বৃহস্পতিবার, ১৬ জানু ২০২০ ০৮:০১ ঘণ্টা

যে কারণে বক্তা আজহারিকে নিয়ে বিতর্ক

Share Button

যে কারণে বক্তা আজহারিকে নিয়ে বিতর্ক

সিলেটরিপোর্টঃ নরসিংদীর পরে সিলেটে আলোচিত বক্তা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর সকল ওয়াজ মাহফিল নিষিদ্ধ করেছে প্রশাসন। ১৫ জানুয়ারি বুধবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সিলেটের ৩ উপজেলার আলেম, জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদদের সাথে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সিলেটের আগে নরসিংদীর বীরপুরের মাহফিলে আজহারীকে নিষিদ্ধ করেছিলো প্রশাসন। এর আগে সিক্স প্যাক বিতর্ক নিয়ে আলোচনায় আসেন মিজানুর রহমান আজহারি। এনিয়েও তার সাথে আলেমদের দ্বিমত হয়।
জানাগেছে,আগামী ২০ জানুয়ারি সিলেট কানাইঘাটের মুকিগঞ্জ বাজার জামেয়া মাঠে অনুষ্ঠিতব্য তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে আসার কথা ছিল তার। তবে আজাহারির আগমনের সংবাদ নিয়ে ইতোমধ্যে কানাইঘাটে দেখা দিয়েছে উত্তেজনা। মাহফিলের পক্ষে-বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন উপজেলার জামায়াত সমর্থিত আলিয়া ও কওমিপন্থী আলেম-ওলামা এবং দু’পক্ষের সমর্থকরা।
ওই দিন দরবস্তের হাজারী সেনাগ্রাম মাঠে ও সিলেটের ওসমানীনগরসহ ৩টি মাহফিলে তার বয়ান রাখার কথা ছিল। আজহারি সিলেটে আসছেন এমন খবরে গত দুই দিন থেকে কানাইঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলার মানুষের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছিল। তাকে প্রতিহতের ডাকও দিয়েছিলেন কানাইঘাট ও জৈন্তাপুরের মানুষ। এদিকে উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার বিকেল ৩ টায় জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম সিলেটের আলেম সমাজ, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদদের নিয়ে এক বৈঠক করেন।
বৈঠকে মিজানুর রহমান আজহারীর বিভিন্ন বিতর্কিত ওয়াজ নিয়ে আলোচনা করা হয়। হযরত আলী (রা.) মদ খেয়ে নামাজে দাঁড়িয়ে ছিলেন, বিবি খাদিজা (রা.) তালাকপ্রাপ্ত, নবী (স.) এর শরীর ৬ প্যাক ছিল, পর্দা নিয়ে অহেতুক ও বিতর্কিত ওয়াজ করায় আলেম সমাজে নানান প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। সভায় আলেমগণ বলেন, এরকম ওয়াজ সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।
সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, যেহেতু তার বয়ান বিতর্ক তৈরী করছে, সুতরাং সিলেটে আজহারীর অনুষ্টিতব্য সকল মাহফিলে তিনি উপস্থিত থাকতে পারবেন না। ভবিষ্যতে তাকে নিয়ে সিলেটে কোন ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করলে প্রশাসনের অনুমতি নিতে হবে প্রথমে। কেবল প্রশাসন অনুমতি দিলে সিলেটে তিনি ওয়াজ মাহফিলে বয়ান করতে পারবেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম, সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন, দারুল উলুম কানাইঘাট মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আলীম উদ্দিন দুর্লভপুরী, হরিপুর মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা হিলাল আহমদ, হেমু দারুল উলুম মাদ্রাশার মুহতামিম মাওলানা জিল্লুর রহমান, দরবস্ত মাদ্রাশার মুহতামিম মাওলানা আবু হানিফ, জৈন্তাপুর লাম্নিগ্রাম মাদ্রাশার মুহতামিম আব্দুল জব্বার, হরিপুর মাদ্রাশার শায়খুল হাদিছ মাওলানা নজরুল ইসলাম, জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আলা উদ্দিন, যুগ্ন সম্পাদক ফয়েজ আহমদ বাবর, উপদপ্তর সম্পাদক জাকারিয়া মাহমুদ, কানাইঘাট উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ সাকের, কানাইঘাট আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, চতুল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, ব্যবসায়ী ফারুক আহমদ। এছাড়া জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, এবং সংশ্লিষ্ট থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্যযে, ২০ ডিসেম্বর ২০১৯ সদর উপজেলার বীরপুর এলাকার মাঠে বীরপুর বাইতুন নূর জামে মসজিদের উদ্যোগে ১১তম বার্ষিক ইসলামী মহাসম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছিলেন মাহফিল কর্তৃপক্ষ। এব্যাপারে নরসিংদী মডেল থানার ওসি সৈয়দুজ্জামান জানান, মিজানুর রহমান আজহারীর আগমনকে ঘিরে প্রতিবাদমুখর হয়ে নরসিংদী প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে বিশ্ব সুন্নী আন্দোলন এর নরসিংদী জেলা শাখা। বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে মিজানুর রহমান আজহারীকে ইসলামের শত্রু আখ্যা দিয়ে তার সভা বন্ধের দাবী জানানো হয়। তাদের পক্ষ থেকে জেলা পুলিশ বরাবরে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়। এতে আইন শৃঙ্খলার অবনতির আশংকার কারণে আজহারীকে উক্ত মাহফিলে নিষিদ্ধ ঘোষনা করেন প্রশাসন।
অনুসন্ধানে জানাগেছে, ইসলাম ধর্মনিয়ে আপত্তিকর বক্তব্যে কারনেই আজহারির বিরুদ্ধে কওমি পন্থী আলেমগন এবং আলিয়া মাদরাসাপন্থীর একাংশ (সুন্নী) নেতারা তার বিরুদ্ধে কয়েকটি অভিযোগ এনেছেন। জনপ্রিয় সামাজিক গণমাধ্যম ফেসবুকে এনিয়ে রীতিমতো গতকাল থেকে তুমুল বিতর্ক চলছে। এখানে কয়েকটি স্ট্যাটাস পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:
#DrHussain Ahmed
লিখেছেন-

