বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টো ২০১৯ ০৩:১০ ঘণ্টা

আবরার হত্যা ও দেশ বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদে জমিয়তের সংবাদ সম্মেলন

Share Button

আবরার হত্যা ও দেশ বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদে জমিয়তের সংবাদ সম্মেলন

সিলেট রিপোর্ট: বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ রাব্বির হত্যাকান্ড ও দেশ বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ।

আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলের কেন্দ্রীয় মহাসচিব মাওলানা নূর হোছাইন কাসেমী।
লিখিত বক্তব্যে আল্লামা কাসেমী বলেন, আবরারের জীবনদান আধিপত্যবিরোধী সংগ্রামে আগামীর জন্য মাইল ফলক হয়ে থাকবে

দেশ প্রেমিক ছাত্র সমাজ ও শান্তিপ্রিয় জনতাকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, সোশাল মিডিয়ায় দেশের স্বাধীনতা -সার্বভৌমত্ব ,মাটি,পানি-গ্যাস ও অধিকার রক্ষা সংগ্রামে আবরার প্রথম শহীদ।

সম্মেলনে আগামীকাল শুক্রবার আবরারের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করার জন্য দেশের সকল খতিব,ইমাম ও মুসলমানদের প্রতি আহবান জানান।
৫ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে যে ৭টি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে,তা দেশের র্স্বাথবিরোধী। তাই অবিলম্বে তা বাতিলের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহসভাপতি মাওলানা জহিরুল হক ভুইয়া, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, যুগ্মমহাসচিব মাওলানা তাফাজ্জুল আজিজ, মুফতি মুনীর হোসাইন কাসেমী, অর্থসম্পাদক মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী, প্রচারসম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন, দফতর সম্পাদক মাওলানা আব্দুল গফ্ফার ছয়ঘরী,মহানগর জমিয়তের সহসভাপতি মাওলানা মুহিউদ্দীন মাসুম,
কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মাওলানা মুনীর আহমদ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম কাসেমী, ছাত্র জমিয়তের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফেরদৌস মাহমুদ, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী, ছাত্র নেতা মাহফুজুর রহমান ইয়ামিন, রফিকুল ইসলাম,নুর হোছাইন সবুজ, আনোয়ার হোসাইন প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্য
Avmmvjvgy AvjvBKzg Iqv ivngvZzjøvn
mywcÖq mvsevw`K fvB‡qiv!
গত ৬ অক্টোবর রোববার বুয়েট এর মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ রাব্বীকে ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মী নৃশংসভাবে পিটিয়ে খুন করেছে। তার অপরাধ ছিল, ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে ফেনী নদীর পানি ভারতকে দেওয়ার প্রতিবাদে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়া। মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় সারা দেশের মানুষ গভীরভাবে শোকাহত, চরম উত্তেজিত ও বিক্ষুব্ধ। এই হত্যাকাণ্ডের সাথে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের নেতাদের প্রত্যক্ষ সংশ্লিষ্টতার স্বীকারোক্তি পত্রপত্রিকায় ইতিমধ্যেই সবিস্তার প্রকাশিত হয়েছে।

