বৃহস্পতিবার, ৩১ অক্টো ২০১৯ ১০:১০ ঘণ্টা

প্রসঙ্গ মুফতি মাহমুদ থেকে মুফতি ফজলুর রহমান

Share Button

প্রসঙ্গ মুফতি মাহমুদ থেকে মুফতি ফজলুর রহমান

সৈয়দ মবনুঃ
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তাঁর বিরোধী গ্রুপের শীর্ষ নেতা মুফতি ফজলুর রহমানকে নিয়ে বাংলাদেশের ইসলামপন্থীরা পক্ষে-বিপক্ষে এমনভাবে ফেসবুক যুদ্ধ শুরু করেছেন যা দেখে মনে হচ্ছে বিষয়টি আমাদের জাতীয় পিয়াজ-লবনের মতো কোন সমস্যা। ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। বর্তমান পাকিস্তানে চলছে ইমরান খানের সরকার। মুফতি ফজলুর রহমান বিরোধী দলীয় নেতা। সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধী দল আন্দোলন-সংগ্রাম করতেই পারে। বিশেষ করে এশিয়ার রাজনীতিতে এই বিরোধীতা করার সংস্কৃতি অনেক পুরাতন। এখানে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। সরকার বিরোধীরা সরকারের বিরুদ্ধে কৌশলী ইস্যুতে আন্দোলন করবে, এটাই দুনিয়ার সংস্কৃতি। আবার সরকার এবং তার পক্ষের লোক বিরোধীদেরকে প্রতিহত করবে বাকযুদ্ধে কিংবা আইন দিয়ে তাও এখানের পুরাতন রেওয়াজে রয়েছে। এই বিষয়গুলো তো পাকিস্তানের সমস্যা, আমাদের দেশে এসব নিয়ে এত হৈ চৈ কেন?
মূলত এই হৈ চৈ এর মূল কারণ মুফতি ফজলুর রহমান। যদি এই আন্দোলনের নেতা হতেন পিপলস পার্টি কিংবা মুসলিমলীগের নেতা, তবে বাংলাদেশে এত হৈ চৈ হতো না। এখানে সংঘাতটা মূলত ঐতিহাসিক জামায়াতে ইসলামী এবং জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মধ্যকার সংঘাত। মুফতি ফজলুর রহমান-এর বাবা মুফতি মাহমুদের সাথেই শুরু হয়েছিলো এই সংঘাত। সত্তরের নির্বাচনের পর মুফতি মাহমুদ ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে। ফলে সেই সময় জামায়াতে ইসলামি এবং পিপলস পার্র্র্র্টি মিলে মুফতি মাহমুদের পেশওয়ারস্থ অফিসে আক্রমণ করে ছিলেন। (ঘটনাটি উল্লেখ করেছেন পিপলস পার্র্র্র্র্টির নেতা, লেখক তারেক ওয়াহিদ বাট তাঁর ‘নিউ ওয়ার্ল্ডওয়াডার-ইসলাম আওর পাকিস্তান’ গ্রন্থে)। ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে আমি পাকিস্তান সফরে গেলে সেখানে অবস্থানকারী অনেক বাঙালি এবং ইসলামাবাদ কায়দে আজম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মোহাম্মদ এহসান বলেন-‘মুফতি মাহমুদের বক্তব্য সর্বদাই বাঙালি মুসলমানদের পক্ষে ছিলো’। প্রফেসর এহসান আমাকে বলেছিলেন-‘তৎকালীন পত্রিকাগুলো খুঁজলে মুফতি মাহমুদের বক্তব্য পাওয়া যাবে।’ চাইলে তিনি আমাকে সহযোগিতা করবেন। কিন্তু সময়ের অভাবে আমি আর সে পথে যাইনি। তবে এই সব পত্রপত্রিকা থেকে সংগ্রহকৃত বিভিন্ন তথ্য আমরা মুফতি মাহমুদের জীবনী গ্রন্থসমূহে দেখতে পাই। সেইসব গ্রন্থের তথ্যানুসারে কিছু কথা এখানে উল্লেখ করছি। ৭০-এর নির্বাচনে পিপলস পার্র্র্র্টির পরাজয় এবং আওয়ামীলীগের বিজয় হলে পিপলস পার্র্র্র্টির নেতা জুলফিকার আলী ভূট্টো বাঙালিদের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে অসম্মতি প্রকাশ করে বলেছিলেন-‘যারা জাতীয় পরিষদের বৈঠকে ঢাকায় যাবে তাদের পা ভেঙে দেওয়া হবে’। তখন মুফতি মাহমুদ জোর প্রতিবাদ করে বলেছিলেন-‘বর্তমান সৃষ্ট রাজনৈতিক সংকট সমাধানের একমাত্র উপায় জাতীয় পরিষদের বৈঠক আহ্বান এবং সংবিধান ও আইন বিষয়ক সকল বিষয়ই জাতীয় পরিষদে মীমাংসা করা’-(ক্বাইদে জমিয়ত মুফতি মাহমুদ, আশফাক হাশেমী)। ৭০-এর নির্বাচনের মাস-দিন পর অর্থাৎ ১৩ জানুয়ারি ১৯৭১-এ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ঢাকায় এসে শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে আলোচনার পর যখন নিশ্চয়তা পেলেন যে, শেখ মুজিবুর রহমানকর্তৃক সরকার গঠিত হলেও তিনি নির্ধারিত মেয়াদ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট পদে বহাল থাকবেন, তখন ঘোষণা করেছিলেন-‘শেখ মুজিবুর রহমান দেশের নির্বাচিত দলের প্রধান হিসেবে আগামী দিনের প্রধানমন্ত্রী। এতএব, রাষ্ট্রীয় ব্যাপারে তার সিদ্ধন্তটাই চূড়ান্ত।’ কিন্তু ঢাকা থেকে ফেরার পথে দু-জন উর্ধ্বতন সেনা অফিসারসহ জেনারেল ইয়াহিয়া খান ভূট্টোর সাথে ‘লারকানা’ এলাকাতে গিয়ে গোপন বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ঘোষণা দিলেন-‘শান্তিপূর্ণ উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তর ও সংবিধান রচনার জন্য পূর্ব ও পশ্চিম-পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ উভয় দলের সমঝোতা পূর্বশর্ত।’ এই ফর্মূলা মূলত ছিলো পিপলস পার্র্র্র্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভূট্টোর, পাকিস্তান ভাঙ্গার জন্য যা ছিলো যথেষ্ট। এক দেশে দুই সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয় কীভাবে? এই প্রশ্ন উঠিয়ে তখন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান এবং শেখ মুজিবুর রহমান কড়া ভাষায় প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে বলেছিলেন-‘এমন উক্তি দেশকে দু-ভাগে বিভক্ত করার সমতুল্য।’-(প্রাগুক্ত)। ২৭ জানুয়ারি ১৯৭১-এ ভূট্টো সাহেব ঢাকা এসে গেলেন। ফিরে গিয়ে পেশওয়ারে জমিয়ত নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান এবং মুসলিমলীগ নেতা কাইয়ূম খানের সাথে দেখা করে চেষ্টা করেন ৩ মার্চ আহূত জাতীয় পরিষদ অধিবেশন বর্জন ঘোষণা করাতে। আব্দুল কাইয়ূম খান ব্যতীত বাকি দু-জন অসম্মতি জানালেন ভূট্টো সাহেবের প্রস্তাবে। ভূট্টো সাহেব তখনই ঘোষণা করেছিলেন-‘পিপল্স পার্র্র্র্টির কোনো সদস্য ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে গেলে তার পা ভেঙে ফেলা হবে এবং অন্য কোনো দলের সদস্য যদি ঢাকায় যান তা হলে তিনি যেনো পশ্চিম-পাকিস্তানে ফিরার টিকেট না করেন।’ পিপলস পার্র্র্র্টির নেতার এই ঘোষণার প্রতিবাদে জমিয়ত নেতা মুফতি মাহমুদ, ন্যাপ নেতা ওয়ালী খান ঘোষণা করেন তারা ৪২ জন জাতীয় পরিষদ সদস্য নিয়ে জাতীয় পরিষদের উদ্বোধনী অধিবেশনে যোগ দিবেন। উল্লেখ্য, এই ৪২ জনের মধ্যে ভূট্টো সাহেবের দল পিপলস পার্র্র্র্টির নেতা আহমদ রেজা কাসূরীও ছিলেন। ১৩ মার্চ ১৯৭১-এ মুফতি মাহমুদ পাকিস্তানের রাজনৈতিক সংকট সমাধানের জন্য লাহোরে সর্বদলীয় একটি বৈঠক ডাকেন। পিপলস পার্র্র্র্টি আর মুসলিম লীগের কাইয়ূম গ্রুপ (যা কাইয়ূম লীগ বলে পরিচিতি ছিলো) ছাড়া বাকি সকল দলের প্রতিনিধিরা এতে উপস্থিত হয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের পেশকৃত চার দফা দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে পর্যালোচনা করে শেষ পর্যন্ত এই দাবিগুলোর সমর্থনে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন। দাবিসমূহ ছিলো যথাক্রমে-১. অবিলম্বে সামরিক শাসন প্রত্যাহার, ২. সেনাবাহিনীকে ক্যান্টনম্যান্টে ফেরৎ নেওয়া, ৩. সেনা অভিযানে ঘটিত প্রাণহানীর বিচার বিভাগীয় তদন্ত, ৪. জাতীয় পরিষদের অধিবেশন বসার আগে ক্ষমতা হস্তান্তর। মুফতি মাহমুদ ১৩ মার্চের বক্তব্যে স্পষ্ট ভাষায় ইয়াহিয়া-ভূট্টোর নীতিকে ভুল আখ্যায়িত করে অবিলম্বে জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানান। জুলফিকার আলী ভূট্টো সাহেবের পক্ষ থেকে সত্তরের নির্বাচনের পর যখন ঘোষণা করা হলো-‘ওখানে তুমি, এখানে আমি।’ তখন মুফতি মাহমুদ প্রতিবাদ করে বলেছিলেন-‘পাকিস্তানের ঐক্য ভেঙে গেলে রাজনৈতিকভাবে পশ্চিম-পাকিস্তানের পরিভাষা অর্থহীন হয়ে যাবে। তখন কোনো দলের পক্ষে পশ্চিম-পাকিস্তানের ক্ষমতা একা হাতে তোলে নেওয়া যুক্তিহীন হয়ে যাবে। কেনো না পিপলস পার্র্র্র্টি সারা পশ্চিম-পাকিস্তানের একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল নয়, তারা কেবল সিন্ধু ও পাঞ্জাবের প্রতিনিধি মাত্র। সীমান্ত প্রদেশ ও বেলুচিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করার কোনো অধিকার তাদের নেই। তা ছাড়া জাতীয় পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল একটাই থাকে, আর সে দল হলো আওয়ামীলীগ। সুতরাং প্রেসিডেন্টের উচিত তাৎকনিকভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের প্রধান হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমানকে সরকার গঠনের জন্য আহ্বান করা’-(ক্বাইদে জমিয়ত মুফতি মাহমুদ, আশফাক হাশেমী/ সাপ্তাহিক কৌমী ডাইজেষ্ট, মুফতি মাহমুদ নম্বার, পাকিস্তান)। উল্লেখ্য যে, মুফতি মাহমুদ পাকিস্তানের জাতীয় রাজনীতিতে একজন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ১৯৭০-এর জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে ‘ডের ইসমাইল খা’ আসনে স্বয়ং পিপলস পার্র্র্র্টির চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভূট্টোকে তিনি বিপুল ভোটে পরাজিত করেছিলেন।
(বিস্তারিত পাবেন আমার লেখা গ্রন্থ : মুক্তিযুদ্ধ এবং উলামায়ে কেরাম)

