মওলানা ভাসানীর ৪০তম ওফাত বার্ষিকী

প্রকাশিত: ৭:০৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৬

মওলানা ভাসানীর ৪০তম ওফাত বার্ষিকী

ডেস্ক রিপোর্ট: আফ্রো-এশিয়া-লাতিন আমেরিকার মজলুম মানুষের নেতা হিশেবে খ্যাত মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪০তম ওফাত বার্ষিকী বৃহস্পতিবার। পশ্চিমী দুনিয়ার গণমাধ্যম তাঁকে ‘ফায়ার ইটার’বা অগ্নিভূক, ‘রেড মুলানা অব দ্য ইস্ট’ বা প্রাচ্যের লাল মওলানা ইত্যাকার বিশেষণে চিত্রিত করলেও তিনি স্টকহোমে আফ্রো-এশীয় শান্তি-সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেছেন। বিশ্ববিশ্রুত দার্শনিক বার্ট্রান্ড রাসেলের সঙ্গে যৌথবিবৃতি দিয়েছেন যুদ্ধবাদিতার বিরুদ্ধে। টাইম ম্যাগাজিন তাঁকে নিয়ে প্রচ্ছদ প্রতিবেদন করেছে; দিয়েছে ‘প্রোফেট অব ভায়োলেন্স’বা সহিংসতার ধর্মপ্রবর্তক তকমা। তবে নির্যাতিত মানুষ তাঁকে উৎপীড়নবিরোধী সংগ্রামের মহানায়ক হিশেবেই শ্রদ্ধা করে এসেছে।

আওয়ামী লীগ ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ এই দুটি রাজনৈতিক দলের তিনি প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ন্যাপের তদানীন্তন পশ্চিম পাকিস্তান শাখা বিলুপ্ত করলে এই দলের নেতা-কর্মীদের নিয়েই জুলফিকার আলী ভুট্টো পাকিস্তান পিপলস পার্টি গঠন করেছিলেন। মওলানার ইন্তেকালের পর বাংলাদেশে ভাসানী ন্যাপ বিলোপ করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির মূল রাজনৈতিক স্রোতধারা তৈরি হয়। ভাসানী ন্যাপের নির্বাচনী প্রতীক ধানের শীষ হয় বিএনপিরও প্রতীক।

পূর্ববঙ্গের কৃষক-প্রজাদের নিয়ে সামন্ত-জমিদার বিরোধী লড়াই চালিয়ে, আসামে ‘বাঙ্গাল খেদা’ নামের জনগোষ্ঠীগত হিংস্রতা রুখে দিয়ে এবং কুখ্যাত লাইন প্রথাবিরোধী সংগ্রামের পুরোভাগে থেকে অভিজ্ঞতা সঞ্জয় করে তিনি খেলাফত আন্দোলনের পথ বেয়ে উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতার সংগ্রামে উঠে আসেন নেতৃত্বের কাতারে। পাকিস্তান আমলে আমাদের জাতীয় চেতনা ও সাংস্কৃতিক বিকাশের তিনিই ছিলেন প্রথম তূর্যবাদক।

মওলানা ভাসানীই প্রথম পাকিস্তানি শাসন ছিন্ন করতে ঐতিহাসিক আসসালামু আলাইকুম উচ্চারণ করেন কাগমারীর ইতিহাসখ্যাত সম্মেলনে। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা এবং এই আন্দোলনের পথপ্রদর্শক। স্বাধীনতাযুদ্ধ পরিচালনাকারী সরকারের সর্বদলীয় উপদেষ্টা পরিষদের সভাপতি ছিলেন তিনি।

এই সংবাদটি 164 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com