বুধবার, ১১ সেপ্টে ২০১৯ ০১:০৯ ঘণ্টা

সৈয়দপুরের আলোকিত ব্যক্তিত্ব মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর

Share Button

সৈয়দপুরের আলোকিত ব্যক্তিত্ব মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: মহান আল্লাহপাকের সন্তুষ্টি হাসিলের কাংখিত লক্ষ্যে ইলমুল ওহী অর্জন করে সমাজ জীবনে তা ছড়িয়ে দেয়ার মাধ্যমে মুসলিম জাতিসত্তা নির্মাণে যারা অবদান রেখে চলেছেন তাঁদের মধ্যে সিলেট বিভাগের অন্যতম প্রবীণ আলেম মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর সাহেব। একজন আত্মনিবেদিত শিক্ষাবিদ হিসেবে তাঁর ভূমিকা প্রশংসনীয়। ইলমে দ্বীনের আলোকোজ্জ্বল দ্যুতি বহু শিক্ষার্থীদের হৃদয়ে প্রজ্জ্বলিত করে তিনি তৈরী করেছেন অনেক আলেমে দ্বীন ও সু-নাগরিক। নিজের সকল সন্তানকে গড়ে তোলেছেন সফল আলেম ও যোগ্য নাগরিক হিসেবে। দেশে-বিদেশে তাঁর অনেক ছাত্র দ্বীন ইসলামের প্রচার ও প্রসার কল্পে রেখে যাচ্ছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। একজন মুবাল্লীগে দ্বীন হিসেবেও তাঁর কর্মতৎপরতা আমাদের আশান্বিত করে। ইসলামী রাজনীতির ময়দানেও তার উজ্জল দৃষ্টান্ত রয়েছে।
আমাদের আলোচ্য ব্যক্তিত্ব মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর সাহেব ১৯৪১ সালে সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলাধীন ঐতিহ্যের রতœভূমি সৈয়দপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। মহান দরবেশ হযরত শাহজালাল (র) এর ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম সাথী হযরত সৈয়দ শাহ সামসুদ্দীন (র) এর স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহ্যবাহী গ্রাম সৈয়দপুর বরাবর ইসলামী আন্দোলনের সূতিকাগার হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আসছে। এখানকার উলামা-মাশায়েখগণের ইসলাম প্রতিষ্ঠায় আপসহীন ও সাহসী ভূমিকা এক গৌরবজনক স্থান দখল করে আছে। মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূরের পিতা মরহুম সৈয়দ ইসহাক আলী একজন গণ্যমান্য ও দ্বীনদার ব্যক্তি ছিলেন। মাতা সৈয়দা ইনসাফ বিবিও একজন পর্দানশীন ও তাক্বওয়া সম্পন্না মহিলা। ছোটোবেলায় তাঁর পিতা ইন্তেকাল করলে সন্তান বিহীন ফুফু সৈয়দা আকরামুন্নেছা তাঁর লালন-পালন ও লেখাপড়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

তাঁর পিতা ইন্তেকালের কিছুক্ষণ পূর্বে তাঁর ফুফু আকরামুন্নেছাকে ডেকে বলেন- আমি হয়তো আর বেশিদিন বাঁচব না। তুমি আমার ছেলেকে আমার জমি বিক্রি করে হলেও মাদ্রাসায় লেখাপড়া করিয়ে আলেম হিসেবে গড়ে তুলবে। এর কিছুক্ষণ পর উক্ত বাড়িতে অবস্থানরত মাওলানা ইউসুফ খানকে ডেকে বললেন- আমি কবরে নাকির-মনকীরের প্রশ্নের জবাবে কি বলবো ?
