শুক্রবার, ০৩ জানু ২০২০ ০৫:০১ ঘণ্টা

বিলাতে বাংলাসাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা : চারশ’ বছরের গৌরবগাথা

Share Button

বিলাতে বাংলাসাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা : চারশ’ বছরের গৌরবগাথা

বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল:
ইংল্যান্ডের সাথে বাঙালির সাহিত্য ও সংস্কৃতিসূচক সম্পর্ক দীর্ঘ শতাব্দীব্যাপী। যদিও এই ঔপনিবেশিক রাষ্ট্রটির সাথে ভারতবর্ষের প্রতিটি নৃতাত্ত্বিক জাতির একটি ঐতিহাসিক সম্পর্ক রয়েছে। সেই সম্পর্ক জাতি, ভাষা ও সংস্কৃতিকে কতোটুকু প্রভাবিত করেছে তা বর্তমান সময়ে এসে আমরা সহজেই উপলব্ধি করতে পারি। ইংল্যান্ড দেশটি বাঙালির কাছে সেই সতেরো শতাব্দী থেকে বিলায়েত বা বিলাত নামে পরিচিতি প্রাপ্ত হয়। বাংলাভাষায় প্রচলিত অন্যান্য বিদেশি শব্দের মতো বিলাত শব্দটিও ফারসি থেকে এসে বাঙালির কাছে আপন হয়ে ওঠেছে। আপন হয়ে ওঠা এই শব্দটির দেশে বাঙালি অথবা বাংলাদেশীদের যাতায়াতও নিদেনপক্ষে চারশ’ বছরের। জীবিকা নির্বাহে হোক আর ভ্রমণকল্পে হোক বাংলার মানুষ যাতায়াত পর্ব থেকে শুরু করে বিলাতে ধীরেসুস্থে একসময় থিতু হতে লাগলেন। যখন তারা একটু স্থির হলেন তখন অভিজ্ঞতার ঝুড়িতে জমা হয়ে গেছে রঙিন-সঙিন কতো গল্পগাথা। মানুষের মনের এই সব কথাকল্লোল, আর বিলাত বসবাসের রকমারি চিত্রগাথা ওঠে আসতে লাগলো সাহিত্যের শাখায়-পাতায়। সাহিত্যচর্চা হয়ে উঠলো বিলাতকেন্দ্রীক।

বিলাতে বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা বাংলাদেশী-ব্রিটিশ সাহিত্যিক, গবেষক ও বহুগ্রন্থপ্রণেতা ফারুক আহমদের একটি গবেষণা গ্রন্থ। কৃতিমান গবেষক হিসেবে লেখকের খ্যাতি দেশে-বিদেশে রয়েছে। বিলাতে বাঙালির সাহিত্যচর্চা, সংস্কৃতিযাপন একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ বিষয়টি নিয়ে লেখক তাঁর গবেষণাসন্ধর্ভ উপস্থাপনা করে বাংলাভাষী পাঠকের জন্য এক অজানার দ্বার উম্মোচন করে দিলেন। লেখক দীর্ঘদিন থেকে বিলাতে বসবাস করছেন। তাঁর অভিজ্ঞতা ও নিবিড় অনুসন্ধিৎসা গ্রন্থটি রচনায় তথ্যসহায়ক ভূমিকা রেখেছে। ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের মার্চে গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে বাংলা একাডেমি। মূল্য রাখা হয়েছে ৩৪০ টাকা। প্রচ্ছদ করেছেন মামুন কায়সার। গ্রন্থের ভূমিকা ও পরিশিষ্ট ছেড়ে মোট বারোটি অধ্যায়ে লেখক তাঁর বক্তব্য সম্পন্ন করেছেন। এসব অধ্যায় সম্পর্কে আমরা এই আলোচনায় সংক্ষেপে আলোকপাত করবো। লেখক তাঁর ভূমিকায় একটি পাঠকমনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। বিলাতে বাঙালির সাহিত্যচর্চা ঠিক কখন থেকে শুরু হয়েছিল এরকম এক প্রশ্নের উত্তরে লেখক জানান, বিলাতের প্রথম পত্রিকা পাক্ষিক সত্যবাণী। এটি ১৯১৬ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয়। তারপর ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় প্রথম সাপ্তাহিক পত্রিকা জগৎ-বার্ত্তা। এর আগে বাঙালির কাছে একটি প্রতিষ্ঠিত সত্য ছিল বিলাতের প্রথম বাংলাপত্রিকা হচ্ছে দেশের ডাকÑএটি ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয়। আর প্রথম সাপ্তাহিক পত্রিকা জনমত প্রকাশিত হয় ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে। লেখক এই তথ্যটিকে স্বীকার করে আমাদের সামনে নতুন একটি সত্য উপস্থাপন করেছেন। আর গবেষণা কাজের ধর্মই হচ্ছে তথ্যখ-নের তলোয়ার শানিত করা।