গতকালকের ডিসি অফিসের সম্পূর্ণ মতামত;
১)জৈন্তাপুর ;
আযহারী বানোয়াট কথাবলেন,উনি বিতর্কিত বৃহত্তর জৈন্তার উলামাদের মত হলো উনি আমাদের এলাকায় আসলে সংঘর্ষ হবে।
বিগত বছর রাসূল নূরের তৈরি না,মাটির তৈরি এ বিষয় নিয়ে মতবিরোধ হওয়ায় একজন নিহত হয়েছে আযহারি আসলে এরকম কিছু হতে পারে।
২)চতুলি হুজুর;
আযহারী উদ্ভট ফতুয়া দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন,স্বাধীনতা বিরুদী কথা বলেন,বর্তমান সরকারের সমালোচনা করেন।
৩)দূর্লভপুরী;
আযহারী মওদূদীর বক্ত,জামাতের লোক,সাঈদীর অনুসারী।
৪)জৈন্তা উপজেলা চেয়ারম্যান ;আমি সবার চেয়ারম্যান এবং তাফসির মাহফিলের সভাপতি, আমি নিরপেক্ষ ডিসি মহোদয় যে সিদ্ধান্ত দিবেন তা মানবো।
৫)ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আব্বাস ভাই,আমি এই এলাকার সন্তান, বিগত ১৫ বছর থেকে
এখানে তাফসির হচ্ছে এমনকি বিগত বছর আযহারি সাহেব ছিলেন, তিনি কোন বিতার্কিক কথা বলেন নি।
আমরা ৮ এবং ৯ নং দুই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দায়িত্ব নিলাম এখানে কোন সমস্যা হবেনা, যদি হয় আমরা জবাবদিহি থাকবো আপনারা দয়া করে অনুমতি দিন।
৬)ইসলামী ফাউন্ডেশনের ইমাম ;এ মাহফিলের মাধ্যমে ইসলামের খেদমত হয় এগুলো অনেক ভালো বিতার্কিক বিষয় এড়িয়ে চলার সুপারিশ করেন এবং অনুমতি দেন।
৭)কানাইঘাট ওসি ;
ডিসি মহোদয় অনুমতি দিলে আমরা নিরাপত্তার বিষয় ব্যবস্হা নিবো।
৮)জৈন্তা ওসি;আমি হিন্দু লোক ইসলাম সম্পর্কে তেমন ধারণা নেই। ডিসি মহোদয় যা আদেশ করবেন তা যথাযথ পালান করবো।
৯)জেলা পুলিশ সুপার;
আমি অবাক হই যখন দাড়িটুপি মাথায় দিয়ে আপনারা একজন আরেকজনের সমালোচনা করেন,কুরআনের মাহফিল বন্ধ করতে আসেন তখন আমরা খুবই মর্মাহত হই।
এখানে কুরআনের কথা হয় মানুষ উপক্রিত হয় সেখানে আমি মুসলমান হয়ে বাধা কেন দিবো।
আমি বিষয়টি ডিসি মহোদয়ের কাছে ছেড়ে দিলাম উনি যেটি সিদ্ধান্ত দিবেন আমরা তা মেনে নিবো।
১০)সর্বশেষ ডিসি মহোদয় ;আমি কি জবাব দিবো আমরা সাধারণ মানুষ, আপনারা আলেম আপনাদের কাছথেকে আমরা ভালো কিছু শিখবো,উপদেশ গ্রহণ করবো আপনারা যদি এমন করেন তাহলে আমরা জাবো কোথায়।
এ দেশে তাবলীগে মাধ্যমে, আযানের মাধ্যমে, ওয়াজ মাহফিলের মাধ্যমে ইসলামের কাজ হয় তা খুব ভালো।
আমি আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি আমরা যেহেতু নিরাপত্তার দায়িত্বে কাজ করি তখন আমাদেরকে বিভিন্ন পরিস্হিতির সম্মুখীন হতে হয়।
যেহেতু এটা বিতার্কিক বিষয়, এখানে সংঘর্ষ হওয়ার সম্ভাবনা আছে তাই আমি মাহফিল হবে এই অনুমতি দিতে পারছি না।
তবে যাতের পক্ষে রায় গেছে তারা অতি উৎসাহি হয়ে অপর পক্ষকে গায়েল করবেন না।
আর যারা মাহফিল কমিটি আপনারাও মর্মাহত হবেন না।
আযহারি সাহেব ছাড়া অন্য কোন বক্তা নিয়ে আসেন আমরা সার্বিক সহযোগীতা করবো।
আপাততো ২০ তারিখ জৈন্তা,কানাইঘাট,এবং কোম্পানীগঞ্জের কোন মাহফিল হবে না।
ধন্যবাদ সবাইকে।।
এই ছিলো ডিসি অফিসের মূল আলেচনা।

