বুধবার, ০২ অক্টো ২০১৯ ১২:১০ ঘণ্টা

পীর জুলফিকার নকশবন্দির সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

Share Button

পীর জুলফিকার নকশবন্দির সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

মুফতি হাবীবুল্লাহ মিসবাহঃ
পাকিস্তানের শীর্ষতম বুযুর্গ আলেম, সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিক্ত পীর জুলফিকার আহমদ নকশবন্দী সাহেবের সংক্ষিপ্ত পরিচয় সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলোঃ
১৯৫৩ সালের এপ্রিল মাসে পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের জংগ জেলায় জন্ম গ্রহন করেন৷ তার পিতার নাম আল্লাহ দিতা তিনি হাফিজে কুরআন ছিলেন৷
শিক্ষাঃ
বড় ভাই মাস্টার আহমদ আলীর নেতৃত্বে প্রাইমারী লেখা পড়া শেষ করেন৷ 1966 ম্যাট্রিক পাশ করেন৷ 1971 পাঞ্জাব ইউনিভার্সিটি থেকে বি,এস, 1976 ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার নিয়ে বি,এস পাশ করেন৷ 1951 লম্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিউম্যান রিসোর্স কোর্স সম্পন্ন করেন৷
আধুনিক জ্ঞানের পাশাপাশি তিনি একজন হাফিযে কুরআন৷ জিয়াউল উলুম মাদরাসায় লেখা পড়া করেন মুফতি ওলী উল্লাহ ও মুফতি জামিল আহমদ থানবীর নিকট৷
তিনি আরবী,উর্দু, ইংরেজী ভাষায় পারদর্শী৷ তাই তার বয়ান ও কিতাব তিন ভাষায় রয়েছে৷
পীর জুলফিকার আহমদ নকশবন্দীর হাদিসের সনদ
তিনি বুখারি পড়েছেন হাফিযুল কোরআন ওয়াল বুখারী শাইখুল হাদিস আল্লামা ইয়াকির সাহেবের কাছে জামিয়া জিয়াউল উলুম পাকিস্তানে৷ তখন সবে মাত্র পাকিস্তান বেফাক বোর্ডের জন্ম৷ তিনি বার বার তার উস্তাদকে বলেন যে হযরত আমার ইচ্ছা বেফাক বোর্ডে দাওরা পরিক্ষা দিব৷ কিন্তু উস্তাদ জবাবে বলেন যে তুমি সনদ চাও না ইলম চাও৷ তখন নকশবন্দী বলেন হযরত ইলম চাই৷ উস্তাদ বলেন তাহলে ইলমি তুমাকে দান করেছি সার্টিফিকেটের প্রয়োজন নেই৷ আমিও কোন বোর্ডে পরিক্ষা দেই নাই৷
এবং সেই সময় পাকিস্তানের অনেক মাদরাসা বেফাক বোর্ডে তখনও যোগ দান করে নাই৷ উস্তাদের কথা মানতে গিয়ে বেফাক বোর্ডের পরিক্ষা হযরত অংশ গ্রহন করেন নাই৷ না হয় বোর্ডের ফাস্ট ছাত্র হতেন৷
এছাড়া হযরতকে পাকিস্তানের দুটি প্রসিদ্ধ মাদরাসা দাওরায়ে হাদিসের সনদ দিয়েছে৷
এক: জামিয়া রহমানিয়া জাহানিয়া মিন্ডী৷ দুই: জামিয়া কাসিমুল উলুম মুলতান৷
এদিকে তার রয়েছে চারটি আলি সনদ হাদিসের৷
1) দারুল উলুম ওয়াকফ দেওবন্দের সাবেক মুহতামিম ও শাইখুল হাদিস মাওলানা সালিম কাসিমী রহঃ স্বয়ং তাকে তার খাস কামরায় নিয়ে হাদিসের দরস দিয়ে সনদের ইজাযত প্রদান করেন৷
2) হরমে মক্কার এক সময়ের শাইখুল হাদিস আহমদ আলী (ভারত) তাকে হাদিসের ইজাযত দেন৷ যার কাছ থেকে স্বয়ং তাকি উসমানি হাদিসের ইজাযত নিয়েছেন৷ এসনদে রয়েছেন ফজলুর রহমান গনজে মুরাদাবাদী রহঃ ৷
3) তুর্কিতে তাকে হাদিসের ইজাযত দিয়েছেন শায়খ আমিন সিরাজ যিনি যাহিদ আল কাওসারি রহঃ এর সর্ব শেষ ছাত্র৷
