রবিবার, ১০ নভে ২০১৯ ০৩:১১ ঘণ্টা

হজ-হাজী নিয়ে বক্তব্য ভাইরাল, ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দুঃখপ্রকাশ

Share Button

হজ-হাজী নিয়ে বক্তব্য ভাইরাল, ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দুঃখপ্রকাশ

ডেস্করিপোর্ট: সম্প্রতি ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আবদুল্লাহর একটি বক্তব্যের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে ওই বক্তব্যে আলেম-উলামাদের হেয় করা হয়েছে।
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় সফরে বর্তমানে লন্ডন অবস্থান করছেন। ভাইরাল হওয়া ভিডিওর বিষয়টি তার নজরে এসেছে। লন্ডন থেকে ওই ভিডিও বক্তব্যের বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। সংবাদ বার্তাটোয়েন্টিফোর এর। রোববার (১০ নভেম্বর) সকালে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আনোয়ার হোসাইন স্বাক্ষরিত বিবৃতিটি গণমাধ্যমে পাঠানো হয়। বিবৃতিতে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর আমরা ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম দেশের সকল ধারার শীর্ষস্থানীয় ৫৮ জন হাক্কানি উলামায়ে কেরামের সমন্বয়ে হজ ওলামা-মাশায়েখ টিম গঠন করে পবিত্র হজে প্রেরণ করি। আমরা অত্যন্ত আন্তরিকতা এবং সম্মানের সঙ্গে তাঁদের জন্য পবিত্র মক্কা, মিনা, আরাফা এবং মদিনা শরিফে আবাসন, পরিবহন, খাবারসহ হজের বিধি-বিধান পালনে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করি। উলামায়ে কেরামগণ পবিত্র হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরুর পূর্বে পবিত্র মক্কা শরিফে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে বাংলাদেশি হাজি সাহেবদের আবাসস্থলে গিয়ে সঠিকভাবে হজপালনে হজের বিধি-বিধানের ওপর আলোচনা করেন। একইভাবে মিনা এবং আরফাতে অবস্থানকালে বিভিন্ন তাঁবুতে গিয়ে তাঁরা বাংলাদেশি হাজি সাহেবদের পবিত্র হজের ইবাদতের বিষয়ে বয়ান করেন। বাংলাদশের সম্মানিত হাজি সাহেবগণ, উলামায়ে কেরাম ও দেশ-বিদেশের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বাংলাদেশি নাগরিকগণ সরকারের এ উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
সম্প্রতি দেশের উলামা-মাশায়েখদের এক আলোচনা সভায় দেশের হাক্কানি উলামায়ে কেরামগণের হজে প্রেরণের ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে আমি স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াত-শিবির চক্রের প্রতি ইংগিত করে বক্তব্য প্রদান করি। আলীয়া মাদরাসা কিংবা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের কোনো আলেমকে হেয় করে বক্তব্য প্রদান আমার উদ্দেশ্য ছিল না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল ধারার হাক্কানি উলামায়ে কেরামের প্রতি আমার সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা ও সম্মান রয়েছে। তারপরও আমার বক্তব্যে কেউ আঘাত পেয়ে থাকলে অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি।’
উল্লেখ্য, দু’দিন আগে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর ডিভিওটি ভাইরাল হয়। তারপর থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর ওপর ক্ষুব্ধ হন আলিয়া মাদরাসার আলেম-উলামা, বিশেষ করে সুন্নি আলেম উলামা ও শিক্ষার্থীরা। অনেক কওমি আলেম-শিক্ষার্থীকেও ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
এদিকে শনিবার (৯ নভেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদে ইসলামী ছাত্রসেনা মানববন্ধন করে। বিভিন্ন মহল থেকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ হতে থাকে। এমতাবস্থায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী লন্ডন থেকে নেতৃস্থানীয় আলেমদের সঙ্গে কথা বলেন ও তাদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন। প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ভিডিওতে জামায়াত-শিবিরকে উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেছেন তিনি।

