মঙ্গলবার, ০৫ নভে ২০১৯ ০৩:১১ ঘণ্টা

মাওলানা ফজলুর রহমানের আজাদী মার্চ ও একটি পক্ষপাতমূলক বিশ্লেষণ

Share Button

মাওলানা ফজলুর রহমানের আজাদী মার্চ ও  একটি পক্ষপাতমূলক বিশ্লেষণ

মাওলানা মুহাম্মাদ মামুনুল হকঃ

মাওলানা ফজলুর রহমানের আজাদীমার্চকে কেন্দ্র করে পাকিস্তানের ভার্চুয়াল জগতে কেমন তর্ক-বিতর্ক চলছে, সেটা আমার জানা নেই ৷ তবে লক্ষ্য করছি বাংলাদেশের ইসলামী ঘরানার ফেসবুকিয়ানরা এ বিষয়ক আলোচনায় ঝড় তুলছেন ৷ এখানে একটি পক্ষ যেমন ইমরান খানের প্রতি তাদের সমর্থন ব্যক্ত করছেন বেশ শক্ত ভাষায়, তো আরেকটি পক্ষ রয়েছে যারা আস্থা রাখছেন মাওলানা ফজলুর রহমানের উপর ৷ ইমরান খানের ভক্তকুল ও মাওলানা ফজলুর রহানের উপর আস্থাশীল দুটি পক্ষের মধ্যে একটি ব্যবধান মনে হয় আছে ৷ যারা মাওলানার উপর আস্থাশীল তাদের ভক্তি ও আস্থা দীর্ঘদিনের ৷ আর ইমরান খানের ভক্তকুল সম্পর্কে ধারনা করা যায়, তাদের ভক্তি বেশি দিনের পুরোণো নয় ৷ আমি আমার ক্ষুদ্র রাজনৈতিক জীবনে মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেবের একজন অনুরাগী ৷ স্বাভাবিক কারণেই চলমান বিতর্কে মাওলানা ফজলুর রহমানের আজাদী মার্চের বিষয়টি নিয়ে গভীর ভাবে ভাবতে হয়েছে আমাকে ৷ ভাবনার পর বিষয়টি আমার চোখে ইতিবাচক এবং সার্থক একটি কর্মসূচিই মনে হয়েছে ৷ আমার বিশ্লেষণটি অনুধাবন করতে হলে পাঠককে পর্যায় ক্রমিক পয়েন্টগুলো লক্ষ করতে হবে-

এক,
প্রথমেই একটি দৃষ্টান্ত দেয়া যেতে পারে- একজন অনেক দান-খয়রাত করেন ৷ মানুষকে সাহায্য করেন৷ দরিদ্রদের সেবা করেন ৷ নিশ্চিত ভাবেই তার এই কাজগুলো প্রশংসনীয় ৷ কিন্তু যদি আপনি জানতে পারেন যে, লোকটির সম্পদ উপার্জনের বৈধ কোন অবলম্বন নেই ৷ চুরি করে, ডাকাতি করে, দুর্নীতি করে, ঘুষ নিয়ে সম্পদ জমা করেন এবং সেই সম্পদই তিনি মানুষের মাঝে বিলিয়ে থাকেন ৷ এবার আপনাকে প্রশ্নটি দু’ভাবে করা যেতে পারে- দান করা, মানুষকে সাহায্য করা, দরিদ্রদের সেবা করা কেমন কাজ ?
নিশ্চয়ই এর উত্তরে আপনি বলবেন অতি মহৎ কাজ !
কিন্তু প্রশ্নটা যদি এভাবে করা হয় -অন্যের সম্পদ লুন্ঠন করে দান খয়রাত করা কেমন? স্বাভাবিকভাবেই এবার আপনার উত্তর বদলে যাবে ! আপনি এখন বলতে পারবেন না এটি অতি মহৎ কাজ ৷ আপনাকে তখন কোন নেতিবাচক উত্তরই দিতে হবে ৷

