বুধবার, ১১ সেপ্টে ২০১৯ ১২:০৯ ঘণ্টা

সিলেটে সাংবাদিকতায় প্রাতিষ্ঠানিক কোর্স চালু হচ্ছে অক্টোবরে

Share Button

সিলেটে সাংবাদিকতায় প্রাতিষ্ঠানিক কোর্স চালু হচ্ছে অক্টোবরে

মশাহিদ আলী : দিন দিন বাড়ছে সংবাদপত্র। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে অনলাইন ভিত্তিক সংবাদ পোর্টাল। এরফলে সাংবাদিকতার ক্ষেত্র হয়েছে বিস্তৃত। সিলেটেও একটি সময় ছিল হাতে গোনা দু-একটি সাপ্তাহিক পত্রিকা। আজ সেই সিলেট অঞ্চলে হু হু করে বেড়েছে দৈনিক পত্রিকার সংখ্যা। সাথে সাপ্তাহিক পত্রিকার সংখ্যাটাও নেহায়েত মন্দ নয়। আর বর্তমানে সংবাদপত্রের জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে অনলাইন গণ-মাধ্যম। ফলে সংখ্যায় সিলেটে অনলাইন পোর্টালের সংখ্যা রয়েছে প্রায় শতাধিক। রয়েছে অনলাইনে কর্মরত সাংবাদিকতার মান নিয়ে প্রশ্ন। যতোই দিন যাচ্ছে-ততোই তরুণদের একটি অংশ ঝুঁকে পড়ছে এই মাধ্যমগুলিতে।

তবে যে হারে অনলাইন পোর্টালের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, সে হারে বাড়ছেনা প্রশিক্ষিত সংবাদকর্মী। এ বিষয়ে গড়ে উঠেনি প্রাতিষ্ঠানিক স্বতন্ত্র্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। এমনকি নগরীতে যে কয়টি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে-সেখানেও চালু করা হয়নি সাংবাদিকতা বিষয়ক কোনো কোর্স। ফলে এমন একটি প্রতিষ্ঠানের অভাব ছিল দীর্ঘদিনের। সিলেটের সাংবাদিকদের পদচারণা রয়েছে জাতীয় অঙ্গণে। এমনকি দেশের শীর্ষস্থানীয় জাতীয় দৈনিকগুলোর শীর্ষ পদেও দায়িত্ব পালন করছেন সিলেটের সাংবাদিকরা। সিলেটের সেই সুনাম ধরে রাখতে হলে প্রয়োজন সাংবাদিকতা বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী। বর্তমানে সেই জায়গাটি পূরণ করতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি। ফলে সিলেটে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো সাংবাদিকতা কোর্স চালু হচ্ছে সিলেটে। আগামী মাস (অক্টোবর) থেকেই এই কোর্স চালু করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। একই প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে পরবর্তী বছর থেকে সাংবাদিকতা বিভাগের অধীনে বিএসএস (অনার্স) কোর্স চালুর সিদ্ধান্তও নিয়েছে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিটি ক্যাম্পাসের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

কোর্স চালুর বিষয়ে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সালেহ উদ্দিন বলেন, ‘স্বাধীনতার পর দেশে সংবাদকর্মীদের কাজের ক্ষেত্র যতটা সম্প্রসারিত হয়েছে, এ ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনশক্তির অভাবও ততোটাই বেড়ে চলেছে। এর প্রধানতম কারণ, তাদের জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণকেন্দ্রের অভাব। তাই সংবাদমাধ্যমে কাজ করার জন্য একটি প্রশিক্ষিত জনশক্তি গঠনের লক্ষ্যে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি সিলেটে এই প্রথম সাংবাদিকতায় একটি সার্টিফিকেট কোর্স চালুর উদ্যোগ নিয়েছে।’

সালেহ উদ্দিন জানান, এই সার্টিফিকেট কোর্সের মেয়াদ হবে তিন মাস। ন্যূনতম স্নাতক পাস করা যে কেউ এই কোর্সে ভর্তি হতে পারবেন। সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার বা শনিবার এই কোর্সের ক্লাস হবে। প্রতিটি ক্লাসের দৈর্ঘ্য হবে ৩ ঘন্টা। সার্টিফিকেট কোর্সের ফি রাখা হয়েছে ৮ হাজার টাকা। তবে আগামী মাসে উদ্বোধনী ব্যাচের জন্য কোর্স ফি-তে ৩ হাজার টাকা ছাড় দেওয়া হচ্ছে। এই কোর্সের প্রতি ব্যাচে শিক্ষার্থী সংখ্যা হবে ৩০ জন।

উপাচার্য জানান, এ বছরের শেষ দিকে সিলেট শহরতলির বটেশ্বরস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে পুরোদমে কার্যক্রম শুরু করবে মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি। সেখানে সাংবাদিকতা বিভাগের অধীনে বিএসএস (অনার্স) কোর্স চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই লক্ষ্যে গুণগত মানসম্পন্ন শিখনফলভিত্তিক পাঠ্যসূচি (আউটকাম বেইজড কারিকুলাম) প্রণয়নের কাজ দ্রুত চলছে।

ড. সালেহ উদ্দিন জানান, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত ইন্সটিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স সেল (আইকিউএসি) আছে। এই সেলের কারিকুলাম বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধানে সাংবাদিকতা কোর্সের কারিকুলাম তৈরি করা হয়েছে। এই কারিকুলাম মানসম্পন্ন ও সহজবোধ্য হবে। সিলেটের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে এই প্রথম এ ধরনের কোর্স শুরু হলো।

মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে সিনিয়র সাংবাদিক ও দৈনিক শ্যামল সিলেট পত্রিকার নির্বাহি সম্পাদক আবদুল মুকিত বলেন, এই উদ্যোগ নি:সন্দেহে পেশাধারিত্বের উৎকর্ষ সাধনে সহায়ক হবে, সেই সাথে মান বাড়বে পেশারও। দু:খজনক হলেও সত্য এখন সংবাদকর্মীর সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পেলেও বাড়ছেনা সংবাদ পরিবেশনার মান। এর কারণ কিন্তু একটাই-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রশিক্ষণ কিংবা অধ্যয়ন না থাকা। তিনি বলেন, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির এই উদ্যোগের ফলে নতুন প্রজন্ম সিলেট থেকেই সাংবাদিকতা বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করার সুযোগ পেলে সিলেট অঞ্চলে এই পেশা অবশ্যই আরো বিকশিত ও মানসম্পন্ন হবে।

এ বিষয়ে সিলেটের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক এবং অনলাইন টিভি চ্যানেল সিল টিভির প্রধান সম্পাদক আল আজাদ বলেন, সিলেটবাসীর সেই শুণ্যতার স্থানটি পূরণ করতে যাচ্ছে সিলেটে মেট্রোপলিটন ইউনিভাসির্টি । ইতোমধ্যে এ বিষয়ে শুরু হয়ে গেছে এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম।

তিনি বলেন, নিশ্চিত হয়েছি-সেখানে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং নভেম্বরে তাদের নিজস্ব ক্যাম্পাস হবে এবং ডিসেম্বর বা জানুয়ারিতে বিভাগ চালু হবে । আগে ছিলো না, এখন হয়ে গেছে তিনি তাদের এই উদ্যোগকে সিলেটে যুগান্তকারী পদক্ষেপ উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানের প্রতি কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।

এই সংবাদটি 1,014 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com