Rezaul Karim Abrar

আমাদের পাশের গ্রামে মিজানুর রহমান আজহারি সাহেবের মাহফিল ছিল ২০ তারিখে৷ উলামায়ে কেরামের আপত্তির কারণে সিলেটের জেলা প্রশাসক সে মাহফিল বন্ধ করে দিয়েছেন৷

এ ঘটনার কারণে জামাত শিবিরের ভাইরা কওমি আলেমদের ধুয়ে দিচ্ছেন৷ জৈন্তার শীর্ষ আলেমদের ফেরাউন আবু জাহেল বানিয়ে ছাড়ছেন৷

অবশ্য তাদের গালিগালাজের কারণে আমি অবাক হই না৷ যাদের কলমের খোঁচা থেকে নবী, রাসুল এবং সাহাবিরা রক্ষা পাননি, তাদের কাছে আমি আপনে কে?

মিজানুর রহমান আজহারি গত বছরও আমাদের পাশের গ্রামে গিয়েছেন৷ লম্বা সময় বয়ান করেছেন৷ কেউ আপত্তি করে নি৷

বৃহত্তর জৈন্তায় প্রতিদিন জামাতের মাহফিল হয়৷ গত সপ্তাহে তারেক মনোয়ার সাহেবও গাছবাড়িতে বয়ান করেছেন৷ ড. জাকির আবদুল কারীম নায়েকের বিরোধীতা করার কারণে ইনিয়ে বিনিয়ে আমাদের কওমি আলেমদের মূর্খ প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন৷

মুখিগঞ্জের যে সংস্থার মাহফিলে আজহারি সাহেব যাওয়ার কথা ছিল, সে সম্মেলনে বছরতিনেক আগে জামাতের আবদুল্লাহ আল অামীন ভাই দাওয়াতে তাবলিগকে ধুয়ে দিয়েছিলেন৷

বিরোধের জায়গাটা মূলত আজহারি সাহেবের বিভ্রান্তিকর বক্তব্য৷ গত এক বছরে তিনি একেরপর এক কুরআন, সুন্নাহ বিরোধী বক্তব্য প্রদান করে সাধারণ মুসলমানদের মাঝে অস্থিরতা সৃষ্টি করেই চলছেন৷ মরহুম মওদুদির কলম থেকে যেমনভাবে আল্লাহ, নবী, রাসুল, সাহাবি কেউ রক্ষা পাননি, তেমনভাবে আজহারি সাহেবের বক্তব্য থেকে কেউ বাদ পড়েন নি৷

উলামায়ে কেরাম মনে করেছেন এ মুহূর্তে আজহারি সাহেব জৈন্তায় আসা সমীচিন নয়৷ কারণ, এখনো পুরো বাংলাদেশ থেকে বৃহত্তর জৈন্তা একটু ভিন্ন৷ জৈন্তার বহু বাজার এখনো এমন আছে, যেখানে টিভি রাখা নিষেধ৷ জৈন্তার রাস্তা ঘাটে চললে আমি পর্দাহীনতা দেখতে পারবেন না৷ যাত্রাগান, মদ, নাচ ইত্যাদি এখনো জৈন্তায় বাংলাদেশের সবচেয়ে কম৷

আমি কসম করে বলতে পারি, জৈন্তার এ পরিবেশ আকাবিরে দেওবন্দের তৈরী করা৷ তারা মনে করেছেন এ মুহূর্তে আজহারি সাহেব না আসা কল্যাণকর, জেলা প্রশাসক মাহফইল বন্ধ করে দিয়েছে৷

জৈন্তার আলেমরা সব সময় বাতিলের ব্যাপারে কঠোর৷ গত বছর বেদআতিদের মাহফিলে মাওলানা আবদুস সালাম হাফিজাহুল্লাহ সরাসরি প্রতিবাদ করেছিলেন৷ যার কারণে প্রিয়ভাই মুজ্জাম্মিল শাহাদাতবরণ করেছিল৷

প্রসঙ্গত একটি কথা বলে রাখি৷ কয়েকদিন আগে বেদআতিদের একটি মাহফিল হয়েছে জাফলংয়ে৷ আমরা কেন সেটা বন্ধ করিনি? অনেক ভাই জানতে চেয়েছেন৷

বেদআতিদের মাহফিল ছিল একেবারে গোপনে৷ আমরা আগেরদিন রাতে জানতে পারি৷ তারপরও আমরা প্রতিবাদ করেছি৷ মাহফিলের দুই একদিন পর বৃহত্তর জৈন্তার প্রায় দুইশোজন তরুণ উলামা বসেছিলাম দরবস্ত আল মনসুর মাদরাসায়৷ বেদআতিদের ব্যাপারে সেখানে আমরা আমাদের করণীয় ঠিক করেছি৷ বেদআতিরা যদি আর কখনো আমাদের সাথে লিয়াজো করা ছাড়া মাহফিল করার দু:সাহস দেখায়, তাহলে কঠোর খেসারত দিতে হবে ইনশাআল্লাহ৷