এরপরই তিনি ইন্তেকাল করেন। এ ঘটনা থেকে বুঝা যায় যে, ইলমে দ্বীন শিক্ষার প্রতি তাঁকে নিয়ে তাঁর পিতার আগ্রহ ছিলো কতো বেশি। শিক্ষাজীবনের প্রারম্ভে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত অধ্যায়ন করেন। সে সময় তাঁর উস্তাদগণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন- হাফিজ মাওলানা আব্দুল গফফার বারকুটী, মাওলানা আব্দুর রউফ ছাতকী রহ., হাফিজ সৈয়দ আফতাব আলী সৈয়দপুরী রহ., মৌলভী সৈয়দ লুৎফুর রহমান সৈয়দপুরী রহ., মাষ্টার সৈয়দ আব্দাল হোসেন সৈয়দপুরী, মাওলানা আব্দুর রশীদ শিরামিশি প্রমুখ।
তৎতালীন সময়ে তাঁর এক মামা হাফিজ মাওলানা শায়খ সৈয়দ মনজুর আহমদ ঢাকা উত্তর রানাপিং হুসাইনিয়া মাদ্রাসায় অধ্যায়ণরত ছিলেন। সেই সুবাদে উক্ত সৈয়দ মনজুর আহমদের পরামর্শে আব্দুন নূর রানাপিং মাদ্রাসায় ভর্তি হন। সেখানে এক বছর ছাফেলা ১ম বর্ষে অধ্যায়ন করেন। অত্র মাদ্রাসায় অধ্যায়নকালীন তাঁর উল্লেখযোগ্য উস্তাদগণ হলেন- মাওলান আরমান আলী, বণুর হুজুর, টাইটেলী হুজুর প্রমুখ। সেখান থেকে তিনি ক্বায়িদুল উলামা আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া রহ.-এর পিতার প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসা জামেয়া আব্বাসিয়া কৌড়িয়ায় ভর্তি হয়ে নাহুমীর ও হেদায়াতুল্লাহ জামাত পর্যন্ত অধ্যায়ন করেন। সেখানে তাঁর উল্লেখযোগ্য উস্তাদগণ ছিলেন- হাফেজ মাওলানা শায়খ আব্দুল করীম, মাওলানা আব্দুল হাই হায়দরপুরী, মাওলানা আব্দুল কাদির প্রমুখ। এ মাদ্রাসায় দু’বছর লেখাপড়া করে চট্টগ্রাম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় কিছুদিন অধ্যায়ন করেন। তাঁর সেখানখার উস্তাদের মধ্যে ক’জন হলেন- খলিফায়ে মাদানী মাওলানা শাহ আহমদ শফী, মাওলানা নাদিরুজ্জামান, পীর সাহেব হুজুর প্রমুখ।
এরপর তিনি সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসায় ৬ বছর অধ্যায়ন করে ১৯৬৭ সালে কামিল পাশ করেন।
১৯৬৮ সালে উচ্চশিক্ষা লাভের উদ্দেশ্যে ঢাকা সরকারি আলিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি হয়ে ফেক্বাহ বিভাগে পুনরায় কামিল পাশ করেন। সেখানে ও সিলেট আলিয়া মাদ্রাসায় তাঁর উল্লেখযোগ্য উস্তাদ হলেন মাওলানাা ইয়াকুব শরীফ, মাওলানা ফজলে হক নারায়ণপুরী, মাওলানা শায়খ আব্দুল ওয়াহিদ রাজারগাঁও রহ., মাওলানা শায়খ আব্দুল বারী, মাওলানা আব্দুল হক ঝিঙ্গবাড়ী।
ঢাকা আলিয়ার তার উল্লেখ যোগ্য উস্তাদগন হলেন আল্লামা আব্দুর রহমান কাশগরী, মুফতি সৈয়দ আমীমুল ইহসান মুজাদ্দিদী বরকতী, মাওলানা উবায়দুল হক খতীব বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদ।

সৈয়দপুর আলিয়ায় যোগদান:
