কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ‘করোনাভাইরাস’র প্রতিষেধকের সন্ধান দিলেন আহমদ বদরুদ্দীন খান

প্রকাশিত: ১১:১২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২০

কুরআন-সুন্নাহর আলোকে   ‘করোনাভাইরাস’র প্রতিষেধকের সন্ধান দিলেন আহমদ বদরুদ্দীন খান

সিলেটরিপোর্ট ডেস্কঃ
‘করোনা ভাইরাস’ তথা (Covid 19) আক্রান্তদের পবিত্র যমযম পান করানো উচিৎ। আর এতে করে আশা করা যায় যে, আশানুরূপ ফল পাওয়া যাবে ইনশা আল্লাহ্।
বিশ্বের সর্বত্র আজ চিকিৎসা বিজ্ঞানীগণ তাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা ও মেধা নিয়োজিত করেছেন ‘করোনা ভাইরাস’ তথা (ঈড়ারফ ১৯)-এর প্রতিষেধক আবিষ্কারের জন্য। বিশ্বের বাঘা বাঘা মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও নামী-দামী ল্যাবরেটরি এং ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীগুলো দিন রাত এক করে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। অথচ নিকট অতীতে বেশ কয়েকজন জাপানী বিজ্ঞানী ন্যানো টেকনোলোজির মাধ্যমে পরীক্ষা করে দেখেছেন যে, পবিত্র যমযমের পানিতে এমন শক্তিশালী ও বিস্ময়কর এন্টি জার্ম রয়েছে, যা মুহুর্তের মধ্যে যে কোন শ্রেণীর শক্তিশালী জীবাণুকে অকার্যকর করে দিতে সক্ষম। আর তাই ক্যানসারের জীবণুতে আক্রান্ত অনেক রোগীর দেহে তা প্রয়োগ করেও আশানুরূপ ফলাফলও পাওয়া গেছে।
আর এই দাবীর স্বপক্ষে প্রমাণ হিসেবে আমরা উপস্থাপন করতে পারি সহীহ্ হাদীসে নবী করীম (সা.) এই পবিত্র পানিকে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ এবং মানুষের যাবতীয় রোগ-ব্যধির জন্য সবচেয়ে উপকারী পানি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। হযরত আবদুল্লাহ্ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এরশাদ করেছেন :
عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِي اللهُ عَنْهُمَا، قَالَ : قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ : خَيْرُ مَاءٍ عَلَى وَجْهِ الْأَرْضِ مَاءُ زَمْزَمَ فِيهِ طَعَامٌ مِنَ الطُّعْمِ وَشِفَاءٌ مِنَ السُّقْمِ).المُعْجَمُ الكَبِيْر لِلطَّبَرَانِي : ١١١٦٧(
“দুনিয়ার বুকে সর্বশ্রেষ্ঠ পানীয় হচ্ছে পবিত্র যমযম। আর এটা শুধু পিপাসাই নিবারণ করে না বরং সুসম খাদ্য ও সকল শারিরিক ও মানসিক রোগের কার্যকর প্রতিষেধক। (আল মুজামুল কাবীর, ইমাম তাবারানী : ১১১৬৭)
