রবিবার, ২২ সেপ্টে ২০১৯ ০৬:০৯ ঘণ্টা

মাওলানা আরিফ রব্বানি রহ: রাজনীতি ও আধ্যাত্মিকতার কিংবদন্তি মহিরুহ

Share Button

মাওলানা আরিফ রব্বানি রহ: রাজনীতি ও আধ্যাত্মিকতার কিংবদন্তি মহিরুহ

ওলিউর রহমান ।।

তিনি ছিলেন আল্লাহর উপর তাওয়াক্কুল এর ব্যাপারে এক জীবন্ত উদাহরণ। আজকের পর কাল কিভাবে চলবে এ চিন্তা তাকে কখনো করতে দেখা যায়নি। নূরানী চেহারার অধিকারী এ মানুষটির পূর্বপুরুষরা দ্বীন ইসলাম প্রচারের জন্য ইরান থেকে এদেশে এসেছিলেন। তিনি ছিলেন কুতুবুল আলাম হযরত মাওলানা সাইয়েদ হোসাইন আহমদ মাদানী রহমতুল্লাহি আলাইহি অত্যন্ত স্নেহভাজন শাগরিদ। এদেশে ইসলামী আন্দোলন প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন। কারাবরণ পর্যন্ত তাকে করতে হয়েছে। তার বাগ্মিতা ছিল সর্বজনবিদিত। তার সুমধুর কণ্ঠে কুরআনে কারীমের তিলাওয়াত আজও আমার কানে ঝংকৃত হয়।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী উপরের অভিব্যক্তিটি প্রকাশ করেছেন হযরত মাওলানা আরিফ রব্বানী রহ.-এর ব্যাপারে।

১৩১৭ বঙ্গাব্দের ৬ ভাদ্র ময়মনসিংহ সদর থানার মাইজবাড়ী গ্রামে জন্ম নেওয়া মাওলানা আরিফ রব্বানি ছিলেন একজন স্বাধীনতচেতা সংগ্রামী আলেমেদ্বীন। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অগ্রসেনানী। স্বাধীন দেশে মুসলিম মানসকে ইসলামী চেতনার অনুকূলে প্রবাহিত করার জন্য যারা তিলে তিলে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন মাওলানা আরিফ রব্বানী ছিলেন তাদের অন্যতম ব্যক্তিত্ব।

ঐতিহ্যগত, সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান মাওলানা আরিফ রব্বানির উর্ধ্বতন পঞ্চম পুরুষ শাহ বরকতুল্লাহ শিয়া শাসকদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে ইরান থেকে হিজরত করে ময়মনসিংহের মাইজবাড়ীতে বসতি স্থাপন করেন। শাহ বরকতুল্লাহর পুত্র শাহ কলন্দর, তার পুত্র জাব্বার বখশ উভয়েই ছিলেন মময়মনসিংহ অঞ্চলের প্রসিদ্ধ বুযুর্গ।

মাওলানা আরিফ রব্বানি তার দাদা মাইজবাড়ীর মিঞা সাব খ্যাত মরহুম জাব্বার বখশের কাছ থেকে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। ময়মনসিংহের প্রাচীনতম মনতলা মাদরাসায় কিছুদিন পড়ে ফুলবাড়িয়ার কাতলাসেন আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন। পনের বছর বয়সে উচ্চ শিক্ষার জন্য তার দাদা তাকে ভারতের মুরাদাবাদ মাদরাসায় পাঠান। সেখানে তিনি বিদগ্ধ আলেম উলামায়ে হিন্দ কা শানদার মাযি-গ্রন্থের লেখক সাইয়্যেদ মুহাম্মদ মিঞা রহ.- এর সান্বিধ্য লাভ করেন। কিশোর আরিফ রব্বানির প্রতিভা দেখে মিঞা সাহেব তাকে দারুল উলূম দেওবন্দে ভর্তি হতে বলেন।