দুই,
আমাদের বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটটি আমি একটু আলোচনা করি – ৩০শে ডিসেম্বরের মধ্যরাতের নির্বাচনকে একজন সচেতন নাগরিক হিসাবে সমর্থন করতে পারবেন না ৷ এখন ৩০শে ডিসেম্বরের গণরায় ছিনিয়ে নিয়ে, দেশের সমস্ত নাগরিকদেরকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করে, দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অনৈতিক কাজে লাগিয়ে যারা নির্বাচিত হলো, তারা দেশের উন্নয়নে কিছু কাজ করছে ৷ ব্রিজ, ফ্লাইওভার, রাস্তাঘাট নির্মাণ করছে ৷ কওমি মাদ্রাসাকে মূল্যায়ন করছে ৷ আলেমদেরকে সহযোগিতা করছে ৷ এগুলো নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় কাজ! কিন্তু যদি প্রশ্ন হয় এ কাজগুলো করার জন্য মানুষের ভোটাধিকার ছিনতাই করা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অনৈতিক কাজে ব্যবহার করা, একটি রাষ্ট্রের বুনিয়াদী প্রতিষ্ঠানগুলোকে দুর্বল করা, নির্বাচন ও বিচারব্যবস্থাকে ভঙ্গুর করে দিয়ে অবকাঠামোগত কিছু উন্নতি সাধন করা কতটা সমর্থনযোগ্য ? স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্নের জবাব ভিন্ন কিছুই হবে !
অবৈধ উপায়ে, জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও প্রশাসনকে অনৈতিক কাজে লাগিয়ে একটি সরকার যখন গদিতে বসে তখন তাদের এই অনৈতিকতাটি এত বড় অন্যায় হিসেবেই চিহ্নিত হয় যে, ওই ধরনের উন্নয়নগুলো এর বিপরীতে অনেক সময় গণনায় আসে না ৷ ভালো ভালো কিছু কাজ করলেই নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়ে ক্ষমতা আঁকড়ে থাকাটাকে কোনভাবেই সমর্থন করা যায় না, এটাই যুক্তির কথা ! এটাই চিন্তাশীল মানুষের কথা !

তিন,
এবার আসুন মাওলানা ফজলুর রহমান ও ইমরান খানের প্রসঙ্গে ৷ ইমরান খান অবৈধভাবে জনগণের ভোটাধিকার হরণ করে দেশের সেনাবাহিনীর অনৈতিক পদক্ষেপের মাধ্যমে ক্ষমতায় বসেছেন ৷ ক্ষমতায় বসে জাতিসংঘে মুসলমানদের স্বপক্ষে একটি ভাষণ দিয়েছেন ৷ জাতিসংঘে মুসলিম অধিকার, ইসলামোফোবিয়া ও জঙ্গিবাদ বিষয়ে পাশ্চাত্যের ভুল কর্মপন্থার যৌক্তিক সমালোচনা করেছেন, এগুলো তার প্রশংসাযোগ্য কর্মকাণ্ড ৷ কিন্তু তাই বলে তার ক্ষমতারোহন, জনগণের সঙ্গে প্রতারণা, জনগণের ভোটাধিকার হরণ, নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করতে সেনা বাহিনীকে সহযোগিতা করা, সেনাবাহিনীর আজ্ঞাবাহী হিসেবে রাষ্ট্র পরিচালনা করাকে সমর্থন করা যেতে পারে না ৷

চার,
মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেবের আজাদী মার্চ ইমরান খানের জাতিসংঘের ভাষণের বিরুদ্ধে নয় কিংবা কাশ্মীর বিষয়ক তার জোরালো বক্তব্যের প্রতিবাদেও নয় ৷ একান্তই অবৈধ ও জালিয়াতির নির্বাচনের বিরুদ্ধে ৷
নির্বাচনের পরদিন থেকেই মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেব অত্যন্ত কঠোর ভাষায় এ নির্বাচনকে জালিয়াতির নির্বাচন আখ্যায়িত করে প্রত্যাখ্যান করেছেন এবং অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে সেনাবাহিনীর ন্যক্কারজনক কারসাজিতে অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী ইমরান খানের ক্ষমতারোহনকে চ্যালেঞ্জ করে এসেছেন ৷ তারই ধারাবাহিকতায় একটার পর একটা তার কর্মসূচি চলছে, যার সর্ব শেষ হল আজাদীমার্চ ৷

পাঁচ,
মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেবসহ মোল্লাদেরকে পাকিস্তানের রাজনীতি থেকে গুরুত্বহীন করে দেয়া ইমরান খানের অন্যতম একটি রাজনৈতিক দর্শন ৷ ইমরান খানের ক্ষমতা গ্রহণপূর্বের সময়ের তেহরিকে ইনসাফ পার্টির রাজনৈতিক কার্যক্রমকে যদি কেউ পর্যবেক্ষণ করে থাকেন, তাহলে সেখানে লক্ষ করে থাকবেন- সেই সময়টাতেও ইমরান খান এবং তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির কর্মীরা মাওলানা ফজলুর রহমানের নেতৃত্বাধীন ধর্মীয় রাজনৈতিক দলগুলোকে প্রতিপক্ষ হিসেবে সাব্যস্ত করে আসছে এবং তাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ মনোভাব প্রদর্শন করছে ৷

