জমিয়তের নতুন সিদ্ধান্তে ‘অনেক পদ’ হারাচ্ছেন !

প্রকাশিত: ৭:২৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৬

জমিয়তের নতুন সিদ্ধান্তে ‘অনেক পদ’ হারাচ্ছেন !

সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ আগের যে কোন সময়ের তুলনায় বর্তমানে বেশী শক্তিশালী। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক এই দলটি হেফাজতের আন্দোলনের  (২০১৩ সালের ) পর থেকে মাঠে ময়দানে বেশ সক্রিয় দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন দল থেকে প্রায় শতাদিক র্শীষ আলেম উলামা যোগদানের পরে জমিয়তই এখন বিএনপির কাছেও শক্তিশালী। বর্তমান সময়ে জামায়াতের তুলনায় জমিয়তের ভিত্তি যথেষ্ট  শক্তিসঞ্চয় করতে সক্ষম এমন ধারনা পর্যবেক্ষক মহলের। কওমী মাদরাসা কেন্দ্রীক দেওবন্দ অনুসারী অধিকাংশ উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বাধীন সংগঠন হিসেবে সাধারণ মানুষের নিকট জমিয়ত একটি বিস্তস্থ ধর্মীয় সংগঠন বলেই পরিচিত। ভোটের ময়দানে সংগঠনের ভিত্তি তেমন মজভুত না খাকলেও জনসাধারনের নিকট যথেষ্ট গ্রহণ যোগ্যতা রয়েছে। এই গ্রহণ যোগ্যতা কাজে লাগাতে চায় জমিয়তের বর্তমান নেতৃত্ব। এজন্য একজনের বহুপদ প্রথা বিলুপ্ত করছে চায় জমিয়ত। সংগঠনের এক র্শীষ নেতা সিলেট রিপোর্টকে জানান, জমিয়ত এখন অনেক বড় দল। তাই নেতা-কর্মীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওযায় আমরা নেতৃত্ব বন্টন করতে চাই। এক জনের হাতে বিভিন্ন শাখার পদ রাখতে চাইনা। নেতৃত্ব সৃষ্টির লক্ষে সকলকে ‘একপদী’ হওয়াই বাঞ্চনীয়’।  কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুয়ায়ী সিলেটের অনেক র্শীষ নেতাকেও একাদিক পদ ছাড়াতে হবে।
জানাগেছে, গত ৭ নভেম্বর হবিগঞ্জের উমেদনগর মাদরাসা মিলনায়তনে জমিয়তে উলামায়েইসলাম বাংলাদেশ এর বর্তমান সেশনের ৪র্থ জাতীয় নির্বাহী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংগঠনের সভাপতি খলিফায়ে মাদানী আল্লামা শায়খ আব্দুল মুমিন ইমামবাড়ীর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় বিভিন্ন
কর্মসুচী ও সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। এব্যাপারে জমিয়তের ঢাকা মহানগরী শাখার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুতিউর রহমান গাজিপুরী তার ফেসবুকে এসম্পর্কে উল্লেখ করেন : কোন ব্যক্তি জমিয়ত, যুব জমিয়ত, ছাত্র জমিয়তের মধ্যে এক সাথে দুটি সংগঠনের দায়িত্বে বা সদস্য থাকতে পারবেননা। এধরনের যৌথ দায়িত্বে যারা আছেন তাদেরকে স্ব-স্ব জেলা জমিয়তের দায়িত্বেশীলদের সাথে পরমর্শ সাপেক্ষে একটি দায়িত্ব বা সদস্যপদ রেখে বাকীগুলো থেকে ইসতেফা দিতে হবে।”
এদিকে, কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জমিয়ত,যুব ও ছাত্র সংগঠনের সাথে সম্পৃক্তদের যে কোন একপদ রেখে অন্যপদ থেকে ছাড়তে হবে। দলীয় সুত্রে,জানাগেছে-সিলেট জেলা ও মহানগরের অনেক নেতা ৩,৪টি পদেও আসীন রয়েছেন। তবে গণ সংগঠনের জন্য কেন্দ্রয়ি পদের পাশাপাশী জেলা ও মহানগরের পদে একই সাথে ২ পদে (যেমন-মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন সিলেট জেলার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহসভাপতি,মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরি মহানগর সভাপতি একই সাথে কেন্দ্রীয় সহসভাপতি,এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব একই সাথে সুনামগঞ্জের সহসবঅপতি,মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী-কেন্দ্রীয় সহসভাপতি একই সাথে জেলা সভাপতি) তাদের ব্যাপারে কি সিদ্ধান্ত বিষয়টি এখনো সম্পষ্ট নয়।  অন্যএক সুত্র মতে, যুব ও ছাত্র সংগঠনের বেলায় এটা প্রযোজ্য, মুল সংগঠনের বেলায় নয়।  সহযোগী সংগঠনের ক্ষেত্রে একাদিক পদের বিষয়টি অত্যন্ত পীড়াদায়ক। কারণ হিসেবে একজন কর্মী বলেন-যেমন মাওলানা মুহাম্মদ আলী-সিলেট জেলা যুব জমিয়তের সেক্রেটারী,অপর দিকে কেন্দ্রীয় যুব জমিয়তের প্রথম যুগ্মসম্পাদক অকই সাথে তিনি কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জমিয়তে ঊলামার ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বে আছেন। এমন আরো অনেক রযেছেন। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই যেকোন একটি সংগঠন এবং একাদিক পদ ছাড়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।  সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী যুব ও ছাত্র বিষযক সম্পাদকই যুব ও ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হযে থাকেন। কিন্তু এতে যুব ও ছাত্ররা কিন্তু তাদের নেতা নির্বাচনের সুযোগ পাচ্ছেননা। তাই মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের দাবী হলো-যুব ও ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সংগঠনের সার্বিক বিষয় তত্বাবধান করবেন কিন্তু তাদের সভাপতি আলাদা হওয়াই বাঞ্চনিয় বলে অনেকের দাবী। এতে করে নেতৃত্ব বৃদ্ধি পাবে, সাংগঠনিক ভিত আরো মজভুত হবে। সহযোগী সংগঠনের মুল দায়িত্বশীল এক মেয়াদের বেশী যাতে না হয় সেব্যাপারে কেন্দ্রীয় মুরুব্বীদের কাছে লিখিত সুপারিশ পাঠানো হচ্ছে বলে জানাগেছে।

এই সংবাদটি 364 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com