প্রিয় সাংবাদিক ভাইয়েরা!
দেশের পক্ষে ফেসবুকে লেখা একটি স্ট্যাটাসের জন্য কাউকে নিজ দেশের মানুষের হাতে এভাবে জীবন দিতে হবে, এটা যেমন কল্পনাতীত তেমনি গভীর উদ্বেগ ও আশনী সংকেতও বহন করে। এটা কোন দেশ? খুনীদের সরকারী দলের তকমা থাকলেই তারা দেশটাকে হিংস্রতার অভয়ারণ্য বানিয়ে ছাড়ে। আর তাই নির্ভয়ে তারা বিরোধী মত ও পথের মানুষদের অবলীলায় হত্যা করতেও দ্বিধা করছে না। বুয়েটের মতো দেশ বাছাই করা শীর্ষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই যদি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা না থাকে, তাহলে আমাদের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা কোথায় গিয়ে ঠেকেছে, ভেবে দেখলে সত্যিই হতাশ ও আতংকিত হতে হয়।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
সোশ্যাল মিডিয়ায় দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, মাটি, পানি ও অধিকার রক্ষা সংগ্রামে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ প্রথম শহীদ হিসেবে আপনাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি। আবরারের জীবনদান আধিপত্যবিরোধী সংগ্রামে আগামীর জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে। ইতিমধ্যেই সারাদেশের সাধারণ ছাত্রসমাজ আবরার হত্যার প্রতিবাদের পাশাপাশি আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধেও ফুঁসে উঠেছে। দেশপ্রেমিক সাধারণ ছাত্রসমাজ ও শান্তিপ্রিয় জনতার প্রতি আমাদের উদাত্ত আহবান, এই মৃত্যু উপত্যাকাকে শান্তিময় করতে আবরার হত্যার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে সকলে সোচ্চার শামিল হয়ে দেশবিরোধী সকল অপশক্তি ও খুনি চক্রকে উৎখাত করুন।
পাশাপাশি আমরা সরকারের প্রতি দাবি জানাতে চাই, অবিলম্বে আবরার ফাহাদের খুনিদের আরো যারা যারা বাদ পড়েছে তাদেরকেও গ্রেফতার এবং দ্রুত বিচারের মাধ্যমে অপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করুন। বিচার প্রক্রিয়া শুরু করে পরে সরকাররের প্রভাব খাটিয়ে অপরাধীদেরকে ছেড়ে দেবেন, সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করবেন- অন্তত: জনগণ আর এমনটা হতে দেবে না। আবরার হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা দিতে কোন ছলচাতুরির আশ্রয় নিলে সর্বস্তরের ছাত্র-জনতা দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব রক্ষাসহ দেশকে নিরাপদ করতে দুর্বার গণ-আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে।
আপনাদের মাধ্যমে আমরা দেশের সকল খতীব, ইমাম ও সর্বস্তরের মুসলমানদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি, আগামী কাল বাদ জুমা আবরার ফাহাদের রূহের মাগফিরাত ও জান্নাতের জন্য বিশেষ দোয়া-মুনাজাত করুন।

