রবিবার, ১৩ নভে ২০১৬ ০৭:১১ ঘণ্টা

হুমায়ূন আহমেদের কবরে মোজানাতে অংশ নিলেন জাফর ইকবাল

Share Button

হুমায়ূন আহমেদের কবরে মোজানাতে অংশ নিলেন জাফর ইকবাল

ডেস্ক রিপোর্ট:  হুমায়ূন আহমেদের নিজ হাতে গড়া গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালীতে অবস্থিত নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের ৬৮তম জন্মদিন উদযাপন করা হয়েছে।

বাংলা সাহিত্যের জননন্দিত কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের এবারের জন্মদিনে শনিবার রাতে নুহাশপল্লীতে মোমবাতি প্রজ্বলন করা হয়। রবিবার ভোরে হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন নুহাশ পল্লীতে আসেন। সকাল সোয়া ৯টার দিকে শাওন, ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং ফাতেহা পাঠ করেন ও মোজানাতে অংশ নেন।

মেহের আফরোজ শাওন বলেন, হুমায়ূন আহমদের জন্মদিনটি উদযাপন করতে ভাল লাগে। বাংলাদেশের এমনকি পৃথিবির আনাচে কানাচে যেখানে বাংলা ভাষাভাষির মানুষ আছেন তারাও ছোট্ট করে হলেও হুময়ূন আহমেদের জন্মদিনটা উদযাপন করে। হুমায়ূন আহমেদ একজন জীবনবাদী মানুষ ছিলেন। সে জায়গা থেকে তিনি অনন্তকাল বেঁচে থাকতে চাইতেন।
সকাল পৌণে ১০টার দিকে আহমেদের ভাই ড. অধ্যাপক মো. জাফর ইকবাল, ছোটভাই কার্টুনিস্ট আহসান হাবীব এবং তিন বোন সুফিয়া হায়দার, মমতাজ শহীদ, রোকসানা আহমেদসহ তাদের পরিবারের সদস্যরা নুহাশপল্লীতে আসেন এবং কবর জিয়ারত করেন।

ড. জাফর ইকবাল বলেন, হুমায়ূন আহমেদ যত গুলো বই রেখে গেছে। যতদিন বাংলাদেশের কিংবা পৃথিবীর অন্য সব জায়গার বাঙ্গালীরা সে বইটা পড়বে ততদিন হুমায়ুন আহমেদ বেঁচে থাকবে। তার নাটক সিনেমা গুলি যতদিন মানুষ দেখবে ততদিন হুমায়ুন আহমেদ বেঁচে থাকবে।

অপর ভাই আহসান হাবীব বলেন, হুমায়ূন আহমেদ খুবই রসিক ছিলেন। তিনি আমাদের পরিবারের সমস্ত আনন্দ উৎসবের প্রধান ব্যক্তি ছিলেন। তাকে এ কারণে বেশি মিস করি। নূহাশ পল্লীতে যতবার এসেছি তার সঙ্গে এসেছি। এখন তাকে ছাড়া আসতে হচ্ছে। এটা একটা বেদনাদায়ক ব্যাপার।

সকাল থেকেই হুমায়ূন আহমেদের ভক্তরা নুহাশপল্লীতে আসেন। তাদের অনেকেই প্রিয় লেখকের কবরে ফুল দেন এবং নীবরে দাঁড়িয়ে থেকে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

এই সংবাদটি 1,049 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com