মিয়ানমারে সহিংসতা,পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে মুসলিম রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ী

প্রকাশিত: ৮:১৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৬

মিয়ানমারে সহিংসতা,পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে মুসলিম রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ী

ডেস্ক রিপোর্ট: মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, পশ্চিম রাখাইনে নতুন করে ঘটা সংঘর্ষে কমপক্ষে ২৮ জন নিহত হয়েছে।
রোববার এই খবর দিয়েছে সামরিক বাহিনী। একই দিন মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এক খবরে জানায়, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ওই এলাকায় মুসলিম রোহিঙ্গাদের তিনটি গ্রামকে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আল জাজিরার খবরে বলা হয়, রোববার মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে এক বিবৃতি দেয়া হয়েছে। তাতে বলা হযেছে, রাখাইন প্রদেশের ডার গি জার গ্রামে ২২ জন ব্যক্তি তরবারি নিয়ে হামলা করে সামরিক বাহিনীকে। তাদের সবাই নিহত হয়েছে। এ ছাড়া ওই প্রদেশেরই আরো কয়েকটি স্থানে সংঘর্ষে আরো ৬ হামলাকারী নিহত হয়েছে। ওই এলাকায় প্রবেশে ব্যাপক কড়াকড়ি আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ। ফলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো খবর বা সামরিক বাহিনীর ওপর হামলা চালানো খবর স্বতন্ত্রভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি। খবরে বলা হয়, উত্তর রাখাইন এলাকাটিতে মুসলিম রোহিঙ্গারা সংখ্যালঘু। বাংলাদেশি সীমান্তের নিকটবর্তী এই এলাকাটি গত মাস থেকেই সামরিক বাহিনীর কব্জায় রয়েছে। গত মাসে সীমান্ত চৌকিতে আকস্মিক হামলায় ৯ পুলিশ নিহতের পর থেকেই এলাকাটি নিয়ন্ত্রণে রেখেছে সামরিক বাহিনী। এর পর থেকে বেশ কয়েকজনকে গত্যা করেছে সৈন্যরা এবং হামলাকারীদের খুঁজে বের করতে এরই মধ্যে অনেক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। সরকার বলছে, এসব হামলাকারীরা মূলত মৌলবাদী রোহিঙ্গা যাদের সঙ্গে বিদেশি সশস্ত্র সংগঠনগুলোর যোগসূত্র রয়েছে। শনিবার সামরিক বাহিনী দাবি করেছে, এক সংঘর্ষে তাদের দুই সৈন্য ও ৬ হামলাকারী নিহত হয়েছে।
মিয়ানমারের সংকট দেশটিতে দায়িত্ব নেয়া নতুন সরকারকে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ফেলেছে। মানবাধিকার লঙ্ঘন ও সহিংতার ঘটনা অব্যাহত থাকায় বেসামরিক এই সরকার সামরিক বাহিনীকে কতটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। নিউ ইয়র্কভিত্তিক হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জাতিসংঘের তদন্তকারীদের আমন্ত্রণ জানানোর জন্য কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছে। মানবাধিকার সংগঠনটি বলছে, রাখাইন প্রদেশের উত্তরের মংড জেলায় ২২শে অক্টোবর থেকে ১০ই নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে তিনটি গ্রামে প্রায় ৪৩০টি বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সংগঠনটির এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক ব্র্যাড অ্যাডামস এক বিবৃতিতে বলেন, ‘স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত নতুন ছবি এটা নিশ্চিত করে যে রোহিঙ্গাদের গ্রাম ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, আমরা যা ভেবেছিলাম তার চেয়ে আরো ভয়াবহভাবে এই ধ্বংসলীলা চালানো হয়েছে।’ সংগঠনটি বলছে, পিয়াউং পিইট, কিয়েট ইয়ো পিইন ও ওয়া পেইক নামের তিনটি গ্রাম এই সহিংসতার শিকার হয়েছে। মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা সংখ্যালঘু একটি সম্প্রদায়। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা তাদের বাংলাদেশ থেকে আগত অবৈধ অভিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করে থাকে, যদি রোহিঙ্গাদের অনেকেই কয়েক প্রজন্ম ধরে মিয়ানমারেই বসবাস করে আসছেন।–মানব জমিন

এই সংবাদটি 106 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com