শতাব্দীর সোনালী মিনার: জামেয়া রেঙ্গা

প্রকাশিত: ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৯

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী ::বাংলাদেশে ইসলামের আগমন হয়েছে খোদ হযরত রাসূলে করীম সাল্লাল্লাহুআলাইহে ওয়া সাল্লামের জীবৎকালেই। প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আবূ ওয়াক্কাসের (রা)এর নেতৃত্বে ক’জন সাহাবী বাদশা নাজ্জাসীর দেয়া জাহাজে মহানবী স. এর হিজরতের পূর্বেই চীনের পথে রওয়ানা হয়েছিলেন। হযরত আবু ওয়াক্কাসের রা. মাজার এখনো চীনের ক্যাপ্টন বন্দরের নিকট তাঁরই প্রতিষ্ঠিত কোয়াংটা মসজিদের অদূরে অবস্থিত। এ ধরণের যাত্রাকালে যে বাংলাদেশের সাথে ও সে যুগের ইসলাম প্রচারক ও ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ ঘটেছিল, তা সহজেই অনুমেয়।
লালমনিরহাট জেলায় একটি প্রাচীন মসজিদের সন্ধান পাওয়া গিয়াছে যার উৎস্কীর্ণ লিপিতে ৬৯ হিজরীতে এটি নির্মিত বলে উল্লেখ করা হয়। এর দ্বারা বুঝা যায় উমাইয়া আমলে নির্মিত এটি প্রাচীন মসজিদ। এমনিভাবে পরবর্তীতে হযরত শাহ্ সুলতান কমরুদ্দীন রুমী (তার আগমন ৪৪৫ হি., মোতাবিক ১০৫৩ খৃ) প্রথমে চট্রগ্রামে আগমন করেন। অত:পর মেঘনা ও ব্রক্ষ্মপুত্র হয়ে বর্তমান নেত্রকোণার জেলার মদনপুরে কোচরাজার রাজ্যে ইসলাম প্রচার করেন। একই ভাবে শাহ্ মাখদুম রাজশাহীতে, ফরীদুদ্দীন শখরগঞ্জ (মৃ. ১২৬৯ খ্রি.),ফরিদপুর জেলায়, হযরত শাহ জালাল (র) সিলেটে ইসলাম প্রচার করেন।
সিলেট শহরে সর্বপ্রথম হযরত শাহজালাল (রঃ) এর আদেশে সৈয়দ নাসিরুদ্দিন সিপাহসালার আজান দেন। এভাবেই মুলত সিলেটে ইসলামের আগমন। পরবর্তীতে প্রচলিত মাদরাসা শিক্ষার ব্যাপক বিস্তারহয় ১৮৬৬ সালে দারুল উলুম দেওবন্দ মাদরাসা প্রতিষ্ঠার পরে। এক্ষেত্রে আসাম-সিলেট অনচলে সবচাইতে বেশি ভূমিকা পালন করেন দেওবন্দ অনুসারী উলামায়ে কেরাম বিশেষ করে ভারত বিখ্যাত সংগ্রামী আলেম মাওলানা সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র)। আমাদের আলোচ্য জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা এই দেওবন্দি সিলসিলারই একটি অন্যতম প্রতিষ্ঠান। যা একশত বছর অতিক্রম করতে যাচ্ছে।
নিসন্ধেহে এই জামেয়া ’শতাদ্বীর সোনালী মিনার’।
অবস্থান: বাংলার আধ্যাত্মিক রাজধানী খ্যাত সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ও মোগলা বাজার থানায় অবস্থিত শতাব্দীপ্রাচীন ঐতিহ্যবাহী দ্বীনী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা ১৯১৯ ঈসায়ি, মোতাবিক ১৩৩৭ হিজরি সনে প্রতিষ্ঠালাভ করে।
প্রতিষ্ঠাতা: শায়েখ মাওলানা আরকান আলী রহ.। রূপকার : বিশিষ্ট তাফসির বিশারদ,খলিফায়ে সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানি রহ. মাওলানা বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা রহ.। বিভাগীয় শহর সিলেট থেকে প্রায় ১৩ কি.মি. দূরত্বে রেলপথ ও বিশ্বরোড সংলগ্ন ঐতিহ্যবাহী রেঙ্গা এলাকা। মাদরাসার উত্তরে মোগলা বাজার ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ভবন, দক্ষিণে হাজীগঞ্জ বাজার ও কুশিয়ারা নদী, উত্তর-পূর্ব কোণে দাউদপুর ইউনিয়ন এবং পশ্চিমে জালালপুর ইউনিয়ন ও গহরপুর মাদরাসা অবস্থিত।