১৯৬৯ সালে সৈয়দপুর সৈয়দিয়া শামছিয়া আলিয়া মাদ্রাসার উন্নয়ন কল্পে স্থানীয় গন্যমান্যব্যক্তিরা তাকে আসতে অনুরোধ করায় সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে (৩৫ টাকা মাসিক সম্মানী) যোগদান করেন। তখন হেড মৌলভী ছিলেন মাওলানা রফিকুল হক রফু মিয়া।
সেখানে তার প্রচেষ্টায় আলিম ও ফাজিল ক্লাস চালু হয়। ১৯৮০ সাল পর্যন্ত সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব আঞ্জাম দেন।
১৯৮১ সালে সৌদি আরবে সরকারি চাকুরিতে যোগদান করেন এবং ১৯৯০ সালে দেশে ফিরেন। অতপর ১৯৯৪ সালে উপাধ্যক্ষ হিসেবে সৈয়দপুর আলিয়া মাদ্রাসায় যোগদান করেন।
তাঁর স্বনামধন্য ছাত্রদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন- মাওলানা সৈয়দ লোকমান আহমদ, মাওলানা সালেহ আহমদ, মাওলানা আব্দুল ওদুদ-মুহতামিম বানিয়াচং মাদ্রাসা, মাওলানা সৈয়দ ছাবির আহমদ- ইমাম ও খতিব র্ডালিংটন মসজিদ,লন্ডন। হাফিজ ক্বারী আবু ইউসুফ, মাওলানা আমিরুল ইসলাম, মাওলানা সৈয়দ আনোয়ার আলী-সাবেক শিক্ষক সৈয়দপুর আলিয়া মাদরাসা প্রমুখ।
তিনি ১৯৬৮ সালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিলেট জেলা শাখার অফিস সেক্রেটারি হিসেবে কিছু দিন দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি যেসব ইসলামী ব্যক্তিত্বের সাথে রাজনৈতিক সফর করেন তাঁরা হলেন- আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া রহ. শায়খ রিয়াছত আলী চখরিয়া রহ., মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ., মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী, মাওলানা আব্দুল হক শায়খে গাজিনগরী, শায়খে ক্বাতিয়া, মাওলানা ওয়ারিস উদ্দীন শায়খে হাজীপুরী, মাওলানা শফিকুল হক আকুনী প্রমুখ। সে সময় কুখ্যাত ড. ফজলুর রহমানের ‘নামাজ তিন ওয়াক্ত ও মিরাজ মিথ্যা’ মন্তব্যের বিরুদ্ধে উক্ত উলামাদের সাথে তিনি বিভিন্ন মিছিল-মিটিং ও প্রতিরোধের আন্দোলনে যোগদান করেন। উক্ত আন্দোলনের কারণে ডা. ফজলুর রহমান দেশত্যাগ করতে বাধ্য হয়। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই তাবলীগের কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।
স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে ১৯৭২ সালে এক চিল্লার জন্য দিল্লীর নেজামুদ্দীন, সফর করেন। দেওবন্দ, মিরর,সাহারানপুর এবং মেওয়াত সফর করেন। এসময় সফর সাথী ছিলেন মাষ্টার সৈয়দ মোস্তফা সাহেব প্রমুখ। ১৫ দিন নেজামুদ্দীন অবস্থান করে চরে যান দারুল উলুম দেওবন্দ। তখন দেওবন্দের মুহতামিম ছিলেন ক্বারী তৈয়্যিব সাহেব।
১৯৭৬ সালে তাবলীগি সফরে সৌদি আরব যান। এসময় মদীনায় তাবলীগি ইজতেমায় উক্ত সফরে ছিলেন তৎকালীন বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতের আমীর মাওলানা আব্দুল আজিজ খুলনা, মাওলানা আলী আকবর, মাওলানা লুৎফুর রহমান, মাওলানা রুহুল কিস্ত, ইঞ্জিনিয়ার হাজী আব্দুল মুকিত, মাওলানা হরমুজুল্লাহম হাজী ইয়াকুব প্রমুখ ।