ছয়,
পাকিস্তানের সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে ধর্মীয় রাজনীতির যে প্রভাব আছে, পশ্চিমা শক্তি সেই প্রভাবকে কখনোই ভালো চোখে দেখেনি ৷ পশ্চিমা শক্তির মিত্র হিসেবে সেনাবাহিনীর বিগত নির্বাচনে অন্যতম এজেন্ডা ছিল পাকিস্তানের রাজনীতি থেকে ধর্মীয় ও মোল্লাতন্ত্রের রাজনীতিকে প্রভাবহীন করা ৷ এজন্যই তাদের প্রধান টার্গেট ছিল ফজলুর রহমানের নেতৃত্বাধীন মুত্তাহিদা মজলিসে আমল ৷
আমি নিবীড়ভাবে পাকিস্তানের বিগত নির্বাচনপরবর্তি পাক রাজনীতিবীদদের মন্তব্য প্রতিক্রিয়াগুলো লক্ষ করেছি ৷ আমার কাছে এ থেকে মনে হয়েছে, বিগত নির্বাচনের অন্তরালে পাকিস্তানে ধর্মীয় রাজনীতি নিয়ে একটি ঠান্ডা লড়াই চলেছে ৷ আর সেই লড়াইয়ে যেমন একটি পক্ষ উঠে পড়ে লেগেছিল একথা প্রমাণ করতে যে, পাকিস্তানে ধর্মীয় রাজনীতি থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে ৷ মুত্তাহিদা মজলিসে আমলের পরাজয়কে তারা কৃত্রিম উপায়ে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে প্রচার করার চেষ্টা করেছে ৷ আর আরেকটি পক্ষ তারা দাঁতে দাঁত চেপে একথা প্রমাণ করার চেষ্টা করেছে যে, পাকিস্তানের জনগণ ধর্মভিত্তিক রাজনীতি ও ধর্মীয় রাষ্ট্র ব্যবস্থার প্রতি কখনোই অনাগ্রহী নয় ৷ এই দুটি পক্ষের মধ্যে কে কোন পক্ষের ছিল সেটি কি আর বলার অপেক্ষা রাখে ? সেনাবাহিনী এবং তাদের আশীর্বাদপুষ্ট ইমরান খান ছিল ধর্মভিত্তিক রাজনীতির বিপরীতে আর বিশ্বশক্তি, সেনাশক্তি ও ইমরানের বিপরীতে ধর্মভিত্তিক রাজনীতির পক্ষের সিপাহসালারের নাম মাওলানা ফজলুর রহমান ৷
নির্বাচন-পরবর্তী এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাওলানা ফজলুর রহমান দৃঢ়ভাবে এ কথা বলেছেন যে প্রহসনের নির্বাচনেও এ কথা প্রমাণ করা সম্ভব হয়নি যে, পাকিস্তানের জনগণ ইসলাম কিংবা ইসলামী রাজনীতি চায়না; বরং কারচুপি করে ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক প্লাটফর্ম মুত্তাহিদা মজলিসে আমলের প্রার্থীদেরকে পরাজিত দেখালেও তাদের সাকুল্যে প্রাপ্ত জনগণের রায় এবং ভোট খুব মামুলী নয় ৷ পঞ্চাশ লক্ষাধিক ভোট এই কারচুপির নির্বাচনেও ধর্মভিত্তিক রাজনীতির ব্যালটে জমা পড়েছে ৷ যদি ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং না হত, তাহলে ইসলামী রাজনীতির প্রতি জনগণের সমর্থন আরো বেশি বলেই প্রতীয়মান হত ৷ মাওলানা তার এ বক্তব্যের মাধ্যমে সেক্যুলার রাজনীতির মুখপাত্রদের মুখে সেদিন চপেটাঘাত করেছিলেন ৷ এভাবে মাওলানা ফজলুর রহমান নির্বাচনের পর থেকেই দ্ব্যর্থহীন ভাষায় একথা প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করছেন যে, পাকিস্তানের রাজনীতিতে ইসলাম তথা ধর্মীয় রাজনীতির প্রভাবকে অস্বীকার করার সাধ্য কারো নেই ৷
মাওলানা ফজলুর রহমানের কথাটি শুধু কথায় সীমাবদ্ধ থাকার মত বিষয় ছিল না, কাজের মাধ্যমে সেটি প্রমাণেরও দাবি রাখছিল ৷ আর মাওলানা ফজলুর রহমান সাহেব তার অব্যহত কর্মতৎপরতা ও লাগাতার কর্মসূচির মাধ্যমে তার দাবির সত্যতা শুধু প্রমাণ নয় প্রতিষ্ঠিত করার প্রয়াস পেয়েছেন ৷