হযরত শায়খে রেঙ্গা রাহ. ও এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় ১৩৮৮ হিজরি সনে দাওরায়ে হাদীস তথা টাইটেল ক্লাসের শুভ উদ্ভোধন করেন। প্রথম শায়খুল হাদীস হিসেবে আল্লামা কমরুদ্দীন রাহ. কে নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি নিষ্টার সাথে প্রায় দু’বছর যাবত এ দায়িত্ব পালন করেন। অতঃপর দ্বিতীয় শায়খুল হাদিস হিসেবে শায়খে কৌড়িয়া রাহ.’র খলীফা উস্তাযুল আসাতিযা মাওলানা শিহাব উদ্দিন (র)কে। তিনি ১৩৯০ হিজরি থেকে মৃত্যুপর্যন্ত প্রায় ৫০ বছর যাবত এ গুরু দায়িত্ব আনজাম দিয়ে যান। চলতি বছর মাওলানা শিহাব উদ্দিন ইন্তেকাল করলে খলিফায়ে শায়খে রেঙ্গা (র) আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীকে শায়খুল হাদীস মনোনীত করে জামেয়া কর্তৃপক্ষ। তাকমীল ফিল হাদীসে প্রায় দু’শ জন শির্ক্ষাথী। দারুল ইক্বামায় অবস্থান করছেন বর্তমানে প্রায় ৫০০ জনের উপরে। সর্বমোট শির্ক্ষাথী প্রায় ১৫শ জন। ৪০জন সুদক্ষ শিক্ষকমন্ডলীর মাধ্যমে ছাত্রদেরকে দারস প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়াও ৭ জন কর্মচারি জামেয়ার খেদমতে নিয়োজিত আছেন।
১৩৮৮ হিজরী থেকে শুরু করে ১৪৩৭ হিজরী অবধি প্রায় দু’হাজার মাওলানা হয়েছেন। এসব আলেম-উলামা জামেয়া থেকে ফারিগ হয়ে স্বদেশসহ বহির্বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে দ্বীন ইসলামের বহুমুখী খিদমাত আনজাম দিয়ে যাচ্ছেন। সূচনালগ্ন থেকেই জামেয়া কৃতিত্বের সাথে কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় সম্মানজনক স্থান লাভ করতঃ ভালো ফলাফল করে আসছে। সর্বদিক বিবেচনায় এ জামেয়া আলেম-উলামা ও সূধী মহলের কাছে সমাদৃত।
বর্তমান মুহতামিম: জামেয়ার স্থপতি হযরত মাওলানা শায়খ আরকান আলী রাহ. ১৯১৯ ঈসায়ি সনে প্রথম মুহতামিম নিযুক্ত হন। দ্বিতীয় মুহতামিম হিসেবে হযরত মাওলানা বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা রাহ. দায়িত্ব পালন করেন এবং প্রথম নায়েবে মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব আনজাম দেন হযরত মাওলানা সিকন্দর আলী রাহ.। অতঃপর শায়খে রেঙ্গা রাহ. যখন বৃদ্ধ হয়ে পড়েন, তখন মাদরাসার এহতেমামের দায়িত্ব আনজাম দেয়ার লক্ষে হযরত মাওলানা শামছুল ইসলাম খলীল সাহেবকে নিযুক্ত করা হয়। তিনি ১৯৭৭ ঈসায়ী সন থেকে শুরু করে ২০১২ ইং পর্যন্ত মোট ৩৫ বছর এ গুরু দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেন। তিনি মাযূর হয়ে পড়লে এলাকাবাসীর পরার্মশের ভিত্তিতে সাহেবজাদায়ে হযরত শায়খে রেঙ্গা রাহ. মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান সাহেবকে মুহতামিম হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। বর্তমানে তিনি দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। যদিও কাগজে পত্রে এখনো শামসুল ইসলাম সাহেবের নাম লেখা হয়। এটা মুলত মাওলানা বুরহান সাহেবের উদারতার বহি:প্রকাশ। তিনি নিজেই কাজ করেন কিন্তু নিজের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক।