৮১ জনের কাফেলায় ৫০ জনই ছিলেন আলেম। এসফরে বাংলাদেশের বিশিষ্ট আলেমগনের মধ্যে ছিলেন, মাওলানা মোহাম্মদউল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, শায়খে কাতিয়া, মাওলানা নুরুল ইসলাম শায়খে তারাপাশী।
সৌদি আরব সফরকালে মদীনায় শায়খুল হাদীস আল্লামা জাকারিয়া কান্দলুভীর সাথে সাক্ষাত করেন। শায়খে কাতিয়ার মাধ্যমেই তিনি শায়খুল হাদীস জাকারিয়ার সাথে সাক্ষাত লাভে ধন্যহন। খলিফায়ে মাদানী সৈয়দ তাখলিস হোসাইনের পরিচয়েই তিনি সহজে পরিচিত হন। তাছাড়া মদীনা ইউনিভার্সিটিতে গমন করেন এবং অনেক কিতাবাদি হাদিয়াপ্রাপ্ত হন। সেখানে হাফিজুল হাদীস আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তীর সাথে মসজিদে নববীতে মুলাকাতের সৌভাগ্য লাভ করেন। তাবলীগের সফরে আল্লামা উমর পালনপুরী ও হযরতজ্বী এনামুল হাসানের সাথে মদীনায় ইজতেমার মাঠে সাক্ষাত হয়।
১৯৬৪ সালে সিলেট টেকনিকেল কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমা থেকে তিনি ১ চিল্লায় বের হন। তখন সিলেটের বিশ্ব ইজতেমায় হযরতজ্বী ইউসুফ কান্ধলভী, মাওলানা উমর পালন পুরী , মাওলানা রহমত উল্লাহ দেওবন্দি, মুফতি শফি (র) উপস্থিত ছিলেন। এই তিনজন বিশিষ্ট আলেমকে ি লেট সরকারী আলিয়ায় নিয়ে বিশেষ বয়ানের ব্যবস্থা করেন।
সিলেট আলিয়ায় অধ্যয়নের সময় ১৯৬৫ সালে ঢাকা দক্ষিণ স্কুল মাঠে জমিয়তের বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে আল্লামা আবদুল্লাহ দরখাস্তি, মুফতি মাহমুদ, গোলাম গৌছ হাজারভী, মাওলানা গুলবাদশাহ (র) উপস্থিত ছিলেন।
বর্তমানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পদে আছেন।
১৯৭২ সালে জমিয়তের সাংগঠনিক কার্যক্রম জোরদার করার জন্য তার স্ত্রী সৈয়দা আফিয়া খাতুন নিজ সোনার হার বিক্রয় করে স্বামীর হাতে তুলে দেন।

সৈয়দপুর শাহী ঈদগাহ:
তিনি সৈয়দপুরের শীর্ষ উলামায়ে কেরামের মধ্যে গণ্য হয়ে আসছেন। তিনি ৮ বছর সৈয়দপুর শাহী ঈদগাহের ঈদের জামাতে ইমামতির দায়িত্ব পালন করেন। কাজী আব্দুর রউফ সাহেবের ফতোয়ার মাধ্যমে সৈয়দপুর ঈদগাহ নির্মানের সিদ্ধান্ত হয়। সৈয়দ ওয়াহিদ উদ্দীন প্রদত্ত ৬ হাজার টাকার দিয়ে ১৯৬১ সালে নোয়াপাড়ায় শাহী ঈদগাহের ভিত্তি রাখা হয়।
ঈদগাহের ইমাম ছিলেন যারা: মাওলানা কাজী আব্দুর রউফ, মাওলানা সৈয়দ হাবিবুর রহমান, হাফিজ শায়খ আবু সাঈদ (৩ বছর), মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নুর (৭ বছর), হাফিজ মাওলানা মনজুর আলী, হাফিজ মাওলানা সৈয়দ মুতিউর রহমান।
১৯৮২ সালে কর্মের সন্ধানে সৌদি আরবে চলে যান। ৮৪ সালে স্ত্রীও ছোট ছেলে মুফতি সৈয়দ রিয়াজকে হজ্বের সফরে সৌদিতে নেন।
