আমার বাবা সৈয়দ আতাউর রহমানের স্মৃতিতে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ

প্রকাশিত: ৭:০২ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৯

আমার বাবা সৈয়দ আতাউর রহমানের স্মৃতিতে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ

সৈয়দ মবনুঃ

আমার বাবা আলহাজ¦ সৈয়দ আতাউর রহমান যে সুস্থ্য হয়ে আমাদের সাথে বিজয়ের মাসে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করবেন সেই আশা তো আমাদের কারো মধ্যেই ছিলো না গত জুলাই-আগষ্ট এবং সেপ্টেম্বর ২০১৯-এ। ডাক্তারেরা তো একেবারে আশাশূন্য ছিলেন। কোরবানির ঈদ আমাদের হয়েছিলো হাসপাতালে। বাবা বাঁচবেন না এই চিন্তায় ভাই-বোন সবাই ইংল্যান্ড ছেড়ে দেশে এসেছিলেন। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯ রাতে আমি, আম্মা, মুজাদ্দিদ বসে বাবার সাথে মুক্তিযুদ্ধের গল্প করছিলাম, তখন তাঁর কাছে প্রশ্ন করি, ছয় দফার দাবীতে সত্তোরের পার্লামেন্ট নির্বাচনে লালচাচাজ্বি অর্থাৎ আমার বড়চাচা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক সৈয়দ আব্দুলহান্নান, যখন নির্বাচন করেন তখন তিনি কোথায় ছিলেন? তিনি বলেন, আমি তখন বাড়িতে ছিলাম। জানতে চাইলাম, এরপর কবে বাড়ি থেকে ইংল্যান্ড গিয়েছিলেন? তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের আগেই চলে গিয়েছিলাম।
মবনু : যুদ্ধের সময় আপনি ইংল্যান্ডে কোথায় ছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : আমি বলসলিথ ছিলাম। (বলসলিথ রোড, বার্মিংহাম)
মবনু : সেখানে পাকিস্তানীদের সাথে আপনাদের কি মারামারি হয়েছিলো?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হয়েছিলো। তখন আমরা স্মলহিথ পার্কে (বার্মিংহাম) বড় মিটিং করি। সেখানে আমাদের তিনি (তাঁরবড়ভাই সৈয়দ আব্দুররহমান) লিডার ছিলেন ।
মবনু : আপনি কি সেই মিটিং-এ ছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হ্যাঁ, আমরা ছিলাম। সেখানে কসম করলাম আর পাকিস্তানিদের দোকান থেকে বাজার করবোনা। তখন সবাই আমাকে কারীসাব ডাকতো। সবাই আমাকে মিটিং-এ বললো, কারীসাব! কালকে সকালে দোকান খুলবে।
মবনু : তখন আপনারা আর কী করলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : প্রথমে আমরা নামাজ পড়াকে পৃথক করলাম। বললাম আর পাকিস্তানি ইমামের পিছনে নামাজ পড়বোনা। আমরা কিডিমিনিস্টার থেকে পৃথক একজন বাঙালি ইমাম নিয়ে আসলাম।
মবনু : একাত্তরে যুদ্ধকালিন সময় বলসলিথে যে আপনাদের দোকান পাকিস্তানিরা জ্বালিয়েছিলো তা কিভাবে?
