সোমবার, ০২ সেপ্টে ২০১৯ ০৯:০৯ ঘণ্টা

ইতিহাস বিখ্যাত একজন মৌলভী মুহম্মদ নূরুল হক

Share Button

ইতিহাস বিখ্যাত একজন মৌলভী  মুহম্মদ নূরুল হক

মোঃ আফতাব উদ্দিনঃ
মুহম্মদ নূরুল হক। একটি নাম, একটি ইতিহাস। গ্রন্থাগার আন্দোলনের পথিকৃৎ, সিলেটে সাহিত্য-সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অগ্রসৈনিক মুহম্মদ নূরুল হক কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। তিনি অর্ধ শতাব্দীকাল নিজ মেধা, শ্রম ও একাগ্রতা নিয়ে এই সংসদের পাঠাগারকে একটি সমৃদ্ধ পাঠাগারে রূপ দিয়ে যান। ভাষা সৈনিক, মাসিক আল-ইসলাহ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক মুহম্মদ নূরুল হক ১৯০৭ সালে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা হাজী মুহম্মদ আয়াজ ফার্সী সাহিত্যে পারদর্শী ছিলেন। নূরুল হক শৈশবে গ্রামের প্রাইমারি স্কুল, কৈশোরে রায়কেলী এম.ই স্কুল, ফুলবাড়ি জাতীয় মাদ্রাসা, বেলাব অঞ্চলের আমলাব সিনিয়র মাদ্রাসা ও সর্বশেষ সিলেট সরকারি আলীয়া মাদ্রাসায় অধ্যয়ন করেন । এম.ই. স্কুলে পাঠকালীন সময়ে তিনি নিজ গ্রামে একটি পাঠাগার স্থাপন করেন। তখন থেকেই তাঁর লেখালেখির জগতে প্রবেশ । ১৯৮৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর তিনি ইন্তেকাল করেন।
মরহুম মুহম্মদ নূরুল হক সিলেট সরকারী আলিয়া মাদ্রাসায় অধ্যয়নকালে প্রথমে ‘অভিযান’ নামে একটি হাতে লেখা পত্রিকা বের করেন। ১৯৩১ সালে এই পত্রিকাই মাসিক ‘আল-ইসলাহ্’ নামে আত্মপ্রকাশ করে মুদ্রিত আকারে বের হয়। শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া সিলেট তথা আসাম অঞ্চলের জনগোষ্ঠী বিশেষ করে মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে জাগরণ সৃষ্টির লক্ষ্যেই নূরুল হক আল ইসলাহ প্রকাশ করেন। এই মাসিক পত্রিকা প্রকাশের পর সিলেটের তৎকালীন সমাজে ব্যাপক সাড়া পড়ে যায়। শুরুতেই শুধুমাত্র সিলেট সরকারী আলীয়া মাদ্রাসায় এর গ্রাহক সংখ্যা ছিল তিনশত। সে সময় কোন প্রত্রিকা প্রকাশ করা ও তার প্রকাশনা অব্যাহত রাখা দুঃসাধ্য ছিল। কিন্তু নূরুল হকের এই সাহস দেখে সকলে বিস্মিত হন।
তৎকালীন সময়ে নূরুল হকসহ সিলেটের সাহিত্য সংস্কৃতি কর্মীরা বিভিন্ন স্থানে আলোচনায় মিলিত হতেন। তাঁরা নানা বিষয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরতেন। ১৯৩৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর নূরুল হক তাঁর বন্ধু কবি আব্দুর রাজ্জাককে সাথে নিয়ে প্রখ্যাত দার্শনিক দেওয়ান মুহাম্মদ আজরফের সাথে দেখা করেন। ওই সময় দেওয়ান আজরফ সিলেটের দরগা মহল্লায় তাঁর বোনের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। সাহিত্য বিষয়ক আলোচনার পর আজরফ সাহেব সিলেটে একটি সাহিত্য সমিতি গঠন করার প্রস্তাব করেন। নূরুল হক এ প্রস্তাবে সানন্দে রাজি হন এবং সমিতি গঠনের জন্য সক্রিয় তৎপরতা শুরু করেন। কারণ, অনুরূপ একটি সমিতির প্রয়োজনীয়তা দীর্ঘদিন থেকে তিনি নিজেই অনুভব করে আসছিলেন। বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক সরেকওম এ,জেড আব্দুল্লাহর সহযোগিতায় পরের দিন ১৬ সেপ্টেম্বর তাঁর বাস ভবনে নূরুল হক একটি সভার আয়োজন করেন। ওই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ‘সিলহেট মুসলিম সাহিত্য সংসদ’এর আত্মপ্রকাশ ঘটে। সভায় খান বাহাদুর দেওয়ান একলিমুর রেজা চৌধুরীকে সভাপতি, সরেকওম এ জেড আব্দুল্লাহকে সম্পাদক এবং আল ইসলাহ সম্পাদক মুহম্মদ নূরুল হকসহ দশজনকে সদস্য করে সর্বমোট ১৬ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। ১৯৩৮ সালে সংসদের প্রথম বার্ষিক অধিবেশনে নূরুল হক যুগ্ম সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ এবং ১৯৩৯ সালে দ্বিতীয় বার্ষিক অধিবেশনে তিনি সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব পান। ওই বছরের ২৮ জুন সংসদের কার্যকরী কমিটির বৈঠকে প্রতিষ্ঠানটির নাম ‘কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেট’এ রূপান্তরিত হয়। বৈঠকে গৃহিত অপর এক সিদ্ধান্তে মুহম্মদ নূরুল হকের মাসিক আল ইসলাহ’কে সংসদের মুখপত্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়। তিনি আজীবন এ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। সংসদের মুখপত্র হিসেবে এখনো এ পত্রিকার প্রকাশনা অব্যাহত রয়েছে। ১৯৮৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত নূরুল হক প্রায় পঞ্চাশ বছর মুসলিম সাহিত্য সংসদের সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ ছিলেন।
আমাদের ভাষা আন্দোলনে মরহুম নূরুল হক, মাসিক আল ইসলাহ ও মুসলিম সাহিত্য সংসদ বিশেষ ভূমিকা পালন করে। নূরুল হক ১৯৪৭ সালে বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবি জানান। তিনি মুসলিম সাহিত্য সংসদ, মাসিক আল ইসলাহ ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে সভা সমাবেশসহ নানা পদক্ষেপ গ্রহন করেন। তিনি ১৯৪৬-৪৭ সালে আসাম সেন্ট্রাল বুক কমিটির সদস্য নিযুক্ত হন। ১৯৬১ সালে সিলেটে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক নজরুল সাহিত্য সম্মেলনের মূল উদ্যোক্তা ছিলেন তিনি। একই বছর রবীন্দ্র শত বার্ষিকী অনুষ্ঠানের সাহিত্য বিভাগেরও দায়িত্ব পালন করেন নূরুল হক। তিনি ১৯৬৫ সালে গঠিত সিলেট প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সহসভাপতি ছিলেন।
অধ্যাপক আবুল ফজল রাষ্ট্রপতির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য থাকাকালে ১৯৭৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর সংসদ পরিদর্শন করে মন্তব্য বইয়ে লিখেন, ‘সিলেট মুসলিম সাহিত্য সংসদ ও তার লাইব্রেরী দেখে আমি অত্যন্ত আনন্দিত ও মুগ্ধ হয়েছি। এ সংসদের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক জনাব নূরুল হক সাহেবের এ সংসদ ও সাহিত্যের ক্ষেত্রে যে ত্যাগ ও আত্মোৎসর্গ এর কোন তুলনা হয়না । তাঁর এ আত্মোৎসর্গ আজ আমাদের ইতিহাসে এক কিংবদন্তী হয়ে আছে।’ ১৩৫০ বাংলার ৭ চৈত্র সংসদ পরিদর্শনে এসে মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেন, ‘শ্রীহট্র মুসলিম সাহিত্য সংসদে পা দেবার আগে কল্পনাও করতে পারিনি আমার জন্য এতখানি বিস্ময় ও আনন্দ সঞ্চিত আছে। —–নূরুল হক সাহেবের সাধনা সফল হোক এই প্রার্থনা।
মরহুম মুহম্মদ নূরুল হককে সাহিত্য ও সমাজসেবার স্বীকৃতিস্বরূপ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন পদক ও সম্মানে ভূষিত করে। ১৯৭৭ সালের ১৪ এপ্রিল নূরুল হক জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র স্বর্ণপদক লাভ করেন। ১৯৮৬ সালের ৪ জানুয়ারী বাংলা একাডেমী তাঁকে ফেলোশীপ প্রদান করে। তিনি ১৯৮৭ সালে মরহুম আমীনূর রশীদ চৌধুরী স্মৃতি স্বর্ণপদকও লাভ করেন। এ ছাড়া, সাহিত্য ও সমাজ সেবার স্বীকৃতি স্বরূপ নূরুল হক ১৯৬৩ সালে পাকিস্তান সরকার থেকে ‘তমঘা-ই-খেদমত’ উপাধি লাভ করেন। কিন্তু ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে তিনি উক্ত উপাধি প্রত্যাখ্যান করেন।
নিরব সমাজকর্মী মরহুম মুহম্মদ নূরুল হক একজন দক্ষ সাহিত্য সংগঠক, আল ইসলাহ সম্পাদক, ভাষা সৈনিক কিংবা গ্রন্থাগার আন্দোলনের পথিকৃতই ছিলেননা, তিনি ছিলেন একজন প্রথিতযশা সাহিত্যিকও । তাঁর মোট ৭টি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তাঁর প্রকাশিত উল্লে¬খযোগ্য গ্রন্থগুলো হচ্ছে-বিশ্ব নেতা, ফারুক চরিত্রের বৈশিষ্ট্য, সংবাদপত্র সেবায় সিলেটের মুসলমান, বিগত যুগের আদর্শ ও আলোক স্তম্ভ। তিনি বাংলাদেশ বেতার সিলেট কেন্দ্রের জন্মলগ্ন থেকে এর নিয়মিত কথক ছিলেন। মুহম্মদ নূরুল হক ৬ পুত্র ও ৪ কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর সন্তানদের প্রায় সকলেই উচ্চ শিক্ষিত ও সাহিত্য ও সাংবাদিকতার সাথে জড়িত।

এই সংবাদটি 1,039 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com