মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টে ২০১৯ ০৫:০৯ ঘণ্টা

কুরআনের ভাষা এবং সাহিত্য

Share Button

কুরআনের ভাষা এবং সাহিত্য

ফরীদ আহমদ রেজা:
আরবী সাহিত্যের প্রসিদ্ধ কবি লবিদ বিন রাবিয়া প্রাক ইসলাম যুগের কবিতা নিয়ে গ্রন্থিত ‎কাব্যগ্রন্থ ‘সাবআ মুয়াল্লাক্বা’র সাত কবির একজন। মুসলমান হবার পর লবিদ কবিতা লেখা ‎বাদ দিয়ে দেন। কবিতা লেখার বিরুদ্ধে কুরআনে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, ব্যাপারটা কিন্তু তা নয়। ‎বরং কবিতার প্রতি মহানবী (স)’র প্রবল অনুরাগ ছিল। তিনি মসজিদে নববীর মিম্বরে বসে ‎কবিদের কবিতা পড়তে দিয়েছেন এবং একাধিক কবির কবিতা শুনে খুশি হয়ে উপঢৌকন ‎হিসেবে তিনি নিজের জামা তাদের দান করেছেন। ‎

লবিদের ইসলাম গ্রহণের ঘটনা খুবই তাৎপর্যবহ। কুরআনের কয়েকটি স্থানে চ্যালেঞ্জ দিয়ে ‎বলা হয়েছে, তোমরা যদি কুরআনকে মানুষের রচিত কথা বলে মনে করো তা হলে ‎কুরআনের অনুরূপ একটি সুরা রচনা করে দেখিয়ে দাও। এটা জানতে পেরে কবি লবিদ ‎বিন রাবিয়া নিজের একটি কবিতা কাবা শরিফে ঝুলিয়ে রাখেন। এর জবাবে জনৈক সাহাবা ‎কুরআনের একটি ছোট্ট সুরা লবিদের কবিতার পাশে সেঁটে রাখেন। পর দিন লবিদ কাবা ‎শরিফে এসে কুরআনের সুরাটি পাঠ করে বিস্ময়ে অভিভূত হয়ে পড়েন। সাথে সাথে তিনি ‎বলে ওঠেন, ‘নিঃসন্দেহে এটা মানুষের ভাষা নয়, আমি এর ওপর ঈমান আনলাম।’

ঈমান ‎আনার পর লবিদ কবিতা লেখা পরিত্যাগ করে কুরআন অধ্যয়নের মাধ্যমে অলৌকিক আনন্দ ‎লাভ করে জীবন কাটিয়ে দেন। ‎
যারা সাহিত্য বুঝে না, কবিতা জানেন না, সাহিত্যের অলঙ্কারশাস্ত্র সম্পর্কে ধারণা নেই তাদের ‎জন্যে কুরআন-হাদিসের সত্যিকার রসাস্বাদন এবং তাৎপর্য অনুধাবন করা কঠিন। কেউ শুধু ‎শাব্দিক অর্থ শিখে কুরআন-হাদিস বুঝার চেষ্টা করলে তিনি অন্ধকারে হাতড়ে বেড়াবেন বা ‎অথৈ জলে পড়ে হাবুডুবু খাবেন। অবশ্য হেদায়াত অর্জন উদ্দেশ্য হলে সেটা তিনি সহজেই ‎পেয়ে যাবেন। কারণ আল্লাহ কুরআনে বলে দিয়েছেন, ‘হোদায়াতের জন্যে আমরা কুরআনকে ‎সহজ করে দিয়েছি।’‎

অলঙ্কার ব্যবহারের দৃষ্টান্ত হিসেবে একটা হাদিস এখানে উল্লেখ করছি। মহানবী (স) ‎ইন্তেকালের আগে একদিন তাঁর স্ত্রীদের বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা হাত সবচয়ে লম্বা সে ‎সকলের আগে আমার সাথে মিলিত হবে।’‎

মহানবী (স)’র এ কথা শুনে মুমিনদের মায়েরা কার হাত কতটুকু লম্বা তা মাপাতে শুরু ‎করেন। কোনো কোনো হাদিসে এটাও আছে, তারা একটি কঞ্চি নিয়ে কার হাত সবচেয়ে ‎লম্বা তা নির্ণয়ের চেষ্টা করেছেন। কিন্তু লম্বা হাত বলতে কী মহানবী (স) হাতের দৈর্ঘ ‎বুঝিয়েছেন? ব্যাপারটা আসলে তা নয়। ‎

রাসুল (স)’র ইন্তেকালের পর দেখা গেলো, তাঁর স্ত্রীদের মধ্যে সর্বপ্রথম ইন্তেকাল করেন ‎জয়নাব বিনতে জাহশ (রা)। তখন মহানবী (স)’র কথার সঠিক অর্থ সবাই বুঝতে পারলেন। ‎জায়নাব বিনতে জাহশ (রা) ছিলেন মুমিন সমাজের মা’দের মধ্যে সবচেয়ে দানশীল মহিলা। ‎আসলে লম্বা হাত বলতে এখানে মহানবী (স) সবচেয়ে বেশি দানশীল হওয়া বুঝিয়েছেন। ‎

কুরআন যখন নাজিল হয় তখন আরবী সাহিত্য উন্নতির উচ্চমার্গে অবস্থিত ছিল। মহানবী ‎‎(স)’র ভাষাও ছিল অত্যন্ত উন্নত মানের। কম কথায় ব্যাপক অর্থবোধক বক্তব্য প্রকাশের ‎ব্যাপারে মহানবী (স) ছিলেন অত্যন্ত পারদর্শী। কবিতা ও সাহিত্যের আবিশ্যিক উপকরন ‎শব্দালঙ্কার, বাক্যালঙ্কার, উপমা, উৎপ্রেক্ষা, অনুপ্রাস, যমক, শ্লেষ ইত্যাদি কুরআন-হাদিসে ‎ভরপুর। কুরআন-হাদিস কেউ বিশ্বাস করুক বা না-ই করুক তা পাঠ করলে এ দুটো সম্পদে ‎লুকিয়ে থাকা সারগর্ভ কথা ও বাকপ্রতিমা তাকে অবশ্যই অভিভূত ও আকৃষ্ট করবে। কিন্তু ‎সাহিত্য, বিশেষ করে কবিতা না বুঝলে এবং আরবী ভাষায় দক্ষতা অর্জন ব্যতিরেকে ‎কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য থেকে সত্যিকার রস আস্বাদন কারো পক্ষে সম্ভব নয়। এ কথা ‎সকল ভাষার সাহিত্যকর্মের ব্যাপারে প্রযোজ্য। ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা না থাকলে ‎শেকসপিয়রের নাটক বা ফারসি ভাষা না জানলে হাফিজ-রুমির কবিতা আমরা কতটুকু ‎বুঝতে পারবো তা সাহজেই অনুমেয়। ‎

লণ্ডন ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

এই সংবাদটি 1,050 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com