4) বুখারার সমরকন্দে সিরিয়ার আরেক শায়খ তাকে হাদিসের ইজাযত দিয়েছেন৷
যা মাত্র পনের সনদে রাসুল সাঃ পর্যন্ত পৌছে৷ এসনদে রয়েছেন আল্লামা শামী রহঃ৷ অতচ উপমহাদেশে বিশ ওয়াসিতা এর কমে সনদ নেই৷
ঐ শায়খ তার কাছে তাওবা করেছেন৷
এগুলো নকশবন্দি নিজে বলেছেন এক বুখারি শরিফের শেষ দরসে৷
পাকিস্তানের প্রসিদ্ধ একজন ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে চাকুরীরত ছিলেন৷চল্লিশ বসর বয়সে সরকারী চাকুরী ছেড়ে মুর্শীদের অনুমতিতে ইসলামের প্রচার প্রসারে নিয়োজিত হোন৷
1983 খাজা গোলাম হাবীব নকশবন্দী রহঃ তাকে খেলাফত ও ইজাযত দান করেন৷
নকশবন্দি হাফিঃ যুবক বয়সে এক শত বার রাসুল সাঃ এর যিয়ারত নসিব হয়েছে৷ তাই কথা বলার সময় একটু বুঝে কথা বলবেন৷ সত্তরটি দেশ ভ্রমন করেছেন৷ লক্ষ লক্ষ লোক তার কাছে তাওবা করেছে৷ অনেক মুসলমান হয়েছে তার হাতে৷
বিশ্বে তার দেড়শত খুলাফা রয়েছেন৷
তার মধ্যে অন্যতম হলেন করাচিতে মুফতি আবু লুবাবা যিনি পাকিস্তানের প্রসিদ্ধ দরসগাহ জামিয়াতুর রশীদের মুহাদ্দিস ও মুফতি৷
ভারতে মাওলানা খলিলুর রহমান সাজ্জাদ নুমানী৷ যিনি মাওলানা মনজুর নুমানী রহঃ এর ছেলে৷ এবং অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের তরজুমান৷ মাসিক আল ফুরকানের সম্পাদক
সাউথ আফ্রিকায় মাওলানা ইমাম শামিল,লাহোরে মাওলানা ডঃ শাহেদ ওয়াইসি৷ চকওয়ালে মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস,আযাদ কাশ্মীরে মাওলানা মুফতি গোলাম রসুল৷ তিনি যখন মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেবকে ইজাযত প্রদান করেন তখন তিনি বলেন সিয়াসত মে ওহ মেরা ইমাম হায় আওর রিয়াজত মে ময় উসকা ইমাম হায়৷
তিনি আরবী উর্দু ইংরেজীতে কয়েক ডজন বই রচনা করেছেন৷ যেমন এশকে এলাহী,এশকে রাসুল,হায়াতে হাবীব,তাসাউফ ও সুলুক,বা আদব বা নসিব,মাকতুবাতে ফকির,খুতুবাতে ফকির,সুকুনে দিল,সুওয়ে হারাম ইত্যাদি৷
1984 দারুল উলুম জংগ নামে একটি মাদরাসা প্রতিষ্টা করেন৷ 1986 জামিয়া আয়েশা সিদ্দিকা নামে মেয়েদের জন্য আলাদা মাদরাসা নির্মান করেন৷ যার পরিচালক হলেন তার স্ত্রী৷
মাহাদুল ফকির আল ইসলামিয়া নামে জংগে একটি জামিয়া নির্মান করেন৷ যেখানে দারুল ইফতা সহ অনেক গুলো শাখা রয়েছে৷
1999 মাকতাবাতুল ফকির নামে একটি প্রকাশনা চালু করেন৷ যেখান থেকে লক্ষাধিক কিতাবাদি ছাপা হয়েছে৷
তিনি খাজা মুহাম্মদ আব্দুল মালিক সিদ্দিকীর মেয়ে বিবাহ করেন৷ তার দুই ছেলে মাওলানা পীর হাবীবুল্লাহ ও মাওলানা পীর সাইফুল্লাহ৷

এই সংবাদটি 1,067 বার পড়া হয়েছে

বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে।  ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।  ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে। ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com