মাওলানা আলিম উদ্দিন দুর্লভপুরি একজন প্রথিতযশা আলেমে দীন৷ শায়খুল ইসলাম আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরি রাহিমাহুল্লাহ এর হাতেগড়া ছাত্র ৷ ফেদায়ে মিল্লাত আসআদ মাদানি রাহিমাহুল্লাহ এর অন্যতম খলিফা৷ শুরু থেকেই তিনি জামাতে ইসলাম এবং সালাফিদের ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে৷

মিজানুর রহমান আজহারি সাহেব না আসার জন্য তিনি কথা বলেছেন৷ বরেণ্য আলেম হওয়ার কারণে জেলা প্রশাসক তার অনুরোধ রেখেছেন৷

প্রিয় জামাত শিবিরের ভাইরা, পাঁচ বছরের আগের কথা মনে পড়েছে মনসুরিয়া কামিল মাদরাসার পাশে আপনারা দুর্লভপুরি হুজুরকে বহনকারী মটর সাইকেলে পেছন থেকে আক্রমন করেছিলেন৷ সে দিন কী ছিল তার দোষ?

মওদুদি সাহেবের ভ্রষ্টতা নিয়ে কথা বলার কারণে আপনারা খুবলে খেতে চেয়েছেন মাওলানা সাইফীকে৷ বারংবার জিম্মি করে ভাংচুর করেছেন মাওলানা ইয়াহইয়া মাহমুদের গাড়ি৷ মাওলানা হারুণ সাহেবের অনভিপ্রেত বক্তব্যের কারণে ভেঙ্গে দিয়েছিলেন আমাদের মাদরাসার বার্ষিক মাহফিলের মঞ্চ৷ সেদিন আপনারা উপমহাদেশের শীর্ষ হাদিস বিশারদ আল্লামা ইসহাক রাহিমাহুল্লাহ এর অনুরোধ রাখেননি৷

একটি কথা পরিষ্কার করে বলি৷দেওবন্দিরা কোন ব্যক্তির আদর্শ লালন করে না দেওবন্দিয়ত একটি চেতনার নাম৷ আর কওমি মাদরাসা কখনো জামাত নির্ভর নয়৷ আপনারা হুমকি দিচ্ছেন, টাকা পয়সা দিবেন না৷ দিয়েন না৷ শত বছর থেকে হাজার ঝড় ঝাপ্টা উপেক্ষা করে কওমি মাদরাসা স্বমহিমায় দাঁড়িয়ে আছে৷ আপনারা না দিলে কওমি মাদরাসা থমকে দাঁড়াবে না ইনশাআল্লাহ৷
1.4KYou,

সুলতান মাহমুদ বিন সিরাজ#লিখেন
আজহারীর অন্ধভক্তদের প্রতি….
তোমরা তোমাদের বিবেককে জাগ্রত করে ঈমানের দৃষ্টিকোণ থেকে বলো এগুলো কি সঠিক?
আজহারী সাব বলেছেন:
০১.তারাবির নামাজ ৪ রাকাত আদায় করলে হয়ে যাবে। (নাউজুবিল্লাহ)
এই জঘন্য ফতোয়া উনি কোথায় পেলেন?
০২.সুন্নাতে মুয়াক্কাদা নামাজ না পড়লেও কোনো
গুনাহ হবে না।(নাউজুবিল্লাহ)
এমন ফতোয়া কোন ফাসেক ব্যতীত কোন নিম্নমানের আলেমও কখনো দিতে পারে না।
০৩.মহিলারা রাস্তা-ঘাটে,হাট-বাজারে যেখানেই যাবে চেহারা ও হাত খোলা রাখবে কোন সমস্যা নেই।
তাঁর মতে চেহারার পর্দা করা কোনো জরুরী বিষয়
নয়। (নাউজুবিল্লাহ)
০৪.প্রজেক্টেরের মাধ্যমে মহিলাদেরকে বয়ান শোনানো জায়েজ। (নাউজুবিল্লাহ)
আজহারী শাব! আপনি নিজেই মহিলাদের প্যান্ডেলে গিয়ে বয়ান করলেই তো পারেন। পর্দার দরকার কী?
০৫. রাসুল সা.মক্কী জীবনে টেস্ট ইনিংস খেলেছেন,
আর মাদানী জীবনে ছক্কা মেরেছেন।
বল বাউন্ডারির বাইরে পাঠিয়েছেন। (নাউজুবিল্লাহ)
কীসের সাথে কীসের তুলনা!!
০৬. রাসুল সা. এর বডি ছিল বডি বিল্ডারদের মত সিক্স প্যাক। (নাউজুবিল্লাহ)
০৭. খাদিজাতুল কুবরা হলেন তিনবার তালাকপ্রাপ্ত বৃদ্ধা মহিলা। তিনি ছিলেন পৌঢ়া। ইনটেক বা ভার্জিন ছিলেন না। (আসতাগফিরুল্লাহ)।
কোনো হাদিসের কিতাবে খাদিজাতুল কুবরা (রাঃ)
এর তালাকের কথা পাওয়া যায়নি,হাদিসে শুধু বিধবা কথাটি পাওয়া যায়।
আল্লাহ্ মাফ করুন। অথচ রাসুল সা.খাদিজাতুল কুবরা (রাযি.) কে তাহেরা বলে ডাকতেন। যার অর্থ হল পুত:পবিত্রা নারী। তাঁর জীবদ্দশায় আল্লাহ তায়ালা তাকে সালাম পাঠিয়েছেন।
০৮. আল্লাহ ও রাসুল (সা.) এর শানে ‘আবে হালা’ শব্দ ব্যবহার!
০৯.আলী (রাযি.)শানে বেয়াদবী! মদ খেয়ে মাতাল হয়ে নামাজে দাঁড়িয়ে মাতলামি করে! (নাউজুবিল্লাহ)
এসব কাণ্ডজ্ঞানহীন কথা বলার পরেও যারা আজহারিকে নির্দোষ প্রমাণ করতে ওঠে পড়ে লেগেছে,হক্কানী ওলামায়ে কেরামদের গালাগালি করতেছে; তারা গণ্ডমূর্খ ছাড়া আর কিছুই নয়।
১০.উনি ওয়াজের মাহফিলে ছায়া ছবির গান গেয়ে স্রোতাদের বললেন,আলহামদুলিল্লাহ বলতে!
গান শুনা,গান গাওয়া,গান গেয়ে আলহামদুলিল্লাহ
পড়া কি জায়েয?? বলো!
কমেন্টে মুর্খতা ও নোংরামির পরিচয় দিবেন না। যোগ্যতা থাকলে কুরআন-হাদিসের দলিল সহকারে
কথা বলার চেষ্টা করবেন।আল্লাহ আমাদের সঠিক বুঝার তাওফিক দান করুন।

