মঙ্গলবার, ২২ নভে ২০১৬ ০৫:১১ ঘণ্টা

সিলেট থেকে নেপালের শিক্ষার্থী ‘নিখোঁজ’

Share Button

সিলেট থেকে নেপালের শিক্ষার্থী ‘নিখোঁজ’

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের নর্থ ইস্ট মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস ৫ম বর্ষের নেপালি শিক্ষার্থী সাওগত গেওয়ালি (Saugat Gyawali) (২৬) ১২ দিন থেকে নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ সুরমা থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান।

তিনি জানান, ৯ নভেম্বর দুপুরের দিকে কাউকে কিছু না বলে ছাত্রাবাস থেকে চলে যান নেপাল কাইনালি টিকারপুর-৯ এর রামপ্রসাদের ছেলে সাওগত গেওয়ালি। নিখোঁজের ঘটনায় নর্থ ইস্ট মেডিক্যাল কলেজের সিকিউরিটি ইনচার্জ আব্দুল আহাদ বাদী হয়ে ১৫ নভেম্বর থানায় সাধারণ ডায়রি করেন। সাওগত গেওয়ালির পরিবার কলেজ কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছে, সাওগতের কাছে বাংলাদেশি টাকাসহ ৩০-৩৫ হাজার ভারতীয় রুপি রয়েছে।

পুলিশ নিখোঁজ মেডিক্যাল কলেজ শিক্ষার্থী সাওগত গেওয়ালির ডিজিটাল পাসপোর্ট আর মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে তার অবস্থান জানার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সাওগত নেপালে যায়নি বলে তার নেপালি সহপাঠী বিশাল শর্মাকে জানিয়েছেন সাওগতের বাবা রামপ্রসাদ।

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ৯ নভেম্বর সিলেটের ওসমানী বিমানবন্দর হয়ে সে ঢাকায় চলে যায়। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে এ বিষয় নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এদিকে, ওই দিন সকাল সাড়ে ৮টায় হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে করে তিনি ভারতের কলকাতায় চলে যান বলে ইমিগ্রেশন পুলিশ জানান। এ বিষয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশ সোমবার (২১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আমাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে কাগজপত্র দিয়েছেন।

জিডি সূত্রে জানা যায়, গত ১০ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় হোস্টেল সুপার দক্ষিণসুরমাস্থ নর্থ মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রাবাসে পরিদর্শনে যান। ছাত্রাবাসের রূপসা ভবনের একটি কক্ষে সে একা থাকত। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিবিএস ৫ম বর্ষের নেপালের শিক্ষার্থী সাওগত গেওয়ালি কক্ষ তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পেয়ে বিষয়টি সম্পর্কে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের কাছে জানতে চাইলে শিক্ষার্থীরা তাকে জানান সন্ধ্যা থেকে তার কক্ষটি তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পাচ্ছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একই বর্ষের অপর নেপালি শিক্ষার্থী বিশাল  জানান, নিখোঁজ সাওগত গেওয়ালির ঘনিষ্ঠ বন্ধু অতুল বর্ধন গত মে মাস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করে নেপাল চলে যায়। তারা দুজনই ছাত্রাবাসের একই কক্ষে থাকতেন। অতুল নেপালে চলে যাওয়ার পর সাওগত গেওয়ালি ইয়ার ড্রপসহ নানাবিধ কারণে বিষণ্নতায় ভুগছিল। সাওগতের বাবা ১৫ নভেম্বর সকালে আমার ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করে জানান, তিনি নেপালেও যাননি। তার কাছে ৩০-৩৫ হাজার ভারতীয় রুপিসহ বাংলাদেশি টাকা রয়েছে।
নর্থ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের সুপার ডা. নাজমুল ইসলাম  জানান, নেপালের শিক্ষার্থী সাওগত গেওয়ালি আমাদেরকে কোনও কিছু না জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাস থেকে গোপনে চলে যায়। এব্যাপারে নেপালের দূতাবাসের সাথে যোগাযোগ করার পর তারা জানিয়েছেন তিনি এখনও নেপালে যায়নি।

এই সংবাদটি 1,033 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com