আরিফ রব্বানি সাহেব দেওবন্দে গিয়ে হেদায়েতুন্নাহু জামাতে ভর্তি হন। এ সময় শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানী রহ.-এর সাথে তার বিশেষ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মাদানী রহ.-এর পরিবারের সদস্যদের সাথেও তার ঘনিষ্টতা তৈরি হয়। মাদানী রহ.-এর জ্যেষ্ঠপুত্র মাওলানা আসআদ মাদানী রহ.কে প্রায়দিন বিকালেই কাধে নিয়ে ঘুরে বেড়াতেন।

যুগসচেতন এ আলেম মাতৃভাষা চর্চার গুরুত্ব উপলব্ধি করেন ছোট থেকেই। তাই তিনি দেওবন্দে অবস্থানরত বাংলা ভাষাভাষী ছাত্রদের নিয়ে সাহিত্য চর্চা ও ইসলামি সংস্কৃতি বিকাশের জন্য একটি সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন। যার মাধ্যমে বাংলা ভাষায় বক্তৃতা অনুশীলন ও বাংলায় মাসিক দেয়ালিকা প্রকাশের কাজ চালিয়ে যান।

সেসময় মাওলানা মানজুর নোমানীর কুরআন আপ সে কিয়া কাহতে হ্যা বইটি তিনি প্রাঞ্জল ভাষায় অনুবাদ করেছিলেন। তবে নানা প্রতিকূলতায় তা আর প্রকাশের মুখ দেখেনি।

বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের সিপাহসালার মাওলানা মাদানীর একান্ত শিষ্য মাওলানা আরিফ রব্বানির জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের রাজনীতিতে হাতেখড়ি হয় দেওবন্দের ছাত্র থাকাকালেই। রাজনীতিতে একনিষ্ট মনোনিবেশের কারণে মেশকাত দাওরা দুই জামাত দেওবন্দে তার প্রাতিষ্ঠানিক পড়া হয়নি। অবশ্য কুতুবে সিত্তাহসহ অন্যান্য হাদিসের কিতাবের সনদ তিনি লাভ করেছেন দেওবন্দের সকল উস্তায থেকেই।

ইংরেজ বিরোধী তৎপরতায় জড়িত থাকার দায়ে ১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দে তাকে গ্রেফতার করে চৌদ্দমাস আটক করে রাখা হয়। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘদিন তিনি রাজনীতি থেকে দূরে ছিলেন। পরে পাকিস্তানের মুফতি মাহমুদ ও গোলাম গাওস হাজরাভী জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ব্যানারে সোচ্চার হলে মাওলানা আরিফ রব্বানিকেও অংশগ্রহণ করতে বলেন। জাতির বৃহত্তর স্বার্থে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামে যোগ দিয়ে সত্তরের নির্বাচনে খেজুর গাছ নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা সৈয়দ সুলতানের প্রতিদ্ববন্ধিতা করেন।

সারাবাংলার একজন তুখোড়, অনলবর্ষী বক্তা হিসেবে তিনি সকলের নিকট পরিচিত ছিলেন। বিষয়ভিত্তিক আলোচনা ছিল তার বক্তৃতার প্রধান বৈশিষ্ট্য। আলোচনা এতই হৃদয়গ্রাহী হত যে শ্রোতাদের হৃদয়ে গভীর প্রভাব সৃষ্টি করত।

ময়মনসিংহ অঞ্চলের সাধারণ মানুষের মাঝে মাওলানা আরিফ রব্বানির আধ্যত্মিক প্রভাব এখনও ব্যাপক। মাওলানা মাদানী রহ. সহ দেওবন্দের উস্তাযদের থেকে আধ্যাত্মিক দীক্ষা অর্জনের পাশাপাশি তিনি থানাভবনে হযরত থানবী রহ.-এর দরবারেও যেতেন নিয়মিত।

অবশেষে দীর্ঘ রাজনৈতিক ও আধ্যাত্মিক জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৯৭ সালের ৮ জানুয়ারী সন্ধ্যায়। মাইজবাড়ীর পারিবারিক কবরস্থানেই তাকে দাফন করা হয়।

এই সংবাদটি 1,027 বার পড়া হয়েছে

বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে।  ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।  ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে। ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com