Mjh Jamil বিরোধিতাকারীরা কারা জানলেই ত সব ক্লিয়ার হবে। প্রথমে ভন্ড মাজারপুজারীরা, তারপর পীরপুজারীরা, তারপর এক সময়ের কতিপয় জনপ্রিয় বক্তারা, এখন গুটি কতেক কওমী আলেম রা। যারা হেফাজতের আন্দোলনের সময়ও শাহবাগীদের পক্ষে ছিল। সকল নির্বাচনে শুধু জোট না জমিয়ের প্রার্থীরও বিপক্ষে ছিল, শুধু তাই না বিগত দিনে সাবেক একজন জমিয়তি এমপিকে যা তা করে গালিগালাজও করেছিলো। বিশ্বাস না হলে পাশা ভাইয়ের গতকালের পোষ্টের কমেন্ট বক্স টা একবার ঘুরে আসুন।

Ruhul Amin Nagoryলিখেন

বিষয়টি পরিস্কার করা উচিত…
আজহারী সাহেবেকে কেনো পুর্বসিলেটের উলামায়ে কেরাম নিষেধ করলেন,বিষয়টি পরিস্কার করা উচিত। সাধারণ মানুষের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি সৃষ্টি হচ্ছে। মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে। সম্মেলন আয়োজকরা আলেমদের সাথে যোগাযোগ করে কারণ জেনে নিয়ে সমাধানের পথ-পন্থা বের করতে পারেন। অপর দিকে উলামায়ে কেরামের উচিত -কারণ তুলে ধরে বক্তাকে (ভুল হলে) শোধরানোর সুযোগ করে দেয়া। কারণ ধর্মীয় বিষয় নিয়ে অহেতুক একপক্ষ অন্যপক্ষকে ঘায়েল করুন এটা অন্তত কোন মুমিনের কাম্য হতেপারেনা। এতে ইসলাম বিদ্বেষীরাই লাভবান হচ্ছে। আল্লাহপাক সকলকে সঠিক বুঝ+র্ধৈযধারন করার তাওফিক দিন।

কে এম তাহমীদ হাসান-লিখেন
কেন উলামায়ে কেরাম আযহারী সাহেবকে না আনতে বলছেন?

এগুলা পড়েও যারা আযহারী সাহেবের পক্ষ নিয়ে ওলামায়ে কেরামদেরকে নিয়ে বিরোপ মন্তব্য করছেন, বুঝে নিতে হবে এরা একজনও ইসলামের বন্ধু নয়। তারা ইসলামের আদর্শ মেনে নিতে পারে নাই। তারা ব্যাক্তির আদর্শ বাস্তবায়নেই এসব করছে। আসলে ওরা ব্যক্তিপূজারী মুনাফিক।
তা না হলে এসব মুর্খরা হক্কানী ওলামায়ে কেরামদের নিয়ে এসকল ভাষা উচ্চারণ করতো না।
তাদের ভাষা পড়েই উপলব্ধি করা যায় যে, সয়তান ওদেরকে কথটা ব্যক্তিপূজারী করেছে। আসলে সয়তান ওদের মাথায় হয়তো পায়খানা করে দিয়েছে।

মাওলানা আযহারী সাহেব- আল্লাহ তাঁকে সুমতি দিন- ব্যক্তি হিসেবে একজন ভালো মানুষ। অত্যন্ত মিষ্ট ও ভদ্রতার সাথে কথা বলেন। বাংলাদেশে তাঁর জমপ্রিয়তাও অনেক।
কিন্তু,

* তিনি রাসূলে কারীম – সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম- এর শানে অশুভনীয় ও বেমানান শব্দ প্রয়োগ করেছেন। যা একজন মুমিনের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

* তিনি সায়্যিদুনা আলী বিন আবি তালিব – রাযিয়াল্লাহু আনহু – র শানে বেয়াদবিমূলক শব্দ প্রয়োগ করেছেন এবং তাঁকে নিয়ে ” মদ খেয়ে মাতাল” এমন শব্দে উপহাস করেছেন।

* তিনি উম্মুল মুমিনীন সায়্যিদা খাদিজা – রাজিয়াল্লাহু আনহা – র ব্যাপারে এমন শব্দ বলেছেন, যা সমাজে অন্য(!) ধরণের মহিলাদের ক্ষত্রে ব্যবহার করা হয়।

