শুক্রবার, ০৮ নভে ২০১৯ ০৯:১১ ঘণ্টা

বেফাক বোর্ডের সিদ্ধান্ত ও আমার ভাবনা

Share Button

বেফাক বোর্ডের সিদ্ধান্ত ও আমার ভাবনা

আহমাদ হুছাইন:
সম্প্রতি বাংলাদেশর সর্ববৃহৎ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারীসিল আরাবিয়া কর্তৃক একটি বিশেষ সার্কুলার সোস্যাল মিডিয়ার কল্যানে আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। যেখানে ২০১৭ সালের পূর্বের ১৫ বছরের ফুজালাদের মধ্যে শুধুমাত্র আগ্রহীদের জন্য আগামী ৫ বছর (১৪৪১-১৪৪৫ হিজরী পর্যন্ত) যথানিয়মে বেফাকের মাধ্যমে নিবন্ধন করে পরীক্ষায় অংশগ্রহনের মাধ্যমে সরকারি অনুমোদনপ্রাপ্ত আল-হাইয়্যাতুল উলিয়া বোর্ডের অধীনে মাস্টার্স সমমানের সনদ লাভের কথা ঘোষনা করা হয়েছে। দেশের খ্যাতিমান শ্রদ্ধেয় দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের মাধ্যমে গৃহীত এই প্রস্তাবটি আমার মত হাজারো সাবেকদের হতাশ করেছে।

হ্যাঁ! হতাশার কারনটি আজ এখানে স্পষ্ট করে বলতে চাই। বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা শিক্ষাব্যবস্তা স্বাধীনতার পর থেকে এই কিছুদিন আগ পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির বাহিরে ছিল। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম, সভা সমাবেশ, সেমিনার- সিম্পোজিয়াম, অবস্থান ধর্মঘট ও মুরব্বীদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় অবশেষে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে বহু কাংখিত সরকারি স্বীকৃতি লাভ করে। জাতীয় সংসদে আইন পাশ করে দেশের ৬টি কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের সমন্বয়ে হাইয়্যাতুল উলিয়ার অধীনে দারুল উলুম দেওবন্দের উসুলে হাস্তেগানার ভিত্তিতে দাওরায়ে হাদীসকে এম.এ পাশের সমমান ডিগ্রী প্রদান করা হয়। নবগঠিত হাইয়্যাতুল উলিয়া বোর্ডে বেফাকের একচ্ছত্র আধিপত্য বজায় রাখা হয়। দেশের সর্ববৃহৎ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড হিসেবে সরকার এটিকে যথাযথ মূল্যায়ন করেছে বলে মনে করি।

কিন্ত আফসোস হচ্ছে এই বোর্ডের সদ্য গৃহীত সিদ্ধান্তের জন্য। যথানিয়মে নিবন্ধন করে ১০/১১টি বিষয়ের পরীক্ষা দেওয়ার মত ধৈর্যশক্তি একযুগ আগে পড়ালেখার অধ্যায় সমাপ্তকারিদের কতটুকু অবশিষ্ট আছে? সাবেক ফারেগীনরা ইতিপূর্বে নিয়মিত ছাত্র হিসেবে সারা বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করে ছাত্র জীবনের শেষ পরীক্ষায় অংশ নিয়ে যে ফলাফল অর্জন করেছিল, একযুগ পরে এখন কী সবার পক্ষে আগেরমত ভালো/অতি ভালো ফলাফল অর্জন করা সম্ভব হবে? যদি সম্ভব না হয়, তবে সনদ লাভের আশায় ইজ্জতের বারটা বেজে যাবে, কারন আমাদের অনেকের সরাসরি ছাত্ররাও অতিতের মত আগামী ৫বছরও একি বোর্ডের অধীনে দাওরায়ে হাদীসের পরীক্ষা দিবে। ঐসব ছাত্ররা হয়তো জানে, তাদের উস্তাজগণ নিজেদের সময়ে বোর্ডের সেরাদের একজন ছিলেন কিংবা ফাস্টক্লাস পেয়ে টাইটেল পাশ করেছেন। সময়ের ব্যবধানে মেন্টালী ও সাইকোলজিক্যলি সেইসব মেধাবীরা আগের মত কাংখিত ফলাফল অনেকই অর্জন করতে পারবে কি না সন্দেহ আছে। সুতরাং এই সকল বিষয় আমাদের আকাবির হযরাতগনের ভাবনায় থাকা উচিৎ ছিল।