শায়খে রেঙ্গা রাহ.:
প্রখ্যাত বুর্যুগ আলেম মাওলানা বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা (র)। ১লা বৈশাখ ১৩১৯ বাংলা রোজ শুক্রবার সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা থানাধীন হরিনাথপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মাওলানা আরকান আলী রাহ.। পিতা ছিলেন একজন বিশিষ্ট আলেম ও মাদরজাত ওলী। মাতাও ছিলেন খোদাভীরু ও পর্দানশীল মহিলা।
শায়খে রেঙ্গা পিতা মাতার কাছ থেকে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। পরে স্থানীয় কান্দিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেওয়া হয়। অতঃপর মাধ্যমিক শিক্ষা নিজ পিতা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়ায় অর্জন শেষে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার জন্য সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন। সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা থেকে দরজায়ে ফজিলতে ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। এরপর তিনি উপমহাদেশের ইলমে নববীর প্রাণকেন্দ্র দারুল উলূম দেওবন্দের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। সেখানে দুই বছর যাবত ইলমে হাদীস, তাফসীর ও আত্মশুদ্ধি অর্জন করেন। সেখানেও তিনি প্রখর মেধা ও চারিত্রিক মাধূর্যতায় নিজের স্থান করে নেন। দেওবন্দে শায়খুল ইসলাম মাওলানা সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী রাহ. ছাত্রদেরকে বায়আত করতেন না, সে জন্য শায়খে রেঙ্গা রা. দেওবন্দে দাওরায়ে হাদীস সমাপ্ত করে ১ বছর ইলমে তাফসীর পড়েন এবং মাওলানা আশরাফ আলী থানভী রাহ. এর হাতে বায়াতের মনস্থ করেন। এক রাতে তিনি স্বপ্নে দেখেন নবী সা. তাঁকে নির্দেশ করছেন মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী রাহ.’র কাছে বায়আত হওয়ার জন্য। তিনি মাদানী রাহ.’র কাছে বায়আত হন । দেওবন্দ থেকে ফেরার পর স্বীয় পিতা কর্তৃক প্রতিষ্ঠত জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়ার দায়িত্ব হাতে নেন এবং জামেয়ার উন্নয়ন কাজ শুরু করেন। এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগীতায় অল্প দিনের মধ্যেই জামেয়া তারাক্কীর পথে অগ্রসর হয়।
মাদরাসার কাজ চলতে থাকে মনোরম পরিবেশে। বাড়তে থাকে মাদরাসার ছাত্র সংখ্যা। ১৯৬৭ সালে চালু করেন দাওরায়ে হাদীস।
মুত্যৃ: ১৯ চৈত্র ১৩৯১ বাংলা। ২ এপ্রিল ১৯৮৫ ঈসায়ী, রোজ মঙ্গলবার, দুপুর ১২ ঘটিকায় এই মহা-মনীষী যিকির করতে করতে প্রিয় মাওলার সাথে মোলাকাত করেন। ইন্নালিল্লাহি—–রাজিউন। জামেয়া প্রাঙ্গণেই তিনি চির নিদ্রায় শায়িত আছেন।

শায়খুল হাদীস শিহাবুদ্দীন (র)
