বুধবার, ২৩ নভে ২০১৬ ১২:১১ ঘণ্টা

অং সান সুচির কবিতা প্রত্যাহার করলেন মুহিত চৌধুরী

Share Button

অং সান সুচির কবিতা প্রত্যাহার করলেন মুহিত চৌধুরী

সিলেট রিপোর্ট: নোবেল বিজয়ী মিয়ানমারের কথিত ‘অবিসংবাদিত নেত্রী’ ও ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমো্ক্রেসীর চেয়ারপারসন অং সান সুচিকে নিবেদিতকরে রচিত একটি কবিতা ২১ বছর পরে প্রত্যাহার করেছেন  সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি,বিশিষ্ট লেখক- কবি মুহিত চৌধুরী। একই সাথে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রত্যাহারের ও আহবান জানান তিনি। সিলেটে অনলাইন মিডিয়ার পরিচিত মুখ, গীতিকার কবি মুহিত চৌধুরী নিজ ফেসবুক আইডি
https://www.facebook.com/muhit.chowdhury.14/posts/1205998352815747?comment_id=1206372319445017&notif_t=feed_comment&notif_id=1479873469035468&__mref=message_bubble

থেকে এবিষয়ে একটি পোষ্ট দেন। সিলেট রিপোর্ট ডটকম পাঠকদের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো:
১৯৯৪ সালের ২০ মার্চ লেখা আমার একটি কবিতার
শেষের কয়েকটি লাইন হলো:
“অনেক কবিতা লেখা হয়েছে
আসুন আমরা এবার নজরুলের মতো কবিতা লিখি
ওমরের মতো কবিতা লিখি,
নেলসন ম্যান্ডেলার মতো কবিতা লিখি
এবং অগ্নিকন্যা সুকীর মতো কবিতা আবৃত্তি করি”
আমি লেডি হিটলার সুকীর নাম আমার কবিতা থেকে প্রত্যহার করে নিলাম। নোবেল কমিটিকে অনুরোধ করবো তারাও যেন তার নোভেল প্রাইজটি প্রত্যহার করে নেয়। ”
জানাগেছে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গা মুসলমানদের প্রতি অমানবিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নিয়ে রাষ্ট্রিয় সন্ত্রাসের ফলে হাজার হাজার রোহিঙ্গ মানবেতন জীবন যাপন করছে। নাফ নদীতে শিশু,নারী,পুরুষের আহাজারী দেখেও যে নেত্রী নীরব তিনি আর যাই হোন অন্তত মানবতাবাদী নন। কবি মুহিত চৌধুরী সিলেট রিপোর্টকে জানান, গণতন্ত্রউদ্ধারে এই নেত্রীর বিরল সাহস ও ত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েই আমি দীর্ঘ প্রায় ২ যুগ আগে তাকে নিয়ে কবিতা রচনা করেছিলাম। আজ অসহায় মানবতার প্রতি সেই নেত্রীর অমানবিক আচরণ দেখে আমি ‘মানুষ,মানবতাবাদী একজন কবি হিসেবে আমি বিস্মিত’। তাই কবিতাটি প্রত্যাহার করলাম।

কে এই সুচি ?
অং সান সু চি (বর্মী: অউং শন্ সু ক্যণ্) ১৯৪৫ সালের ১৯শে জুন মায়ানমারের ইয়াংগুনে জন্ম। অহিংস গণতন্ত্রবাদী আন্দোলনকারী হিসেবে পরিচিত এবং মায়ানমারের ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্র্যাসির নেতা। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী এই নেতা ১৯৯০ সালে রাফতো পুরস্কার এবং শাখারভ পুরস্কার লাভ করেন। সামরিকতন্ত্রের বিপক্ষে অহিংস ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের জন্য ১৯৯১ সালে তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯২ সালে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের জন্য ভারত সরকার তাকে “জওহরলাল নেহেরু” পুরস্কার প্রদান করে।

নামকরণ :
অংসান সু চি নিজ পরিবারের তিন সদস্যদের কাছ থেকে তার নামের পদবী গ্রহণ করেন। তার পিতার কাছ থেকে “অং সান”, তার পিতার নানী থেকে “সু” এবং “চি” তার মা খিন চির থেকে। তাকে প্রায়শই ডাউ অং সান সু চি নামে ডাকা হয়।
ব্যক্তিগত জীবন:
রাজনীতিবিদ নন, সাধারণ গৃহবধূ হিসেবেই জীবন শুরু করেছিলেন সু চি। ব্রিটিশ নাগরিক মাইকেল অ্যারিসকে বিয়ে করেন ১৯৭১ সালে। বিয়ের এক বছর পরই প্রথম সন্তান আলেক্সান্ডারের জন্ম। দ্বিতীয় সন্তান কিমের জন্ম ১৯৭৭ সালে। ১৯৮৮ সালে তার মা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরলে তাঁকে দেখতে ছুটে আসেন দেশে। তখন দেশজুড়ে চলছিল গণতন্ত্রের দাবিতে আন্দোলন। সেই আন্দোলন থেকে নিজেকে গুটিয়ে রাখতে পারেননি । গঠন করলেন এনএলডি-ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি। রাজনৈতিক দল গঠন করে মুহূর্তেই চক্ষুশূলে পরিণত হলেন সামরিক জান্তার। ১৯৮৯ সালে গৃহবন্দী করা হলো তাঁকে। পারিবারিক জীবনেরও সমাপ্তি ঘটল সেখানেই। এরপর প্রায় দুই দশক গৃহবন্দী ও কারাগারে কাটালেন তিনি। স্বামীর সঙ্গে শেষ দেখা ১৯৯৫ সালের বড়দিনে হলেও ছেলেদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়নি। এর চার বছর পর স্বামী মারা যান।

এই সংবাদটি 1,072 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com