ হাসিনা প্রাণে বেঁচে গেলেও গ্রেনেডের প্রচন্ড শব্দে তার শ্রবণশক্তিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। ভয়াবহ ওই ঘটনায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, দলের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মী, আইনজীবী, সাংবাদিকসহ পাঁচ শতাধিক মানুষ আহত হন।

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com