* তিনি উম্মুল মুমিনীন সায়্যিদা আয়শা সিদ্দীকা – রাজিয়াল্লাহ আনহার -‘র ক্ষেত্রেও এমন শব্দ ব্যবহার করেছেন, যা সভ্য সমাজ সম্মানিত কারো ক্ষেত্রে ব্যবহার করেন না।

* তিনি হিজাব সহ আরো কয়েকটি বিষয়ে দুনিয়ার চার মাযহাবের ইমামদের বিপরীতে মাসআলা বলে মুসলিম সমাজে নতুনভাবে অনৈক্যের সৃষ্টি করছেন।

* তা ছাড়া তিনি মওদূদী সাহেবের অনুসারী জামায়াতে ইসলামী’র মানুষ। মওদূদীবাদীদের আকীদগত অসুবিদাগুলো প্রায় সকলেরই জানা।

সুতরাং যে মানুষটি এমন কাজ করছেন, তাঁকে অনূস্বরণের কোন যৌক্তিকতা নেই।

এদিকে জৈন্তার মানুষ তুলনামূলক ধর্মপ্রান। অনেক বড় বড় আলেম, মুজাহিদ ও বুযূর্গদের স্মৃতিবিজড়িত এই এলাকা। এখনো- আলহামদুলিল্লাহ- অনেক আলেম ও বুযূর্গানেদীন আছেন অত্রান্চলে।
আর আম জনতার দীন ও ঈমানের হেফাযতের জন্য স্থানীয় নির্ভরযোগ্য আলেমদের অনুস্বরণ নিতান্ত জরুরী।

তাই মাওলানা আযহারী সাহেবের ও উচিৎ, এখানে আসার জেদ না করা। আয়োজকদের উচিৎ, “উনাকে এনেই ছাড়বো” এমন মনোভাব পরিহার করা।

আল্লাহ তাআলা সবার সহায় হোন। আমিন।
Nazmul Islam Qasimiলিখেন-

ব্যাটা অতি উদারের ডিব্বা!
জামাত-শিবির আয়োজিত কোনো মাহফিল নিষিদ্ধ করার আন্দোলন কোনোদিনও কওমিরা করেনি। আজও না। এমনকি আজহারিকেও পূর্বে কখনো বাধা দেয়নি। গেলো বছর এই অঞ্চলেই আজহারি বয়ান করেছেন।
আরেকটা কথা-
ইতহাস সাক্ষী, সিলেট আলিয়া মাঠের বিশাল মহফিলে; কোনো কারণ ছাড়াই জামাত-শিবির কওমি ওলামায়ে কেরামের পিন্ডাল জ্বালিয়ে দিয়েছিলো।
ইতিহাস সাক্ষী-
কোনো কারণ ছাড়াই জামাত-শিবির বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান; হাটহাজারী মাদরাসার দরোজায় তালা দিয়েছিল।
কিন্তু কোনো সময়ই একটি বারের জন্য; কওমিরা তাদের সাথে এসব নেকড়ে আচরণ করেনি। আর করতেও যায়নি।

ভ্রান্ত চিন্তার পূজারিরা এখানে উদারতার নসিহত করো?
Abdul Karim Chy-লিখেন-

প্রিয় কওমী ভাইদের বলছি!
সময়ের স্বল্পতা বিস্তারিত বলার ফুরসত পাচ্ছি না। নিজস্ব গায়রত থেকে চিন্তা করবেন। নির্দিষ্ট একটা এলাকায় জামাত পন্থি একজন বক্তার মাহফিল বন্ধের পায়তারা কিছু সংখ্যক আলেম-উলামা ভূমিকা রেখেছেন। এতে অনেক অতি উদারপন্থী কওমী ভাইদের উদারতার ঢেউ বয়ে যাচ্ছে৷
কিন্তু একটু চিন্তা করছেন কি, ওরা আমাদের পুরা অঙ্গন নিয়ে কি অশ্রাব্য গালিগালাজ আর হুমকি / ধমকি দিচ্ছে ?যাইহোক, বিষয়টি শুরুতে আমার কাছে পছন্দ না হলেও ওদের অতিরঞ্জন থেকে এখন ঠিকই ভালো লাগছে। তার কারণ বলি। মাহফিল পুড়ানো / মাহফিল ভঙ্গ করা / কওমী মাদ্রাসায় হামলা করার ইতিহাস তো জামাতিরাই শুরু করেছিলেন। আমরা কি ইতিহাস ভুলে যাই??
১. ১৯৮৫ সালের ১০ ডিসেম্বর কারা উম্মুল মাদারিস হাটহাজারী মাদ্রাসায় হামলা করেছিল? একজন ছাত্র ভাইকে কারা শাহাদত বরণ করেছিল? এই সন্ত্রাসী সূচনা কারা করেছিল??
[[ সূত্রঃ হাটহাজারি মাদ্রাসার ইতিহাস -১৪৬ ]]
২. ১৯৯৬ সালে সিলেটের আলিয়া মাঠে মাওলানা আস’আদ মাদানীর মাহফিল কারা পুড়ে দিয়েছিল?? কারা দরগাহ মাদ্রাসার ছাত্রকে নৃশংসভাবে পিটিয়েছিল??
৩. কারা সিলেটের নেছারিয়া ফয়জে আম তালবাড়ি মাদ্রাসার মাহফিল স্টেইজ ভেঙ্গে দিয়েছিল??
[[ আমার প্রত্যক্ষ সাক্ষ ছিল ]]
আজকে যারা উদারতার নৃত্য কান্নাকাটি করছেন, তারা কি ভেবে দেখেছেন এই জঘন্য কাজের সূচনা কারা করেছিল? হিংসা-বিদ্বেষ কোথায় থেকে সূচিত হলো?
কওমী মাদ্রাসার সাথে জামাত-শিবিরের শত্রুতা কোন নতুন বিষয় না। বিশেষত, পূর্ব সিলেটের কানাইঘাটে মোটেও নব্য কিছু না। এ তো পুরাতন কাসুন্দি!
উদারতা দেখান ভালো। তবে চোখ বন্ধ করে না। আবেগ দিয়ে উদারতা হয় না, বাচালতা হয়৷ তাই গায়রতকে সামনে রেখে উদারতা দেখাবেন।