(খ)
সরকারি সনদ লাভের জন্য সাবেক কওমীয়ান ফারিগীনরা আবার পরীক্ষা দিতে হলে বিগত চার দলীয় জোট সরকারের আমলে আলিয়া মাদরাসার ফাযিল ও কামিলের স্বীকৃতির অর্জনের পরবর্তি সময়ে অনুষ্টিত বিশেষ পরীক্ষার মতই একটি পরীক্ষার আয়োজন করা যেতে পারে। যেখানে ১০০/২০০ নম্বরের একটি মূল্যায়ন পরীক্ষার আয়োজন হবে, শুধুমাত্র সাবেক ফারেগীনরা অংশগ্রহন করবে। ফলাফল যাই হোক মূল্যায়ন পরীক্ষায় পাশ করলে আগের ফলাফল বহাল রেখেই হাইয়্যা কর্তৃপক্ষ সনদ ইস্যু করবে। বিশ্বাস করি এটি সবার জন্য সহজতর ও সম্মানজনক হবে । স্বীকৃতির সুফল সাবেকরাও ভোগ করতে পারতেন।

আমার অগ্রজ ও অনুজ অনেক বন্ধু ও বড় ভাইদের সাথে গত কিছুদিন যাবত এই ব্যপারটি নিয়ে আলোচনা থেকে জানতে পারলাম, সরকারি স্বীকৃত সনদ লাভের আগ্রহী অনেকই আছেন, কিন্ত এর শতকরা ১% এর কম নিয়মিত ছাত্রদের মত সকল বিষয়ের পরীক্ষা দিতে অনাগ্রহী। বিশেষ পরীক্ষার আয়জোন হলে শতকরা ৯০% এর উপরে সনদ লাভের জন্য পরীক্ষায় অংশগ্রহনে আগ্রহী। এই যখন অবস্তা তখন বেফাকের সিদ্ধান্ত সাবেকদের সাথে একধরনের মশকারা মনে হচ্ছে। আরোকটু ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল বলে মনে করি। এখনো সময় আছে যদি সম্ভব হয় তবে সিদ্ধান্ত পুণঃবিবেচনা করার উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি।

(গ)
২০১৩ সালের জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের তথ্যমতে দেশে সরকারি পদের সংখ্যা ১৪ লাখ ৫হাজার ৫২৪টি (তথ্যঃ দৈনিক সংগ্রাম ১৭/০৯/২০১৪)। সন্দেহাতীত ভাবে বলা যায় এই সংখ্যা বর্তমানে অনেক বেশী, ভবিষ্যতেও বাড়বে, কথা হচ্ছে এই বিপুল সংখ্যক পদগুলোর যদি মিনিমাম ২% ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিতদের জন্য পদ যেমন ঈমাম মুয়াজ্জিন খতিব ও ধর্মীয় সাবজেক্টের শিক্ষক, পরিচালক, গভেষক ইত্যাদির হয়ে থাকে, তবে উল্লেখযোগ্য একটি অংশ রাষ্ট্রীয় কর্মকান্ডে অংশগ্রহনের সুযোগ লাভ করতে পারার কথা। কওমী অঙ্গনের তুখোড় মেধাবীরা সামনে আগানোর পথ পেলে অনেকের জন্য মানবেতর জীবন থেকে মুটামুটি সাচ্ছন্দময় জীবনের সন্ধান লাভ করার সুযোগ তৈরি হতো। এই সুযোগটি হাতছানি দিয়ে ডাকলেও আকাবিরদের সিদ্ধান্ত অনেক প্রতিভাধর আলেমরা বঞ্চিত হবেন।

(ঘ)
পরিশেষে বলতে চাই, বেফাক বোর্ড দেশের সিংহভাগ কওমীয়ান ছাত্রদের অভিবাবক বোর্ড। আরেকবার সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সহিত নিজের সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে সর্বাদিক ফুযালাদেরকে স্বীকৃতির আওতায় আনার জন্য যুগপোযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহনের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। উল্লেখ্য যে, আমি ২০০৭ সালে দাওরায়ে হাদীস সমাপ্ত করি। বেফাকের অধীনে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে পাশ করি। তারপর ধারাবাহিক ভাবে এখনো পর্যন্ত একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আছি। গত ১২ বছরে জেনারেল শিক্ষাধারার শেষ প্রান্তে উপনীত হয়েছি। আমার নতুন করে সরকারি সনদের প্রয়োজন নেই, তবুও আমার হাজারো বন্ধু সহপাঠী ও অনুজদের জন্য আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। জানিনা কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হবে কি না, ইনশা আল্লাহ অচিরেই একটি গোলটেবিল আলোচনা সভার আয়োজনের চেষ্টায় আছি।

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে

বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে।  ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।  ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে। ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com