কী বলেছিলেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী?
কী বলেছিলেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর ঐ ভিডিও বার্তায় বেফাকের সহসভাপতি মাওলানা আশরাফ আলীসহ কওমি ধারার আরো কয়েকজন তরুণ আলেমের নাম উল্লেখ করায় এনিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে তুমুল সমালোচনা চলছে-ফেসবুকে। সরকারী খরচে হজে যেতে অনেকেই ঘেউ ঘেউ করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন। এখানে কয়েক জনের মন্তব্য তুলে ধরা হলো:

ইজ্জতের বদহজম

রশীদ জামীল
‘বেগুন স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। বেশি করে বেগুন খাওয়া দরকার’। রাজার কথা শেষ হতেই নাসির উদ্দিন হোজ্জা দাঁড়িয়ে বললেন, ‘অবশ্যই দরকার। বেগুনের গুন বলে শেষ করার উপায় নেই। বেগুন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে, হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়, মস্তিষ্কের উপকার করে, হজমে সাহায্য করে, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। এত গুন থাকার পরও জিনিসটার নাম বেগুন কেন রাখা হলো- সেটাই হলো কথা’।

কিছুদিন পর রাজা বললেন, ‘বেগুন স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। বেগুন খাওয়া উচিত না’। নাসির উদ্দিন হোজ্জা বললেন, ‘মোটেও উচিত না। বেগুন খুবই খারাপ একটা সবজি। বেগুন খেলে পরিপাকতন্ত্রে সমস্যা হয়। অ্যালার্জিজনিত সমস্যার জন্য বেগুন ভীষণ ক্ষতিকর। আর্থ্রাইটিস বা সন্ধিপ্রদাহ, গলদেশ ফোলা, বমি ভাব, চুলকানি এবং ত্বকের মারাত্নক ক্ষতি করে’।

রাজা বললেন, ‘কী ব্যাপার হোজ্জা! তুমি না সেদিন বেগুনের এত গুন বয়ান করলা’? হোজ্জা বললেন, ‘জাহাপনা! বেগুন আমার কাছে বিষয় না। বিষয় হলো আপনাকে খুশি করা। সেদিন বেগুন আপনার পছন্দ ছিল। আমি বেগুনের গুন গাইলাম। আজ বেগুন আপনার অপছন্দ। সুতরাং খারাপ দিকগুলো তুলে ধরলাম’।


মাইলের পর মাইল সফর করে ইমাম বোখারি এক জায়গায় গেলেন হাদিস সংগ্রহ করতে। ওখানে একজন মুহাদ্দিস আছেন। তাঁর কাছে একটি হাদিস আছে। গিয়ে দেখলেন, ঐ মুহাদ্দিস সাহেব বড়শি দিয়া মাছ ধরছেন। হাদিস না নিয়েই ফিরে এলেন তিনি।

জিজ্ঞেস করা হলো, এত কষ্ট করে দিনের পর দিন সফর করে হাদিস আনতে গেলেন। তাঁর সাথে দেখাও হলো। হাদিস না নিয়ে ফিরে এলেন যে?

ইমাম বোখারি বললেন, তার চরিত্রে ধোঁকাবাজির একটা ব্যাপার আছে। সে বড়শি দিয়ে মাছ ধরছে। বড়শির মাথায় খাবার লাগিয়ে মাছের দিকে এগিয়ে দিচ্ছে। মাছগুলেকে খাবারের লোভ দেখিয়ে ধোঁকা দিয়ে শিকার করা হচ্ছে। যে লোক মাছের সাথে এমন ধোঁকাবাজি করতে পারে, সে আল্লাহর নবির হাদিসের সাথে কোনো ধোঁকাবাজি করেনি- কীভাবে বুঝব?


