বাংলাদেশ থেকে ভারত বছরে ৫ বিলিয়ন ডলার নিয়ে যাচ্ছে

প্রকাশিত: ৩:০৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯

ডেস্ক রিপোর্ট :
দেশে দক্ষ জনবলের এই অভাব ভারত খুব ভালোভাবে কাজে লাগাচ্ছে। পার্শ্ববর্তী এই দেশটি আমাদের দেশ থেকে গত পাঁচ বছর ধরে প্রতিবছর ৪-৫ বিলিয়ন ডলার নিয়ে যাচ্ছে। এদেশে ভারতের মাত্র ২-৩ লাখ মানুষ কাজ করে। এই সংখ্যাই দেখিয়ে দেয় আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার মান কতটা নিচে আছে। দেশে উচ্চ শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বাড়ছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক শিক্ষার জ্ঞান না থাকা। যাদের আমরা শিক্ষিত বলছি বিদেশে সেই শিক্ষিত লোকের কোনো চাহিদা নেই। দেশের বিদ্যমান শিক্ষা ব্যবস্থা দক্ষ জনবল তৈরি করতে পারছে না। এ অভিমত ব্যক্ত করেছেন আইনজ্ঞ ড.শাহদীন মালিক।

গতকাল রবিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘রিফিউজি এন্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্টস রিসার্চ ইউনিট’- (রামরু) আন্তর্জাতিক শ্রম অভিবাসনের গতি ও প্রকৃতি-২০১৯ অর্জন এবং চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক গবেষণাভিত্তিক বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

ড. শাহদীন মালিক বলেন, আমাদের দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যবহারিক কিংবা কারিগরি শিক্ষার ওপর গুরুত্ব কম দেয়া হয়। অথচ উন্নত বিশ্বে ব্যবহারিক শিক্ষা প্রাথমিক অবস্থা থেকে দেয়া হয়। দেশে উচ্চ শিক্ষিত বেকার বাড়ার অন্যতম কারণ এটি। বর্তমানে দেশের উচ্চ শিক্ষিতদের কাজের কোনো সুযোগ নেই। কারণ আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা শিক্ষার্থীদের সেভাবে প্রস্তুত করতে পারছে না। তিনি বলেন, চলতি বছরে আমাদের বৈদেশিক রেমিট্যান্স খুব বেশি হলে ১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের কিছু বেশি হবে। এই পরিমান রেমিট্যান্স পাঠাতে বাংলাদেশের এক কোটিরও বেশি লোক বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কাজ করছে। অন্যদিকে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত আমাদের দেশ থেকে গত পাঁচ বছর ধরে প্রতিবছর ৪-৫ বিলিয়ন ডলার নিয়ে যাচ্ছে। এদেশে ভারতের মাত্র ২-৩ লাখ মানুষ কাজ করে। এই সংখ্যাই দেখিয়ে দেয় আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার মান কতটা নিচে আছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে দক্ষ জনবলের অভাব ভারত খুব ভালভাবে কাজে লাগাচ্ছে। ভারতে যে কয়টা দেশ সব থেকে বেশি থেকে রেমিট্যান্স আয় করে তার মধ্যে বাংলাদেশ পঞ্চম। আমরা যাদের শিক্ষিত বলছি বিদেশে সেই শিক্ষিত লোকের কোনো চাহিদা নেই। শিক্ষা ব্যবস্থার মান যে পুরোপুরি ধসে গেছে তা খুব সহজেই বোঝা যায়। সরকারের উচিৎ এই বিষয়টির দিকে এখনি নজর দেয়া। না হলে বেকারের সংখ্যা বাড়তেই থাকবে।
সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এবং রামরুর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড. তাসনিম সিদ্দিকী। সংবাদ সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম।

এই সংবাদটি 1 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com