বুধবার, ১৬ অক্টো ২০১৯ ০২:১০ ঘণ্টা

বাংলাদেশের শতবর্ষী ১০টি মাদরাসা

Share Button

বাংলাদেশের শতবর্ষী ১০টি মাদরাসা

হুসাইন আহমদ মিসবাহ:

কওমী ও আলিয়া মিলিয়ে সারাদেশে মাদরাসার সংখ্যা কত হবে সে হিসেব দেওয়া প্রায় অসম্ভব! দেশের অগনন মাদরাসার মধ্যে শতবর্ষ পূর্ণ করা ১০টি মাদরাসার পরিচিতির চুম্বকাংশ তুলে ধরা হল।

এক.
জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম হেমু, জৈন্তাপুর। (১৪০ বছর) :
সিলেট অঞ্চলের জৈন্তাপুর উপজেলায় ১৮৭৯ খ্রিষ্টাব্দে বর্তমান ফতেহপুর ইউনিয়নের হেমু মৌজায় প্রতিষ্ঠিত হয় আজকের শতাব্দীপ্রাচীন মাদরাসা “জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম হেমু”। দেওবন্দ মাদরাসা প্রতিষ্ঠার অল্প কিছুকাল পরেই দেওবন্দের আদর্শ অনুসরণে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এই প্রতিষ্ঠান। বর্তমান বাংলাদেশে শতবর্ষী মাদরাসাগুলোর মধ্যে এ মাদরাসাটাই সবচেয়ে প্রাচীন হিসেবে বিবেচ্য। মাদরাসার বর্তমান বয়স ১৪০ বছর।
স্থানীয় দুই শিক্ষানুরাগী আলেম, মাওলানা মাহফুজুর রহমান ও মৌলভী হাফিজুল্লাহর হাত ধরে প্রতিষ্ঠিত হয় এ মাদরাসাটি।
১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দে খলিফায়ে মাদানি মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া রহ.-এর দরসদানের মাধ্যমে এখানে সর্বপ্রথম দাওরায়ে হাদিসের সূচনা হয়।
মাদরাসাটি বর্তমানে পুরুষ ও মহিলা দুটো শাখায় সমৃদ্ধ। উভয় শাখাই দাওরায়ে হাদিস পর্যন্ত।

দুই.
আল জামেয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী, চট্টগ্রাম। (১২৩ বছর) :
বাংলাদেশের প্রাচীনতম ও সর্ববৃহৎ কওমি মাদরাসা “আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম’। বর্তমানে মাদরাসাটি বাংলাদেশের উম্মুল মাদারিস হিসেবেও স্বীকৃত। ১৮৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত মাদরাসাটির বর্তমান বয়স ১২৩ বছর।
হাকিমুল উম্মাত মাওলানা আশরাফ আলী থানবী রহ. এর আদেশানুসারে তার প্রিয় অনুসারী ও ছাত্র শাইখুল ইসলাম মাওলানা হাবিবুল্লাহ রহ. এই মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন। সাথে ছিলেন মাওলানা আব্দুল ওয়াহেদ, মাওলানা সুফী আজিজুর রহমান এবং মাওলানা আব্দুল হামিদ রহ.। ১৮৯৬ খ্রিষ্টাব্দে একটি অস্থায়ী ঠিকানায় মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করলেও পরবর্তীতে ১৯০১ সালে এই প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশের বন্দর নগরী চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার বর্তমান ঠিকানায় স্থায়ী জায়গা নিয়ে স্থানান্তরিত হয়।

তিন.
বাহুবল ইসলামিয়া মাদরাসা, হবিগঞ্জ। (১১৯ বছর) :
১৯০০ খ্রিষ্টাব্দে এলাকাবাসীর সহায়তায় দারুল উলুম দেওবন্দের আদর্শ অনুসরণ করে ” বাহুবল ইসলামিয়া মাদরাসা”টি প্রতিষ্ঠা করেন মাওলানা আবুল হাশেম। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় শতবর্ষ পর আজও এই মাদরাসাটি ইলমে দীনের আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে বাহুবল এলাকায়। মাদরাসার বর্তমান বয়স ১১৯ বছর।