বেগুনের গুন গেয়ে দরবারের বেগুন ভাজি খাওয়া হয়েছে। ভাজাপোড়া খেলে বুক তো একটু জ্বলাপোড়া করবেই। আগে ভাবার দরকার ছিল। এখন একটাই উপায়; তওবার অ্যান্টাসিড তালাশ করা।

বড়শির মুখে খাবার দেখেই গপ করে গিলে ফেলার আগে মনে রাখা দরকার ছিল শিকারি ছিপ ধরে যখন টান দেবে- তখন গোঙানির আওয়াজ বের করেও লাভ হবে না। অবশ্য, এমন সিচুয়েশনে গোঙানির শব্দ ঘেউ ঘেউ মতন শুনায় কীনা- আমার জানা নেই।

Nazmul Islam Qasimi তাহলে কি একজন ফরীদ ঊদ্দীন মাসঊদই সত্যিকারের লিজেন্ড? যদি তাই হয়, জাতীয়ভাবে ড্রেনের পানি দিয়ে ওজুকারী আর গোস্ত খেয়ে বোবা সাজা; হাজী সাহেবরা এখনি তার কাছে মাফ চান! বিষোদগার তো কম করেননি তার সম্পর্কে!

আমার জানামতে, মাও. ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ কখনো আমাদের ইমোশন নিয়ে খেলেন নি। পর্দার আড়ালে একটা ছাত্রের মাথাও কোথাও বিক্রি করেন নি!

Ruhul Amin Sadi আস্থা এবং বিশ্বাসের পাহাড়গুলো যখন ধ্বংস হতে থাকবে তখন করনীয় কি? – এই প্রশ্নের জবাব খুজছি নিজের চিন্তা ও বিবেকের কাছে।

করনীয় কি জানা নেই। প্রশ্নের উত্তর কি জানা নাই। কোন পথে হাটব জানা নাই। আমীরে আম বনাম খাস হওয়ার মধ্যে কি লাভ তাও জানিনা।

কষ্ট পাই আমার বিশ্বাসের জায়গাটা ক্রমান্বয়ে সরে যাচ্ছে দূর থেকে দূরে। পেয়াজের দামের মত।

কথা বাড়াতে ভালো লাগে না
শরীফ মুহাম্মদ

নজিরবিহীনভাবে বাংলাদেশে কোনো সরকারের পক্ষ থেকে (বিশেষত একটি বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত সেকুলার সরকারের) সরকারি তালিকায় হজের জন্য নাম ঘোষণা হয় ৫০-এর চেয়েও বেশি আলেমের।

এই তালিকার বেশির ভাগ আলেম নেতৃস্থানীয়। কওমি মাদ্রাসা সমূহের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি। এদের বেশিরভাগই আগে দশবারের বেশি হজ করেছেন।

এই তালিকা হজের অনেক আগেই মিডিয়ায় বারবার প্রকাশ হয়েছে। সরকারের আলেম বান্ধব বিজ্ঞাপন হিসেবে প্রচার হয়। অপরদিকে নানা পক্ষ থেকে সমালোচনাও উঠানো হয়েছে। উঠেছে প্রাসঙ্গিকতার প্রশ্ন ও নৈতিকতার নানা বিষয়।

সফরের আগে আগে এই তালিকায় আবার সংযুক্ত করা হয়েছে বিভিন্ন বড় আলেমের সঙ্গে তার সন্তানদেরকে । আবার আগে থেকেই দু একজনের সঙ্গে তাদের সন্তানরা তাদের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

হজে যাওয়ার আগে আলেমদের পুরো কাফেলা বঙ্গভবনে গিয়ে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ডিনারে অংশগ্রহণ করেছেন। আলোচনা করেছেন, অনুষ্ঠান করেছেন। সেসব আবার বিভিন্ন চ্যানেল, অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচারও হয়েছে।

হজ শেষ হওয়ার বেশ কিছুদিন পর এখন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রীর মুখে প্রকাশ্য ভিডিওতে শুনতে হচ্ছে, তার চিন্তা ছিল দশজনকে হজে নেওয়ার। কিন্তু নানাজন নানা রকম তদবির করেছেন, নানা রকম প্রতিযোগিতা করে এখানে শরিক হয়েছেন ‌।

