শনিবার, ১৯ অক্টো ২০১৯ ০২:১০ ঘণ্টা

মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.)

Share Button

মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:: মৃত্যু মানুষকে এ বসুন্ধরা থেকে ছিনিয়ে নেয় বটে, কিন্তু কীর্তি রাখে চিরস্থায়ী করে। জন্ম-মৃত্যু সর্বজান্তা ও সর্বশ্রোতা মহান আল্লাহ পাকের অমোঘ বিধান। ধরণীতে প্রতিনিয়ত অনেকেই আসছেন এবং মৃত্যুবরণ করছেন। কিন্তু কিছু সংখ্যক ব্যক্তিত্ব এ আসা-যাওয়ার মাঝখানে অনেক কীর্তি রেখে যান পৃথিবীতে। এজন্য তারা মরেও অমর। লক্ষ তারা হারিয়ে গেলেও রাতের সুখ তারাটি যেমন কখনো কখনো ভোরেও আকাশে দীপ্ত সমুজ্জ্বল হয়ে ফুটে থাকে, তদ্রƒপ বিশেষ কিছু মানুষের জীবনের কোন কোন ঘটনা জেগে থাকে স্মৃতির দিগন্ত রেখায়। মানুষ ইচ্ছে করলেও তা ভুলতে পারে না, ভুলা যায় না। আর ভুলা যায় না বলেই আমরা গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে থাকি এসব মহৎপ্রাণ ব্যক্তিদের। বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ, নাস্তিক-মুরতাদ প্রতিরোধ আন্দোলনের অকুতোভয় সাহসী সৈনিক, খতমে নবুওত আন্দোলন পরিষদ বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাবেক মহাসচিব ও জামেয়া ইসলামিয়া হুছাইনিয়া আরজাবাদ, মিরপুর ঢাকার মহাপরিচালক, মাসিক পয়গামে হক্ক ও সাপ্তাহিক জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক; বহুগ্রন্থ প্রণেতা হযরত মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী (র.) উল্লেখিত বৈশিষ্ট্যের অধিকারী এক মর্দে মুজাহিদ।
মুজাহিদে মিল্লাত মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমী চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ থানাধীন নিয়ামস্তির এক ধর্মীয় পরিবারে ১৯৩৫ ঈসায়ীর ৫ই মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মাওঃ মুহাম্মদ মুদ্দাস্সের, পিতামহের নাম আহমদ সারেং। তিনি মরহুম আলী মুন্সি সাহেবের বংশধর। জনাব আলী মুন্সি তদানীন্তন সময়ে সুপ্রচলিত ফার্সি ভাষায় সুদক্ষ ও একজন বিশিষ্ট আইনবিদ ছিলেন। বৃটিশ সাম্রাজ্যবাদীদের বিরুদ্ধে বেজে ওঠা আন্দোলনে তার পূর্বপুরুষদের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা ও সোনালি অবদান ইতিহাসের পাতায় অবিস্মরণীয় হয়ে আছে।
গ্রামের মক্তব ও প্রাইমারী স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনের পর স্থানীয় রিয়াজুল উলুম মাদরাসায় ভর্তি হন। নাহু-সরফের শিক্ষা সমাপন করে সন্দ্বীপ হরিশপুর বশিরিয়া আহমদিয়া সিনিয়র মাদরাসায় ভর্তি হয়ে দাখিল, আলীম ও ফাজিল পাস করেন। ১৯৫৫ সালে দারুল উলুম দেওবন্দে ভর্তি হয়ে তথায় দুই বছর পড়াশোনা করে চট্টগ্রাম চলে এসে এক বছর জিরী মাদ্রাসায় পড়াশোনা করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি লাহোর জামেয়া আশ্রাফিয়ায় ভর্তি হন এবং তাফসীর ও হাদীস শাস্ত্রে উচ্চতর সনদ লাভ করেন। অতঃপর শায়খুত তাফসীর হযরত মালিানা আহমদ আলী লাহোরী (রহ.)-এর তাফসীরের দরসে ভর্তি হন এবং ১৯৬০-৬১ সালে তাফসীরের উপর বিশেষ সনদ লাভ করেন।