প্রিয় সাংবাদিক ভাইয়েরা!
এবার আমাদের আলোচ্য দ্বিতীয় প্রসঙ্গে বলছি। গত ৫ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দিল্লীতে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে সাতটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তির বিস্তারিত জনগণকে জানায়নি। তবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিবরণ থেকে জানা যায়, এসব চুক্তি ও সমঝোতা স্মারকে বাংলাদেশের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে ভারতের সকল চাওয়া-পাওয়া পুরণ করা হয়েছে। নতুন এসব চুক্তির মাধ্যমে চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দর ব্যবহারের অবারিত সুযোগ পাবে ভারত। এতে করে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর থেকে ভারতের পূর্বাঞ্চলে মাল আনা-নেওয়া করতে বাংলা দেশের প্রধান প্রধান সড়ক ও রেল পথ ব্যবহার করতে পারবে ভারত। বাংলাদেশের ফেনী নদী থেকে পানি তুলে ত্রিপুরায় নিতে পারবে। তরল গ্যাস রফতানি হবে। এছাড়াও এসব চুক্তির মাধ্যমে সমুদ্র নজরদারির কথা বলে বাংলাদেশের উপকূল অঞ্চলে ভারতকে রাডার স্থাপনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে কয়েক বছর আগে থেকেই ভারতীয় পণ্যবাহী যানবাহনসমূহকে বাংলাদেশের সড়ক ও নদীপথ ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়ে শুল্কমুক্ত ট্রানজিট সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে কলকাতা থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনও বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে শিলিগুড়ি যাওয়া-আসা করবে।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
এসব দ্বিপক্ষীয় চুক্তিসমূহে বাংলাদেশের অর্জনের খাতা একেবারেই যে শূন্য- কেবল তা নয়। বরং এই চুক্তিসমূহ বাস্তবায়ন হতে শুরু হলে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক পরিস্থিতি গভীর হুমকি ও সংকটের মুখে পড়ে যাবে। কারণ, ইতিমধ্যেই আমাদের চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দর দেশের আমদানী-রফতানীর ভার বহন করতেও হিমশিম খাচ্ছে। অনেক সময় সপ্তাহর পর সপ্তাহ বন্দরে জাহাজ জট লেগেই থাকে। এর মধ্যে ভারতের পূর্বাঞ্চলের ৭ রাজ্যের আমদানী-রফতানীর ভারও এই দুই বন্দরের উপর পড়লে দেশের আমদানী-রফতানী বাণিজ্য মারাত্মক প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পড়বে নি:সন্দেহে। অপরদিকে বাংলাদেশের নাজুক সড়ক ব্যবস্থাপনার কথা আমাদের সকলেরই জানা। এমনিতেই ব্যাপক দুর্নীতির কারণে দেশের সড়ক নির্মাণে যথাযথ মান রক্ষা না হওয়ায় বছর না ঘুরতেই খানাখন্দকে বেহাল অবস্থা তৈরি হয়। এরপর চাহিদার তুলনায় অপ্রশস্ত ও অব্যবস্থাপনার কারণে মহাসড়কগুলোতে প্রায়ই দীর্ঘ জ্যাম লেগেই থাকে। যখন চুক্তি মতে দুই বন্দর ব্যবহার করতে শুরু করবে ভারতের ৭ রাজ্য, তখন দেশের প্রাধান প্রধান মহাসড়কগুলোতে গাড়ির চাপ বহুগুণ বেড়ে যাবে। এতে পরিস্থিতি যে কি দাঁড়াবে, ভাবতেও গা শিউরে উঠে। এর মধ্যে ভারতকে দেওয়া হয়েছে বিনাশুল্কের ট্রানজিট সুবিধা। তখন পরিস্থিতি যা দাঁড়াবে, দেশের সামগ্রীক অর্থনীতিই কেবল স্থবির হবে না, ভারতীয় গাড়ি চলাচল ও আমদানী-রফতানির জন্য সড়ক ও বন্দর সচল রাখতে জনগণের ট্যাক্সের টাকা খরচ করতে হবে। এবার ফেনী নদীর পরিস্থিতি দেখুন।
ভারতের সাথে ফেনী নদীর পানি চুক্তিতে হুমকির মুখে পড়বে মুহুরী সেচ প্রকল্প। ফেনী নদীর পানি প্রত্যাহার করে নেয়া হলে শুষ্ক বোরো মৌসুমে নদী তীরবর্তী চট্টগ্রামের মিরশ্বরাই, খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলা, ফেনীর ছাগলনাইয়া, পরশুরাম, সোনাগাজী, ফুলগাজী, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের দক্ষিণাংশ এবং নোয়াখালী-লক্ষ্মীপুরের কিছু অংশের বিভিন্ন সেচ প্রকল্পে পানির জোগান অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এতে করে লাখ লাখ হেক্টর চাষাবাদের জমি অনাবাদি হয়ে পড়বে। অকার্যকর হয়ে পড়বে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ‘মুহুরী সেচ প্রকল্প’। যার আওতায় এ অঞ্চলের প্রায় ১৪ থেকে ১৫টি উপজেলার ৮-৯ লাখ হেক্টর জমিতে লোণামুক্ত পানির সরবরাহ করা হয়। এ প্রকল্পের আওতায় যেখানে ফেনী, মুহুরী ও কালিদাস পাহালিয়া- এ তিনটি নদীর পানি দিয়ে ৮-৯ লাখ হেক্টর জমির সেচকাজ করার কথা, সেখানে এখনই শুকনো মৌসুমে পানির অভাবে ২৩ হাজার হেক্টর জমিতেও সেচ দেয় সম্ভব হয় না। এছাড়াও মুহুরী সেচপ্রকল্পকে ঘিরে গড়ে ওঠা ৩৫ হাজার একর মৎস্য প্রকল্প ধ্বংস হয়ে যাবে। এতে সরাসরি বা পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে এ অঞ্চলের প্রায় অর্ধকোটিরও বেশি মানুষ।
এছাড়া মুহুরী প্রকল্পের নয়নাভিরাম পর্যটন সম্ভাবনা হারিয়ে যাবে নিমিষেই। হুমকির মুখে পড়বে কয়েক লাখ হেক্টর জমির গাছপালা। ফেনী নদী, মুহুরী ও কালিদাশ পাহাড়িয়া নদীকে ঘিরে গড়ে ওঠা প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ হাজার মৎস্য খামার বন্ধ হয়ে যাবে। যা থেকে উৎপাদিত মাছ দিয়ে পুরো চট্টগ্রামের ৭০ ভাগ মৎস্য চাহিদা পুরণ করা যায়। বছরে প্রায় আড়াই শ’ কোটি টাকার মৎস্য উৎপাদন হয় এ প্রকল্পের পানি দিয়ে। নদীর তীরবর্তী ২০-২২ হাজার জেলে পরিবারের জীবন-জীবিকা অন্ধকারের মুখে পড়বে।
অন্যদিকে চুক্তিতে উপকূলীয় নজরদারির কথা বলে বাংলাদেশে ভারতকে রাডার স্থাপনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। ঢাকা এবং দিল্লির মধ্যে এই সহযোগিতা চীনের সাথে বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে ইতিমধ্যেই অনেক বিশ্লেষক মতপ্রকাশ করেছেন। বাংলাদেশ শান্তিপ্রিয় দেশ হিসেবে বিশ্বের পরাশক্তি ও আঞ্চলিক শক্তিসমূহের সাথে নিরপেক্ষ ভারসাম্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রেখে চলে। কিন্তু এই চুক্তির ফলে বাংলাদেশকে আঞ্চলিক ও পরাশক্তিসমূহের দ্বন্দ্ব-সঙ্ঘাত ও প্রতিযোগিতায় জড়ানো হবে। যেটা দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত ও হুমকির মুখে নিয়ে যেতে পারে।
দেখা যাচ্ছে এসব চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক ও নিরাপত্তাগত পরিস্থিতিকেই শুধু হুমকির মুখে ঠেলে দিয়ে একতরফাভাবে ভারতের সকল চাওয়াই কেবল পুরণ করে নেয়নি, বরং ভারতের তরফ থেকে বিরূপ পরিস্থিতির মুখে পড়া কয়েকটা জরুরী ইস্যুতে বাংলাদেশের বারংবার উত্থাপিত আবেদন-অনুরোধ সত্ত্বেও ভারত সামান্যতমও ছাড় দেয়নি। ভারতের কাছে বাংলাদেশের দীর্ঘ দিনের চাওয়া তিস্তা নদীর পানি ভাগাভাগির ক্ষেত্রে চুক্তি নিয়ে কোন অগ্রগতি হয়নি। রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের যে জোরালো সমর্থন বাংলাদেশ চায় সেটিও মেলেনি। এমনকি যৌথ ঘোষণায় ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটিও ব্যবহার করানো যায়নি। বলা হয়েছে, মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশ থেকে আসা ‘আশ্রয়চ্যুত’ মানুষজন। বৈঠক শেষে দুই দেশের যৌথ বিবৃতিতে বাংলাদেশের জোরালো অনুরোধ-আবেদন সত্ত্বেও বিতর্কিত জাতীয় নাগরিকপঞ্জী বা এনআরসি বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর কাছ থেকে মৌখিক আশ্বাসটুকুও আদায় করা যায়নি। এমনকি দুই দেশের যৌথ বিবৃতিতে এনআরসি শব্দটিই একবারও উল্লেখ হয়নি। এভাবে বর্তমান সরকার এ যাবত ভারতকে শুধু একতরফা দিয়েই গেছে। কানাকাড়িও আদায় করতে পারেনি। পাহাড়সম বাণিজ্য বৈষম্যের প্রসঙ্গ তো আছেই।
সরকারের তরফ থেকে বার বার বলা হচ্ছে, “ভারতকে মানবিক কারণে ফেনি নদীর পানি ব্যবহারের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। তাহলে আমরাও তো একই ধরনের মানবিকতা ভারতের কাছ থেকে আশা করি। কিন্তু ভারত সেটা কখনো করেছে?

