মঙ্গলবার, ১৫ নভে ২০১৬ ০৩:১১ ঘণ্টা

মাওলানা ফরিদ মাসউদের ছবি নিয়ে তুমুল বিতর্ক

Share Button

মাওলানা ফরিদ মাসউদের ছবি নিয়ে তুমুল বিতর্ক

অনুসন্ধানী রিপোর্ট: শোলাকিয়ার ইমাম মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদকে নিয়ে গতকাল থেকে অনলাইনে তুমুল বিতর্ক চলছে। সোস্যাল মিডিয়ার সবচাইতে জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে পক্ষে-বিপক্ষে তর্কযুদ্ধ চলছে। জামায়াত-শিবিরের চরম বিরুধী বলে পরিচিত ও সরকারঘনিষ্ট এই আলেম শাবাগের গণজাগরণ মঞ্ঝে যাওয়া নিয়ে দেশের আলেম সমাজ তাকে ভিন্ন চোখেই দেখে আসছেন। সাম্প্রতিক সময়ে কওমী মাদরাসার শিক্ষা সনদের স্বীকৃতির বিষয়টি আলোচিত হলে আবারো আলোচনায় আসেন মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ। স্বীকৃতি প্রশ্নে দেশের অধিকাংশ কওমী মাদরাসার প্রতিনিধিত্বকারী বোর্ড বেফাকের সাথে তার দৃশ্যত দুরত্ব বৃদ্ধির ফলে তিনি অনেকটাই একা হয়ে পড়েছেন। সর্বশেষে প্রাপ্ত তথ্যমতে তার সাথে থাকা গওহর ডাংগা মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি রুহুল আমীন ও বর্তমানে তার সঙ্গ ত্যাগ করেছেন। মাওলানা রুহুল আমীন সম্প্রতি হাটহাজারী গিয়ে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সাথে সাক্ষাত করেছেন। এই অবস্থায় গত ১১ ও ১২ নভেম্বর ভারতের একটি রাজ্যে সেদেশের মুসলিম বিভিন্ন উপদল (ফেরকার) নেতাদের একটি সম্মেলনে যোগদানের জন্য ভারত যান।  সেখানকার জমিয়তে উলামাযে হিন্দ আয়োজিত ঐ সম্মেলনে জমিয়তের একাংশের সেক্রেটারী মাওলানা সায়্যিদ মাহমুদ মাদানীর সাথে ব্যক্তিগত সম্পর্কের সুবাদে মাওলানা ফরিদ ঐ সম্মেলনে যোগদান করেন।
ভারতের ঐ সম্মেলনে যোগদানের বিভিন্ন চিত্র ফেসবুকের মাধ্যমে এই বলে প্রচার করা হয় যে, বাংলাদেশের আলেম উলামা এবং জমিয়তের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি হিসেবে তাকে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে। কেউ কেউ আরেক বাড়িয়ে ফরিদ সাহেবকে প্রধান অতিথি বলেও উল্লেখ করেছেন।
ফেসবুক অনুসন্ধান করে যেসব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে তন্মধ্যে কয়েকটি মন্তব্য সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:

সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ
November 13 at 2:22pm ·লিখেন,

