রেঙ্গার সম্মেলন নিয়ে ফেসবুকে ঝড়!

প্রকাশিত: ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৯

সিলেট রিপোর্ট: গতকাল শুক্রবার (২৭ ডিসেম্বর) সিলেটের দক্ষিণ সুরমার জামেয়া তাউয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার শতর্বষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহসহ দেশ-বিদেশের অর্ধশত বিশিষ্ট আলেম বক্তৃতা করেন। তবে দেশের র্শীষ আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফী, হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী, মাৌলানা নুরুল ইসলাম অলিপুরী আসার কথা থাকলে ো তারা আসেননি।
বুধবার বাদ জুহর থেকে শুক্রবার রাত ব্যাপি দস্তারবন্দী মহাসম্মেলন বিভিন্ন অধিবেশনে সমাপ্ত। শেষ দিনের অধিবেশন নিয়ে অনলাইনে নানা জনের নানা মতব্যক্ত করতে দেখা গেছে। গতরাত থেকে রীতিমতো ফেসবুকে সম্মেননের নানা বিষয় নিয়ে জড় উঠেছে। এবিষয়ে সৈয়দ মবনু নামের একটি আইডি থেকে প্রথমে লেখার সুত্রপাত বলে জানাগেছে।
এখানে ফেসবুক থেকে কয়েকটি মন্তব্য পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলো:
শায়খুল হাদিস মাওলানা নুরুল ইসলাম খানের মতো একজন পন্ডিতের অপমানে অপমানিত হলাম

সৈয়দ মবনু
————
জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গা সিলেটের তিনদিন ব্যাপী শতবার্ষিকী ও দস্তারবন্দী সম্মেলনের দ্বিতীয়দিন ছিলাম। তৃতীয়দিন যাবো কি না ভাবছি। হঠাৎ মনে হলো সায়রা অপেক্ষা করবে। তাদের বাড়িতে আজ রাতে ভাত খাওয়ার কথা। দৈনিক সিলেট ডাকের সাহিত্য সম্পাদক ফায়যুর রহমান এবং দৈনিক মিররের ষ্টাফ নাওয়াজ মারজানকে সাথে নিয়ে এশার সময় গিয়ে উপস্থিত হই রেঙ্গা মাদরাসায়। মাদরাসার মাঠে গাড়ি থামাতেই আমার ছেলে মুজাদ্দিদ বললো, বাবা সায়রা ফুফি আপনার অপেক্ষা করছেন। আমি ফায়যুর এবং মারজান চলে যাই সায়রাদের বাড়ি মাহমুদাবাদে। সেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষে ফিরে আসি মাদরাসা মাঠে। মারজানের অফিস আছে, সে চলে আসে সিলেট। আমি আর ফায়যুর হাটতে হাটতে চলে যাই মঞ্চের পিছনে। তখন বক্তব্য রাখছিলেন লন্ডনের ড. মাহমুদুল হাসান। পরে একজন উর্দুভাষি বক্তব্য রাখেন। অতঃপর দেওয়া হয় শায়খুল হাদিস মাওলানা নুরুল ইসলাম খানকে। খান সাহেব একজন ভদ্র এবং পন্ডিতে লোক। মনে মনে ভাবছিলাম এই মূর্খ ওয়ায়িজ আর শ্রোতাদের রমরমা যুগে খান সাহেবের মতো পন্ডিতদের ওয়াজ শোনবে কে? একটু নিরবে খান সাহেবের কথা শোনছিলাম। তিনি আল্লামা কাসেম নানতুভী ও দেওবন্দ-এর গৌরবের কথা বলছিলেন। এই সময় এসে উপস্থিত হলেন হাফেজ মাওলানা মামুনুল হক। মামুনুল হক আমার কাছে ছোটবেলা থেকেই প্রিয়, কারণ সে আমার অত্যন্ত প্রিয় ব্যক্তিত্ব শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (র.)-এর ছেলে। সে বর্তমান আরও ওয়ায়িজদের মধ্যে বেশ জানাশোনাও বটে। কওমী মাদরাসার তরুণ ছাত্রদের মধ্যে তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। তবে জ্ঞানে, প্রজ্ঞায়, বুজুর্গিতে এবং বয়সে সে অবশ্যই শায়খুল হাদিস আল্লামা নুরুল ইসলাম খানের সমতুল্য নয়। আশা করি আমার একথার সাথে স্বয়ং মাওলানা মামুনুল হকও সহমতে আছেন।