বিলাতে বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা গ্রন্থের প্রথম অধ্যায় হচ্ছে পটভূমি। লেখক এই অধ্যায়ে বাঙালির বিলাতে সাহিত্যচর্চা শুরুর কথা বলেছেন। একটি ভ্রমণ আখ্যান দিয়ে মূলত বিলাতে বাঙালির সাহিত্যচর্চার প্রেক্ষাপট গড়ে ওঠে। ১৭৬৫ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি মাসে মির্জা ইতিশামুদ্দিন রাজা তৃতীয় জর্জের কাছে সম্রাট শাহ আলমের দূত হিসেবে ভারত থেকে বিলাতে যান। সেখানে তিনি প্রায় তিনবছরকাল অতিবাহিত করেন। ১৭৬৮ খ্রিস্টাব্দের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি ভারত ফিরে আসেন। ফিরে এসে তিনি তাঁর ভ্রমণের এই উপাখ্যান লিখেন সেকালের রাষ্ট্রীয় ভাষা ফারসিতে। তাঁর গ্রন্থের ফারসি নাম দেওয়া হয় শিগুর্ফ-নামা-ই বিলায়েত যা বাংলা অনুবাদে বিদেশ ভ্রমণের আশ্চর্য গল্প শিরোনামে প্রকাশিত হয়। এই গ্রন্থটিকেই লেখক বিলাতে বাঙালির সাহিত্যচর্চার ভিত বলে নিশ্চিত করেছেন। বিলাতে আধুনিক বাংলা সাহিত্যের বিকাশ ঘটে ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দে। আইনবিষয়ে অধ্যয়ন করতে যাওয়া ছাত্র রাখালদাস হালদারের হাত ধরে। বিলাতে অধ্যয়নকালে তিনি যে ডায়েরি লিখেন পরে তা দ্য ইংলিশ ডায়েরি অ্যান ইন্ডিয়ান স্টুডেন্ট শিরোনামে প্রকাশিত হয়। লেখক এই অধ্যায়ে আরো আলোকপাত করেছেন বিলাতে সাহিত্য সাধনায় নারীর অবদান নিয়ে। ১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে কৃষ্ণভাবিনী দাস তাঁর স্বামীর সাথে ইংল্যান্ড ভ্রমণে যান। ১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দে তিনি ছদ্মনামে ইংল্যান্ডে বঙ্গমহিলা শিরোনামে তাঁর ভ্রমণ আখ্যান প্রকাশ করেন। লেখক তাঁকেই বিলাতে বাঙালি নারীর সাহিত্যচর্চায় অগ্রণী হিসেবে ধারণা করেছেন। গ্রন্থের দ্বিতীয় অধ্যায়ে বিলাতে বাংলা ছাপাখানা ও প্রকাশনা সংস্থা নিয়ে লেখক পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। ১৯১৬ খ্রিস্টাব্দের ১ নভেম্বর বহুভাষিক কাগজ পাক্ষিক সত্যবাণী বিলাত থেকে প্রথম প্রকাশিত হয়। কাগজটি প্রকাশ করে লন্ডন স্ট্রান্ডের মিলফোর্ড লেইন প্রেস। এটিই বাঙালির বিলাতে প্রথম প্রকাশনা। তবে ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে বাঙালি মালিকানায় প্রথম প্রকাশনা সংস্থা গড়ে ওঠে বিলাতে। র‌্যাডিকেল এশিয়া পাবলিকেশন্স নামীয় এই সংস্থাটি বিলাতের সবচেয়ে প্রাচীন বাংলা প্রকাশনা সংস্থা হিসেবে লেখক উল্লেখ করেছেন। এটির স্বত্ত্বাধিকারী ছিলেন লেখক ও সাংবাদিক আবদুল মতিন। এই প্রকাশনা সংস্থার প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ হচ্ছে জেনেভায় বঙ্গবন্ধু। গ্রন্থটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে আবদুল মতিনের জেনেভায় ভ্রমণ অভিজ্ঞতার আলোকে লেখা।