১৯৯১ সালে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। এসময় ৭ বার পবিত্র হজ পালন করেন। এর আগে একবার মোট ৮ বার হজ পালন করেন। ১৯৮০ সালে দারুল উলুম দেওবন্দের শতবার্ষিকী সম্মেলনে যোগদানের জন্য ৩ দিনের সফরে ভারত গমন করেন। এসময় মদনী মনজীলে ফজরের নামাজের ইমামতি করেন।
এরপর ১৯৯৪ সালে আবারো সৈয়দপুর আলিয়ায় যোগদান করে ১২ বছর উপাধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্বপালন করেন। ২০০৪ সালে ৬ মাসের সফরে ইংল্যান্ড যান।
তিনি আধ্যাত্মিক জ্ঞান হাসিলের লক্ষ্যে কুতবুল আলম সাইয়্যেদ মাদানী রহ.- এর সুযোগ্য পুত্র আসআদ মাদানীর কাছে ১৯৬৯ সালে নয়াসড়কে বাইয়াত গ্রহণ করেন। তিনি আসআদ মাদানীকে প্রথমবারের মতো ১৯৭৩ সালে সৈয়দপুরে নিয়ে আসেন। এসময় শায়খে কৌড়িয়া, মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী,খতীব উবায়দুলহকসহ ১৭ জন বিশিষ্ট আলেম সফরে ছিলেন।
তখন শেরপুর থেকে লঞ্চে সৈয়দপুর আসেন। লঞ্চে ডা: সৈয়দ আব্দুল হক ফেদায়ে মিল্লাতের নিরাপত্তায় (বন্দুকসহ)নিয়োজিত ছিলেন।
পারিবারিক জীবনে তিনি একই গ্রামের ঐতিহ্যবাহী বড়বাড়ীর আলহাজ মাষ্টার সৈয়দ সাদ উদ্দীন আহমদের ১ম কন্যা সৈয়দা আফিয়া খাতুনের সাথে বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি ৫ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানের জনক। তারা হলেন- মাওলানা সৈয়দ মাছরুর আহমদ কাসেমী,মুহাদ্দিস-সৈয়দপুর দারুল হাদীস মাদরাসা, হাফিজ মাওলানা সৈয়দ তামিম আহমদ, সেক্রেটারী জেনারেল-জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ইউকে, হাফিজ মাওলানা সৈয়দ সালিম আহমদ কাসেমী, প্রিন্সিপাল-শায়খুল ইসলাম ইন্টারন্যাশনাল জামেয়া সিলেট।
হাফিজ মাওলানা সৈয়দ নাঈম আহমদ-টিভি ভাষ্যকার লন্ডন, মুফতি মাওলানা সৈয়দ রিয়াজ আহমদ- ইমাম ও খতিব, ইষ্টহাম ইসলামিক সেন্টার লন্ডনের। এছাড়া কন্যারা হলেন সৈয়দা ফারহানা খাতুন (এর ৩ ছেলে হাফিজ ও মাওলানা,২ মেয়ে আলিমা),
সৈয়দা রাহনুমা খাতুন (১ ছেলে হাফিজ ও মাওলানা, ১ ছেলে ক্বারী ও মাওলানা, ১ মেয়ে আলিমা), সৈয়দা সাফওয়ানা খাতুন ( ২ ছেলে হাফিজ ও মাওলানা,১ ছেলে মাওলানা, ৩ মেয়ে আলিমা)। অপর দিকে বড় ছেলের তরফে ২ ছেলে হাফিজ,২ মেয়ে আলিমা,১ মেয়ে হাফিজা।
পরিশেষে আমরা মহান আল্লাহপাকের নিকট নিবেদিতপ্রাণ এই মুবাল্লীগ ও শিক্ষাবিদের নেক হায়াত কামনা করছি।
তথ্যসুত্র:
১. মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর সাহেবের সাথে সরাসরি সাক্ষাত
২. মুফতি সৈয়দ রিয়াজ আহমদ (সভাপতি-ইউকে যুব জমিয়ত)
৩. চলমান জালালাবাদ: ইসলামী রেনেসাঁয় অনন্য যারা, মাওলানা শায়খ তাজুল ইসলাম

এই সংবাদটি 1,137 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com