Abdul Karim Chy-
বিষয়টি দুঃখজনক!
তবে উদারতা দেখাতে গিয়ে পিছনের ইতিহাস ভুলে যাবেন না। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নেছারিয়া ফয়জে আম তালবাড়ি মাদ্রাসার বার্ষিক মাহফিলে হামলা চালিয়েছিল। আজও তা ভুলিনি। ওরা কখনো কওমীর খয়েরখাহী ছিল না, আজও না এবং ভবিষ্যতে ও শুভাকাঙ্ক্ষী হওয়ার সম্ভাবনা নাই৷
ইতিহাস থেকে নিয়ে আজ, যা দেখি সবই উভয় পক্ষে হিংসা, বিদ্বেষ আর শত্রুতায় ভরপুর।
মনে করুন, আজ যদি ওদের হাতে একটা চুলের ওজন পরিমান ক্ষমতা থাকতো, তাহলে আজ নিঃসন্দেহে কোন না কোন কওমী মাদ্রাসায় সন্ত্রাসীরা হামলা চালাতো। আর হামলার সম্ভাবনা ওদের উগ্র কর্মীদের কথাবার্তা ও ইঙ্গিতই বহন করে।
আর আজ যারা ফেইসবুকীয় বুদ্ধিজীবী সেজে বিষয়টা ইন-জেনারেল করে ঢালাওভাবে পুরা কওমী অঙ্গনকে প্রশ্নবিদ্ধ ও তুলকালাম করছেন৷ উনাদের বিবেক-বুদ্ধি আর বিচারিক ক্ষমতায় হতভম্ব।
উভয় পক্ষের অশালীন মন্তব্য ও তীর্যক গালাগালির কারণে পারস্পরিক দূর‍ত্ব ও সৌহার্দ্য আচরণ আরো দূরে চলে এলো। উভয়ই বাড়াবাড়িতে লিপ্ত৷ তবে পিছনে যারা সন্ত্রাসী করেছে, আমি তাদের ভুলি নি৷

#এইচ এম আব্দুস সালাম #
বাংলাদেশের শীর্ষ আলিমগণের দৃষ্টিতে মওদুদি মতবাদ
১. জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররম এর খতিব আল্লামা উবায়দুল হক রাহ. বলেন, এই বিষয়ে আমাদের সবাই একমত যে মওদুদি তার তাফসির এবং বিভিন্নগ্রন্থে এমন এমন মন্থব্য করেছেন, যা সাধারণ ইসলামি মতবাদের পরিপন্থী। আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাতের পরিপন্থী যা আমরা কখনো সমর্থন করি নি।এখনও করব না।
(দৈনিক যুগান্তর ১২/১২/২০০৩)
২. বাংলাদেশের শীর্ষ আলিম বি বাড়ীয়ার বড় হুজুর আল্লামা সিরাজুল ইসলাম রাহ. বলেন, মওদুদি চিন্তাধারা কোনো দ্বীন নয়। এটা ওরিয়েন্টালিষ্ট একজন রাইটারের প্রতিষ্ঠিত। মানুষকে গোমরাহ করার একটা অস্ত্র। জামাতে ইসলাম যতদিন মওদুদিবাদকে বর্জন করবে না, ততদিন আমাদের এ ফতোয়া বলবৎ থাকবে।

(দৈনিক যুগান্তর ১৯/৯/২০০৩)

৩. শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক রাহ. বলেন, জামাতে ইসলামির উচিৎ মওদুদিকে নিয়ে সামনে আগানোর চেষ্টা না করা।

(দৈনিক যুগান্তর ৫/১২/২০০৩)
মজার কথা শুনবেন? জামাতিরা আরো অনেক অনেক আগে ঘোষণা দিয়েছে, জামাতে ইসলামি ও মওদুদি এক ও অভিন্ন।
(দৈনিক ইনকিলাব ১৫/৬/১৩৯৮ বাংলা)

৪. আল্লামা মুহি উদ্দিন খান রাহ. বলেন, বাংলাদেশে সত্যিকারের ইসলামি আন্দোলন এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা হলো ইহুদি নাসারাদের ইঙ্গিতে পরিচালিত জামাতে ইসলামি। এই দলটি প্রকৃত ইসলামি আন্দোলন থেকে মানুষের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে সরিয়ে রাখার লক্ষ্যে কাজ করে চলছে।
(দৈনিক যুগান্তর ৮/১২/ ২০০৩)
Mijan Bin Ibrahim #মিজানুর_রহমান_আজহারির_কয়েকটি_ গোমরাহী_বক্তব্যঃ

