ইসকন সিলেটের বহিস্কৃত ৪ সদস্যের সাথে সম্পর্ক না রাখার আহবান

প্রকাশিত: ৮:০৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০১৬

ইসকন সিলেটের বহিস্কৃত ৪ সদস্যের সাথে সম্পর্ক না রাখার আহবান
সিলেট রিপোর্ট:
ইসকন সিলেটের যুগলটিলা মন্দিরের বহিস্কৃত ৪ সদস্যের সাথে সাংগঠনিক ও অর্থনৈতিক কোনো সম্পর্ক না রাখতে ইসকনের সকল সদস্য, পৃষ্ঠপোষক, শুভানুধ্যায়ীসহ সকল সনাতন ধর্মালম্বীদের অনুরোধ জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইসকন)  বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক শ্রীপাদ চারু চন্দ্র দাস ব্রহ্মচারী। কেউ লেনদেন বা সম্পর্ক রাখলে এর দায়ভার ইসকন নেবে না।

সোমবার (২১ নভেম্বর) এক বিবৃতিতে এই অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন- ইসকন সিলেটের যুগলটিলা মন্দিরের অধ্যক্ষ ও ইসকন বাংলাদেশের সহ সভাপতি নবদ্বীপ গৌরাঙ্গ দাস ব্রহ্মচারীর সাংগঠনিক কর্মকান্ডে সিলেট ইসকনের উন্নয়ন ও প্রসার ঘটছে। এতে ইর্ষান্বিত হয়ে মন্দিরের সহ সম্পাদক পান্ডব গোবিন্দ দাস (পিনু সরকার), সদস্য প্রেমনিদি দাস (প্রিতম সরকার), ব্রজ কৃষ্ণ দাস, বিপীন বিহারি দাস (বিনয় দাস), বুদ্ধি গৌর দাস (বিমল দাস), পরমেশ্বর দাস (প্রকাশ দেবনাথ) ও জয়কৃষ্ণ নাম দাস (জয়কৃষ্ণ রায়) সোসাইটির ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন ও নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধি হাসিলে উঠে পড়ে লাগেন। তারা নবদ্বীপ গৌরাঙ্গ দাস ব্রহ্মচারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।

তিনি আরোও বলেন, এবছরের গত ০৯ সেপ্টেম্বর ইসকন বাংলাদেশের সভাপতি শুদ্ধসত্ব গোবিন্দ দাসের (সত্যরঞ্জন বাড়ৈ) সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় নবদ্বীপ গৌরাঙ্গ দাস ব্রহ্মচারীর বিরুদ্ধে অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি। পরবর্তিতে ১০ অক্টোবর ইসকনের তিনজন পরিচালক মন্ডলীর প্রতিনিধির সভায় তাদেরকে অপতৎপরতা না চালাতে সতর্ক করা হয়।

পরে ০৫ নভেম্বর পরিচালক মন্ডলীর সদস্য ভক্তিপুরুষোত্তম স্বামী মাহারাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ৫ জনকে শোকজ করা হয়। এরপরও গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন সোসাইটিতে ভাবমূর্তি নষ্ট করতে থাকেন।

এ অবস্থায় তাদের মধ্যে মন্দিরে বসবাসরত পান্ডব গোবিন্দ দাস (পিনু সরকার), সদস্য প্রেমনিদি দাস (প্রিতম সরকার), বজ্র কৃষ্ণ দাস ও বিপীন বিহারি দাসকে (বিনয় দাস) সভাপতির নির্দেশে জরুরি সভা করে মন্দির কমিটি কর্তৃপক্ষ সাময়িকভাবে বহিস্কার করেন।

এই সংবাদটি 135 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com