দুনিয়াবাসীর জন্য পবিত্র যমযম আল্লাহ্ পাকের কত বিশাল ও অলৌকিক এক নিদর্শন এবং অনুগ্রহ তা যথাযথ কৃতজ্ঞতার সাথে অনুধাবন করার মত উপলব্ধিও খুব কম সংখ্যক মানুষের মধ্যে রয়েছে। আর যাদের মধ্যে আল্লাহ্ পাকের এই অতুলনীয় নেয়ামতের গুরুত্ব ও তাৎপর্য সম্পর্কে বাস্তব উপলব্ধি ছিল, তাঁদের শীর্ষে রয়েছেন হযরত ইবরাহীম (আ.), হযরত ইসমাঈল (আ.) ও হযরত মুহাম্মদ (সা.)-সহ সেই সময়ের মাঝে আগত সকল আম্বিয়ায়ে কেরাম আলাইহিমুস-সালাম, সাহাবায়ে কেরাম রাদিয়াল্লাহু আনহুম, অতঃপর যুগে যুগে আগত এই উম্মতের জ্ঞানী-গুণী মণীষীবৃন্দ। আর তাই অতি সম্প্রতি নিজের গভীর উপলব্ধি থেকে পবিত্র হারামাইন শরীফাইনের প্রধান ইমাম ও খতীব ড. শায়েখ আবদুর রহ্মান আস্ সুদাইস ‘করোনা ভাইরাস’ তথা (Covid 19) এ আক্রান্ত এবং করোনার ঝুকিতে থাকা সকলকে নিয়মিত পবিত্র যমযম পান করার জন্য সর্বোচ্চ গুরুত্বের সাথে পরামর্শ দিয়েছেন।
আর আমাদের বিশেষ করে মুসলমানদের একথা ভুলে গেলে চলবে না যে, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব রাসূলুল্লাহ্ (সা.) এই পবিত্র কূপের পানিকে শিফাউস-সুক্ম নামে আখ্যায়িত করেছেন, যার অর্থ হচ্ছে- রোগ-ব্যধি থেকে আরোগ্য দানকারী। পবিত্র যমযমের এই নামটি সহীহ্ হাদীস শরীফে এসেছে। রাসূলুল্লাহ্ (সা.) পবিত্র এই পানিকে সকল রোগের মহৌষধ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। আর এটা বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকেও সুপ্রমাণিত যে, যুগে যুগে অসংখ্য মুসলমান বহু জটিল ব্যধি থেকে আরোগ্য লাভের জন্য উদরপূর্তি করে যমযম পান করার পর উক্ত রোগ থেকে পরিপূর্ণরূপে আরোগ্য লাভ করেছেন।
তাছাড়া এই পবিত্র পানির আরেক নাম হচ্ছে- ‘বারাকাতুর রাসূল (সা.)’ : অর্থ রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর বরকত-ধন্য পানি। হযরত আবদুল্লাহ্ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, বিদায় হজ্জের সময় নবী করীম (সা.) যমযম কূপে উপস্থিত হয়ে এক পাত্র পানি চাইলেন এবং তা থেকে মূখভর্তি পানি নিয়ে কুলি করে তা আবার পাত্রে রাখলেন, অতঃপর তা কূপে নিক্ষেপ করলেন। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রাহমাতুল্লিল আলামীন তাঁর অনাগত উম্মতের প্রতি সীমাহীন ভালোবাসা থেকেই এমনটি করেছেন। যাতে কেয়ামত পর্যন্ত তাঁর যে সকল উম্মত এই পবিত্র পানি পান করবে তাদের সকলেই যেন তাঁর পবিত্র মুখের লালার স্বাদ গ্রহণ করতে পারে এবং বরকত দ্বারা ধন্য হতে পারে। (আস সালাতু আস সালামু আলাইকা ইয়া রাসূলাল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।
মুসনাদে আহমদের রেওয়ায়েতে প্রখ্যাত তাবেয়ী হযরত আবদুল জাব্বার ইবনে ওয়ায়েল (রাহ্.) স্বীয় পিতা থেকে বর্ণনা করেন :
عَنْ عَبْدِ الْجَبَّارِ بْنِ وَائِلٍ، عَنْ أَبِيهِ، قَالَ : رَأَيْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أُتِيَ بِدَلْوٍ، فَمَضْمَضَ مِنْهُ، فَمَجَّ فِيهِ مِسْكًا، أَوْ أَطْيَبَ مِنَ الْمِسْكِ، وَاسْتَنْثَرَ خَارِجًا مِنَ الدَّلْوِ) .رَوَاهُ اِبْنُ مَاجَة فِيْ كِتَابِ الطَّهَارَةِ وَسُنَنِهَا، بَابُ الْمَجِّ فِي الْإِنَاءِ : ٢١٦/١(
