শুক্রবার, ০৪ অক্টো ২০১৯ ০৩:১০ ঘণ্টা

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে আল্লামা বালাউটির জানাজা সম্পন্ন

Share Button

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে আল্লামা বালাউটির জানাজা সম্পন্ন

সিলেটের প্রখ্যাত বুজুর্গ ও বিশিষ্ট আলিমে দ্বীন হযরত আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটী আর নেই। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩ টা সময় সিলেটের একটি হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

এদিকে তাঁর জানাযা প্রায় লাখো মুসল্লির অংশ গ্রহনে সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার বাদ জুমা জকিগঞ্জের বালাউটে এ জানাযা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাযার নামাজে ফুলতলীর প্রখ্যাত পীর আল্লামা ইমাদ উদ্দীন চৌধুরী ফুলতলীসহ বিভিন্ন মাদরাসার অধ্যক্ষ, জনপ্রতিনিধিসহ সকল শ্রেণী পেশার মুসল্লী অংশ নেন।

এরআগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বক্তারা বলেন, ‘আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটী ছিলেন আল্লাহর একজন মাকবুল বান্দা। তাঁর জীবন ছিলো সহজ-সরল। শুয়াইবুর রহমান বালাউটী ছিলেন একজন সাধক পুরুষ।’

মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী’র শোক
আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটী এর ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন হযরত আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.) এর ছাহেবজাদা ও আনজুমানে আল ইসলাহ’র সভাপতি মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী।

শোক বার্তায় তিনি বলেন, আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটী সিলেটের একজন শীর্ষস্থানীয় আলিমে দ্বীন ও বুযুর্গ ছিলেন। তিনি ছিলেন আল্লামা ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র,)-এর একজন সুযোগ্য খলীফা। তাঁর ইন্তেকালে আমরা একজন আদর্শ অভিভাবককে হারালাম। তিনি মরহুমের দরজাবুলন্দি কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

আল ইসলাহ ও তালামীযের শোক
হযরত আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটী এর ইন্তেকালে গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ’র সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা ছরওয়ারে জাহান, অধ্যক্ষ মাওলানা শামসুল ইসলাম, জালালপুর জালালিয়া কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জ.উ.ম আব্দুল মুনঈম মনজলালী, আল ইসলাহ’র মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা একেএম মনোওর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ মাওলানা মঈনুল ইসলাম পারভেজ, বাদেদেওরাইল ফুলতলী কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুর রহীম, উপাধ্যক্ষ মাওলানা মাহমুদ হাসান চৌধুরী ফুলতলী, আনজুমানে আল ইসলাহর কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ মাওলানা আবূ ছালেহ মুহাম্মদ কুতবুল আলম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অধ্যক্ষ মাওলানা আবু জাফর মুহাম্মদ নুমান, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা নজমুল হুদা খান, বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি আখতার হোসাইন জাহেদ, সহ সভাপতি দুলাল আহমদ, মুহিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূনুর রহমান লেখন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোজতবা হাসান চৌধুরী নোমান।

সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য

হযরত আল্লামা শুয়াইবুর রহমান বালাউটি ১৯৪৩ ইংরেজি সালের ১৫ই মে সিলেট জেলাধীন জকিগঞ্জ উপজেলাস্থ ৩নং কাজলসার ইউনিয়নের বালাউট গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম মো. রছমান আলী, মাতা-মোছাম্মাত জয়নব বিবি। তিনি ৩ ভাই ৩ বোনের মধ্যে দ্বিতীয়। তিনি স্বীয় পিতামাতার কাছে প্রাক প্রাথমিক শিক্ষাগ্রহণ করেন। মক্তব শেষ করে ১৯৪৭ইং সালে সড়কের বাজার আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন। ১৯৪৯ ইং সালে বাড়ির নিকটস্থ হাড়িকান্দি মাদরাসায় ভর্তি হয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন। অতঃপর ইছামতি দারুল উলূম কামিল (এম.এ) মাদরাসা থেকে ১৯৫৬ ইং সালে দাখিল এবং ১৯৫৮ ইং সালে আলিম পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

মাদরাসা থেকে ১৯৬০ ইং সালে ফাজিল পাশ করে ভর্তি হন সিলেট সরকারী আলিয়া মাদরাসায় এবং ১৯৬২ ইং সালে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে কামিল উত্তীর্ণ হন।তিনি ১৯৬০ইং সালে বাদেদেওরাইল ফুলতলী কামিল (এম.এ.) মাদরাসায় খ-কালীন সহকারী শিক্ষক ছিলেন এবং ১৯৬২ইং থেকে ১৯৭৫ ইং পর্যন্ত উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব আঞ্জাম দেন। ১৯৭৬ইং সাল থেকে ১৯৮২ইং সাল পর্যন্ত আটগ্রাম আমজদিয়া মাদরাসা’র প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন কেরন। ১৯৮২ইং সাল থেকে জালালপুর জালালিয়া কামিল মাদরাসায় অধ্যক্ষ পদে দায়িত্ব পালন করে ২০০৮ইং সালে চাকুরী থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

এ কর্মবীর ১৯৯০ইং সালে সিলেট জেলা শিক্ষা সপ্তাহে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান এবং ১৯৯৩ইং সালে জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমী (নায়েম) এর প্রশিক্ষণে “শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ” সম্মানে ভূষিত হন। পারিবারিক জীবনে ১১ পুত্র ও ২ কন্যা সন্তানের জনক তিনি। পুত্র সন্তানদের ৩ জন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতার দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন। অন্যান্যদের মধ্যে ১জন ডাক্তার, ১জন হাফিযে কুরআন এবং অন্যরা শিক্ষার্জনে রত রয়েছেন।

অধ্যক্ষ আল্লামা মো. শুয়াইবুর রহমান বালাউটি উপমহাদেশের প্রখ্যাত বুজুর্গ, শামসুল উলামা আল্লামা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী ছাহেব কিবলাহ (র.)-এর কাছ থেকে ১৪৮৭ হিজরী সনে ইলমে কেরাত এবং ১৯৭১ইং সালে তরিকত বা আধ্যাত্মিকতার সনদ লাভ করেন। তিনি একজন ইসলামি দার্শনিক হিসেবে সর্বমহলে পরিচিত। তাঁর প্রতিষ্ঠিত অনেক খানকা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। তাঁর অগণিত শিক্ষার্থী দেশ-বিদেশে উচ্চ পর্যায়ের চাকুরীতে নিয়োজিত থেকে সুনাম কুড়াচ্ছেন। তাঁর রচিত কয়েকটি গ্রন্থ রয়েছে। তিনি স্বীয় খোদাভীরুতা, জ্ঞান সাধনা এবং সমাজ ও দেশহিতৈষী কর্মকাণ্ডের জন্য সর্বমহলে প্রশংসিত।

এই সংবাদটি 1,283 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com