আমার কষ্ট লাগে মামুনুল হক যখন মঞ্চে আসেন তখন মানুষগুলো এভাবে পাগল হলো যে বুঝতেই পারলো না তাদের পাগলামী যে একজন পন্ডিত বুজুর্গের মন ভেঙে দিতে পারে এবং তা আদবের খেলাফ। খান সাহেব হৈচৈ এর কারণে আর বক্তব্যই দিতে পারলেন না। তিনি এক প্রকার অপ্রস্তুতভাবেই মঞ্চ থেকে নেমে নিজ গাড়ি দিয়ে মাঠ ত্যাগ করেন। তিনি যখন আমাদের সামন দিয়ে যাচ্ছিলেন তখন তাঁর চেহরায় বেশ কষ্টের দাগ স্পষ্ট দেখা গেলো। খুব কষ্ট লাগলো একজন পন্ডিতের অপমান দেখে। আর মাঠে থাকতে ইচ্ছে হলো না।

আমি কর্তৃপক্ষ কিংবা মামুনুল হককে দোষ দিচ্ছি না। আমি ভাবছিলাম ওয়াজ মাহফিলগুলোর চরিত্র পরিবর্তনের চিত্র দেখে। আমার মনে প্রশ্ন জাগে ওয়াজ মাহফিলে মানুষ কেন যায়; ইসলাহের জন্য না গর্জন বা সুর শোনার জন্য? শ্রোতাদের মধ্যে তো বেশিরভাগই ছিলো বিভিন্ন মাদরাসার ছাত্র। মাদরাসার ছাত্ররা যদি এই বিষয় অনুভব করতে ব্যর্থ হয় তবে আর কে অনুভব করবে? ঘটনার প্রেক্ষাপটে একটি কেচ্ছা বলতে ইচ্ছে হচ্ছে;

গাধা হরিণকে বললো; দেখ ঘাস কেমন হলুদ দেখাচ্ছে। হরিণ বললো, হলুদ নয়, ঘাস সবুজ। এনিয়ে গাধা এবং হরিণের মধ্যে ঝগড়া হলে সিংহ বিচারের আসনে বসে। বিস্তারিত শোনে সিংহ গাধাকে কিছু উপহার দিয়ে বিদায় দিলো এবং হরিণকে এক মাসের শাস্তি দিলো। এক মাস পর হরিণ মুক্ত হয়ে সিংহকে বললো, বাদশা নামদার আপনি যে আমাকে শাস্তি দিলেন তাতে কোন দুঃখ নেই কিন্তু একটি প্রশ্ন আপনিও কি গাধার মতো মনে করেন ঘাসের রঙ হলুদ। সিংহ বললো, দুর পাগল, ঘাস তো সবুজই। আমি তকে এই ভুলের জন্য শাস্তি দেই নি। আমি শাস্তি দিয়েছি গাধার সাথে তর্ক করার জন্য।

শায়খুল হাদিস নুরুল ইসলাম খান যখন মঞ্চ ছেড়ে যাচ্ছিলেন তখন খুব ইচ্ছে হয় তাঁর কাছে গিয়ে বলি; আপনার মতো পন্ডিত আমাদের মতো গাধা মার্কা শ্রোতাদেরকে ওয়াজ শোনাতে এসে শাস্তির উপযুক্ত অপরাধ করেছেন। শাস্তিস্বরূপ আপনার উচিত আজকের মাহফিলের টাকাগুলো আমাদেরকে কিংবা আমাদের উপযুক্ত বক্তাকে উপহার দিয়ে যাওয়া।
একজন পন্ডিতের অপমান নিজকে খুব অপমানিত করে। আর দাঁড়িয়ে থাকার মানসিকতা অনুভব করলাম না। সাথে সাথে মাঠ ছেড়ে চলে আসলাম।

