শুক্রবার, ১৪ ফেব্রু ২০২০ ১১:০২ ঘণ্টা

জমিয়তের কর্মী সম্মেলনে ১০ দফা ঘোষণা

Share Button

জমিয়তের কর্মী সম্মেলনে ১০ দফা ঘোষণা

সিলেট রিপোর্টঃ
নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ, ভোটাধিকার নিশ্চিত করার মাধ্যমে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা, নতজানুতা পরিহার করে সীমান্ত হত্যা ও ভারতীয় আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করণসহ ১০ দফা দাবি ঘোষনার মধ্য দিয়ে শুক্রবার ১৪ ফেব্রুয়ারি সম্পন্ন হলো জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কর্মী সম্মেলন। প্রশাসনের বাঁধার মুখে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পরিবর্তে কাজী বশির মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হওয়ায় সম্মেলনের নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই হল ও লন পরিপূর্ণ হয়ে কর্মী সমাগম আশপাশের উদ্যান ছাপিয়ে যায়। জায়গার সংকুলান না হওয়ায় ব্যাপক ভোগান্তিতে পরেন সারাদেশ থেকে আগত হাজার হাজার জমিয়ত কর্মীরা। সরকার ও সরকার সমর্থকরা অনায়েশেই যেকোনো সময় যেকোনো স্থানে সভা-সমাবেশ করতে পারলেও তিন মাস আগ থেকে তারিখ ঘোষনা দিয়েও জমিয়ত সম্মেলনের অনুমতি না পাওয়ায় সরকারের আজ্ঞাবহ প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন উপস্থিত নেতাকর্মীরা।

সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্য রাখেন দলের সভাপতি আল্লামা শায়খ আব্দুল মোমেন। তিনি তার বক্তব্যে কাদিয়ানিদের অবিলম্বে অমুসলিম ঘোষণার জন্য সরকারকে আন্তরিক হওয়ার আহবান জানান। প্রধান বক্তার বক্তব্যে দলের মহাসচিব মাওলানা নূর হুছাইন কাসেমী বলেন, ভোটাধিকার পুনরুদ্ধার ও জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠায় জমিয়তের সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে। এব্যপারে দল কারো সাথে কোনো আপোষ করবেনা। তিনি তৃনমূল পর্যায়ে দলকে শক্তিশালী করার জন্য সাংগঠনিক কার্যক্রম কে আরো গতিশীল করতে কর্মীদের প্রতি আহবান জানান।
সারাদেশ থেকে প্রায় সাত হাজার কর্মী এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করে। সম্মেলনে দলের যুগ্মমহাসচিব মাওঃ বাহাউদ্দীন জাকারিয়া দশ দফা দাবি সম্বলিত ঘোষনা পত্র পাঠ করেন।
আজ ১৪ফেব্রুয়ারী ২০২০ রাজধানীর গুলিস্তানের কাজী বশীর মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। সদরে জমিয়ত আল্লামা আব্দুল মোমিন (দাঃবা) এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের শুরুতে পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত করেন ক্বারী আবু রায়হান।
প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন জমিয়ত মহাসচিব আল্লামা নুর হুসাইন কাসেমী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সম্মেলন বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী। ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সম্মেলনের সদস্য সচিব মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া।
বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা জহীরুল হক ভুইয়া,মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব, সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী,মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা আহমদ বদরুদ্দীন খান।
সংগঠনের সহসাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি নাসিরুদ্দিন খান ও প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীনের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন ও অনুভুতি পেশ কটেন মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা মন্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওঃতাফাজ্জুল হক আজীজ, মুফতি মনির হুসাইন কাসেমী, সহকারী মহাসচিব, মাওঃআতাউর রহমান,প্রিন্সিপাল মাওলানা শুয়াইব আহমদ, মাওঃসানাউল্লাহ মাহমুদী, মাওঃখলিলুর রহমান, মাওলানা নাসির উদ্দীন মনির, মাওঃজামিল আহমদ আনসারী,সহ সাংগঠনিক সম্পাদক, মাওঃবশীর আহমদ, মুফতি আফযাল হুসাইন রাহমানী, এম আব্দুর রহমান সিদ্দি, হাফিজ ফখরুজ্জামান,মাওলানা শাহজালাল অর্থ সম্পাদক মুফতি জাকির হুসাইন কাসেমী, শ্রম বিঃসম্পাদক মাওলানা ফেরদাউসুর রহমান, দাওয়াহ বিঃসম্পাদক,লোকমান মাজহারী,সহ দাওয়া বিঃসম্পাদক মাওঃআব্দুল জলীল ইউসুফী, দফতর সম্পাদক মাওঃআব্দুল গাফফার ছয়ঘরী, নেত্রকোনা জেলা জমিয়তের সভাপতি মুফতি তাহের কাসেমি, ময়মনসিংহ মহানগর জমিয়তের সভাপতি মাওলানা নুরুল আবসার মাসুম, সুনামগন্জ জেলা সেক্রেটারি মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, হবিগন্জ জেলা সেক্রেটারি মুফতি সিদ্দিকুর রহমান, যুব বিষয়ক সম্পাদক মাওঃ তাফহীমুল হক, যুব জমিয়তের সেক্রেটারি ইসহাক কামাল,ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এখলাছুর রহমান রিয়াদ, যুব জমিয়তের সহসাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী,যুব নেতা সৈয়দ সুহাইল আহমদ,এরশাদ খান আল হাবিব, ছাত্র নেতা হোজাইফা ওমর সহ বিভিন্ন জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ আলোচনা করেন। সম্মেলনে আগত কর্মীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশ গ্রহণে হল ও হলের আশ পাশের এলাকা কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে যায় জুম্মার আগেই। কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয় ভাবে অমুসলিম ঘোষণা সহ বক্তাগন তাদের বক্তব্যে সংগঠনকে তৃনমুলে সাংগঠনিক ভীত মজবুত করে রাজনৈতিক শক্তি অর্জনের উপর গুরুত্তারুপ করেন। জমিয়ত এদেশের ধর্মপ্রান মানুষের আস্থা ও আশা আাকাংখার সংগঠন। তাই জমিয়তের আওয়াজ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে হবে।
২০০৫ সালে পল্টন ময়দানে সংগঠেনের জাতীয় সম্মেলনের পরে এটাই ছিলো জমিয়তের বৃহত সমাবেশ।

এই সংবাদটি 1,175 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com