সৈয়দ আতাউর রহমান : রাতে হঠাৎ দেখি সমস্ত ঘরে শুধু ধোয়া আর ধোয়া। আমি তখন দ্বিতীয়তলায় থাকতাম, আব্দুস সামাদ (আমার ভাগনা), তুরাব বেটা (তুরাবআলী, যিনি তাঁর সম্পর্কে মামা) আর ওয়াছিল খাঁ (তাঁর সম্পর্কে মামা) ওরা উপরে থাকতেন। ঘরে ধোয়া দেখে গুড়াভাইসাবকে (সৈয়দ আব্দুর রহমান) ডেকে বললাম, ঘরে শুধু ধোয়া কেন? উঠে একটু দেখো। তিনি উঠে নিচে গেলেন। সেখানে কাউকে পাওয়া গেলোনা। অতঃপর পুলিশের কাছে ফোন দিলে পুলিশ আসে সাথে সাথে। তারা জানতে চায় আমাদের কারো উপর সন্দেহ কিনা? আমরা বললাম, সন্দেহ পাকিস্তানিদের উপর। তারা আমাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। তারা আমাদেরকে হিংসা করে। তারা অন্য পুলিশকে ইনফর্ম করে।
মবনু : শুনলাম এই ঘটনার জন্য আপনাকে টেলিভিশনে দেখানো হয়েছিলো? তখন তারা কী বলেছে?
সৈয়দ আতাউর রহমান : তখনও বাংলাদেশ হয়নি। টেলিভিশনে বলেছে, পাকিস্তানিরা নিজেদের মধ্যে ঝগড়া করে আগুন দিয়ে জ্বালানো চেষ্টাকরে। পুলিশ তখন ব্রেঞ্চিরনীচ থেকে পেট্রোলেরড্রাম বেরকরে।
মবনু : পেট্রোল দিয়ে কি আগুন ধরিয়ে ছিলো?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হ্যাঁ, পেট্রোলদিয়ে আগুন ধরিয়েছিলো।
মবনু : তখন কি এ ব্যাপারে কোনো মামলা-মোকাদ্দমা হয়েছিলো?
সৈয়দ আতাউর রহমান : সন্দেহে করে তুমি কার উপর মামলা করবে!
মবনু : যুদ্ধের সময়কার সুখ-দুঃখের আরও কোনো স্মৃতি বলুন।
সৈয়দ আতাউর রহমান : একদিন আমি কাঁদছিলাম দেখে আমার বড়ভাই বললেন, এখন কাঁদিস কেন? আমি উত্তর না দিয়ে কাঁদতে থাকি।
মবনু : কার জন্য কাঁদছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : মুজিবের জন্য।
মবনু : কেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : যেদিন তাঁকে পাঁচ’শ পাওয়ারের লাইট মাথার উপর দিলো আর কিছু দূর কবর খনন করে দেখিয়ে বললো, তুমি যদি আমাদের কথায় নাআসো তবে তোমাকেজিন্দা কবর দিয়ে দিবো। আর যদি আমাদের কথা মেনে নেওতবে দুই পাকিস্তানের সরকার প্রধান করে নেবো। সে বাপের বেটা ছিলো! বললো, আমি বাংলাদেশ চাই, পাকিস্তানও চাইনা। আমি আমার বাংলাদেশ দিলে বাড়িতেযাবো।
মবনু : এ দিনকিআপনি খুব কেঁদেছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হ্যাঁ, এদিন দেখে কেঁদে ছিলাম। আমি মুজিবের করুণ অবস্থা এবং সাহসী কথা বলা দেখে খুব কেঁদেছি।
মবনু : যুদ্ধ শুরু হওয়ার সংবাদ শুনে কি খুব চিন্তিত হয়েছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : (তিনি কাঁেদন) আমরা লালভাইসাবের (সৈয়দ আব্দুলহান্নান) চিঠি পেয়েছি। তিনি তখন অনেক কষ্ট করেছেন। আমাদের তেমন কোনোকষ্ট ছিলোনা। তিনি লিখেছেন, আমি তিনদিনের ক্ষুধার্ত থেকে তোমাদের কাছে পত্র লিখছি। (তিনি এবার হাউমউ করে কাঁেদন)। আমরাও চিঠি লিখলাম, আগে তো চিঠির প্রচলন ছিলো।
মবনু : সৈয়দপুরের কে কে ছিলোনযুদ্ধেরসময় স্বক্রিয়?