Mamun Ahmed is with Ahtesham Qasime and 2 others.
46 mins ·

#দয়া_করে_ফেতনা_সৃষ্টি_করবেন_না !
শতবার্ষিকী সম্মেলনে মাওালানা মামুনুল হক হাফিজাহুল্লাহ সিলেট এসেছেন বিকেট ৪ টা নাগাদ,বয়ান করেছেন রাত্রে ১০ টা পরে।
হযরত আসার পর থেকে অভ্যর্থনা কক্ষ সহ মাহফিলে সর্বস্থানে একটা বাড়তি জনসমাগম পরিলক্ষিত হয়েছে।
হযরতকে দীর্ঘ সময় রেষ্ট রুমে রাখার পর নির্ধারিত সময়ের ১০ মিনিট আগে ষ্টেজে নেয়া হয়েছে।
মঞ্চে তখন খান সাহেব হুজুর বয়ান করছিলেন, মামুনুল হক সাহেবের আগমনে শ্রুতারা মিছিলে দিয়ে স্বাগত যানাচ্ছিল,এর পর পরিচালাক অনেক কষ্ট করে মিছিল নির্ভীত করেছন। এর মাধ্য খান সাহেব মঞ্চ ত্যাগ করলেন,পরে সাউদীআরবের মেহমান বয়ান করলেন, ১০/১৫ মিনিট পরে মামুনুল হক সাহেব বয়ান শুরু করলেন।
এখানে পরিচালানা কমিটি বা অন্য করো দুর্বলতা খুজে একটি মহল ফিতনা সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে।
মনে রাখতে হবে আঁকাবিরদের সকলের মেজাজ সমান নয়!

Amzad Hussain Mamun Ahmed এখানে সব থেকে বড় ভুলটি করেছেন আয়োজক কর্তৃপক্ষের মধ্যে যারা আলোচকদের প্রোটোকলের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন তারা।
তাঁরা বর্তমান সময়ে দেশের শীর্ষ স্থানীয় আলোচক শায়খ মামুনুল হক কে খাঁন সাহেবের আলোচনা চলাকালীন মঞ্চে না এনে বরং আলোচনার শেষ পর্যায়ে নিয়ে আসতে পারতেন।
যদি সেভাবেই প্রটোকল সাজাতে পারতেন, তাহলে খাঁন সাহেবের আলোচনায় বিঘ্ন ঘটতো না। সফল একটি প্রোগ্রামের সৌন্দর্যেও কেউ তীর বিদ্ধ করতে পারতো না।
Mawlana Syed Musharrof
4 hrs ·

মাওলানা মামুনুল হক্ব কে
হজরত শাহজালাল রাঃ এর সাথে তাশবী দিবেন না,এতে শাহজালাল রাঃ এর মর্যাদা নিয়ে প্রশ্ন আসে।
আল্লামা, আন্তর্জাতিক শব্দ কে অনেক আগেই
নির্যাতন করা হয়েছে।
মানুষকে উৎসাহিত করুন, ফামদেন।
অতিরিক্ত ফামদিলে সমস্যা আছে।

নাচিজ রাসেল হিংসুক কি আর কারো গুণ দেখতে পায়? সে তো অন্যের দোষ ধরতে ধরতেই কবরে চলে যায়

