রমজান;তারাবী এ’তেকাফ নিয়ে আল্লামা বাবুনগরীর জুমার বয়ান

প্রকাশিত: ৯:১৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০২০

রমজান;তারাবী এ’তেকাফ নিয়ে আল্লামা বাবুনগরীর জুমার বয়ান

সিলেটরিপোর্টঃ

করোনা ভাইরাসের দরূন সৃষ্ট বর্তমান নাজুক পরিস্থিতিতে আসন্ন রমজানুল মোবারকে,মসজিদে,পাঞ্জেগানা ও জুমা এবং তারাবী- এ’তেকাফ সম্পর্কে ১৭ ই এপ্রিল শুক্রবার জুমার নামাযের পূর্বে হাটহাজারী মাদরাসার কেন্দ্রীয় বায়তুল করীম জামে মসজিদে দিকনির্দেশনামূলক বয়ান করেছেন হেফাজত মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

পবিত্র কুরআনুল কারীমের সূরা হিজরের ৯৯ নং আয়াত” অর্থাৎ পালনকর্তার ইবাদাত করুন,যে পর্যন্ত আপনার কাছে নিশ্চিত কথা (মৃত্যু) না আসে” উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী বলেন,চলতি মাস হলো শাবান। এটি রমজানের আগের মাস। অনেক তাৎপর্য রয়েছে এ মাসের। এ মাসের হিসেব রাখতে হবে। আবূ হুরায়রা (রাদি.) থেকে বর্ণিতঃতিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ তোমরা রমযানের মাস নির্ধারণের জন্য শাবানের চাঁদেরও হিসাব রাখ।

মাহে রমজান আসন্ন। রহমত,মাগফিরাত এবং নাজাতের মাস রমজান। হাদীস শরীফে আছে,আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃতিনি বলেন, আল্লাহ্‌র রাসূল (সা.) বলেছেনঃ রমযান আসলে আসমানের দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজাসমূহ বন্ধ করে দেয়া হয় আর শয়তানগুলোকে শিকলবন্দী করে দেয়া হয়। (সহিহ বুখারী)।

এ মাস কুরআন নাযিলের মাস। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ মাসকে এক সুমহান মাস হিসেবে অভিহিত করেছেন। রোজা,তারাবী,ইফতার,সাহরী, এ’তেকাফ ইত্যাদি ইবাদাত বন্দেগীর মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের জন্য রমজানের কোন তুলনা হয় না।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন,বাংলাদেশের মুফতীয়ে আজম, হাটহাজারী মাদরাসার মুফতী ও মুহাদ্দিস আল্লামা আব্দুস সালাম চাটগামী সাহেব এখানে
( মসজিদে) উপস্থিত আছেন। হযরতের নির্দেশেক্রমে আসন্ন মাহে রমজানের আমাল সম্পর্কে দিকনির্দেশনা হচ্ছে যে,

★ মাহে রমজানেও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ও জুমা আগের মতো মসজিদে আদায় করা হবে।

★ নিয়মতান্ত্রিকভাবে তারাবীর নামায,এ’তেকাফ মসজিদে চলবে।

মসজিদ আল্লাহ তায়া’লার ঘর,বেহেশতের বাগান। রহমত বরকতের পবিত্রময় স্থান। মসজিদ সব সময় উন্মুক্ত থাকবে। মসজিদ কখনো তালাবদ্ধ করা যাবে না। এবং করোনায় আক্রান্ত হতে পারে স্রেফ এই সন্দেহের উপর ভিত্তি করে কোন মুসল্লীকে মসজিদে আসা থেকে বারণ করা যাবে না। তবে বাস্তবেই কেহ করোনায় আক্রান্ত হলে ঐ রোগী মসজিদে আসবে না। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক সে ব্যক্তি হসপিটালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করবে।

করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি ছাড়া বাকি মুসল্লীগণ স্বাস্থ্য সচেতনতা ও সর্তকতা বজায় রেখে মসজিদে আসতে পারবে।
ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সাথে আমাদেরকে মাহে রমজান অতিবাহিত করতে হবে।

রোগীর দেখাশোনা, চিকিৎসা ও সেবা একটি ইবাদত ও সওয়াবের কাজ। রোগী দেখার অসংখ্য ফজিলতের কথা হাদিসে বর্ণিত হয়েছে উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী ডাক্তারদেরকে গুরুত্বের সাথে রোগীদেরকে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার আহবান জানান এবং যে সকল ডাক্তারগণ এই নাজুক পরিস্থিতিতেও রোগীদেরকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন,মাহে রমজানে আল্লাহ তায়া’লার রহমতের দ্বার উন্মুক্ত হয়। এ মাসে বেশি বেশি ইবাদাত করতে হবে। রমজানের অন্যতম একটি ইবাদাত
এ’তেকাফ সম্পর্কে হাদীসের কিতাব কানযুল উম্মালে আছে,যে ব্যক্তি মাহে রমজানের(শেষ) দশ দিনের ই’তেকাফ পালন করবে, তার এই আমল (সওয়াবের ক্ষেত্রে) দুই হজ্জ এবং দুই ওমরার সমতূল্য হবে। রমজানের রোজা,তারাবীর নামাযে কুরআন তিলাওয়াত ইত্যাদির বরকতে করোনা ভাইরাস সহ যাবতীয় বালা-মুসিবত দূর হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন,আজ সর্বত্রই শুধু আতংক আর আতংক। কথায় আছে—‘বনের বাঘে খায় না, মনের বাঘে খায়।’আজ করোনা ভাইরাস নিয়ে আমাদের মধ্যে এমনটাই চলছে। আতংকিত না হয়ে শরঈ বিধানকে প্রাধান্য দিয়ে সরকার,স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অভিজ্ঞ ডাক্তাররা যেসব পরামর্শ দেন তা যথাযথ ভাবে মেনে চলতে হবে। করোনায় আতঙ্কিত না হয়ে আল্লাহর ওপর ঈমান-ইয়াক্বিন রেখে তাদবীর এখতিয়ার
করতে হবে ।

এই সংবাদটি 63 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com