ভারতে আটকের পরে সিলেট কারাগারে রাগীব আলী

প্রকাশিত: ৭:৪০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৪, ২০১৬

ভারতে আটকের পরে সিলেট কারাগারে রাগীব আলী

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের বিশিষ্ট শিল্পপতি ড. সৈয়দ রাগীব আলীকে বাংলাদেশে হস্তান্তর করেছে ভারত। আজ (২৪ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার বেলা পৌনে তিনটার দিকে সিলেটের সুতারকান্দি সীমান্ত দিয়ে তাকে বাংলাদেশে পাঠানো হয়।  যাকে গতকাল রাতে ভারতের করিমগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করেছিল দেশটির পুলিশ।
ভিসার মেয়াদ শেষ হলে তা বাড়ানোর জন্য বুধবার ভারতের করিমগঞ্জ ইমিগ্রেশনে যান রাগীব আলী। মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ভারতে তিন মাস থাকার কারণে দেশটির পুলিশ তাকে আটক করে।
বিয়ানীবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চন্দ্রদেব কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘দুপুরের দিকে ভারতীয় পুলিশের কাছ থেকে আমরা রাগীব আলীকে রিসিভ করেছি। এখন তাকে আদালতে তোলা হবে।’
জাল কাগজপত্রের মাধ্যমে সিলেটের তারাপুর চা-বাগানের দেবোত্তর সম্পত্তিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকার ভূমি আত্মসাৎ এবং প্রতারণার দুটি মামলায় গত ১০ আগস্ট রাগীব আলী ও তার ছেলে-মেয়েসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। ওই দিনই তিনি সপরিবারে ভারত চলে যান। এদের মধ্যে ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতির মামলায় রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

অন্য মামলাটিতে প্রতারণার অভিযোগে রাগীব আলী, ছেলে আবদুল হাই, জামাতা আবদুল কাদির, মেয়ে রুজিনা কাদির, রাগীব আলীর আত্মীয় মৌলভীবাজারের দেওয়ান মোস্তাক মজিদ ও তারাপুর চা বাগানের সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্তের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।
১২ নভেম্বর দুপুরে সিলেটের জকিগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে দেশে আসার সময় রাগীব আলীর ছেলে আব্দুল হাইকে আটক করে জকিগঞ্জ স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশ ।এ মামলার আসামি রাগীব আলীর আত্মীয় দেওয়ান মোস্তাক মজিদ গত ১০ অক্টোবর আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
মামলার নথি থেকে জানা যায়, ৪২২ দশমিক ৯৬ একর জমির ওপর গড়ে ওঠা তারাপুর চা-বাগান পুরোটাই দেবোত্তর সম্পত্তি। ১৯৯০ সালে ভুয়া সেবায়েত সাজিয়ে বাগানটির দখল নেন রাগীব আলী।
প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের একটি বেঞ্চ গত ১৯ জানুয়ারি তারাপুর চা-বাগান দখল করে গড়ে ওঠা সব স্থাপনা ছয় মাসের মধ্যে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়। সিলেটের জেলা প্রশাসনকে ওই আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়।
এরপর ১৫ মে চা-বাগানের বিভিন্ন স্থাপনা ছাড়াও ৩২৩ একর ভূমি সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্তকে বুঝিয়ে দেয় জেলা প্রশাসন।
এদিকে, বৃহস্পতিবার বিকেলে রাগীব আলীকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন আদালত।  ভূমি আত্মসাৎ এবং জালিয়াতির দুটি মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে সিলেটের অতিরিক্ত মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক উম্মে সরাবন তহুরা তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
সিলেট জেলা জজ কোর্টের পিপি এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ জানান, আদালতে রাগীব আলীর পক্ষে জামিন আবেদন জানানো হয়। তবে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক (চিঠি) জালিয়াতির মামলায় রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। অন্যদিকে প্রতারণার মামলায় রাগীব আলী, তার ছেলে আবদুল হাই, জামাতা আবদুল কাদির, মেয়ে রুজিনা কাদির, রাগীব আলীর আত্মীয় মৌলভীবাজারের দেওয়ান মোস্তাক মজিদ, তারাপুর চা বাগানের সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্তের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।
তবে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পরপরই ছেলেকে নিয়ে ভারতে পালিয়ে যান রাগীব আলী। এছাড়া মামলার আসামি রাগীব আলীর আত্মীয় দেওয়ান মোস্তাক মজিদ গত ১০ অক্টোবর আদালতে আত্মসমর্পণ করার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এই সংবাদটি 207 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com