মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ ২০২০ ০৬:০৩ ঘণ্টা

প্রধানমন্ত্রী ভেবে দেখবেন?

Share Button

প্রধানমন্ত্রী ভেবে দেখবেন?

উবায়দুর রহমান খান নদভীঃ
করোনা সংকটে আপাতত এইসব কার্যক্রম হাতে নিতে পারে সরকার, ধনীরা কিছু দায়িত্ব নিতে পারেন, সাধারণ মানুষও পারে সামান্য এগিয়ে আসতে। ফেইসবুক মারফত পাওয়া কিছু মানুষের চিন্তা ভাবনা উপলব্ধি ও প্রস্তাব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভেবে দেখবেন।

+বিশ্বের বড় ১০ টা গার্মেন্টসের মধ্যে ৩ টা বাংলাদেশে।

+এশিয়ার সেরা ১০ জন ধনীর মধ্যে ২ জন বাংলাদেশী।

+ এইদেশে হাজার কোটি টাকা আছে, এমন মানুষ আছে হাজারের উপর।

+স্কয়ার, বেক্সিমকো, প্রান-আরএফএল, ইনসেপ্টা, বসুন্ধরা, যমুনার মতো বিশাল কোম্পানি আছে ২০-৩০ টা।
কিন্তু এখন পর্যন্ত কেউ বললো না আমরা ১০-২০ হাজার মাস্ক ফ্রী দেবো, ২০ হাজার ডাক্তারকে পোশাক দেবো।

+কেউ বললো না আমাদের কর্মচারীদের ২ মাসের বেতন দেবো কাজ ছাড়া। কোনো এনজিও বা মাইক্রো ক্রেডিট সংস্থা কিস্তি মওকুফ বা বিলম্বিত করলো না।

+কিন্তু এই লোকেরাই সরকারী বিভিন্ন অনুষ্ঠানে কে কার চেয়ে বেশি টাকা দিবে সেইটা নিয়ে প্রতিযোগিতা করে। যদি একটু সরকারের সুদৃষ্টি পায় তাহলে হাজার কোটি টাকা লোপাট করতে সুবিধা হবে সে আশায়।

+দেশের এই বিপদের দিনে চীনের অনলাইন মার্কেটিং প্রতিষ্ঠান আলীবাবাকে কে কেন বাংলাদেশকে সাহায্য করতে হয়?

+গ্রামীণ ব্যাংক, ব্র‍্যাক, স্কয়ার, বসুন্ধরা, যমুনা গ্রুপ কই?

+ওয়ালটন যে দেশের আবেগ নিয়ে প্রোডাক্ট বিক্রি করেছে, তারা কই?
এত এত ব্যাংক, এত এত ফাউ ইস্যুতে বিভিন্ন তহবিলে দান করে, এখন তারা চুপ কেন?

+হাজার কোটি টাকার মালিক এলাকার মন্ত্রী, এমপি,মেয়র,নেতারা এখন কই?
তাদের ভূমিকা কি এই বিপদে?

+ লোকদেখানো যাকাত দাতারা কই,যারা শাড়ি, লুঙ্গি বিলাতে গিয়ে মানুষ মারে?! তারা তো এই যাকাতের টাকা গরীবদের দিয়ে বলতে পারে, এই টাকা দিয়ে চলো, ১ মাস বের হয়োনা ঘর থেকে।

+এয়ারপোর্টগুলো বিমানবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে দিয়ে দেয়া সময়ের দাবী যেন প্রবাসিদের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস আর ঢুকতে না পারে, যা আরো ২ /৩ মাস আগে করা উচিৎ ছিলো।

+নৌবন্দরগুলো নেভীর হাতে দেয়া উচিৎ যেন করোনা বহনকারী কোন গুডস বা ইকুইপমেন্ট দেশে ঢুকতে না পারে যা আরো ৩ মাস আগে শুরু করা উচিৎ ছিলো।

+দেশে সেনাবাহিনী নামানোটা সময়ের দাবী। এই জনবহুল ও হুজুগে দেশে এর কোন বিকল্প আছে বলে জানা নেই।

+বিজিবিকে আরো সতর্কতায় রাখা উচিৎ যেন সীমান্ত পার হয়ে কোন করোনা ভাইরাস বহনকারী মানুষ বা গবাদিপশু দেশে ঢুকতে না পারে।