বিলাতে বাংলা সাহিত্যের ক্রমবিকাশ আলোচিত হয়েছে গ্রন্থের তৃতীয় অধ্যায়ে। লেখক এই অধ্যায়ে গেলো শতকের দুইয়ের দশক থেকে হালের শূন্য দশক পর্যন্ত বিলাতে বাঙালির সাহিত্যচর্চার একটি সবিস্তৃত ও সারগর্ভ প্রেক্ষাপট উপস্থাপন করেছেন। ১৯১৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে ২০১০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত সময়কে তিনি কয়েকটি পর্বে ভাগ করেছেন। যেমনÑসলতে পাকানোর পর্ব, সূচনা পর্ব, উত্থান পর্ব, বিকাশ পর্ব, সমৃদ্ধকাল, সঙ্কটকাল ও পতনোন্মুখকাল। তবে লেখক বর্তমান একুশশতকের শূন্য ও দুইয়ের দশককে সঙ্কটকাল ও পতনোন্মুখকাল বলার কারণ অনেকটা বোধগম্য হলেও বাস্তবচিত্র এতোটা হতাশাজনক নয়। গ্রন্থের চতুর্থ অধ্যায়ে লেখক বিলাতের সাহিত্য সংগঠন ও সাহিত্যিক তৎপরতা নিয়ে আলোচনা করেছেন। তাসাদ্দুক আহমদ, নুরুল ইসলাম ও আব্দুল মান্নান সানু মিয়া যাঁরা লন্ডনের গ্রিনমাস্ক রেস্টুরেন্ট থেকে সংগঠিত হতে শুরু করেন। লেখক বলেন, ১৯৫০-এর কোঠায় মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা প্রফেসর একে নাজমুল করিম, ইসলামের ইতিহাসের অধ্যাপক আব্দুল মাজেদ খান থেকে আরম্ভ করে তৎকালীন রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, সমাজ ও সংস্কৃতিসেবী খুব কম ব্যক্তিই ছিলেন, যাঁরা তাসাদ্দুক আহমদের আতিথেয়তা লাভ করেননি। তাঁদের সেই সংঘবদ্ধতাই বাংলার রাজনীতি, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনের রূপ নেয় এবং এরই ধারাবাহিকতায় গড়ে ওঠে নিম্নলিখিত সংগঠনগুলোÑ১. বাংলা একাডেমি, ২. অ্যাংলোপাক এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড, ৩. রূপসী বাংলা লিমিটেড, ৪. বেঙ্গলি ইন্টারন্যাশনাল, ৫. বাংলাসাহিত্য পরিষদ, ৬. রেনেসাঁ সাহিত্য মজলিস, ৭. সুরমা ইয়াং রাইটার গ্রুপ, ৮. সংহতি সাহিত্য পরিষদ, ৯. বিশ^বঙ্গ সাহিত্য সম্মেলন, ১০. উদীচী, ১১. বিশ^সাহিত্য কেন্দ্র, ১২. চারণ, ১৩. সম্মিলিত সাংস্কৃতিক পরিষদ, ১৪. বাংলা ভবন ও ১৫. বার্মিংহাম সাহিত্য পরিষদ।

বিলাতে বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা গ্রন্থের পঞ্চম অধ্যায় আলোচিত হয়েছে কবিতা নিয়ে। এই অধ্যায়ে বিলাতে কবিতাচর্চা নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে লেখক লিখেছেন, দশকভিত্তিক হিসেবে বিশ শতকের সত্তর দশকই হচ্ছে বাঙালি-ব্রিটিশ সমাজের বাংলা ভাষার কবিদের অনেকটা সূচনাপর্ব। গ্রন্থের ষষ্ঠ অধ্যায়ে বিলাতে বাঙালিদের কথাসাহিত্যচর্চার বিষয়ে লেখক বিশদ আলোচনা করেছেন। ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দে রচিত হিরন্ময় ভট্টাচার্যের ক্রন্দসী উপন্যাসটিকে লেখক বিলাতে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধের প্রথম উপন্যাস হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। এছাড়াও কথাসাহিত্যিক ফজলুল আলম, সৈয়দ শামসুল হক, আব্দুল মতিন, আব্দুর রউফ চৌধুরী, কুদরতুল ইসলাম, কাদের মাহমুদ, সালেহা চৌধুরী প্রমুখ ব্যক্তিত্বকে নিয়ে তিনি আলোকপাত করেছেন। উল্লেখ্য লেখক তাঁর এই গ্রন্থটি কবি, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক কাদের মাহমুদকে উৎসর্গ করেছেন। সপ্তম অধ্যায়ে বিলাতে নাট্যচর্চা করেছেন যেসব বাঙালি লেখক তাঁদের কথা তুলে ধরেছেন। ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে বিলাতে নীরঞ্জন পাল দুটি নাটক রচনা ও মঞ্চায়ন করেন। নাটক দুটি হচ্ছে, দ্য লাইট অব ইন্ডিয়া ও সিরাজ। নীরঞ্জন পালকেই লেখক বিলাতে প্রথম নাট্যচর্চাকারী হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। নাটকে যারা অবদান রেখেছেন এই অধ্যায়টি পাঠ করলে তাদের সম্পর্কে বিশদ জানা যাবে। প্রবন্ধ চর্চা দিয়ে লেখক গ্রন্থের অষ্টম অধ্যায়ে বিস্তারিত লিখেছেন। তাঁর আলোচনা থেকে টের পাওয়া যায় বিলাতে এখনো বাঙালি প্রবন্ধচর্চায় অনেকটা পিছিয়ে রয়েছেন। এটা হতে পারে সময়, সুযোগ ও পারিপাশির্^ক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে এরকম ঘটছে। বিলাতে বাঙালিদের ইতিহাস চর্চা নিয়ে লেখক তাঁর গ্রন্থের নবম অধ্যায় সাজিয়েছেন। এ অধ্যায়ে তিনি উল্লেখ করেছেন, ১৬৩০ খ্রিস্টাব্দকে বিলাতে বাঙালির আগমনের সূচনাকাল হিসেবে ধরে নিলে ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাঙালিদের বিলাত আগমনের ইতিহাসের বয়স চার শতাধিক বছর। অনুবাদ সাহিত্য নিয়ে গ্রন্থের দশম অধ্যায় আলোচিত হয়েছে। এছাড়া লেখক বিলাতে যারা ইংরেজি ভাষায় যেসব বাঙালি সাহিত্যচর্চা করেছেন এবং বর্তমানেও লেখালেখি অব্যাহত রেখেছেন তাদের নিয়ে গ্রন্থের একাদশ অধ্যায়ে সারগর্ভ আলোচনা করেছেন। ১৭৯৪ খ্রিস্টাব্দে শেখ দীন মোহাম্মদ ইংরেজি ভাষায় সর্বপ্রথম তাঁর ভ্রমণকাহিনি লিখেন। তাঁর গ্রন্থের নাম হচ্ছে দ্য ট্র্যাভল অব দীন মোহাম্মদ। ছড়া চর্চার আলোচনা দিয়ে স্থান পেয়েছে দ্বাদশ অধ্যায়ে। একই সাথে এই অধ্যায়টি গ্রন্থের শেষ অধ্যায়। পরিশিষ্টে লেখক বাঙালি লেখক পরিচিতি তুলে ধরেছেন।