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
আমরা মনে করি ভারতের সাথে একতরফা এসব চুক্তি সংবিধান পরিপন্থী ও দেশবিরোধী চুক্তি। দেশের জনগণ ক্ষতিকর এসব চুক্তি কখনো মেনে নিবে না। আমরা দেখে আসছি, সরকার এ যাবত ভারতকে দুই সমুদ্র বন্দর দিল, ট্রানজিটের জন্য সড়ক দিল, রেলপথ দিল, নদীপথ দিল, গ্যাস রফতানির সুযোগ দিল, ফেনী নদীর পানি দিল, ভারতীয় সংস্কৃতি চর্চার উন্মুক্ত সুযোগ দিল, লাখ লাখ ভারতীয়কে উচ্চপদের চাকুরিতে জায়গা দিল, ভারতীয় ব্যবসায়ীদের জন্য পৃথক বিশেষ অর্থনৈতিক জোন করে দিল, বাংলাদেশে ভারতের সমরাস্ত্র বেচার সুযোগ দিল এবং বর্ডারে পাখির মতো বাংলাদেশী হত্যায় নিশ্চুপ থাকল। কিন্তু কিছুই তো তারা ভারত থেকে আনতে পারলো না। তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে দীর্ঘ এক যুগ দৌড়ঝাপ করেও একফোঁটা পানি আনতে পারেনি। ভারতকে কৃতজ্ঞতা হিসেবে এই সরকারের আর কি কি দেওয়ার বাকী আছে, জনমনে এখন এটাই বড় প্রশ্ন উঠেছে।
আমরা এ যাবত দেখে আসছি, সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক নির্বিচার বাংলাদেশী হত্যা বন্ধে বৈঠকে সরকার কোন আওয়াজ তুলেনি। এনআরসি ইস্যুতে বাংলাদেশের জন্য মারাত্মক উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হলেও এই নিয়ে ভারতের সামান্য কোন বক্তব্যও আদায় করতে পারেনি। ফারাক্কা বাঁধ দিয়ে শুকাচ্ছে, আবার ডুবাচ্ছে; এসব নিয়ে সরকারের কোন মাথা ব্যথা নেই। বাংলাদেশের উপর চেপে বসা রোহিঙ্গা সংকটে ভারতীয় সহযোগিতার স্পষ্ট কোন প্রতিশ্রুতি আদায় করতে পারেনি। অথচ দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও জনস্বার্থকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে এই সরকার ভারত তুষ্টিতেই বিভোর হয়ে আছে।
ভারত নিজেদের স্বার্থ ১৬ আনা বুঝে নিচ্ছে। আর সরকার বাংলাদেশের স্বার্থ একে একে বিসর্জন দিয়েই যাচ্ছে। এটা কী ধরনের বন্ধুত্ব? ভারতের সাথে সরকার কি কি চুক্তি করেছে, তা জানার অধিকার বাংলাদেশের জনগণের অবশ্যই রয়েছে। দেশের সংবিধান এই অধিকার দেশের জনগণকে দিয়েছে। আমরা ফেনী নদীর পানি তুলে নেওয়া, বন্দর ব্যবহার, ট্রানজিট, ভারতীয় রাডার স্থাপনসহ দেশবিরোধী চুক্তির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে এসব চুক্তি বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।