বিশ্বশান্তি সম্মেলনে
অনন্য উচ্চতায় বাংলাদেশ
ভারতের রাজস্থান আজমিরের ঐতিহাসিক বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে অনন্য উচ্চতায় পৌছে দেয়াহয়েছে বাংলাদেশকে। সম্মেলনে ভারতীয় সকল মসলকের ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্মের মহেন্দ্রক্ষনের সাক্ষি ও মডেলকে সারা দুনিয়ার সামনে তুলে ধরতে গোটা দুনিয়ার নানান দেশের ১২০জন ইসলামি জ্ঞানতাপস স্ককলার ও আলেমকে আমন্ত্রন জানানো হয়। সম্মেলনে অংশ নিলেও যাদের অধিকাংশই মঞ্চে বসা ও আলোচনায় অংশ নিবেন না। বক্তৃতা রাখবেব মাত্র কয়েকজন বিশ্ববরেণ্য মনীষী। বিভিন্ন দেশের রাষ্টদূত ও বিদেশি অতিথিদের জন্য বসার আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে সম্মেলনে আমন্ত্রিত হয়েছেন ওলীয়ে কামেল শায়খুল হাদীস আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ হাফিজাল্লাহু।বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিত্বকারী এই বরেণ্য আলেমকে সমম্মেলনে বিশেষ মর্যাদা দেয়া হয়। যে সম্মান কেবল হযরতের একার নয়, গোটা বাংলাদেশের সম্মান। এসম্মান বাংলাদেশ সকল আহলে হক্ব উলামায়ে কেরামের।
এক. সম্মেলনের বিশ্বমঞ্চে কেবল তিনজন বরেণ্য আলেমের জন্য বিশেষ উচু (চেয়ার) আসনের ব্যাবস্থা করা হয় তিনি তার একজন।..”

মাওলানা ফরিদের আরেক অনুসারী Asad Kanaighat

November 10 at 8:50pm · লিখেছেন,
আজমিরে শান্তিসম্মেলনে যাচ্ছেন আল্লামা মাসঊদ:
ভারতে আজমির শরীফে জমিয়তে উলামা হিন্দের আহ্বানে শান্তি সম্মেলনে যোগদানের জন্য শুক্রবার সকালে ঢাকা ছাড়বেন বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান ও ঐতিহাসিক শোলাকিয়ার গ্র্যান্ড ইমাম আল্লামা ফরীদ উদ্দী মাসঊদ। জমিয়তুল উলামা হিন্দের চেয়ারম্যান কারী উসমান তাকে সম্মেলনের একজন অতিথি হিসেবে দাওয়াত করেছেন বলে জানা গেছে। জমিয়তে উলামা হিন্দের অফিস সহকারী মুবাশ্বির ও ঢাকার বিজেইউ’র পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথা জানা যায়। সূত্র জানিয়েছে, ১২ ও ১৩ নভেম্বরের এই অনুষ্ঠান ছাড়াও আরো বিশেষ কিছু বৈঠকে অংশ নেবেন আল্লামা মাসঊদ। তার সঙ্গে সফরে ইকরা বাংলাদেশ সোসাইটির প্রধান সমন্বয়ক মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুন ও মুফতি রশিদ আহমদ মকবুল থাকবেন বলে জানা গেছে।
আল্লামা মাসঊদের জন্য ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থাও থাকবে।
প্রসঙ্গত, ভারতে অামনু আমান’ শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ে জমিয়তে উলামা হিন্দের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পার্লামেন্ট সদস্য মাওলানা মাহমুদ আসআদ মাদানীর আহ্বানে আজমির শরীফের খাজা মঈনুদ্দীন চিশতী রহ.-এর বর্তমান জানেশীন খাজা যাইনুল আবিদীন শান্তিসম্মেলন করার বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করেন। ভারতজুড়েই এখন শান্তিসম্মেলনের আবহ ছড়িয়ে পড়েছে। পুরো অনুষ্ঠান বিভিন্ন গণমাধ্যমে লাইভ দেখানো হবে।”

আসাদ অপর এক পোষ্টে লিখেন, ”জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের বিশ্ব শান্তি সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসাবে বক্তব্য দিচ্ছেন আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসঊদ।
তাই যারা আকাবিরদের উত্তরসূরী দাবী করেন, হিংসা না করে ফরিদ মাসঊদ কে ভাল বাসতে শিখুন।”