Habibullah Misbah
3 hrs ·

শাইখুল হাদিস নূরুল ইসলাম খাঁন সাহেব কোন দিন তর্জন গর্জনের ওয়াজ করেন না৷ বাংলা বই পড়ে ওয়াজ করেন না৷বরং তিনি প্রতিটি ওয়াজ তাফসিরে যাওয়ার আগে বিষয়টি ভাল করে মুতালাআ করে যান যেভাবে দরসে যাওয়ার পূর্বে মুতালাআ করতে হয়৷এটা হুজুর পরিস্কার ভাষায় 2008 সালে বিয়ানী বাজার হিজবে এলাহীতে বলেছেন৷ আমি নিজে উপস্থিত ছিলাম৷ তাই হুজুরের বয়ান আলেমগণ বেশী শুনেন সাধারণ শ্রোতার চেয়ে৷ আর বাজারি বক্তাগণ ইউটিউব থেকে বা বাংলা বই পড়ে মাঠ গরম করে লম্বা টাকা কামানো চিন্তা করেন৷ মাদরাসার নাম বলে লক্ষ টাকা নেন আমি নিজে দেখেছি মামুকে গত বসর৷
অতচ হুজুগীরা আকাশ পাতালকে এক করে নেয়৷

মাহফুজ বিন আব্দুন নূর পরিচালনা ও ইন্তেজামিয়া কমিটির অযোগ্যতা আর ব্যর্থতা হলে এমন হয়,

খাঁন সাহেবের মত ব্যক্তিত্ব শতাব্দী নয় সহস্রাব্দী সম্মেলন করলেও জাহিল সমাজকে উপহার দেওয়া যাবে না,

মামুনুলহক সাহেব আর খাঁন সাহেব, উভয়ের স্তর কিন্তু এক নয়,,,,,,,
2

Like
· Reply · 9h

এম আবদুর রাহমান
এম আবদুর রাহমান মাহফুজ বিন আব্দুন নূর যে সমাজ ইলমী কাননে ধর্মীয় মুরব্বীদের সম্মান দেয়না, সে জাতি জাতির কল্যাণে কি আর করবে! আফসোস

মাওলানা মামুনুল হক সাহেব আমার উৎসাহ উদ্যিপনা,আমার ভালোবাসা! লেকিন আল্লামা নুরুল ইসলাম খাঁন সাহেব আমাদের মাথার তাজ,খাঁন সাহেব আমাদের মাথার মুকুট, আমাদের মুরব্বী। রেঙ্গায় যেটা হয়েছে সেটা অত্যন্ত দুঃখ জনক,আমাদের হৃদয়ে আগাত করেছে।খাঁন সাহেবের সাথে এমন আচরন জাতি আশা করেনি। আমরা দিন দিন এতো নিচে নামতেছি!আল্লামা খান সাহেবের নেকহায়াত কামনা করি।

রেজওয়ান আহমেদ হাতেগণা কয়েকজন কর্মী! তাও সবকটি বেয়াদব।

ইসলামি খেলাফত কায়েমের জন্য
ইসলামী নীতি ও অাদর্শকে লালন না করে
যারা কোনো ব্যক্তি বা নেতার চিন্তা চেতনা লালন করবে এবং নেতার চিন্তাচেতনা বাস্তবায়ন করাকে ইসলামি রাজনীতি মনে করবে।

তারা তাদের নেতাকে দেখলেই,
হৈ হুল্লা করবে। চিল্লাচিল্লি করবে।
মুরুব্বীদের সাথে বেয়াদবি করবে।

কারণ তারা ব্যক্তি চেতনার কর্মি!
তাদের কাছে তাদের নেতা ছাড়া আর কেউ যোগ্য নন সম্মানিত নন।

এজাতীয় কর্ম তাদের পুরাতন।

Abdul Haque আসলে ঐ দিন যা ঘটছে তা অনিচ্ছা বসত, খান সাহেব ওয়াজ করতেছেন, আর মানুনুল হক সাহেব স্টেজে, আর কিছু আবেগী স্রোতা মামুনুল হক সাহেব নিয়ে মিছিল শুরু করছে, এটা যে সরহে তাজ খান সাহেব কষ্ট পাবেন তাদের বোদগম্য হয়নাই,
এটা নিয়ে আর রাজনিতি না করি, বরং দু জনই আমাদের,