+ডাক্তারদের জন্য পর্যাপ্ত ইকুইপমেন্ট সরবরাহ থাকা এবং তাদের জন্য যথাযথ প্রটেকশনের ব্যবস্থা রাখা।

+কলেজ ইউনিভার্সিটি পড়া স্টুডেন্ট ও যারা সেচ্ছাসেবী হতে ইচ্ছুক তাদের জন্য প্রাথমিক নার্সিং ট্রেনিংএর ব্যবস্থা করা।

+রোহিঙ্গাদের জন্য প্রস্তুত করা ভাসানচর ক্যাম্প আইসোলেশন ক্যাম্প হিসাবে প্রস্তুত করা যা অজস্র রোগী রাখার জন্য যথেষ্ট।

+মিনিমাম ১২ কোটি মানুষ বিভিন্ন সিম ব্যবহার করে। প্রত্যেকটা সিম থেকে নেওয়া গত কয়েক মাসের কর থেকে গড়ে ১০/১২ টাকা করে নিয়ে নিন।

+ এই ১৪০ কোটি টাকা দিয়ে মিনিমাম ১০০০ টা আইসিইউ খোলা যাবে।

+সারাদেশের প্রত্যেকটা ব্রীজের ৭ দিনের টোল আলাদা করেন। সেইসব টাকা দিয়ে মাস্ক, স্যানিটাইজার বিতরণ করেন।

+যত নেতা, সমাজসেবক,ব্যবসায়ী ও ব্যবসায়ী নেতা আছে তাদের লিস্ট করে তাদের থেকে কমার্শিয়াল ট্রানজেকশান সামর্থ্য অনুযায়ী ৫ /১০/১৫/২০/২৫ লক্ষ টাকা করে নেন। সেই গুলো দিয়ে দেশ লকডাউন করার আগেই যারা উপার্জন ছাড়া খেতে পারবে না তাদের চাল ডাল আলু তেল পেঁয়াজ ইত্যাদি পৌঁছে দেন।

এইরকম হাজারো উপায় আছে। আর সবাই মানসিকভাবে প্রস্তুত। দ্রুত সিদ্ধান্ত নিন। সবকাজ সমন্বয়ের দায়িত্ব উলামায়ে কেরাম, পীর মাশায়েখ ও মাদরাসা শিক্ষার্থীদের হাতে সোপর্দ করে দেখুন কত ত্যাগ ও কোরবানীর সাথে তারা দেশ জাতি ও মানবতার জন্য সবাইকে নিয়ে কাজ করতে পারেন।

একটি জাতীয় সমন্বয় কমিটি হওয়া চাই। কয়েকজন মন্ত্রীকে আপাতত সাসপেন্ড করে দিন। একজন যোগ্য, নির্লোভ, আমানতদার ও পরমবিশ্বস্ত ব্যক্তিকে মর্যাদা ও বেতন/ভাতা/সুযোগ- সুবিধা ছাড়া কেবল ক্ষমতাটুকু দিয়ে ( সংকটকালীন দু’তিন মাস সময়ের জন্য ) টেকনোক্র্যাট কোটায় পূর্ণমন্ত্রী অথবা উপদেষ্টা নিযুক্ত করুন।

তাকে আন্তর্জাতিক পরিসরে কূটনৈতিক তৎপরতা এবং আপদকালীন নৈতিক ও বস্তুগত সকল পর্যায়ের সহায়তা আনার বিশেষ ক্ষমতা দিয়ে আপনার পক্ষ থেকে অফিসিয়াল চিঠি প্রদান করুন।

তাকে তার পছন্দ মতো কিছু জেনারেল,সচিব,আমলা,
ইমাম,খতীব,আলেম,ব্যবসায়ী,ব্যাংকার, শিল্পপতি,ডাক্তার, ইন্জিনীয়ার, সহৃদয়
দক্ষ নাগরিক, ছাত্র, যুবাতরুণ ইত্যাদি বেছে নেওয়ার সুযোগ দিন। দেরী করবেন না। এই মুহূর্তে আপনার একটি জরুরি সিদ্ধান্তই লাখো মানুষের জীবন রক্ষার ওসিলা হতে পারে।
#আমারঅংশ ছাড়া প্রতিটি লেখা এবং এর অংশবিশেষ মূল লেখকের সৌজন্যে।

#সমন্বয় ও উপস্থাপনঃ
মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী
মহাপরিচালক, ঢাকা সেন্টার ফর দাওয়াহ এন্ড কালচার

এই সংবাদটি 2,605 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com