মুলত-এমনসব মন্তব্য দেখে ফরিদ মাসউদের বিপক্ষরাও মেঠে উঠেন নানা তিরস্কার মুলক মন্তব্যে। এভাবেই নতুন প্রজন্মের ভক্তরা কাপিঁয়ে তুলেন ফেসবুক জগৎ।
গতকাল সোমবার একজন মহিলার সাথে দন্ডায়মান এক নারীর ছবি বিভিন্ন আইডি থেকে পোষ্ট করা হয়। যা এখন বিশ্বময়ভাইরাল। খোজঁ নিয়ে জাাগেছে,একটি অনুস্ঠানে মাওলানা ফরিদ মাসউদ ব্যারিষ্টার তুরিন আফরোজ এর ছবি পোষ্ট করা হয়। আর এই ছবি নিয়েই যত লং্কাকান্ড। কেউ বলছেন বের্পদা-বেগানা নারীর সাথে তিনি কেনো? প্রতিউত্তরে ফরিদ ভক্তরা বলছেন-এটা সত্যিকারের ছবি নয়-এটা ফটোশপের কারসাজি ইত্যাদি। কিন্তু সত্য কোনটা ? তরুণ আলেম সমাজের মধ্যে এনিয়ে বির্তক চলছেই।  যারা ফরিদ মাসউদকে খাটি আল্লাহর ওলি,বাংলাদেশের একমাত্র প্রতিনিধি ইত্যাদি বিশেষনে অভিহিত করছেন তাদের এই দাবীর বিপক্ষে পাল্টা প্রশ্নও আসছে অনেক।  সর্বশেষে বিষয়টির সত্যতা যাচাই-বাছাই নিয়েই আমাদের এই অনুসন্ধানী প্রতিবেদন। বিভিন্ন সুত্রে প্রাপ্ত তথ্যের আলোকে পাঠকদের জন্য নীচে আরো কিছু তথ্য তুলা ধরা হলো। আশাকরি সত্য-মিথ্যা পাঠকরাই র্নিনয় করতে সক্ষম হবেন।
##
ফরিদ মাসউদের সাথে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ এর একটি ছবি নিয়ে ফেসবুকে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। একপক্ষের দাবী, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ একজন বড়মাপের আলেম হয়ে একজন বেপর্দা মহিলার সাথে কিভাবে ছবি তোলতে পারলেন! অন্যপক্ষের দাবী, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেব ছবি তুলেননি। বরং তাকে বিতর্কিত করতে কুচক্রী মহল ফটোশপের মাধ্যমে ঘৃণ্য এই কাজটি করেছে।
বাস্তবতা কি একটু খুঁজলেই জানা হয়ে যাবে। কারণ নিয়ম জানা থাকলে অনলাইনে ছড়িয়ে পড়া ছবি/ভিডিও/লেখার সত্যতা যাচাই বাছাই সহজেই সম্ভব। আসুন, একটু অনুসন্ধান করে আসি।
(১) মাওলানা সাহেবের সাথে যেহেতু ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ –এর ছবি। তাই প্রথমে তুরিন আফরোজ –এর ফেসবুক/টুইটার/ইন্সটাগ্রাম আইডিতে খুঁজে দেখি। ফেসবুক সবচেয়ে সহজলভ্য। তাই প্রথমে ফেসবুকের সার্চ অপশনে লিখুন ‘Barrister Tureen Afroz’
(২) দেখবেন আইনজীবীর পোশাক পরিহিত তুরিন আফরোজের ফেসবুক পেইজ (https://www.facebook.com/BarristerTureenAfroz/?fref=ts) আসবে।
পেইজের শুরুতেই ডঃ কামাল আব্দুন নাসের চৌধুরী (https://www.facebook.com/BarristerTureenAfroz/photos/a.1660745357582228.1073741828.1659577201032377/1731955527127877/?type=3&theater) ও ব্রিটেনে জন্মলাভকারী আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থার কর্মকর্তা, একাত্তরের বিদেশী বন্ধু জুলিয়ান ফ্রান্সিস (https://www.facebook.com/BarristerTureenAfroz/photos/a.1660745357582228.1073741828.1659577201032377/1730135770643186/?type=3&theater) এর সাথে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ –এর  ২ টি ছবি দেখবেন।
***খেয়াল করার বিষয় হচ্ছে, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেবের সাথে প্রচারিত ছবিতে তুরিন আফরোজ যে রং এর শাড়ি পড়েছেন, উভয় ছবিতে একই রঙের শাড়ি পরিহিত অবস্থায় তুরিন আফরোজকে দেখা যাচ্ছে।
(৩) এবার জুলিয়ান ফ্রান্সিস এর সাথে ২য় ছবিতে থাকা ক্যাপশন “Barrister Tureen Afroz & Bangladesh’s foreign friend of ’71 Julian Francis” কপি করে নিন।
(৪) গুগল ডট কমের সার্চ অপশনে গিয়ে ক্যাপশন পেস্ট করে সার্চ করুন।
***এই সার্চ করার কারণ হচ্ছে, ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ একাত্তরের বিদেশী বন্ধু জুলিয়ান ফ্রান্সিস –এর সাথে কোথায় কোন অনুষ্ঠানে ছবিটি তুলেছেন খুঁজে বের করা।
(৫) সার্চ অপশনের প্রায় শুরুতেই “Newsmakers celebrate decade of trailblazing journalism in Bangladesh with bdnews24.com” শিরোনামে একটি নিউজ (http://bit.ly/2fyBt1X) দেখতে পাবেন। অর্থাৎ অনলাইন পত্রিকা বিডি নিউজ ২৪ ডট কমের দশ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের নিউজ এসেছে। এই নিউজের ছবি বাংলা ক্যাপশনসহ দেখতে চাইলে এই লিংকে (http://bit.ly/2eXgBDi) ক্লিক করতে পারেন।