এরপরেও যদি লজ্জা বা কষ্ট না লাগে তবে কবে কখন লাগবে? সরকার বা সরকারের একটি অংশ তাদের ‘প্রোগ্রাম’ সফল করার জন্য অনেক কিছুই করার চেষ্টা করবেন। ব্যক্তিগত সম্মান ও সুবিধা লাভের জন্য অনেকেই আলেম সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে (ব্যক্তিগতভাবে নয়) অনেক অফার গ্রহণ করবেন। এরকম পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগতভাবে লজ্জা পাওয়ার দায়িত্ব কি কেউ কেউ পালন করতে পারে না?

কথিত সম্মাননাকর অফার না হোক, লজ্জা পাওয়ার অধিকারটুকু অন্তত থাকলে কী ক্ষতি! নাকি এটারও দরকার নাই?

ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সত্য ভাষণ, আমাদের অপমানের রাজটিকা!

#Mufti Anaetullah ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর (যদিও ঘটনা বাস্তব এবং তিনি পুরোটা বলেননি। সবটুকু ভীষণ তিক্ত) বক্তব্যে ভীষণ অপমানিতবোধ করছি। এটা আলেম হিসেবে আমাদের জন্য লজ্জাজনক। উনারা (৫৮ জন) বিষয়টি ক্লিয়ার করলে ভালো হয়। হজের সফর আলেমদের (সবাই না) আত্মমর্যাদাহীনতার দলিল। অনেক কিছু জানা সত্ত্বেও কিছুই বলিনি, বলতে পারিনি, বলা হয়ে উঠেনি, কিন্তু ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের পর ভেতরটা জ্বলছে, কষ্ট, অপমান সইতে পারছি না। আর হ্যাঁ, উনারা যে হজে যেয়ে খুব ভালো ছিলেন এমনও কিন্তু নয়…। মাঝখান থেকে আলেম সমাজের বদনাম করলেন। এটাকে (হজের সফর) যারা ‘মুসলেহাত’ তবকায় রাখতে চান তাদের জন্য করুণা। সাফাই গাইতে না আসাই ভালো….

হ্যালো ৫৮ আলেম…
Ruhul Amin Nagory সরকারী খরচে আলেমদের হজে যাওয়ার ব্যাপারে শুরু থেকেই আমরা নানা আশংকার কথা বলেছিলাম। অনেক ভাই তখন অনেক কথাই বলেছিলেন। আজ ধর্মমন্ত্রীর বক্তব্য শুনার পরে আমাদের আগাম আশংকা বাস্তবতাই প্রমানিত হলো। বিষয়টি আশাকরি সকলের কাছে ক্লিয়ার হয়েছে। আমি জানিনা মন্ত্রীমহোদয়ের বক্তব্যে ৫৮ সরকারী হাজি আলেম এর মধ্যে প্রতিক্রিয়া কী?
#ব্যক্তিগত ভাবে বেশি কষ্ট পেয়েছি “আল্লামা” আশরাফ আলী সাহেবের বিষয়টি শুনে। আমরা এব্যাপারে তার আত্মপক্ষ সমর্পণ মুলক বক্তব্য আশা করছি।
০৯.১১.২০১৯

Fokhrul Islam Khan সরকারি হাজি আলেমদের {কিছু কুকুর} তালিকা প্রকাশ,,,

চিন্তা করছি কে কে ঘেউ ঘেউ করেছিল!সরকারী খরচে এবার যারা হজ্বে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছেন।কার শায়েখ কত নম্বরে জানাতে ভুলবেন…

Posted by Tanbir Ahmad on Friday, 8 November 2019

সরকারী সম্পদ বা টাকার মালিক কে? জনগন না সরকারের মন্ত্রী? কার সম্পদ? কার অনুমতি নিয়ে হজ্জে টাকা খরছ করা হয়েছে সরকারের?…

Posted by Tayedul Islam on Friday, 8 November 2019

এই সংবাদটি 1,532 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com