১৯৪৮ ঈসায়ী সনের ১২ আগষ্ট তিনি সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার বড়চতুল ইউনিয়নের পর্বতপুর (নয়াফৌদ) গ্রামের এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মাওলানা ক্বারী নেসার আলী (র) দারুল উলুম দেওবন্দে উচ্চাশিক্ষা লাব করেন। তিনি হাকিমুল উম্মাত মাওলানা আশরাফ আলী থানবী (র) এর নিকট বায়াত ছিলেন।
মৃত্যু: মাওলানা শিহাবদ্দীন (র) ২৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী মোতাবেক ৩১ ২০১৯ ঈসায়ী রোজ শুক্রবার রাতে তিনি ইন্তেকাল করেন। আল্লাহপাক হযরতকে জান্নাতের উচুঁমাক্বাম দান করুন।

শতবর্ষপূর্তি ও দস্তারবন্দী মহাসম্মেলন :
২৫, ২৬ ও ২৭ ডিসেম্বর শুরু হচ্ছে জামেয়ার শতবার্ষিকী ও দস্তারবন্দী মহাসম্মেলন। সম্মেলনকে সফল করার লক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। সম্মেলনকে ঘিরে এলাকায় ব্যাপক সাড়া জেগেছে। মাদরাসা সংলগ্ন মাঠে বিশাল প্যান্ডেলে তৈরী করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সম্মেলনে লক্ষাধিক মুসল্লির সমাগম ঘটবে। মাদরাসার প্রবেশের মূল সড়ক ছাড়াও প্যান্ডেলে প্রবেশের জন্য বিকল্প সড়কে দু’টি বাঁশের সেতু তৈরী করা হয়েছে। মাদরাসার পুকুর ছাড়াও বাইরে ওজুর ব্যবস্থা থাকছে।
শতবর্ষ পূর্তি সম্মেলনে এই মাদরাসা থেকে পাশ করা ৪ হাজার ‘মাওলানা’ ও ‘হাফেজ’কে সম্মানসূচক পাগড়ি প্রদান করা হবে। ইতিমধ্যে ভারত, ইংল্যান্ড, আফ্রিকা ও ইউরোপ থেকে অনেক অতিথি বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছেন। প্রথম দিন বুধবার ও বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত এবং ৩য় অর্থাৎ শেষ দিন ২৭ ডিসেম্বর শুক্রবার বেরা ১১টা থেকে পরেদিন বাদ ফজর দোয়া মাধ্যমে ৩ দিনব্যাপী সম্মেলন সমাপ্ত হবে।
সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে তাওয়াক্কুলিয়া ফুযালা ও আবনা পরিষদের সভাপতি ও মাদরাসার খাদিম মাওলানা শামছুল ইসলাম খলিল, সেক্রেটারী হাফিজ মাওলানা নুরুল ইসলাম দায়িত্ব পালন করছেন।
মহাসম্মেলন বাস্তবায়নে মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহানকে সভাপতি ও মাওলানা হাফিজ ফখরুল আহমদকে সাধারণ সম্পাদক করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট মহাসম্মেলন ইন্তেজামিয়া কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও ১৮টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি দায়িত্বপ্রাপ্তরা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। দরস্তাবন্দী সম্মেলন উপলক্ষে এক হাজার পৃষ্ঠার স্মারক গ্রন্থ প্রকাশ করা হবে। উক্ত স্মারকে মহামান্য রাষ্ট্রপ্রতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের বাণী রয়েছে।
বিভিন্ন অধিবেশনে সভাপতিত্ব করবেন:
খলিফায়ে মাদানী আল্লামা আবদুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী, আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, আল্লামা মুক্বাদ্দাস আলী জকিগঞ্জী, আল্লামা খলিলুর রহমান হামিদী বরুনী, আল্লামা আলীমুদ্দীন দূর্লভপুরী, শায়খ মুহাম্মাদ বিন ইদ্রিস লক্ষীপুরী, শায়খ শামসুল ইসলাম খলীল রেঙ্গা, শায়খ জিয়া উদ্দীন আঙ্গুরা, শায়খ মুখলিছুর রহমান কিয়ামপুরী, শায়খ আবদুশ শহীদ গলমুকাপনী, মুফতি গোলাম মোস্তফা এলাহিগঞ্জী, মুফতি মুজিবুর রহমান, আঙ্গুরা, শায়খ এজাজ আহমদ শেওলা, মুফতি শফিকুল হক সুরইঘাটি, শায়খ শফিকুল আহাদ দিরাই, শায়খ আবদুল হাই সৈয়দপুর, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, লাফনাউট, মুফতি ওলীউর রহমান সিলেট প্রমুখ।