চার.
ইছামতি ইসলামিয়া আরাবিয়া মাদরাসা, ওসমানীনগর সিলেট। (১১৪ বছর) :
সিলেট জেলার বর্তমান ওসমানীনগর উপজেলার ইছামতি গ্রামে অবস্থিত বৃহত্তর সিলেটের সর্বপ্রাচীন মাদরাসা “ইছামতি ইসলামিয়া আরাবিয়া মাদরাসা”।
১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দে স্থানীয় আলেম মৌলভী হুরমতুল্লাহ রহ. গ্রামবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু নানা প্রতিকূলতার কারণে মাদরাসাটি বৃহৎ কোনো জামিয়ায় রূপলাভ করতে পারেনি। মাদরাসার বর্তমান বয়স ১১৪ বছর।

পাঁচ.
আল জামিয়াতুল আরাবিয়া আল ইসলামিয়া, জিরি, চট্টগ্রাম। (১১২ বছর) :
হাটহাজারী মাদরাসা প্রতিষ্ঠার কয়েক বছর পর ১৯০৭ খ্রিষ্টাব্দে চট্টগ্রামের ইসলামি মনীষী মাওলানা আহমদ হাসান রহ. এই প্রতিষ্ঠানটির গোড়াপত্তন করেন।
২০০৭ খ্রিষ্টাব্দের ২১, ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি মাদরাসাটি বিশাল আয়োজনের মধ্য দিয়ে শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন করেছে। সেই সময়ে জামিয়াটির প্রধান মাওলানা শাহ মোহাম্মদ তৈয়্যব গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এ অবধি ৮ সহস্রাধিক তালেবুল ইলম এ মাদরাসায় অধ্যয়ন করে আলেম ও মুফতি’র সনদ অর্জন করেছেন। মাদরাসা বর্তমান বয়স ১১২ বছর।

ছয়.
জামেয়া ইসলামিয়া রায়পুর-মামরকপুর মৌলভীবাজার। (১১২ বছর) :
মৌলভীবাজার জেলা শহরের অদূরে রায়পুর-মামরকপুর—দুই গ্রামের সন্ধিস্থলে অবস্থিত প্রাচীনতম এ মাদরাসাটি ১৯০৭ সালে স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠা করেন দুই মনীষী আল্লামা হাবিবুর রহমান রায়পুরী রহ. ও মাওলানা উবায়দুল্লাহ কুমিল্লাভি রহ.।
আল্লামা হাবিবুর রহমান রায়পুরী ছিলেন শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানি রহ.-এর প্রথম সারির খলিফা ও সিলেটের খ্যাতিমান মনীষী শায়খুল হাদীস আল্লামা নুরুদ্দীন গহরপুরী রহ. পীর। গহরপুরী হজরত মাদানির নির্দেশে তাঁর কাছে বায়আত হয়েছিলেন এবং পরবর্তীতে খেলাফত লাভ করেছিলেন। দাওরায়ে হাদিস স্তর পর্যন্ত উন্নিত মাদরাসাটির বর্তমান বয়স ১১২ বছর।