পাকিস্তান প্রতিষ্ঠাকালেও মুফতি মাহমুদ তাঁর মুর্শিদ শায়খুল ইসলাম সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) সাথে ছিলেন অখন্ডভারতের পক্ষে। বাংলাদেশে যারা পাকিস্তানপন্থী কিংবা ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে পাকিস্তানের পক্ষে ছিলেন, তারা মুফতি মাহমুদ কিংবা তাঁর ছেলে মুফতি ফজলুর রহমান ও তাদের দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামকে কোনদিনই সম্মানের চোখে দেখতে পারেন নি। প্রবাদ আছে, যার সাথে যার মিল নেই তার চলন সর্বদাই হয় বাঁকা। মুফতি ফজলুর রহমানের এই আন্দোলনকে তাই হয়তো কেউ কেউ মেনে নিতে পারছেন না। অবশ্য আমি মুফতি ফজলুর রহমান কিংবা প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান কাউকে-ই প্রশ্নের উর্ধ্বে মনে করি না। সকলের ভাল কাজের প্রশংসা এবং খারাপ কাজের সমালোচনা করি। আমি এখানে শুধু বাংলাদেশে কারো কারো হৈ চৈ –এর বিষয়ে দৃষ্টিপাতের চেষ্টা করেছি।

এই সংবাদটি 1,084 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com