অধ্যাপনা ও মসজিদ-মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা: ১৯৬১ সালে মোমেনশাহী জেলার ঐতিহ্যবাহী সোহাগি মাদ্রাসা হতে আল্লামা কাসেমী (রাহ.)এর অধ্যাপনা জীবনের শুরু। এখানে তিনি এক বছর যাবৎ অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে শিক্ষকতা করেন। অতঃপর চলে আসেন জামেয়া আশরাফুল উলূম বড়কাটরা মাদ্রাসায়। এখানে তিনি শীর্ষতম মুহাদ্দিস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দু’বছর এখানে হাদীস, তাফসীর ইত্যাদি দারস দানের পর ফরিদাবাদ ইমদাদুল উলূম মাদ্রাসায় চলে যান। এখানে তিনি অত্যন্ত সুনামের সাথে দীর্ঘ সাত বছর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় ঢাকার রাজফুলবাড়িয়ায় একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। সাথে সাথে মাদ্রাসার মুহতামিম হিসেবেও দায়িত্ব আঞ্জাম দিতে থাকেন। কিছুদিন দায়িত্ব পালন করার পর তিনি অব্যাহতি নেন।
এদিকে ১৯৬৮ সালে যাত্রাবাড়ী জামেয়া মাদানিয়া প্রতিষ্ঠিত হলে পরবর্তীতে তিনি এখানে মুহাদ্দিস হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে এক বছর যাবৎ অত্যন্ত সুচারুরূপে অবৈনতিক দায়িত্ব পালন করেন। অতঃপর ১৯৭০ সালে আল্লামা কাসেমী (রহ.)এর পৃষ্ঠপোষকতায় “জামেয়া হুসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ মাদ্রাসা” প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ১৯৭১ এর স্বাধীনতা সংগ্রামে পাক হানাদার বাহিনী মাদ্রাসাটিকে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে ভষ্মিভূত করে দিলে হযরত কাসেমী (রাহ.) গ্রামের বাড়ি সন্দ্বিপে চলে যান। সেখানে শোকলবহর এলাকায় একটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। এখানে তিনি কয়েক বছর যাবত এ মাদ্রাসার মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব আঞ্জাম দেন। এ সময় তিনি দামপাড়া বাইতুল আজিজ জামে মসজিদ-এর ইমাম ও খতীব হিসেবেও দায়িত্ব আঞ্জাম দেন।
১৯৭৫ সালে দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমদের পরামর্শে তিনি পুনরায় ঢাকা চলে আসেন এবং জামেয়া হুসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ এর প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন। ১৯৭৬ সালে তিনি মুহতামিমের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তখন থেকে আল্লামা কাসেমী (রহ.) নিভৃত পল্লীর জীর্ণ-শীর্ণ এ মাদ্রাসাটিকে স্বপ্নীল স্বর্ণশিখরে পৌঁছে দিতে অক্লান্ত পরিশ্রম ও সাধনা চালিয়ে যান। তাঁরই সীমাহীন ত্যাগ, তিতিক্ষা ও দিন-রাতের মেহনতে হাটি হাটি পা পা করে আজ সেদিনকার কচি মাদ্রাসাটি কৃতিত্বের সাথে একটি ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত। মৃত্যু পর্যন্ত তিনি মুহতামিম ছিলেন। বর্তমানে তাঁর ছেলে মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া উক্ত প্রতিষ্ঠানের মুহতামিমের দায়িত্বে আছেন।

আকাবির-আছলাফের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর সেক্রেটারি জেনারেল, সহ-সভাপতি, নির্বাহী সভাপতি হিসেবে দেশ-জাতি এবং দ্বীনের খেদমত আঞ্জাম দিয়েছেন। ইসনা আশারিয়া-শিয়া সহ সকল প্রকার বাতিলের বিরুদ্ধে তার সংগ্রামী জীবন ছিল উৎসর্গিত। বঙ্গোপসাগরের তরঙ্গ বিধ্বস্ত দ্বীপভূমি সন্দ্বীপে জন্মগ্রহণকারী এই কৃতি সন্তানই বাংলাদেশে সর্বপ্রথম কাদিয়ানীদের বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলেন। খতমে নবুওত আন্দোলন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও আকিদায়ে খতমে নবুওয়ত সংরক্ষণ আন্দোলনের প্রাণ পুরুষ আল্লামা কাসেমীহ (রহ.) খতমে নবুওওতের ডাক দিয়ে রাজপথের আন্দোলন চাঙ্গা করেছিলেন, জেল, জুলুম আর হুলিয়া ছিল যার নিত্য সাথী। দেশ ও ধর্ম বিদ্বেষী এনজিওর বিরুদ্ধেও তিনি আজীবন আপোষহীন সংগ্রাম পরিচালনা করে গেছেন।