সাত.
সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা। (১০৬ বছর) :
১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে আসামের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী খান বাহাদুর আবদুল মজিদ এই মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন। বিংশ শতকের শুরুর দিকে সিলেট শহরের নাইওরপুলে স্থানীয় মুসলিম শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় শিক্ষার জন্য ‘আঞ্জুমানে ইসলামিয়া’ নামে একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। সিলেট জেলা তখন আসাম প্রদেশের অধীন ছিল। ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে আসামের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী খান বাহাদুর আবদুল মজিদ মাদরাসাটিকে সম্প্রসারণ ও সরকারিকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করে কলকাতা আলিয়া মাদরাসার অধিভুক্ত করেন এবং মাদরাসাটির পরিসর আরও বৃদ্ধি করণের লক্ষ্যে নাইওরপুল থেকে শহরের প্রাণকেন্দ্র চৌহাট্টায় নিয়ে আসেন। পরবর্তীকালে এ মাদরাসাটিই “সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা” নামে জনসমাজে প্রসিদ্ধি লাভ করে।
মাদরাসাটি যদিও সরকারি অনুদান ও আলিয়া শিক্ষাধারার কারিকুলামে পরিচালিত হয়ে আসছে, কিন্তু দীর্ঘ একটা সময়ব্যাপী দেওবন্দি চিন্তাধারার অনেক আলেম এখানে পাঠদান করেছেন। এবং সিলেটের বরেণ্য অনেক আলেম এ মাদরাসা থেকেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপণ করে পরবর্তীতে দেওবন্দে গিয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন। মাদরাসার বর্তমান বয়স ১০৬ বছর।

আট.
জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুসিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া। (১০৫ বছর) :
তিতাস বিধৌত শহর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রাণকেন্দ্রে ১৯১৪ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠা লাভ কতে ঐতিহ্যবাহী “জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুসিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া। মাদরাসার বর্তমান বয়স ১০৫ বছর।
প্রতিষ্ঠার প্রেক্ষাপট অত্যন্ত চমকপ্রদ। মাদরাসাটির শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে প্রকাশিত স্মারকগ্রন্থ থেকে জানা যায়, উনিশ শতকের প্রথম দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় কাদিয়ানিদের প্রচারণা ব্যাপক বিস্তৃতি লাভ করেছিল। নানা কলাকৌশলে সরলমনা মুসলিম জনসাধারণের মধ্যে বিভ্রান্তি ছাড়াচ্ছিল তারা। কিন্তু এই বিভ্রান্তি মুকাবেলায় সেখানে না ছিল কোনো ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান বা কোনো সমঝদার ধর্মবেত্তা।
এলাকার এমনই এক ক্রান্তি লগ্নে হাজার মাইল দূরে ভারতের উত্তর প্রদেশের মুজাফফরাবাদের এক মনীষী মাওলানা আবু তাহের ইউনুস রহ., একরাতে স্বপ্নযোগে বিশ্বনবী মুহাম্মদ সা. কে দেখতে পেলেন। নবিজি সা. তাঁকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি জানিয়ে সেখানে হিজরত করার নির্দেশ দেন এবং বলেন সেই এলাকায় তিনি যেন একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন।
মাওলানা আবু তাহের ইউনুস স্বপ্নযোগে আদিষ্ট হয়ে কালবিলম্ব না করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছুটে আসেন। এখানকার স্থানীয় মুরব্বিদের সঙ্গে পরামর্শ করে বর্তমান শহরের কান্দিপাড়া এলাকায় ১৯১৪ খ্রিষ্টাব্দে দারুল উলুম দেওবন্দের আদর্শে “বাহরুল উলুম” নামে একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন।
মাওলানা আবু তাহের ইউনুসের ইন্তেকালের পর মাদরাসাটির দায়িত্বে আসেন ফখরে বাঙাল মাওলানা তাজুল ইসলাম রহ.। তিনি দায়িত্বগ্রহণের পর মাওলানা আবু তাহের ইউনুস রাহ. এর হিজরত এবং ত্যাগকে চিরস্মরণীয় করে রাখতে মাদরাসাটির নাম “বাহরুল উলুম” পরিবর্তন করে “জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুসিয়া” নামকরন করেন।
জামিয়া ইউনুসিয়া বিগত শতবর্ষে অনেক খ্যাতিমান আলেমের জন্ম দিয়েছে। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হলেন-
১. আল্লামা হেদায়েতুল্লাহ। সাবেক প্রিন্সিপাল, জামিয়া কুরআনিয়া আরাবিয়া লালবাগ, ঢাকা।
২. শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহ.। বুখারি শরিফের বঙ্গানুবাদক।
৩. মাওলানা শেখ আব্দুল হক গাজীনগরী রহ.।
৪. মুফতিয়ে আযম, মুফতি নুরুল্লাহ রহ.।
৫. আল্লামা মুফতী ফজলুল হক আমিনী রহ.।
৬. মাওলানা মুতিউর রহমান রহ.।
৭. মাওলানা শাহ সৈয়দ মুছলেহ উদ্দিন রহ.। চেয়ারম্যান, নেজামে ইসলাম পার্টি।
৮. মাওলানা মুফতী রিয়াজুতুল্লাহ রহ.।
৯. মাওলানা আলী আকবর রহ.। সাবেক মুরব্বি, বাংলাদেশ তাবলীগ জামাত।
১০. মাওলানা আব্দুর রহমান রহ.। শায়খে ধুলিয়া, হবিগঞ্জ।
১১. অধ্যক্ষ মাওলানা আহমাদ হাসান চৌধুরী রহ.। সাবেক হেড মাওলানা, মাদরাসা-ই আলিয়া, ঢাকা।

