মঙ্গলবার, ১৫ নভে ২০১৬ ১১:১১ ঘণ্টা

ড.জাফর ইকবাল ও ইসলামী বইপত্রের বানানসমাচার!

Share Button

ড.জাফর ইকবাল ও ইসলামী বইপত্রের বানানসমাচার!

মুফতী খন্দকার হারুনুর রশীদ :: ড. জাফর ইকবাল কখনো আমার পছন্দের কোনো লেখক ছিলেন না। এখনো নন। তার লেখা দশবছর আগে যেরকম আমার ভালো লাগতো না, এখনো ভালো লাগে না। কারণ, তার এবং আমাদের ‘আডিওলজি’ কখনো এক নয়।
একদা একজন বললেন– এই প্রবন্ধটি একবার পড়ুন!

আমি কাগজখানা হাতে নিয়ে দেখি– প্রবন্ধটির লেখকের নাম ‘ড. মহম্মদ জাফর ইকবাল! ‘মহম্মদ’ শব্দটাতেই আমার চোখ থমকে দাঁড়ালো। ভাবলাম– ব্যাপার কী? ‘মুহাম্মাদ’ শব্দটি ‘মহম্মদ’ হলো কেনো? অতঃপর লোকটাকে এসম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম।

তিনি জবাব দিলেন– আমার জানামতে ‘স্যার’ স্বীয় নামের সাথে ‘মহম্মদ’ শব্দটা ‘এফিডেভিট’ করে যোগ করেছেন! আমি কারণ জানতে চাইলাম। তিনি বললেন– স্যারের নামে আগে এ শব্দ যুক্ত ছিলো না।

তাহলে ভুল কেনো? শুদ্ধ করে লিখাতে সমস্যা কোথায়? ‘মুহাম্মাদ’ নাকি ‘মহম্মদ’? শুদ্ধ কোনটি? তা কি তার জানা নেই? নাকি ইচ্ছাকৃত?

যদিও বাস্তবতা আমার জানা নেই তথাপি আমি আমাদের বিশ্বমুসলিমের প্রাণের চেয়ে প্রিয়তম নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বরকতময় পবিত্র নাম ‘মুহাম্মাদ’কে ‘মহম্মদ’রূপে লিখে এমন বিকৃতিসাধন চরম একটা বেয়াবিমূলক ধৃষ্টাচরণ মনেকরি। যা অবশ্যই শাস্তিযোগ্য অপরাধ!

এবার তার পুনঃঅনুরোধে প্রবন্ধটি পড়তে লাগলাম। একজাগায় তিনি লিখেছেন– ধর্মীয় বইপুস্তক তিনি পড়েন না। কারণ, ধর্মগ্রন্থগুলি ভুলে ভরপুর। বানানের ভুল দেখলেই তার বিরক্তি লাগে। ঘৃণা আসে। ইত্যাদি ইত্যাদি।

আমি হেসে ওঠলাম। পাশের লোকটি বললেন– আপনি হাসছেন কেনো? বললাম– লোকটা সম্ভবতঃ বাংলায় লিখা ধর্মীয় কোনো বইপত্র পড়ার জন্য সংগ্রহ করেছিলো কিন্তু সেখানে বানানের ভুল পেয়ে এখন লিখছে– ধর্মগ্রন্থগুলি ভুলে ভরপুর! তো তার ”জ্ঞানের পরিধি এবং চিন্তার দন্যতা” অনুমান করে হাসছি। অন্য কিছু নয়।

যাক। দীর্ঘদিন পর আজ আবারো হাসলাম। ‘বানানগর্বা’ এসব ‘বিজ্ঞানী’দের ‘বানানজ্ঞান’ দেখে। ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় প্রতিষ্ঠানের আটলাইনের একটি বিজ্ঞপ্তির বানানে মাত্র ২২টি ভুল ধরা পড়ার পর এবার ধরা পড়লো খোদ জাফর স্যারের প্রতিষ্ঠানের ‘ছাত্র-ছাত্রী’ ছাউনীর ডিজিটাল সাইনবোর্ডে বিদ্যালয়ের জাগায় লিখা হয়েছে ‘বিদ্যায়ল’! বাহ! কী মচৎকার?

যাদের ছাত্র-ছাত্রীদের এখনো যদি কেউ জিজ্ঞেস করে যে, ‘বিজ্ঞান’ অর্থ কী? তাহলে তারা অনায়াসে বলে ‘বড় বন্ধুক’– সেই তারা আবার ধর্মীয় পুস্তকে ভুল কোনো বানান পেলে তাদের ‘বিরক্তি লাগে!’ ‘ঘৃণা আসে!’ হায়রে ঘৃণা! হায়রে বিরক্তি!

আল্লাহ আমাদের সকল বেহেদাতকে হেদায়েত দান করুন।

১৫/১১/২০১৬খ্রি. মঙ্গলবার, সিলেট।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com