শুক্রবার, ২০ সেপ্টে ২০১৯ ০৪:০৯ ঘণ্টা

যুবককে আটকে রেখে নির্যাতন ইউপি চেয়ারম্যানের!

Share Button

যুবককে আটকে রেখে নির্যাতন ইউপি চেয়ারম্যানের!

বড়লেখা প্রতিনিধি: কোনো ধরনের অভিযোগ ছাড়াই ইউপি অফিসে সাত দিন ধরে এক যুবককে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়ন ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি চেয়ারম্যান ময়নুল ইসলাম বিরুদ্ধে।
আবদুর রশিদ বাবু নামের ওই যুবককে ১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বড়লেখা উপজেলার চান্দ্রগ্রাম বাজার এলাকা থেকে আটক করা হয়। বাবু সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে। ১৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত নির্যাতনের শিকার যুবককে পুলিশে সোপর্দ করা হয়নি।
ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এই প্রতিনিধিকে বলেন, আটক ওই যুবক বৃহস্পতিবার চাকরির সন্ধানে এ এলাকায় আসে। ছেড়ে দেয়ার অনুরোধ জানালেও তাকে ছাড়েননি ইউপি চেয়ারম্যান।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল ইসলামের ছেলে ফখরুল ইসলামের চাদাঁবাজী ও মাদক ব্যবসার বলি হচ্ছে এলাকার নিরীহ মানুষ। তাদের হাত থেকে এলাকার কোন মানুষ রেহাই পাচ্ছেনা। কাজের সন্ধানে আসা মানুষকে চাপ সৃষ্টি করে মাদক সরবরাহের কাজে ব্যবহার করে চেয়ারম্যান পুত্র ফখরুল। কেউ তাতে রাজী না হলে তার উপর নেমে আসে মধ্যযুগীয় নির্যাতন। তাকেঁ চোর ও মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে শুধু নির্যাতনই না পুলিশে তুলে দেয়ারও একাধিক ঘটনা ঘটছে। পুলিশও ঘটনার সত্য মিথ্যা যাছাই না করে চেয়ারম্যানের লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে কাজ করছে। মারধোর ও মিথ্যা মামলার ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা। ফলে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে ময়নুল চেয়ারম্যান ও তার ছেলে। এথেকে মুক্তি পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ সরকারের উর্ধ্বতন মহলের সহযোগিতা চাইছেন এলাকাবাসী।
জানা যায়, চাকরীর সন্ধানে আসা কানাইঘাটের আব্দুর রশীদ বাবুকে চান্দগ্রাম বাজারে পেয়ে একটি দোকানে ডেকে নেন চেয়ারম্যান পুত্র ফখরুল ইসলাম। সেখানে গিয়ে তাঁকে এলাকায় কেন এসেছে জানতে চান তিনি। ছেলেটি কাজের জন্য এসেছি বলার সাথে সাথে ফখরুল তাকেঁ মাদক সরবরাহের কাজ করার প্রস্তাব দেয়। ছেলেটি এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে পুলিশে জানাবে বলে দেয়। এই কথা বলার সাথে সাথে তাঁকে বেধেঁ বেধড়ক পিঠানো হয় বাজারের উপস্থিত শত শত জনতার সামনে। সেখানে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেই ক্ষান্ত হয়নি চেয়ারম্যান পুত্র। সেখান থেকে আহত যুবককে নিয়ে যায় চেয়ারম্যান অফিসে। অফিসে গিয়ে আহত ছেলেকে তার বাবার হাতে তুলে দেয় ফখরুল। এরপর থেকে টানা ৭দিন চেয়ারম্যান অফিসেই বন্দী রেখে নির্যাতন চালাচ্ছেন চেয়ারম্যান ময়নুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার রাত্রে ইউনিয়ন অফিসে কান্নার আওয়াজ শুনে একজন লোক সাংবাদিককে এই ঘটনার খবর জানালে সেখানে এই প্রতিবেদক উপস্থিত হলে ঘটনার সত্যতা জানতে পান।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল ইসলাম বলেন, মাদক ব্যবসায়ী সন্দেহে ছেলেটিকে এলাকাবাসী আটক করে আমার কাছে এনেছে। আমি পুলিশে দেয়ার জন্য অফিসে রেখেছি। একজন লোককে কোন অপরাধ ছাড়াই ৭ দিন আটকে রাখার কোন সঠিক কারণ দেখাতে পারেন নি চেয়ারম্যান। উল্টো সাংবাদিককে দেখে নেয়ার হুমকী দেন।
আটক আবদুর রশিদ বাবু বলেন, আমি চাকরির সন্ধানে গ্রাম থেকে এসেছি। আমাকে কোনো কারণ ছাড়াই মাদক ব্যবসার কাজে জড়িত না হওয়ায় মিথ্যা মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে আটক করেছে ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলে। আমি মুক্তি চাই পরিবারের কাছে ফিরে যেতে চাই।
এ ব্যাপারে বড়লেখা থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, অপরাধ করলেও কাউকে আটকের সঙ্গে সঙ্গে আইনের কাছে সোপর্দ করতে হবে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সামিউল হক বলেন, এমনভাবে কাউকে আটকের পর ৭ দিন জিম্মি করে রাখা গুরুতর অপরাধ। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

এই সংবাদটি 1,072 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com