***খেয়াল করার বিষয় যে, তুরিন আফরোজ –এর ফেসবুক পেইজে থাকা ছবি(২) বিডি নিউজের দশম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানেই তোলা হয়েছে।

(৬) এখন ধীরে ধীরে ইংলিশ নিউজে থাকা অতিথিদের নাম পড়তে থাকুন। পড়তে না পারলে অন্তত ছবি দেখতে থাকুন। আপনি দেখবেন, অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের মধ্যে মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেবও (http://bit.ly/2ga6htG)( http://bit.ly/2fN2ejY)( http://bit.ly/2fqNOrr) আছেন। একাধিক ছবি আছে। এমনকি মঞ্চে তুরিন আফরোজের পাঁশে দাঁড়ানো অবস্থায় ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেবের ছবিও দেখতে পাবেন।

(৭) ভাবনার জন্য কিছু বিষয় দিচ্ছি।

***>রাজধানীর র্যা ডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনে বিডি নিউজের অনুষ্ঠান। >যাতে অংশ নিয়েছেন  মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ। >অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজও। >মাওলানা সাহেবের সাথে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে তুরিন আফরোজ যে শাড়ি পড়া ছিলেন, ওই অনুষ্ঠানে তুরিন আফরোজ ওই শাড়িই পড়েছেন। >এই জাতীয় অনুষ্ঠানে ছবি তোলা একটি অতি স্বাভাবিক বিষয়। >আর বিডি নিউজ যেসব ছবি প্রকাশ করেছে, তাতে মঞ্চে তুরিন আফরোজের পাঁশে মাওলানা সাহেবের বেশ কয়েকটি ছবি আছে।
>ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেব নারী পুরুষে উত্তাল শাহবাগে যাওয়ার সাহস দেখিয়েছেন; মঞ্চে তুরিন আফরোজের পাঁশে দাঁড়ানোর সাহস দেখিয়েছেন; আর একটি ছবি তোলতে তার সমস্যা হয়ে যাবে। অন্তত কোনও সুস্থ মস্তিষ্ক এমন দাবী করবে না।
>এছাড়া সবার জানা আছে যে, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ যুদ্ধাপরাধীর বিচারের দাবীতে বেশ সক্রিয় একজন মানুষ। আর ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ এর পরিচয় হচ্ছে, তিনি একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির ‘আইন বিষয়ক সম্পাদক’ হিসেবে ২০১০ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়া তিনি যুদ্ধাপরাধী মামলা পরিচালনার দায়িত্বে থাকা প্রসিকিউশন টিমের প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্বও পালন করছেন। সুতরাং দুজনের মাঝে পরিচয় কিংবা আলাপ আলোচনা একেবারে স্বাভাবিক একটি বিষয়। আর এই জাতীয় অনুষ্ঠানে আলাপের মাঝে ছবি তোলা আধুনিক কালচারের একটা অংশ।