জমিয়তের ইতিহাসে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন তিনি। কারণ ৩ বার জমিয়তের মহাসচিব নির্বাচিত হন। অতঃপর সহ-সভাপতি ও নির্বাহী সভাপতিও ছিলেন। ১৯৬৬ সালের ১৬ই মার্চ ঢাকা নবাব বাড়ীর আহছান মঞ্জিলের দ্বিতীয় তলায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (পূর্বপাকের) কমিটি গঠিত হলে হযরত মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি এবং তিনি সেক্রেটারি জেনারেল নির্বাচিত হন।
উল্লেখ্য যে, আহছান মঞ্জিলে সে দিন উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তান জমিয়তের সংগ্রামী সভাপতি ও জাতীয় পরিষদ নেতা মুফতি মাহমুদ (রহ.), আমীরে জমিয়ত হাফিজুল হাদিস আল্লামা আব্দুল্লার দরখাস্তি (রহ.), সাবেক প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য আল্লামা গোলাম গৌছ হাজারভী (রহ.), আল্লাম সৈয়দ গুল বাদশাহ (রহ.), হযরত মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী (রহ.) প্রমুখ। ১৯৬৯ইং ৫ জানুয়ারি দ্বিতীয়বারের মত সেক্রেটারি জেনারেল নির্বাচিত হন। ১৯৭৪ সালে জমিয়তের সহসভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭৭ সালে সভাপতি খলীফায়ে মাদানী শায়খে কৌড়িয়া এবং তিনি সেক্রেটারি জেনারেল নির্বাচিত হন।
১৯৮০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা লালকুঠি হলে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলে শায়খুল মাশায়েখ হযরত মাওলানা হাফিজ সৈয়দ আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া ও আমীরে শরীয়ত সাবেক প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হাফিজ মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজী হুজুর (রহ.)-কে পৃষ্ঠপোষক এবং শায়খুল হাদীস মাওলানা আজীজুল হক (খেলাফত মজলিসের সাবেক আমীর)-কে সভাপতি ও মরহুম কাছেমী (রহ.)-কে মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়। তাছাড়া আর দু’বার যথা ১৯৮১ ও ১৯৮৮ সালেমিহাসচিব নির্বাচিত হন। ১৯৮৮ সালে সম্মিলিত ত্রাণ কমিটির সহসভাপতি হিসিবে ব্যাপক কাজ করেন এবং হাফেজী হুজুরের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সহসভাপতির দায়িত্বে ছিলেন।
১৯৯১ সালে প্রতিষ্ঠিত ইসলামী ঐক্যজোটের সমন্বয়কারী, ’৯১-এর চট্টগ্রামে জলোচ্ছ্বাসে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় আদম সন্তানের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে। দেশের প্রতিটি ইসলামী আন্দোলন এবং দুর্যোগ মুহূর্তে আমরা তাকে প্রথম সারিতে দেখতে পাই। তার জীবনের সর্বাপেক্ষা বড় কৃতিত্ব হলো প্রিয় নবী, আখেরী নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর চির দুশমন ও ইংরেজদের দোসর মির্জা গোলামসহ কাদিয়ানীদের বিরুদ্ধে বিরামহীন সংগ্রাম করে দেশ ব্যাপী গণসচেতনতা সৃষ্টি করে গেছেন। শিয়া কাফের, কাদিয়ানী ধর্মমত, পাকিস্তানে খ্রিস্টান মিশনারী উৎপাত, ইসলাম বনাম কমিউনিজম, ধর্ম নিরপেক্ষতাসহ আর কয়েকটি আলোড়ন সৃষ্টিকারী গ্রন্থ রচনা করেন।
তিনি ছিলেন একাধারে একজন হক্কানী আলেম, শায়খুল হাদীস, আদর্শ শিক্ষক, বিজ্ঞ রাজনীতিবিদ, কলমসৈনিক, মিষ্টভাষী বক্তা, লেখক-অনুবাদক, একজন আদর্শ খতীব ও ইমাম। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের নির্ভীক মুখপাত্র কাসেমী সাহেব (রহ.) স্বীয়দল জমিয়তকে নিয়ে বিভিন্ন বাতিল পন্থীদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মোকাবিলা করতে দ্বিধাবোধ করেননি। জেল-জুলুম সহ্য করে ও অবিরাম সংগ্রাম করে বাতিলের দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিয়েছেন। তিনি কয়েক বার কারাবন্দিও হয়েছেন।