“বিদায় হজ্জের সময় নবী করীম (সা.) যমযম কূপে উপস্থিত হয়ে উপস্থিত লোকদের এক বালতি পানি উঠাতে বললেন। অতঃপর তা থেকে মূখভর্তি পানি নিয়ে তা দিয়ে কুলি করে পূণরায় সেই পানি কূপে ঢেলে দিলেন। বর্ণনাকারী বলেন, তাঁর পবিত্র মূখনিঃসৃত সেই পানি থেকে মেশকে-আম্বরের চেয়েও উত্তম সুগন্ধ সমস্ত কূপের পানিতে ছড়িয়ে পড়েছিল। পরবর্তিতে দির্ঘকাল আমরা তা যমযমের পানি পান করার সময় অনুভব করতাম।” (মুসনাদে আহমদ ৩১৮/৪, সুনানে ইবনে মাজাহ্ ২১৬/১)
স্বয়ং নবী করীম (সা.) পবিত্র হাদীস শরীফের মাধ্যমে এই পবিত্র পানির নানাবিধ উপকারিতা লাভের বিষয়টি নিশ্চিত করে গেছেন। যেমন, কেউ যদি রোগমুক্তির উদ্দেশে পান করেন তবে তিনি শারিরিক-মানসিক সকল প্রকার রোগ-ব্যধি থেকে আরোগ্য লাভ করবেন। আর শুধু রোগমুক্তিই নয় বরং যমযম পান করা সংক্রান্ত হাদীসটির মূল এবারত থেকে প্রতীয়মান হয় যে, এই পানির উপকারিতা মানুষের প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে যায়। যেমন, হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ্ (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে নবী করীম (সা.) এরশাদ করেন :
حَدَّثَنَا هِشَامُ بْنُ عَمَّارٍ قَالَ : حَدَّثَنَا الْوَلِيدُ بْنُ مُسْلِمٍ، قَالَ : قَالَ عَبْدُ اللَّهِ بْنُ الْمُؤَمَّلِ أَنَّهُ سَمِعَ أَبَا الزُّبَيْرِ، يَقُولُ : سَمِعْتُ جَابِرَ بْنَ عَبْدِ اللَّهِ، يَقُولُ : سَمِعْتُ رَسُول اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ : مَاءُ زَمْزَمَ، لِمَا شُرِبَ لَهُ” (سُنَنِ اِبْنُ مَاجَة، كِتَابُ الْمَنَاسِكِ، بَابُ الشُّرْبِ، مِنْ زَمْزَمَ : ١٠١٨ (
অর্থাৎ, “পবিত্র যমযম যে নিয়তে পান করা হয় আল্লাহ্ পাক তা পূর্ণ করেন।” (সুনানে ইবনে মাজাহ্, : ১০১৮/২)
অতএব, উল্লেখিত হাদীসের মর্মানুযায়ী পবিত্র যমযম এমন এক বরকতময় পানীয় এবং এর উপকারিতা এতো ব্যাপক ও তাৎপর্যবহ- যা মানুষের প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে গেছে। এমনকি সর্বাধুনিক ন্যানো লেজার পদ্ধতিতে পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে, সাধারণ বিশুদ্ধ একফোটা পানির তুলনায় মানব দেহের জন্য উপকারী খণিজ পদার্থ পবিত্র যমযমের প্রতি ফোটায় (১০০০) এক হাজার গুণ বেশী পরিমাণে রয়েছে। তাই পবিত্র যমযম স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞদের কাছে ‘অলৌকিক পানী’ হিসেবে পরিচিত। এর খাদ্যমান ও গুণগত মান এতো অধিক যে, পৃথিবীর অন্য যে কোন বিশুদ্ধ থেকে বিশুদ্ধতর খণিজ পানিও উপকারিতার দিক থেকে যমযমের সাথে কোনভাবেই তুলনীয় নয়, বরং সকল বিচারেই পবিত্র যমযম বিশ্বের অন্যান্য সকল বিশুদ্ধ পানির তুলনায় মানব দেহের জন্য হাজার গুণ শ্রেষ্ঠ এবং উপকারী।