সৈয়দ আতাউর রহমান : কতো লোকই ছিলো।
মবনু : যাদেরপাকিস্তানিপাসপোর্ট ছিলো, তারাযুদ্ধেরপরপরইকিভাবে দেশে আসে?
সৈয়দ আতাউর রহমান : এক দল লোক আসতে পারেনি। তাদের পাসপোর্ট ছিলোনা। কেউ কেউ এসেছে পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিয়ে। বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশীপাসপোর্ট তৈরি করেছে।
মবনু : যুদ্ধেরকতোদিন পর দেশে এসেছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : নিয়াজির আত্মসমর্পনের খুব বেশি দিন পরে নয়।
মবনু : শুনলাম, যুদ্ধের পরে আপনি হজ্ব পালনের জন্য মক্কাশরিফে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ভারতের বোম্বাই হয়ে বাংলাদেশে এসেছেন। বোম্বাইয়ে কি প্লেন থেকে নেমেছিলেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হ্যাঁ, বোম্বাই তিনদিন থেকেছি।
মবনু : বোম্বাইর মানুষকি আপনাদেরকে আদর আপ্যায়ন করেছে?
সৈয়দ আতাউর রহমান : বোম্বাইয়ের লোক আমাদেরকে কী আদরআপ্যায়ন করবে! আমরা যখন বোম্বাই এয়র্পোট ছিলাম, তখন কিছু লোক এসে বললো বাংলাদেশী কারা আছেন এখানে? আমরা হাত উঠালে তারা বললো আমাদের সাথে চলে আসেন। আমরা গাড়ী দিয়ে আপনাদেরকে নিয়ে যেতে এসেছি। আমাদের শেঠ নির্দেশ দিয়েছেন, যতোজন বাংলাদেশী পাও নিয়ে এসো। আমরা তার সাথে চলে গেলাম। তখন বোম্বাইয়ে থাকতেন দক্ষিন সুরমার গ্লাসফ্যাক্টরির মালিক খলিল শেঠ। তিনি আমাদেরকে সেখানে মেহমান হিসাবে অনেক আদর করেন। তিনি বলেছেন, আপনারা চিন্তিত হবেন না। আমি যতোদিন আছি, ততোদিন আপনাদের কোনোচিন্তা নেই। কাল থেকে আপনাদেরকে একটি গাড়ী দিবো বোম্বাই শহর ঘুরে দেখার জন্য। সাথে ড্রাইভারও দিবো। আপনারা বোম্বাই ঘুরেঘুরে দেখবেন।
মবনু : গিয়েছিলেনকি?
সৈয়দ আতাউর রহমান : গিয়েছিলাম।
মবনু : বোম্বাই থেকে বাংলাদেশে কিভাবে আসেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : বোম্বাই থেকে আসি কলিকাতা। কলিকাতা থেকে প্লেনে আসি ঢাকা।
মবনু : ঢাকায় এসে কীঅবস্থা দেখেন?
সৈয়দ আতাউর রহমান : অবস্থা খারাপ। মানুষ নেই। কাকেরা কাকা করছে শুধু। আর সকলের কান্না দেখে… (এতটুকু বলে তিনিও কান্ন াকরেন)।
মবনু : পরে বাড়িতে গেলেন কিভাবে?
সৈয়দ আতাউর রহমান : ঢাকা থেকে ট্রেনে সিলেট এসে বাড়িতে যাই।
মবনু : পথে যেতে যেতে বাংলাদেশের যে অবস্থা দেখলেন, তাতে খুব খারাপ লাগছিলো কি?
সৈয়দ আতাউর রহমান : হ্যাঁ।

এতটুকু বলে তিনি অনেকটা বাকরুদ্ধ হয়ে যান। আর কথা বলতে চান না। চোখ দিয়ে জল গড়িয়ে পরে। দীর্ঘ শ^াস নিতে থাকেন। আমরা বুঝতে পারি তিনি অস্থির হয়ে উঠেছেন একাত্তরের দৃশ্যের প্রেক্ষাপটে।

এই সংবাদটি 39 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com