তাঁর রাজনৈতিক সহকর্মী মাসিক মদীনার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান স্মৃতিচারণ করে বলেন, “মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমীর সাথে আমার পরিচয়ের পরিধি প্রায় তিন যুগের। লাহোর থেকে তিনি শুধু হাদীসের সনদ নিয়ে আসেননি। শায়খুত তফসীর মাওলানা আহমদ আলী লাহোরী (রহ.)-এর নিকট থেকে একাধারে পবিত্র কোরআনের অত্যাধুনিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ এবং শাহ ওয়ালিউল্লাহ (রহ.) ঘরানার চিন্তা-চেতনা নিয়ে ও দেশে ফিরেছিলেন, ফলে দেশে ফিরেই তিনি যখন অনুরূপ চিন্তা-চেতনার সঙ্গী-সাথীর অনুসন্ধান করেন তখন কোন এক অদৃশ্য আকর্ষণে যেন আমরা একাত্ম হয়ে গেলাম। আমার বাচ্চারা তখন ছোট, কি কারণে জানি না ওরা মাওলানা কাছেমীকে ‘মামা’ সম্বোধন করতে শুরু করে। ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) আরো উল্লেখ করেন যে, কাসেমী সাহেবের মাধ্যমেই আমি কুতবে জমান মাওলানা আব্দুল্লাহ দরখাস্তি এবং মুফতি মাহমুদের (রহ.)-এর নেতৃত্বাধীন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে জড়িত হয়েছিলাম। দীর্ঘ তিন দশক জমিয়তের ব্যাপারে আমরা (একসাথে) কাজ করেছি। দেশ-বিদেশে ছুটে বেড়িয়েছি। দ্বীন-ধর্মের মর্যাদা রক্ষার প্রতিটি ময়দানে বুক টান করে লড়াই করেছি।”
মুহিউদ্দীন খান বলেন, “১৯৬২ সালের ১ বৈশাখ ঢাকার পূর্বাঞ্চলে যে প্রলয়ঙ্করী টর্নেডো হয়েছিল সেই টর্নেডো বিধ্বস্ত জনপদগুলোতে আমরা গিয়েছিলাম কিছু চিড়া-গুড় নিয়ে। দলনেতা ছিলাম আমি (খান সাহেব), কাসেমী সাহেব সহকারী। দলে ছিলাম ছয় জন। প্রত্যেকেরই মাথায় একটি চিড়ার বস্তা, কাঁধে ঝুলানো গুড় ভর্তি থলে। পায়ে হাঁটা গ্রামের পথে এই বোঝা বয়ে আমরা সকাল দশটা থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত ঘুরেছিলাম। ফেরার পথে ক্ষুধায় ক্লান্তিতে পা চলছিল না। কাসেমী সাহেব তখন দলের সবাইকে এই বলে উৎসাহিত করেছিলেন যে, যাওয়ার সময় তো প্রত্যেকের মাথায় ছিল এক মণ করে চিড়ার বস্তা এবং কাঁধে ছিল দশ সের করে গুড়। এখন তো খালি হাত পা।”
প্রিয় পাঠক! একটু গভীর ভাবে চিন্তা করে দেখুন, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও কাসেমী (রহ.) সাহেব কেমন মানব দরদী ব্যক্তিত্ব ছিলেন। মরহুম মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (রহ.) বলেন, শামসুদ্দীন কাসেমী (রহ.) স্বভাবগতভাবে ছিলেন খুবই কোমল মেজাজের। বাতিলকে বজ্র হাতে মুকাবিলা করতেন। তার মাঝে ন্যায়, নিষ্ঠা এবং ইনসাফ ছিলো পরিপূর্ণ। পাশা-পাশি নেতৃত্বদানের যোগ্যতাও ছিলো অপরিসীম। তিনি আমিরুল মোজাহে দ্বীন হুজ্জাতুল ইসলাম আল্লামা কাছেম নানুতবীর (রহ.) স্বার্থক উত্তরসুরী।’
মহান এই ব্যক্তিত্ব ১৯ অক্টোবর ১৯৯৬ ঈসায়ীতে ইন্তেকাল করেন। আল্লাহপাক মরহুম মাওলানা কাসেমীকে জান্নাতের সর্বোচ্চ স্থান দান করুন। আমীন।

লেখক: মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী। সহসাংগঠনিক সম্পাদক-যুব জমিয়ত বাংলাদেশ। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 1,124 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com