ইয়াহয়া হামিদী
2 mins ·

জামেয়া রেঙ্গার মঞ্চে খান সাহেবের বয়ান বন্ধ !
দায়ভার ও দায় মুক্তির আহবান

*************************************
জামেয়া রেঙ্গার ঐতিহাসিক শতবার্ষিকী ও দস্তারবন্দী মহাসম্মেলনে দেওবন্দিয়াতের বাস্তব প্রতিচ্ছবি শায়খুল হাদীস আল্লামা নুরুল ইসলাম খান সাহেব সুনামগঞ্জী বয়ান করছিলেন। ভারতবর্ষের অবিস্মরণীয় তিন মনিষী হাজি ইমদাদুল্লা মুহাজিরে মক্কী, আল্লামা কাসিম নানুতবি ও আল্লামা রশিদ আহমদ গাঙ্গুহি রাহি. ত্রয়ের কথা লক্ষাধিক জনতা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছিলো। এমতাবস্তায় কওমি অঙ্গনের কিংবদন্তি যুবরাজ মাওলানা মামুনুল হক সাহেবকে মঞ্চে নিয়ে আসা হয়। মামুন সাহেব মঞ্চে আসায় কাণ্ডজ্ঞানহীন কিছু অতি আবেগী শ্রুতা হৈচৈ/হট্টগোল শুরু করে। এমনকি গুণধর পরিচালকরাও আবেগে বেতাল হয়ে খান সাহেবের বয়ান বাধাগ্রস্থ করে মাইকে স্বাগতম জানান। শুধু তা-ই নয় মাইকে খান সাহেবের বয়ান শেষ করার ঘোষণাও দেন। জানিনা খান সাহেব হুজুর কষ্ট পেয়েছেন কি না? তিনি বয়ানের মধ্যখানেই মঞ্চ থেকে নেমে চলে যান। বিষয়টি নিশ্চয় আমার মতো হাজার হাজার কওমি সন্তানদের জন্য সাংঘাতিক কষ্টদায়ক। যা নিয়ে অনলাইন-অফলাইনে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। আমরা সমালোচনা চাই না। উদ্ভট এই পরিস্থিতির দায়ভার যারা মামুনুল হক সাহেব কে অসময়ে মঞ্চে নিয়ে এসেছেন বা যারা আবেগের বশে মাতোয়ারা হয়ে মঞ্চ পরিচালনা করেছেন তাদের ঘাড়েও চাপাতে চাই না। আমরা শুধু আমাদের হৃদয়ের রক্তক্ষরণটা কিছুটা হলেও বন্ধ করতে চাই। মাথার মুকুট বর্ষীয়ান আলিম আল্লামা নুরুল ইসলাম খান সাহেবকে সম্মানিত দেখতে চাই। উনার অসম্পূর্ণ বয়ান একই আবেগ ও কণ্ঠে শুনতে চাই।

এর জন্যে জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার কর্তৃপক্ষ বরাবর আমাদের আহবান!

সিলেটবাসি আপনাদের প্রতি যে নজিরবিহীন ভালোবাসা দেখিয়েছে তারজন্য একটি “শোকরানা মাহফিল” করা বাঞ্ছনীয় মনে করি। অতএব আপনারা যদি ধীরেসুস্থে একটি শোকরানা মাহফিল বা কনফারেন্স করে তাতে একক অতিথি ও বক্তা হিসেবে আল্লামা নুরুল ইসলাম খান সাহেবকে হাজির করান তাহলে বিষয়টি ইনশাআল্লাহ নন্দিত হবে। সিলেটশহরস্থ কোনো কনফারেন্স হল বা অন্য কোথাও হলেও আমরা খান সাহেবের সম্মানে ইনশাআল্লাহ হাজির হবো।

লেখকঃ- ইয়াহয়া হামিদী
সহকারী শিক্ষা সচিব, হযরত শাহ করার রহ. মাদরাসা, সিলেট।

এই সংবাদটি 44 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com