প্রিয় সাংবাদিক ভাইগণ!
দেশে সুশাসন, সুবিচার ও আইনের নিরপেক্ষ প্রয়োগের অভাব এবং রাজনৈতিক দমন-পীড়নের কারণে বর্তমানে দেশে ভয়াবহ মাত্রায় অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে পড়েছে। মদ, জুয়া, দুর্নীতি, আত্মসাৎ, অপহরণ, খুন-গুম এবং নারীঘটিত অপরাধ ভাইরাসের মতো দেশময় ছড়িয়ে পড়েছে। জাতি এ থেকে পরিত্রাণের জন্য প্রতিদিন ফরিয়াদ জানাচ্ছে।
গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ক্যাসিনো তথা জুয়ার আসর উৎখাতে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে যে কয়েকটি অভিযান চালিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, এটা জনগণের কাছে অত্যন্ত ইতিবাচক ও প্রশংসিত হয়েছে। কিন্তু চিহ্নিত কিছু জায়গায় অভিযান চালিয়ে শুধু চুনোপুটিদের নয়, বরং এসবের সাথে জড়িত রাঘব-বোয়ালদেরও ধরতে হবে। এসব জুয়ার আসর পরিচালনার নেপথ্যে যেসব রাজনৈতিক নেতা বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সংশ্লিষ্টরা জড়িত রয়েছে তাদেরও আইনের আওতা আনতে হবে। শুধু জুয়ার আসর নয়, ঘুষ, দুর্নীতি, অন্যের সম্পদ হরণ, টেন্ডারবাজি, সন্ত্রাস, মাদক, কমিশন বাণিজ্য ও সকল প্রকার বেহায়াপনার বিরুদ্ধে এমন অভিযান বিস্তৃত করতে হবে।
তবে আমরা মনে করি, অভিযানের মাধ্যমে এসব অপরাধ সাময়িক কমানো সম্ভব হলেও এটা স্থায়ী সমাধান নয়। জাতিকে আদর্শিক ও নৈতিকভাবে সুপথে আনতে হলে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে সম্পূর্ণ ঢেলে সাজাতে হবে। শিক্ষার সকল স্তরে ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করতে হবে। পাশাপাশি গণমাধ্যম ও সাংস্কৃতিতেও ইসলামের সুমহান শিক্ষার প্রচার ও প্রচলন করতে হবে। ভোগবাদি দর্শন ও বিজাতীয় সংস্কৃতির প্রচার-প্রসার বন্ধ করতে হবে।
কষ্ট স্বীকার করে সংবাদ সম্মেলনে আসার জন্য আপনাদের সকলকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
আল্লাহ হাফিজ।

-মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী
মহাসচিব- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ
তারিখ- ১০ অক্টোবর, ২০১৯ইং

এই সংবাদটি 1,179 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com