সাত,
আজাদী মার্চের মাধ্যমে সেনাসমর্থিত পুতুল সরকার ইমরান খানের পতন হয়ত হবে না, এ কথা না বোঝার মত রাজনীতিবীদ মাওলানা ফজলুর রহমান নন । তবে সেনাবাহিনীকে অন্তত এই ম্যসেজ দেয়া হয়ে গেল যে, বন্দুকের নল আর পশ্চিমা প্রভুদের মদদে ইসলামী প্রজাতন্ত্র থেকে ইসলামী রাজনীতির প্রভাব খর্ব করা যাবে না ইনশাআল্লাহ্!
ইতিপূর্বে নওয়াজ শরিফকে পদত্যাগে বাধ্য করার জন্য ইমরান খানও ইসলামাবাদ অভিমুখে মার্চ করেছিলেন ৷ লাগাতার অবস্থানও করেছিলেন ৷ তাতে কি নওয়াজ শরীফ সরকারের পতন ঘটে গিয়েছিল ? কিন্তু তাই বলে কি সেই মার্চ ও অবস্থান ব্যর্থ হয়েছিল ? নাকি সেই মার্চ থেকেই ইমরানের রাজনৈতিক উত্থান হয়েছিল ? আজ যারা আজাদী মার্চের মাধ্যমে ইমরানের পতন হবে না বলে মাওলানা ফজলুর রহমানের কর্মসূচিকে ব্যর্থ বলে তৃপ্তির আগাম ঢেকুর তুলতে চাইছেন, তারা রাজনীতির পাঠে ততটা অভিজ্ঞ নয় বলেই আমার ধারণা ৷ পদত্যাগের আন্দোলনের অর্থ সব সময় এমনটা নয় যে, আজ পদত্যাগ না করলেই আন্দোলন ব্যর্থ; বরং এই আজাদী মার্চের মাধ্যমে একজন মাওলানার নেতৃত্বে পাকিস্তানের ইতিহাসে সর্ব বৃহত রাজনৈতিক কর্মসূচী পালিত হলো ৷ পাকিস্তানের বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো হতবাক হয়ে গেলো ৷ ইমরানকে খানকে নড়েচড়ে বসতে হলো ৷ পাকিস্তান থেকে ধর্মীয় রাজনীতির প্রভাব কমিয়ে দেওয়ার যে পায়তারা চলছিল, তার মুখে চুনকালি পড়লো ৷ এ সবই মাওলানা ফজলুর রহমান ও ইসলামী রাজনীতির অর্জন ! এভাবে চলতে থাকলে আজ হয়তো ইমরান খানের পতন হবে না, কিন্তু নির্বাচনে জালিয়াতির বিরুদ্ধে এক শক্ত অবস্থান ব্যক্ত করে রাজনীতিতে নিজেদের অবস্থান মজবুত করার পয়গাম দিয়ে দিলেন আজাদী মার্চের মহানায়ক মাওলানা ফজলুর রহমান ৷

আট,,
শেষ কথা হল, মাওলানা ফজলুর রহমানের এই মার্চকে বিশ্লেষণ করতে হবে ইমরানের জাতিসংঘের ভাষণ এর সঙ্গে তুলনা করে নয়; বরং ইমরান খানের জালিয়াতির নির্বাচন এবং অবৈধ উপায়ে ক্ষমতার গদিতে বসার সাথে মিলিয়ে ৷ এভাবে পাতানো জালিয়াতীর নির্বাচনের বিরুদ্ধে পরিচালিত একটি প্রতিবাদী আন্দোলনের বিরুদ্ধাচরণ করে আপনি যদি ইমরান খানের জালিয়াতির নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা গ্রহণকে সমর্থন করেন, তবে আপনি কোন মুখে আবার শেখ হাসিনার মধ্যরাতের নির্বাচনের বিরুদ্ধে কথা বলবেন? আর যদি শেখ হাসিনার মধ্যরাতের নির্বাচনে জালিয়াতির বিরুদ্ধে আপনার প্রতিবাদী কন্ঠ উচ্চারিত হয়, তাহলে আপনি আবার কোন মুখে মাওলানা ফজলুর রহমানের আজাদী মার্চের বিরুদ্ধাচারণ করেন ? এটি কি আপনার দ্বিমুখী আচরণ নয় ? একটু ভাববেন কি মিস্টার এন্ড মাওলানা সাহেবগণ?

নয়,
আমি বিস্মিত হই, যখন দেখি-বাংলাদেশে ধর্মীয় তথা ইসলামী রাজনীতির বলিষ্ঠ দাবিদার জামাতে ইসলামীর কর্মীরা ইসলামী রাজনীতির পক্ষের একজন পতাকাবাহীর বিপক্ষে ধর্মীয় রাজনীতির বিরুদ্ধাচরণকারীর জন্য মায়াকান্না কাঁদেন ৷ তবে কি তারা ইসলামী রাজনীতি বাদ দিয়ে আগামী দিনে ধর্মহীন রাজনীতির পথ ধরবেন ? আমাদের ঘরাণারও কোনো কোনো আন্দোলনের নতা-কর্মীদের কথা আর কিইবা বলব?

ঢাকা
৫ই
‘১৯
রাত ৩টা ১৬ মিঃ

এই সংবাদটি 1,084 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com