পরীক্ষার ভেন্যু হারালো নেত্রকোনার দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়

প্রকাশিত: ৬:৩৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২০

পরীক্ষার ভেন্যু হারালো নেত্রকোনার দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়

নেত্রকোনার শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়। যে বিদ্যালয়টিতে চলমান এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা, ঠিক সেসময়ে স্কুলের মাঠে খেলাধুলা করছে শিক্ষার্থীরা। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর ছাত্রসংখ্যা বিপুল পরিমাণ থাকা সত্ত্বেও এ বছর পরীক্ষা ভেন্যু হারিয়েছে বিদ্যালয়টি। মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে এই চিত্র দেখা গেছে।
কেন্দ্র বাতিলের বিষয়ে কেউ কেউ বলছেন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা তদন্তের ঘটনায় ঘটেছে এমনটি। আবার কেউ কেউ বলছেন ম্যানেজিং কমিটির কার্যক্রম স্থগিতাদেশের ঘটনায় জেলা মাধ্যমিক কর্মকতার স্বাক্ষরে বেতন উত্তোলনসহ ফেসবুকে নানা সমস্যার কথা ভাইরাল হওয়ায় এমনটি হয়েছে।
স্কুলের শিক্ষককরা দাবী করে জানান, স্কুলের সার্বিক সাফল্যে ঈর্ষান্বিত হয়েই এই স্কুল থেকে পরীক্ষার কেন্দ্র বাতিল করা করা হয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, এই স্কুলের কেন্দ্র বাতিল হওয়ায় জেলা শহরের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক মহলে এক ধরনের হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। অনেকে মনে করছেন শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এমন প্রাচীন বিদ্যাপিঠের জন্য এটি দুঃখজনক এবং লজ্জার।
আঞ্জুমান আদর্শ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব আকলিমা খাতুন জানান, প্রতিবছর জেলা সদরে একটি কেন্দ্র ও চারটি ভেন্যুতে পরীক্ষা কার্যক্রম চলতো। এ বছর সদর উপজেলার মোট ২২ স্কুল নিয়ে দুটি কেন্দ্র করে মোট ৫টি ভেন্যুতে পরীক্ষা হচ্ছে। এরমধ্যে মূল কেন্দ্র আঞ্জুমান আদর্শ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ১১টি স্কুলের তিনটি ভেন্যুতে ১৫২৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিচ্ছে।
অন্যদিকে নতুন হওয়া চন্দ্রনাথ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের সচিব ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিজয় চন্দ্র পাল জানান, এই কেন্দ্রসহ দুইটি ভেন্যুতে ১১টি স্কুলের এক-দুই সাবজেক্টসহ আংশিক মিলে ৬২০ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিচ্ছে। তার মধ্যে রেগুলার পরীক্ষার্থী ৪৪৪ জন। এর মধ্যে চন্দ্রনাথ স্কুলের পরীক্ষার্থী ৩৫ জন।
কেন্দ্র বাতিল হওয়ায় বিষয়ে দত্ত স্কুলের সহকারি প্রধান শিক্ষক মো. মজিবুর রহমান বলেন, চন্দ্রনাথ স্কুলে এমন বছরও গিয়েছে কোন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় পাসই করেনি। ছাত্র সংখ্যা ১০০ হয় কিনা সন্দেহ আছে। দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়ে এ বছর পরীক্ষার্থী ৫৬৭ জন। দত্ত স্কুলের শিক্ষার্থী সংখ্যাও সকল স্কুল ছাড়িয়ে মোট ২৮০০। চন্দ্রনাথ স্কুলটির প্রধান শিক্ষক হাবিবা রহমান শেফালি সংরক্ষিত আসনের এমপি হওয়ার পর এ বছর স্কুলটিকে কেন্দ্র এবং ভেন্যু করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, পরীক্ষার পূর্বে কেন্দ্র ভেন্যু নির্ধারণী সভায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মিলন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফজল খান ও কেএনএফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু তাহের দত্ত স্কুলটিতে আসতে শিক্ষার্থীদের মেছুয়া বাজারে জ্যামে পড়তে হয় কারণ দেখিয়ে আদর্শ বালিকায় ভেন্যু দাবি করেন। এখন দেখা যাচ্ছে সেই মিলন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আসন পড়েছে আঞ্জুমান আদর্শ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে। তাদেরকে দত্ত উচ্চ বিদ্যালয় হয়ে যেতে হয়।
মিলন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফজল খান বলেন, আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে তাকে হল সুপার করায় স্কুলের শিক্ষার্থীদের সিট পড়ে গেছে আঞ্জুমান স্কুলে।
প্রশাসনিক সূত্রে জানা যায়, দত্ত স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২০ নভেম্বর ময়মনসিংহ বোর্ড থেকে ম্যানেজিং কমিটির নিয়মিত কার্যক্রম স্থগিত রাখার নির্দেশ আসে। পরে ডিসেম্বর মাসের শিক্ষকদের বেতন উত্তোলন হয় জেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তার স্বাক্ষরে। পরবর্তীতে ২৬ ডিসেম্বর কয়েকটি তিনটি শর্ত উল্লেখ করে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারপত্র আসে।
এ ব্যাপারে দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক এবিএম শাহজাহান কবীর জানান, নেত্রকোনা জেলা শহরের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান এটি। এটি সিসি ক্যামেরায় অন্তর্ভুক্ত থাকায় পরীক্ষার পরিবেশ অত্যন্ত সুশৃঙ্খল থাকে। যা শহরতলীর বিভিন্ন স্কুলের পছন্দ নয়। জেলা প্রশাসক কেন্দ্র নির্ধারণী সভায় দত্ত এবং আদর্শ বালিকার নাম প্রস্তাব দিলেও যানজটের কারণ দেখিয়েছে দুটি শহরতলীর স্কুলের শিক্ষক। শিক্ষার্থীদের বিষয় মাথায় রেখেই প্রতিবাদ করিনি। সেই সকল শিক্ষার্থীরা ‘কথিত’ সেই যানজট অতিক্রম করেই একেবারে শহরের মোক্তাপাড়ায় শেষ মাথায় গিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছে। তাহলে অবশেষে হলোটা কি? সঙ্গত কারণেই বোঝা যায় এটি সম্পূর্ণই স্কুলের সাফল্য দেখে ঈর্ষা থেকে এই বিষয়টি হয়েছে।
অন্যদিকে বেসরকারি শিক্ষক সমিতির সভাপতি আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফুর হায়দার ফকির বলেন, ভৌগলিক কারণে বিদ্যালয়ের ভেন্যু পরিবর্তিত হয়েছে। আগে একটি কেন্দ্রের চারটি ভেন্যুতে পরীক্ষা হতো। এবার দুইটি কেন্দ্রের পাঁচটি ভেন্যুতে পরীক্ষা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, দত্ত উচ্চ বিদ্যালয়ে ঠিক কত সাল থেকে বিভিন্ন পরীক্ষার ভেন্যু শুরু হয় কেউ বলতে পারেনি। তবে, আনুমানিক অনেকেই জানান ব্রিটিশ আমল থেকেই। স্কুলের অনেক শিক্ষক এই স্কুলেরই ছাত্র। তাদের মধ্যে অনেকেই বলতে পারেন না কবে থেকে শুরু হয়েছিল স্কুলে পরীক্ষার ভেন্যু। নানা সমস্যা সম্ভাবনা নিয়েই স্কুলটির শত বছর পেরিয়েছে।

এই সংবাদটি 31 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com