১) তারাবির নামাজ ৪ রাকাত পরলেও হয়ে যাবে।(নাউজুবিল্লাহ)।
এই জঘন্য ফতোয়া এই জ্ঞান পাপীর আগে আর কোন আলেম কখনো দিয়েছেন বলে আমার জানা নাই।

২) সুন্নতে মুয়াক্কাদা নামাজ না পড়লেও কোন গুনাহ হবেনা।(নাউজুবিল্লাহ)
অথচ এমন ফতোয়া কোন ফাসেক ব্যক্তি ব্যতীত কোন নিম্নমানের আলেমও কখনো দিতে পারেনা।

৩) মহিলারা রাস্তা-ঘাটে, হাট-বাজারে যেখানেই যাবে চেহারা ও হাত খোলা রাখবে কোন সমস্যা নেই।
তার মতে চেহারার পর্দা করা কোনো জরুরী বিষয় নয়।(নাউজুবিল্লাহ)

৪) প্রজেক্টেরের মাধ্যমে মহিলাদেরকে বয়ান শোনানো জায়েজ।(নাউজুবিল্লাহ)
তাহলে আপনি নিজেই মহিলাদের প্যান্ডেলে গিয়ে বয়ান করলেই তো পারেন। পর্দার দরকার কি?

৫) রসূল (সাঃ) মক্কী জীবনে টেষ্ট ইনিংস খেলেছেন, আর মাদানী জীবনে ছক্কা মেরেছেন।
বল বাউন্ডারির বাইরে পাঠিয়েছেন।(নাউজুবিল্লাহ)
আচ্ছা ভাই আজহারী! আপনি কি রসূলের জীবনকে ক্রিকেট খেলার মাঠ মনে করেছেন নাকি?

৬) রসূল (সঃ) এর বডি ছিল বডি বিউল্ডারদের মত সিক্স প্যাক। (নাউজুবিল্লাহ)

৭) খাদিজাতুল কুবরা হলেন তিনবার
তালাক খাওয়া বৃদ্ধা মহিলা। তিনি ছিলেন পৌঢ়া।
ইনটেক বা ভার্জিন ছিলেন না। (আসতাগফিরুল্লাহ)।
কোনো হাদিসের কিতাবে খাদিজাতুল কুবরা (রাঃ) এর তালাকের কথা পাওয়া যায় নি, হাদিসে শুধুমাত্র বিধবা কথাটি পাওয়া যায়।
আল্লাহ্ মাফ করুন। অথচ রাসুল সাঃ খাদিজাতুল কুবরা (রাঃ) কে তাহেরা বলে ডাকতেন। যার অর্থ হল পুত:পবিত্রা নারী। তাঁর জীবদ্দশায় আল্লাহ তায়ালা তাকে সালাম পাঠিয়েছেন।

৮) আল্লাহ ও রসূল (সঃ) এর শানে আবে হালা শব্দ ব্যবহার।
৯) আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রাঃ) এর শানে বেয়াদবী,আব্দুল্লাহ (রাঃ) মদ খেয়ে ওমর (রাঃ) কে গালি দিয়েছেন।
১০) আলী (রাঃ) শানে বেয়াদবীঃ মদ খেয়ে মাতাল হয়ে নামাজে দাঁড়িয়ে মাতলামি করে । (নাউজুবিল্লাহ)

এসব বিবেকহীন কথা বলার পরেও যারা আজহারিকে নির্দোষ প্রমাণ করতে উঠে পড়ে লেগেছে, আলেম ওলামাদেরকে গালাগালি করতেছে, তারা গন্ড মূর্খ ছাড়া আর কিছুই নয়।
আমাদের প্রিয় নবী সাঃ এর শানে,বিবি খাদিজার শানে,সাহাবীদের শানে বেয়াদবি মুলক বিতর্কিত বক্তব্য দিয়েই যাচ্ছেন,

আমি ব্যক্তিগত ভাবে উনাকে পছন্দ করি,কারন উনি বেদাতি নন,মাজার পুজারি নন,লা মাজহাবি নন,কম কথায় ইসলামিক অনেক বিষয় সুন্দর ভাবে গুছিয়ে বলেন সেজন্য,তবে অন্ধবক্ত নয় উনার বিতর্কিত বক্তব্য গুলো মোটেই সমর্থন করিনা,

উনার মাহফিলে বাধাগ্রস্ত করা কিংবা ঠেকানো কোন সমাধান নয় বরং উনার সাথে বসে আলোচনার মাধ্যমে কথা বললে অনেক ফায়দা হবে,

আর জামায়াতের ভাইরা জানিনা কেনো এরকম নোংরা ভাষায় কমেন্ট করতেছেন এটাই কি ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা,আপনারা কি উনার বিতর্কিত বক্তব্য গুলোকে মেনে নিয়েছেন, যদি না করেন তাহলে আপনারাও এ ব্যাপারে সচেতন হোন, আমার মনে হয় উনি যদি বিতর্কিত বক্তব্য দেওয়া থেকে বিরত হোন কেউ উনাকে মাহফিলে বাধা দিবেনা বরং আগের মতই সহযোগীতা করবে, সকলের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক, কাদা ছুড়াছুঁড়ি বন্ধ হোক।
#https://www.youtube.com/watch?v=7hhpcG7Zmg4

এই সংবাদটি 1,593 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com