ইমাম তিরমিযী (রাহ্.) অত্যন্ত আকর্ষনীয় ব্যাখ্যার মাধ্যমে পবিত্র যমযমের অনন্য শ্রেষ্ঠত্ব বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন : পবিত্র যমযমের উৎসস্থল জান্নাত হওয়ার কারণে এর মিষ্টতা, স্বাদ ও বর্ণসহ অন্যান্য সকল গুণাগুণ এবং বৈশিষ্ট্য অবিকল জান্নাতী পানীয়র মতই এতে বিদ্যমান রয়েছে, কিন্তু আমরা মর্তলোকে বসবাস করি বলেই সেই বর্ণ অবলোকন করতে কিংবা সেই স্বাদ আস্বাদন করতে সক্ষম নই। কেননা, জান্নাতের প্রতিটি নেয়ামত উৎকৃষ্টতার দিক থেকে এতটাই উচ্চমানের যা সরাসরি গ্রহণ করার মত উপযোগীতা ও উৎকর্ষতা মর্তলোকের অধিবাসীদের দেয়া হয়নি। তাই পবিত্র যমযম জান্নাত থেকে উৎসারিত হয়ে পবিত্র কাবার তলদেশ হয়ে আমাদের নাগালের মধ্যে আসার সাথে সাথে এর উল্লেখিত গুণাগুণ ও বৈশিষ্ট্যসমূহ আমাদের দৃষ্টি ও অনুভূতি থেকে আড়াল করে দেয়া হয় কিন্তু অপসারণ করা হয় না। অর্থাৎ, লুক্কায়িত অবস্থায় পবিত্র যমযমের পানীতে ঐ সকল গুণাগুণ ও বৈশিষ্ট্যই বিদ্যমান রয়েছে যা জান্নাতের পানীয়তে রয়েছে। আর তাই পবিত্র কোরআন-সুন্নাহর ভাষ্যমতে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, জান্নাতকে যেমনিভাবে যাবতীয় রোগ-শোক থেকে সম্পূর্ণরূপে নিরাপদ ঘোষণা করা হয়েছে, ঠিক তেমনি যে পবিত্র পানির উৎসস্থল হচ্ছে জান্নাত সেই পবিত্র যমযম পানেও একজন বিশ্বাসী মানুষ যে কোন রোগ-জীবানু থেকে নিরাপদ থাকতে পারেন।
অতএব আমাদের উচিৎ অনতিবিলম্বে বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা এবং রাষ্ট্রিয় উদ্দ্যোগে পবিত্র যমযম সংগ্রহ করতঃ ‘করোনা ভাইরাস’ তথা (Covid 19) আক্রান্তদের মধ্য থেকে অন্ততঃ কিছু মানুষের উপর পরীক্ষা-মূলক প্রয়োগ করে দেখা যেতে পারে। আর যেহেতু যমযম কোন মেডিসিন বা কেমিক্যাল জাতিয় পদার্থ নয়, বরং নিরেট বিশুদ্ধ পানীয় বৈ অন্য কিছু না, বিধায় এটি কারো উপর পরীক্ষা করার জন্য কোন মেডিসিন কিংবা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ গ্রহণেরও প্রয়োজন পড়ে না। অতএব সরকারের উচিৎ অনতিবিলম্বে বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখা, যদি কাংখিত ফলাফল পাওয়া যায় তবে সউদী কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ-আলোচনা করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পর্যাপ্ত যমযমের ব্যবস্থা করা। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস, এতে করে কাঙ্খিত ফলাফল পাওয়া যাবে ইনশা আল্লাহ্
বিনীত
আহমদ বদরুদ্দীন খান
সম্পাদক : মাসিক মদীনা
১২ এপ্রিল ২০২০ ইং

এই সংবাদটি 42 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com