অতএব এতোসব প্রমাণাদি দেখার পর, ছবিটি বাস্তবেই তোলা হয়েছে, এমন দাবীর সত্যতা কি পুরোপুরি প্রমাণিত হয়ে গেলো না?

***সবচেয়ে বড় বিষয়, ফটোশপ দাবী করে ওরিজিনাল যে ছবি দেয়া হচ্ছে, তাতে একবার দৃষ্টি দিলেই বুঝা যাচ্ছে, উভয় চিত্রের পিছনের দৃশ্য এক নয়। উভয় ছবির ক্যাকগ্রাউন্ডে অনেক পার্থক্য সুস্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।
***বলা হচ্ছে, “মাওলানা ফরিদ উদ্দীন সাহেব বর্তমানে ভারতে অবস্থান করছেন। এতেই প্রমাণ হয়, ছবিটি মিথ্যা”। এই দাবীও হাস্যকর। কারণ ছবিটি ২৩ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তোলা। আর তখন তিনি দেশেই ছিলেন।
***ছবিটি নিয়ে বিতর্কের মূল কারণ, তিনি মহিলার সাথে ছবি তুলেছেন। অথচ কেউ কেউ বলবে, মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেব মঞ্চে সবার সাথে তুলেছেন। একাকী ছবি তোলেননি। এই দাবীও চরম পর্যায়ের হাস্যকর। কারণ, একাকী, ডাবল, ত্রিপল নিয়ে কেউ বিতর্ক করছে না। বিতর্কের মূল কারণ নারী। আর মঞ্চে যখন দাঁড়িয়ে তুলতে পেরেছেন, নীচে একাকী তুলবেন না, এই দাবী পাগল ছাড়া কেউ করবে না।

ছবিটি বাস্তব হবার স্বপক্ষে অনেক প্রমাণ উপস্থাপিত হলো। ফটোশপের মাধ্যমে ছবিটি তৈরি, এই দাবীর স্বপক্ষে অন্তত একটি যৌক্তিক প্রমাণ দেয়া কি উচিৎ ছিলো না! ফটোশপ দাবী করলেই কি ফটোশপ হয়ে যায়। দাবীর স্বপক্ষে দলীল থাকতে হয়। নুন্যতম দলীল ছাড়া দাবী রীতিমতো ভণ্ডামি।
অতএব এতোসব প্রমাণাদি থাকতে কীসের ভিত্তিতে ছবিটি ফটোশপের কারসাজি বলা হচ্ছে? কেবল অন্ধপ্রেম আর একরোখা মনোভাবই ভুলকে শুদ্ধ বলতে উদ্বুদ্ধ করছে। আসুন, সত্যকে সত্য আর মিথ্যাকে মিথ্যা বলতে শিখি। প্রতারণা, ধোঁকাবাজি, জালিয়াতি, একরোখা মনোভাব পরিত্যাগ করি। শুভবুদ্ধির উদয় হোক এই প্রত্যাশা। ”

সিলেট রিপোর্ট/সু-ফেবু/মাস/এস আমীন/১৫-১১-২০১৬15055857_969667749804018_1759744706780435573_n15073344_969667883137338_3493135461720982991_nf-t2fqnorr

এই সংবাদটি 1,400 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com