বিদেশী মেহমান :
আল্লামা সাইদ আহমদ পালনপুরী, দেওবন্দ ভারত, আল্লামা আশহাদ রশিদী, দেওবন্দ ভারত, আল্লামা হাবীবুর রহমান খয়রাবাদী, দেওবন্দ ভারত, আল্লামা সাইয়িদ আসজাদ মাদানী, ভারত, আল্লামা নাসিম আহমদ বারকানভী, ভারত, আল্লামা শায়খ মানসুর বিন মুহাম্মদ মাকিনী, সৌদিআরব, আল্লামা সিদ্দিকুল্লাহ, পশ্চিমবঙ্গ ভারত, মুফতি রাশেদ আযমী, দেওবন্দ, মাওলানা হিব্বুর রাসুল উসামা, আসাম, মাওলানা ইশতিয়াক আহমদ, দেওবন্দ, আল্লামা বিলাল বাওয়া, লন্ডন, মাওলানা ইউসুফ আলী, আসাম, ভারত, আল্লামা আশরাফ মাকদাম, লন্ডন, শায়খ আবদুর রহীম লিমবাদা, লন্ডন, শায়খ মাহমুদুল হাসান লন্ডন প্রমুখ।
বয়ান করবেন:
শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী, হাটহাজারী, আল্লামা আশরাফ আলী, ঢাকা, আল্লামা মাহমুদুল হাসান, যাত্রাবাড়, আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী, আল্লামা নুর হুসাইন কাসিমী, মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী, আল্লামা আবদুল মালিক, মারকাযুদ্দাওয়া, ঢাকা, মুফতি মুহাম্মাদ ওয়াক্কাস, মাওলানা সালাহুদ্দীন নানুপুরী, আল্লামা শেখ আহমদ, হাটহাজারী, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, ঢাকা, আল্লামা আবু তাহের নদভী, মাওলানা মাহ্ফুজুল হক, জামেয়া রাহমানিয়া, ঢাকা, মুফতি দেলোয়ার হুসাইন, ঢাকা, মুফতি মুশতাক্বুন্নবী, কুমিল্লা, শায়খ আবদুল মতিন বিন হুসাইন, ঢালকানগরী, মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারী, মাওলানা মনজুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওলানা মামুনুল হক, ঢাকা, মুফতি শামসুদ্দিন জিয়া, পটিয়া, মাওলানা হিফজুর রহমান, ঢাকা, আল্লামা শাহ মুহাম্মাদ তৈয়ব, জিরি, চট্টগ্রাম, প্রফেসর শায়খ হামিদুর রহমান, ঢাকা, মাওলানা ড. মুস্তাক আহমদ, ঢাকা, অধ্যক্ষ শায়খ মিজানুর রহমান, কাপাশিয়া, ঢাকা, মুফতি শফিকুল ইসলাম, সাইনবোর্ড, ঢাকা, শায়খ শফিকুর রহমান জালাবাদী, কিশোরগঞ্জ, মুফতি মিজানুর রহমান সাইদ, ঢাকা, মাওলানা আযহার আলী আলোয়ার শাহ, কিশোরগঞ্জ, মুফতি আবুল বাশার সাইফুল ইসলাম, ঢাকা, মুফতি মুজিবুর রহমান, চাঁদপুর।
মাওলানা আ ফ ম খালিদ হুসাইন, চট্টগ্রাম, মুফতি রশিদুর রহমান ফারুক, বরুণী, শায়খ নুরুল ইসলাম খান, সুনামগঞ্জী, মাওলানা সাজিদুর রহমান, বি বাড়ীয়া, মাওলানা জুবায়ের আহমদ চৌধুরী ইন্দেশ্বরী, বেফাক, শায়খ আসগর হুসাইন সুনামগঞ্জী, (লন্ডন), মাওলানা ফজলুর রহমান, বানিয়াচঙ্গী, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, ফরিদাবাদ, ঢাকা, মাওলানা আবু সাবের আবদুল্লাহ, ঢাকা, মুফতি মোবারক উল্লাহ, বি-বাড়ীয়া।
