শায়খুল হাদীস মাওলানা নুরুল ইসলাম মইজপুরী (র)

প্রকাশিত: ১১:২২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২০

শায়খুল হাদীস মাওলানা নুরুল ইসলাম মইজপুরী (র)

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন মাওলানা নুরুল ইসলাম মইজপুরী আমাদের মাঝে আর নেই। তিনি গত ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ সকাল ৮টায় সিলেট নগরীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি কিছুদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভোগছিলেন। মৃত্যুকালে স্ত্রী, ৩ পুত্র ও ৫কন্যা সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।
জানাগেছে, সিলেট সদর- লালা বাজার-ইউনিয়নের অন্তর্গত চক্রাইপুর গ্রামে ১০-০৪-১৯৪০ ঈসায়ী সনে তিনি জন্ম গ্রহন করেন। ১৯৫২ ঈসায়ী সনে তিনি পিতা চক্রাইপুর গ্রাম থেকে চলে আসেন, বিশ্বনাথের ৭নং দেওকলস ইউনিয়নের কালিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন তাতালপুর গ্রামে। ১৯৫৫ ইং সালে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য চক কাশিমপুর বিশ্বনাথ মাদরাসায় ভর্তি হন।
পরে সেখান থেকে ১৯৬১ ইং সালে জামেয়া ইসলামিয়া হুসাইনিয়া গহরপুর বালাগঞ্জ মাদরাসার ছাফেলা দুওমে (ছরফ) ভর্তি হন। এবং ১৯৬৯ ইং সালে দাওরায়ে হাদীস (মাষ্টার্স)পড়ে উলুমুল হাদীস সহ বিভিন্ন বিষয়ে জ্ঞান অর্জন লাভ করেন।
১৯৭২ ইং সালে ছাতক ঝিগলী মাদরাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবনের সুচনা করেন।
পরে ১৯৭৫ ইং সালে জামেয়া ইসলামিয়া হুসাইনিয়া গহরপুর মাদরাসায় চলে আসেন।
পরে আতাপুর মাদরাসা -কালিগঞ্জ মহিলা টাইটেল মাদসারা-এবং দারুল উলুম বাগিছা মাদরাসা,সিলাম মাদরাসা সহ আরো অনেক মসজিদ- মাদরাসার শায়খুল হাদীস ও মুহতামিম হন। তিনি শায়খুল হাদীস আল্লামা নূর উদ্দীন আহমদ গহরপুরী (রহ:)
এর অন্যতম খলীফা ছিলেন।তিনি প্রথমে হযরত লুৎফুর রহমান বর্ণভী (রহ:) এর কাছে বায়াত হন । তার ইন্তেকালের পর আল্লামা নূর উদ্দীন আহমদ গহরপুরী (রহ:) এর কাছে বায়আত গ্রহণ করেন। ১৯৮৩ ইং সালে গহরপুরী (রহ:) কাছ থেকে ইযাযত প্রাপ্ত হন। গহরপুরী (রহ:) এর স্বংস্পর্শে থেকে আজ তিনি সিলেটের সীমানা পেরিয়ে বাংলাদেশের তথা বহির্বিশ্বেও খ্যাতি অর্জন করেছেন।
লেনদেন:
মরহুম মইজপুরী (রহ:) এর মাঝে আমানত দারি ছিল বিরল,কেউ টাকা পয়সা হুজুরকে দান করলে,হুজুর প্রথমে জিজ্ঞাস করতেন,টাকা কোথায় দান করেছেন, মাদরাসায় না আমাকে? যদি হুজুর জানতেন মাদরাসায় সাথে সাথে রিসিট কেটে রাখতেন,মাহফিলে বা ব্যক্তিগত কেউ টাকা দিলে জিজ্ঞেস করে তখন উক্ত টাকা উনার পাঞ্জাবীর ডান পকেটে রাখতেন,
আর নিজের হলে বাম পকেটে রাখতেন, যাতে টাকায় গড়মিল না হয়। হিসাব নিকাশের ক্ষেত্রে এতটাই বিচক্ষণতা ছিল,যে কেউ আশ্চর্য হয়ে যেতো।
পরিবার:
১৯৭৫ ইং সালের গহরপুর মাদরাসার বাৎসরিক জলসার মঞ্চে তার বিবাহের আকদ সম্পন্ন হয়। আকদ পড়ান শাইখুল হাদীস আল্লাম নূরউদ্দীন আহমদ গহরপুরী (রহ:)এবং দোয়া করেন বরুনার পীরসাহেব শায়েখ লুৎফুর রহমান (রহ:)। ঐ সময় মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন, শায়খুল মাশায়েখ আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (রহ:) ।
সন্তানগন:
হাফিজ মাওলানা জুনায়েদ আহমদ, রশীদ আহমদ ফুজায়েল,
মাওলানা হুছাইন আহমদ। ৬ কন্যা সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন।

১৯৯১ ইং সালে আল্লামা নূর উদ্দীন আহমদ গহরপুরী এর সাথে প্রথম হজ আদায় করেন।
এর পর ধারাবাহিক নয়(৯) বার গহরপুরী (রহ:) এর সাথ হজ করার সৌভাগ্য হয়।
পরে ১৯৯১ইং-২০১৮ ইং পর্যন্ত সর্বমোট (১৮) আটার বার হজ পালন করেন। এছাড়াও উমরা পালন করেন আনেক বার।

এজাযত প্রাপ্ত খলিফাগন:
মরহুমের খলীফাগণের মধ্যে কয়েক জনের নাম এখানে দেওয়া হল:
১| মাও: নিয়ামত উল্লাহ সাহেব, ছাতক- সিলেট
২|হা: মাও: যুবায়ের আহমদ আনসারী, বি-বাড়িয়া,
৩| মাও: আ: হাই সাহেব, উমরপুর,ওসমানী নগর- সিলেট
৪|মাও: আ: রহমান সাহেব,কলুমা,বালাগন্জ – সিলেট
৫|মাও: আব্দুল কাইয়ুম সাহেব,হাজিপুর- বালাগন্জ- সিলেট,
৬|হা: মাও জুনায়েদ আহমদ (সাহেবজাদা)

মাদরাসা পরিচালনা:
১৯৮৮ইং সালে জামেয়া মিফ্তাহুল উলূম আতাপুর মাদরাসা,কালিগঞ্জ বাজার,বিশ্বনাথ,সিলেট-এর পরিচালনা দায়িত্ব হুজুরের অর্পণ করা হয়। ১৯৮৮ইং সাল থেকে ১৫-১২-২০১৯ ইং পর্যন্ত একাধারে (৩২)বছর এহতেমামের দায়িত্ব পালন করেছেন।
২০০৪ইং সালে দারুল উলুম হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা:) মহিলা টাইটেল মাদরাসা কালিগঞ্জ বাজার প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৬ ইং সালে দারুল উলুম মাদরাসা বাগিছা বাজার, বিশ্বনাথ তার তত্বাবধানে প্রতিষ্ঠিত হয়।

এই সংবাদটি 44 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com