বুধবার, ০৪ সেপ্টে ২০১৯ ০৫:০৯ ঘণ্টা

ফ্রি ভিসায় লোক নিয়ে দালালদের কাছে বিক্রি!

Share Button

ফ্রি ভিসায় লোক নিয়ে দালালদের কাছে বিক্রি!

মারুফ রানা দোহা কাতার থেকেঃ

বেশির ভাগ দেশে বাংলাদেশের শ্রমবাজার বন্ধ থাকার সুযোগ নিয়ে এক শ্রেণীর জনশক্তি ব্যবসায়ী ফ্রি ভিসার নামে বিভিন্ন দেশে কর্মী পাঠাচ্ছে। তাদের কাছ থেকে বড় অংকের টাকা নিয়ে কাজ ছাড়া কর্মীদের বিভিন্ন দেশে দালাল চক্রের হাতে বিক্রি করছে। সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর দালালরা তাদের বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজে লাগিয়ে বড় অংকের টাকা তারাই হাতিয়ে নিচ্ছে। বেশ কয়েকটি জনশক্তি রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ে এ ধরনের অভিযোগ জমা পড়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কি ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে তা জানা যায়নি। জনশক্তি রফতানিকারকদের বাইরেও অনেক দালাল চক্র ফ্রি ভিসায় বিদেশে কর্মী পাঠানোরও অভিযোগ রয়েছে। এ ধরনের প্রতারণা ঠেকাতে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেছে।
সূত্র জানিয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকটি দেশে বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ বন্ধ রয়েছে। এ সব দেশে ফ্রি ভিসার নামে প্রতারণা চলছে। বিশেষ করে কুয়েত, কাতার, দুবাই, সৌদি আরব ও ওমানে ফ্রি ভিসায় কর্মী পাঠানো হচ্ছে। ফ্যামিলি ভিসা, ভিজিট ভিসা, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারিং ভিসা, খাদেম (বাসা) ভিসা, কোম্পানির ভিসাসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরির ভিসা দিয়ে আসছে। ব্যবসায়ী ও দালাল চক্র এই সুযোগ নিয়ে হাজার হাজার ফ্রি ভিসা করিয়ে নিচ্ছে। এই ভিসার নাম করে মধ্যপ্রাচ্যসহ কয়েকটি দেশে কর্মী পাঠানো হচ্ছে। বৈধ ভিসা ও ওয়ার্ক পারমিট না থাকায় এসব দেশে গিয়ে কোন কাজ পাচ্ছেন না কর্মীরা। কেউ কেউ ওই দেশে থাকা দালালের হাতে পড়ে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। তাদের গোপনে বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ দিয়ে বেতনের অর্ধেকের বেশি টাকা দালাল চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে। আর এতে তারা অমানবিক জীবনযাপন করছেন।
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, তারা দূতাবাসের মাধ্যমে ফ্রি ভিসার বিষয়টি জেনেছেন। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের চাহিদাপত্র অনুযায়ী ভিসা ইস্যু হয়। এ ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন লাগে। কিন্তু ভিজিট ভিসা বা ফ্যামিলি ভিসায় কেউ গেলে তার কোন অনুমোদন মন্ত্রণালয় থেকে লাগে না। ফলে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো এ ধরনের ভিসা দিলে তো আমাদের কিছু বলার নেই। তবে যেসব দেশে ফ্রি ভিসায় গিয়ে থেকে যেতে চায় তাহলে তাকে নানা ধরনের প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তাদের পুলিশের হাতে আটক হতে হয়। আবার কাউকে দেশেও ফিরতে হয়েছে। এমন ঝুঁকি নিয়ে বিদেশে না যাওয়ার মন্ত্রণালয় থেকে প্রচার চালানো হচ্ছে। তবু এই অনিয়ন্ত্রিত বিদেশগামীদের থামনো যাচ্ছে না।
এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী ও দালাল চক্রের প্রলোভনে ভাল বেতনের আশায় বড় অঙ্কের টাকা দালালদের হাতে তুলে দিয়ে তারা বিদেশ যাচ্ছে বলে মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান। তিনি বলেন, অনিয়ন্ত্রিত অভিবাসন বন্ধ করতে বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। বিষয়টি তারা দেখছে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নানা ধরনের প্রচার কাজ করে যাওয়া হচ্ছে। যাতে কেউ দালাল চক্রের খপ্পরে পড়ে বিদেশ গিয়ে বিপদে না পড়েন। ফ্রি ভিসা বলে কিছু না থাকলেও মূলত কিছু অসাধু বাংলাদেশী স্থানীয়দের যোগসাজশে ফ্রি ভিসার নামে প্রতারণা চলছে। সাধারণ কর্মীদের সর্বস্ব বিক্রি করে বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে। বিদেশে যাওয়ার পরে কর্মীরা অসহায় হয়ে পড়েন। তখন তাদের আর কিছু বলার থাকে না।
দেশে ২০১২ সালে মানবপাচার রোধে আইন করা হয়। ওই আইনে মানবপাচারকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। অথচ মানবপাচারের কোন মামলাই কারো তেমন কোন বড় শাস্তি হয়নি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, ২০১২ সালে মানবপাচার আইন হওয়ার পর থেকে ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত ৫ হাজার ৭১৬টি মামলা হয়েছে। কিন্তু এই মামলাগুলোর নিষ্পত্তির হার খুবই সামান্য। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এসব মামলার অধিকাংশেরই এখন পর্যন্ত বিচার হয়নি। পাচার রোধে যথেষ্ট পদক্ষেপ না নেয়ায় গত কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের মানবপাচার প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে ‘টায়ার-২ ওয়াচ লিস্টে’ রেখেছে। মানব পাচারের দিক থেকে বাংলাদেশের স্থান অনেক ওপরে। পুলিশ মানবপাচারের মামলা নিতেও আগ্রহী নন।
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, দালাল চক্রের মাধ্যমে যারা বিদেশ যাচ্ছে তাদের জন্য মন্ত্রণালয়ের কোন দায় দায়িত্ব নেই। তারা তো মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে যাচ্ছেন না। আমরা এ ধরনের অভিবাসনকে অনিয়ন্ত্রিত অভিবাসন বলি। এটা রোধ করবে রাষ্ট্রের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এক প্রশ্নের জবাবে ওই কর্মকর্তা বলেন, আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে যারা লাইসেন্স নিয়ে এমন কাজ করছেন তাদের সম্পর্কে অভিযোগ প্রমাণিত হলে লাইসেন্স বাতিল করা হবে। এমন কি তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। তবে ঢাকার বাইরে বেশ কয়েকটি লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। যারা এখনও বায়রার সঙ্গে যুক্ত হননি। তাদের বিষয়ে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

এই সংবাদটি 1,096 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com