মাওলানা হাসান জামিল, ঢাকা, মাওলানা আহমদ মায়মুন, ঢাকা, মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদ, ঢাকা, মাওলানা যিকরুল্লাহ খান, ঢাকা, মাওলানা আরশাদ রাহমানী, ঢাকা, মাওলানা মুস্তাক আহমদ খান, সিলেট। মাওলানা হারুনুর রশীদ কানাইঘাটি, মাওলানা সিবগাতুল্লাহ নূরী, মাওলানা তাহমীদুল মাওলা, মুফতি লুৎফর রহমান ফরায়েযী, মাওলানা আতাউল হক জালাবাদী, মুফতি সাখাওয়াত হুসাইন রাজি, লালবাগ, ঢাকা, মাওলানা শুয়াইব আহমদ, মুফতি আব্দুল মুনতাকিম, জকিগঞ্জ (লন্ডন), মুফতি নোমান কাসিমী, ঢাকা, মাওলানা তাফহীমুল হক হবিগঞ্জী প্রমুখ।
আমন্ত্রিত উলামায়ে কেরাম :
শায়খ নাযীর হুসাইন প্রথমপাশী, শায়খ মাসউদ আহমাদ গলমুকাপন, শায়খ আবদুল মুছাব্বির দেউলগ্রাম, শায়খ আবদুল হক লক্ষীপাশী, শায়খ মুশাহিদ আলী দয়ামীর, মুফতি লুৎফুর রহমান কাসিমী, শায়খ আউলিয়া হুসাইন রামধা, মাওলানা শুয়াইব আলী কটারকুনী, মুফতি জালালুদ্দিন মুরাদগঞ্জ, মাওলানা সালেহ আহমদ জকিগঞ্জ, মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া আরজাদাবাদ, শায়খ আবদুস সালাম বাগরখলী, শায়খ আনোয়ারুল হক চৌধুরী, মাওলানা হুসাইন আহমদ বিশ্বনাথ, শায়খ আবদুল বারী ধর্মপুরী, শায়খ আবদুল মালিক রুপসপুরী, মাওলানা ক্বারী ইমদাদুল্লাহ কাতিয়া, মাওলানা হেলাল আহমদ হরিপুর, মাওলানা সৈয়দ মাসউদ আহমাদ মৌলভীবাজার, শায়খ মুনীরুদ্দীন বাহুবল, শায়খ মুজিবুর রহমান নয়াসড়ক।
শায়খ মকবুল হুসাইন আসগরী, মাওলানা গোলাম মুহিউদ্দীন ইকরাম ঢাকা, মাওলানা মুজিবুর রহমান দারুল হুদা সিলেট, শায়খ ইউসুফ আহমদ হরিপুর, মাওলানা ফুরকানুল্লাহ খলীল দারুল মাআরিফ চট্টগ্রাম, মাওলানা সৈয়দ ফখরুল ইসলাম সৈয়দপুর, মাওলানা আবদুল বছির সুনামগঞ্জ, মাওলানা সালেহ মুহাম্মদ জাকারিয়া ঢাকাদক্ষিণ, মাওলানা হাবীবে রাব্বানী চৌধুরী তালবাড়ী, মাওলানা আবদুল হান্নান গনেশপুরী, মাওলানা আবদুল মতিন ধনপুরী, মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, মাওলানা মুহাম্মদ ইসমাঈল ঢাকা, মাওলানা আতিউর রহমান ঢাকা, শায়খ সা’দুদ্দীন ভাদেশ্বরী, মাওলানা লুকমান আহমদ টিকরপাড়া, মাওলানা আতাউর রহমান রায়ধর, মাওলানা সৈয়দ শামীম আহমদ, মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু গহরপুর, মুফতি ফজলুল হক মাদানীনগর, মাওলানা আবদুল হক হক্কানী বগুড়া, মাওলানা আবদুল হাফিজ শাহবাগ, মাওলানা আবদুল মালিক মোবারকপুরী, মাওলানা আবুল বশর রফিক ছাতক, এড. মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী, মুফতি রেজাউল করীম কাসিমী, ক্বারী মাওলানা শায়খ আহমদ হাসান লন্ডন, ক্বারী মাওলানা নাজমুল হাসান ঢাকা, ক্বারী এ কে মনজুর প্রমুখ।
রাষ্ট্রীয় মেহমান :
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, ধর্মপ্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফি আহমদ চৌধুরীসহ সামাজিক, রাজনৈতিক ও প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

এই সংবাদটি 92 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com