নয়.
জামিয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা। (১০০ বছর) :
সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ও মোগলা বাজার থানায় জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়ে রেঙ্গা মাদরাসা অবস্থিত।১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দে দেওবন্দের অনুসারী আলেম মাওলানা আরকান আলি রাহ. এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠা করেন এই মাদরাসা। মাদরাসাটি এই বৎসর শতবর্ষ পূর্ণ করছে।
১৯৭৭-৭৮ খ্রিষ্টাব্দের দিকে মাদরাসাটি দাওরায়ে হাদিস মাদরাসায় রূপান্তরিত হয় এবং হাজার হাজার আলেমে দীন এখান থেকে শিক্ষা সমাপণ করে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্নভাবে দীনের খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন।

দশ.
জামিয়া মোহাম্মদিয়া হাড়িকান্দী, জকিগঞ্জ, সিলেট। (১০০ বছর) :
সিলেট জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা জকিগঞ্জের ৩ নং কাজলসার ইউনিয়নের হাড়িকান্দী গ্রামে ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয় প্রাচীনতম এ দীনি বিদ্যাপীঠ। মৌলভী আব্দুল আলী রাহ. প্রতিষ্ঠিত মাদরাসাটি রেঙ্গার মত এই বছর শতবর্ষ পূর্ণ করেছে।
হাড়িকান্দীর লাগোয়া গ্রাম বর্তমান দরগাহাবাহারপুর। এই গ্রামের মসজিদেই ইমামতি করতেন তৎকালীন আসাম প্রদেশের কাছাড় জেলার মৌলভী আবদুল আলী রহ.।
প্রতিবছর শীতের মৌসুমে গ্রামে গ্রামে ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হত। সেই ধারাবাহিকতায় হাড়িকান্দী গ্রামের ওয়াজ মাহফিলে স্থানীয় ইমাম হিসেবে মাওলানা আবদুল আলী তাঁর ওয়াজে প্রস্তাব রাখেন এই এলাকায় একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে এবং মাদরাসা শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথাও তিনি তুলে ধরেন।
এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ তাঁর প্রস্তাবে তাৎক্ষণিক সাড়া দেন এবং এর ফলশ্রুতিতে জন্ম নেয় শতাব্দীপ্রাচীন হাড়িকান্দী মাদরাসা।
শতবর্ষের নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে সেই ছোট্ট মাদরাসাটিতে এখন দাওরায়ে হাদিস মাদরাসায় উন্নিত হয়েছে। খোলা হয়েছে মেয়েদের জন্য পৃথক শাখাও।

এই সংবাদটি 2,785 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com