যার বই নিয়ে আজকের এই আলোচনা তিনি ফারুক আহমদ। অত্যন্ত ধীমান-নিরলস একজন গবেষক। তাঁর গবেষণাকর্ম দেশে-বিদেশে মর্যাদা পেয়েছে। স্বদেশে জাতীয় পর্যায়ে অকৃতদার মানুষটি পেয়েছেন গৌরবজনক সম্মান। তিনি স্বনামেই সমুজ্জ্বল। তাঁকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেবার কিছু নেই। ফারুক আহমদ। জন্মেছেন সিলেটে। তার গ্রামের বাড়ি গোলাপগঞ্জ উপজেলার গোয়সপুর। গত শতাব্দির আশির দশকে লেখালেখি শুরু করেন। সাংবাদিকতা করেছেন দীর্ঘদিন। গ্রন্থের ভূমিকা লিখেছেন লেখক নিজেই।

১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি লন্ডন থেকে প্রকাশিত মাসিক লন্ডন বিচিত্রার প্রধান সম্পাদক ছিলেন। প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছেÑ বিলাতে বাংলা সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা (১৯১৬-২০০১ খ্রি.), সাপ্তাহিক জনমত মুক্তিযুদ্ধের অনন্য দলিল (২০১৬ খ্রি.), মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি (২০১৭ খ্রি.), এ মাটির বাউল (গীতিকবিতা ১৯৯৪ খ্রি.), বিলাতে বাংলার রাজনীতি (২০১২ খ্রি.) ও গোলাপগঞ্জের ইতিহাস (২০১৫ খ্রি.)। সম্পাদনা করেছেন বিলেতবাসী সাংবাদিক ও বামরাজনীতিক তাসাদ্দুক আহমদের জীবনীগ্রন্থ ‘জীবন খাতার কুড়ানো পাতা’। ২০১৩ খ্রিস্টাব্দে গবেষণা কাজের স্বীকৃতি পুরস্কার লাভ করেন। বাংলা একাডেমী প্রবাসী লেখক পুরস্কার। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন।

বিলাতে বাংলাসাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা গ্রন্থটি লেখক অত্যন্ত প্রাঞ্জল ভাষায় উপস্থাপন করেছেন। তাঁর গভীর অনুসন্ধানী দৃষ্টি গ্রন্থটিকে এক অনন্য উচ্চমাত্রায় নিয়ে গেছে। বিলাতের বাঙালিদের এই অধ্যায়টি এতোদিন পাঠকের অগোচরে ছিল। লেখকের দূরদর্শী লেখনির মাধ্যমে বিষয়টি আলোর মুখ দেখতে পেয়েছে। যা বাঙালি পাঠককুলকে ঋদ্ধ করবে। কৃতি এই লেখক তাঁর আরো নতুন কাজ নিয়ে অনেক দূর এগিয়ে যাবেন এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

এই সংবাদটি 1,004 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com