রবিবার, ০২ ফেব্রু ২০২০ ০৯:০২ ঘণ্টা

সিলেটে এক লিভারে জন্ম নেয়া দুই শিশুকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে স্থানান্তর

Share Button

সিলেটে এক লিভারে জন্ম নেয়া দুই শিশুকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে স্থানান্তর

.
ইলিয়াস মশহুদ: সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক লিভার নিয়ে জন্ম নিয়েছে জোড়া শিশু। শরীরের অন্যসব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আলাদা হলেও জোড়া লাগা দুই কন্যাশিশুর লিভার একটি। ‘নিওনেটাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট-এনআইসিইউ’ না থাকায় ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জোড়া লাগা শিশু দুটিকে আলাদা করা সম্ভব হয়নি। ফলে তাদের পাঠানো হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

সিলেটে এক লিভারে জন্ম নেয়া জমজ দুই কন্যাশিশুকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে আজ।
এর আগে গতকাল ১ ফেব্রুয়ারি প্রসূতি মা ও জোড়া লাগানো দুই শিশুকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

আর্থিক সামর্থ্য না থাকায় শিশু দুটিকে আলাদা করার চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য সরকারের সহযোগিতা চেয়েছে জোড়া লাগা শিশুর কৃষক পরিবার।
হাসপাতালসূত্র জানায়, গত ২৫ জানুয়ারি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের ইসলামনগর গ্রামের দুবাই প্রবাসী হাফেজ মামুনুর রশীদের স্ত্রী ফাতেমা বেগমকে ভর্তি করা হয় এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ওইদিন দুপুরে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জোড়া লাগানো দুটি কন্যাশিশুর জন্ম দেন ফাতেমা। জন্মের পর থেকে গত এক সপ্তাহ শিশু দুটিকে রাখা হয় হাসপাতালের শিশু সার্জারি ওয়ার্ডের ইনকুভেটরে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চিকিৎসকরা নিশ্চিত হন শিশু দুটির সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ স্বাভাবিক ও আলাদা রয়েছে। তবে দুটি শিশুর লিভার একটি। এক লিভার নিয়েই জন্ম নিয়েছে তারা।

হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. নূরুল আলম জানান, এর আগেও ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ রকম জোড়া লাগা শিশুর জন্ম হয়েছে। ২৫ জানুয়ারি জন্ম নেওয়া কন্যাশিশু দুটি ভালো আছে। মাঝেমধ্যে তাদের শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় তাদের ইনকুভেটরের মধ্যে রাখা হয়। শিশু দুটির কিডনি, হার্ট ও ফুসফুস আলাদা রয়েছে। শুধু লিভার একটি। অপারেশনের মাধ্যমে লিভারটি কেটে শিশু দুটির মধ্যে প্রতিস্থাপন করে তাদের আলাদা করা সম্ভব।
হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইউনুছুর রহমান জানান, শিশু দুটিকে আলাদা করতে অনেকক্ষণ ধরে অস্ত্রোপচার করতে হবে। অস্ত্রোপচারের পর এনআইসিইউ সাপোর্টের প্রয়োজন পড়তে পারে। কিন্তু ওসমানী হাসপাতালে এখনো এনআইসিইউ চালু না হওয়ায় শিশু দুটিকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দুই শিশু ও তাদের মায়ের স্বাস্থ্যের বিশেষ নজর রেখেছে এবং তাদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদান করছে বলেও জানান তিনি।
ওসমানী হাসপাতালে শিশু দুটির পাশে থাকা তাদের দাদা শওকত আলী বলেন, প্রথমে জোড়া লাগানো মেয়ে জন্ম নেয়ায় আমরা ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। তবে ভয়ের কিছু নেই বলে হাসপাতালের চিকিৎসকরা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন। এখন পরিবারের সকলেই খুশি।

এই সংবাদটি 1,178 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com