সিলেটের কৃতিসন্তান প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি মাহমুদুল আমীন চৌধুরী’র ইন্তেকাল

প্রকাশিত: ৯:১০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২২, ২০১৯

সিলেটের কৃতিসন্তান প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি মাহমুদুল আমীন চৌধুরী’র ইন্তেকাল

ডেস্করিপোর্ট: সিলেটের কৃতিসন্তান প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি মাহমুদুল আমীন চৌধুরী ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নাহিল্লাহী….রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮১ বছর।

তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে গেছেন।

আজ বিকালে অসুস্থতা অনুভব করলে তাঁকে ধানমণ্ডিস্থ বাসা থেকে ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সন্ধ্যার পর তিনি সেখানেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

তাঁর মরদেহ সিলেট রায়নগরস্থ বাসভবনে আনা হবে এবং সিলেট দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে।

প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি মাহমুদুল আমীন চৌধুরী ১৯৩৭ সালের ১৮ জুন জন্মগ্রহণ করেন। পৈতৃক নিবাস সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলার রনকেলী গ্রামে। তাঁর পিতা মরহুম আব্দুল গফুর চৌধুরী ছিলেন সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।
তিনি সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয় হতে মেট্রিক, এমসি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। এরপর তিনি ঢাকা সিটি ল’ কলেজ হতে এলএলবি ডিগ্রি লাভের পর শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি টানেন।

১৯৬৩ সালে তিনি আইনজীবি হিসেবে সিলেট জেলা বারে যোগদান করেন। প্রায় ১২ বছরের ওকালতি জীবনের কয়েক বছরেই তিনি সহকারী সরকারি উকিল হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। ১৯৭৫ সালের জানুযারী মাসে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ হিসেবে সরাসির নিয়োগ লাভ করেন। অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ হিসেবে খুলনায় দায়িত্ব পালনকালে সরকার ১৯৭৯ সালে জেলা জজ পদমর্যাদায় পদোন্নতি প্রদান করা হয়। পরে তাঁকে নবগঠিত জামালপুর জেলার প্রথম জেলা দায়রা জজ নিয়োগ করা হয়। দীর্ঘ চাকরি জীবনে তিনি ঢাকা, জামালপুর, ফরিদপুর ও চট্টগ্রামের জেলা ও দায়রা জজ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। চট্টগ্রামে কমর্রত থাকা অবস্থায় ১৯৮৭ সালের ২৭ জানুয়ারি তিনি হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। ১৯৯৯ সালের জুন মাসে সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের বিচারপতি হিসেবে তিনি শপথ গ্রহণ করেন।

বিচারপতি মাহমুদুল আমীন চৌধুরী ছাত্রজীবনে একজন ক্রীড়াাবিদ হিসেবেও সাফল্য অর্জন করেন। সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থায় ক্রিকেট সাব-কমিটির সদস্য ও পরে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি একজন দক্ষ শুটারও ছিলেন। সিলেট রাইফেল ক্লাবের একজন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে এর নির্বাহী কমিটির সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৩ সালে মেঘালয়ের রাজধানী শিলং এবং আসামের শিলচর শহরে সিলেট জেলা ফুটবল একাদশের সফরকালে তিনি মিশন প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। সিলেট আইন কলেজ প্রতিষ্ঠায় তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও অবদান রাখেন। তিনি সরকারি ও ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সফর করেন এবঙ ১৯৮৬ সালে তিনি চীনের বেইজিং এ অনুষ্ঠিত ওয়াল্ড ইন্টেলেকচুয়াল প্রপ্রার্টিজ অর্গানাইজেশন অয়োজিত তিন সপ্তাহব্যাপী একটি সেমিনারে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। কর্মময় জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকারী মাহমুদুল আমীন ২০০১ সালের ১ মার্চ দেশের প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। ২০০২ সালের ১৮ জুন প্রধান বিচারপতি হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।

বিচারপতি চৌধুরী ২০০২ সালে ফিলিপাইনের সুপ্রীম কোর্টের আমন্ত্রণে তাদের শতবর্ষ পালন উৎসবে অংশগ্রহণ করেন। ঐ বছরই তিনি নিউজিল্যান্ড এ অনুষ্ঠিত এশিয়া পেসিপফক এলাকার প্রধান বিচারপতিদের সম্মেলনে যোগদান করেন এবং বিচারপতি চৌধুরী তার কার্যকালে রাশিয়ার সেন্টপিটার্স বার্গে অনুষ্ঠিত আইন সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। বিশ্ব জুরিষ্ঠ এসোসিয়েশনের আমন্ত্রণে স্পেসনর মাদ্রিদে অনুসষ্ঠত সন্ত্রাসবিরোধী সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন। ঐ সময় বিচারপতি চৌধুরীকে উক্ত এসোসিয়েশনের আজীবন সদস্য হিসেবে নিয়োগ দান করে সম্মানিত করে।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি একজন ধার্মিক, নির্ভীক, সত্যনিষ্ঠ ও সদালাপী লোক। বিচারপতি চৌধুরীর স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা এবং এক ছেলে দুই মেয়ে নিয়ে তার সুখের সংসার।

এই সংবাদটি 32 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com