সেনাবাহিনীর ততপরতায় জনসমাগমে স্থবিরতা

প্রকাশিত: ১:০৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২০

সেনাবাহিনীর ততপরতায় জনসমাগমে স্থবিরতা

ডেস্ক রিপোর্টঃ

রাজধানীতে সেনাবাহিনী ও পুলিশের তৎপরতা বেড়েছে। এতে অন্যান্য দিনের চেয়ে রাস্তায় জনসমাগম এবং গাড়ির সংখ্যা কম দেখা যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে সেনাবাহিনীর গাড়ি টহল দিতে দেখা যায়। সেনা সদস্যরা রাস্তায় লোকজন পেলে তাদেরকে ডেকে ঘরের থাকার গুরুত্ব বুঝিয়েছে। এতে করে জনগণ ঘরে চলে গেছে। সেনাবাহিনীর পাশাপাশি রাজধানীতে পুলিশের টহলও জোরদার করা হয়েচে। এতে করে রাজধানীতে কমেছে লোকসমাগম ও গাড়ি চলাচল। সকাল ১০টায় শাহজাহানপুর বেনজীর বাগান এলাকায় সেনাবাহিনীর দুটি গাড়ি প্রবেশ করে। এতে করে গীলর ভিতরে থাকা বিভিন্ন চায়ের দোকান এবং ব্যান গাড়িতে তরকারি বিক্রেতারা সব ছুটে পালিয়ে যায়। সেনা সদস্যরা তাদের ডেকে এনে ঘরে থাকার জন্য বলে এবং আর যেন দোকান না খুলে তা বলে। সেনাবাহিনীর কথায় সবাই দোকান বন্ধ করে চলে যায়।
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সবাইকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হলেও অনেকে তা মানছিল না। অকারণে রাস্তায় বের হয়ে ঘোরাঘুরি করছিল, আড্ডা দিচ্ছিল। এতে করে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা বাড়ছিল। তাই তাদের ঘরে থাকতে বাধ্য করতে সেনাবাহিনী ও পুলিশ রাস্তায় তৎপর হয়েছে। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে, অলিতে গলিতে সেনাবাহিনী ও পুলিশ ঢুকে জনগণকে ঘরে থাকার জন্য বলছে।
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস আদালত, কলকারখানা, যাবতীয় পরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দেশে অলিখিত লকডাউন চলছে। এ পরিস্থিতিতে বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতে গত ২৪ মার্চ থেকে বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুবিধায় সশস্ত্র বাহিনী দায়িত্ব পালন করে আসছে।
সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বুধবার সচিবালয়ে এক বৈঠকে বলেছেন, করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে যত সংখ্যক সেনাবাহিনীর সদস্য মোতায়েন প্রয়োজন, তা করা হবে। এই করোনাভাইরাসের পরিস্থিতিকে প্রধানমন্ত্রী একটি যুদ্ধের সাথে তুলনা করেছেন, আমরা সৈনিক আমরা সব সময় যুদ্ধ করতে প্রস্তুত।

 

এই সংবাদটি 22 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com