যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ, ফুড ব্যাংকে মানুষের লম্বা লাইন

প্রকাশিত: ৮:০৩ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে  বিক্ষোভ, ফুড ব্যাংকে মানুষের লম্বা লাইন

এমদাদ চৌধুরী দীপু,১৯এপ্রিল,নিউইয়র্ক:
মাঝখানে মাত্র ৬মাস সময়, ৩নভেম্বরে যুক্তরাস্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। করোনাভাইরাস নির্বাচনের হাওয়া সরিয়ে দিলেও এটি ভুলতে চান না যুক্তরাস্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনধাপে আবার খোলে দিতে চান উত্তর আমেরিকার ৫০ রাজ্য। অন্তত ৮টি রাজ্যে করোনার বিস্তার সহনীয় পর্যায়ে,২২ রাজ্যে বড় ধরনে কিছু হয় নাই। ১০ টি রাজ্যে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা,৩হাজার থেকে ৫হাজার। আক্রান্ত ৫হাজার থেতে ১০ হাজার এমন রাজ্য আছে আরো ১০টি। আর উদ্বেগ জনক অবস্থা এখন ১০টি রাজ্যে যেখানে আক্রান্ত ১০ হাজার থেকে ২ লাখ ৪৭হাজার। এই বিবেচনায় প্রেসিডেন্ট তিনধাপে আবার খোলে দিতে চান যুক্তরাস্ট্রকে। তার এই এই ঘোষনার পক্ষে মিশিগানসহ বিভিন্ন রাজ্যে বিক্ষোভ করছেন রিপাবলিক সমর্থকরা।
এদিকে যুক্তরাস্ট্রজুড়ে ক্রমেই বাড়ছে লোকসান।দেউলিয়া হওয়ার পথে যুক্তরাস্ট্রের ফুসফুসখ্যাত ওয়ার্ল্ড ক্যাপিটাল নিউইয়র্ক রাজ্য। ২ ট্রিলিয়স ডলার প্রনোদনা বরাদ্দ,৩৫০ বিলিয়ন ডলার ক্ষুদ্র বিনিয়োগ বরাদ্দ,আনএমপ্লয়মেন্ট এর জন্য বরাদ্দ,পেন্ডামিক আনএমপ্লয়মেন্ট এর জন্য বরাদ্দসহ নানা ঘোষনায় অসন্তোষ কমানো যায়নি দেশের নাগরিকদের। নিয়ন্ত্রনে আসেনি করোনা পরিস্থিতি। এবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা পজেটিভ পরীক্ষা,করোনার এন্টিবডি টেস্টসহ বিভিন্ন উদ্যোগের কথা বলছেন রাজ্য গভর্নররা। ১৭টি মৃতদেহ বিভিন্ন নার্সিংহোম থেকে উদ্বার করার খবর প্রচার করছে এখানকার গণমাধ্যম। গত একমাসে ২ কোটি ২০ লাখ মানুষ এর আনএমপ্লয়মেন্ট আবেদন জমা হয়েছে লেবার ডিপার্টমেন্ট অফিসে।

যুক্তরাস্ট্রে করোনা পরিস্থিতির নিয়ে কথা বলেছিলাম সাপ্তাহিক বাংলাদেশ সম্পাদক এবং নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি ডাঃ ওয়াজদ খানের সাথে। তিনি বলেন বৈশ্বিক এই মহামরীতে রাজনৈতিক এবং প্রশাসনিক কোন চাপ কাম্য নয়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন যুক্তরাস্ট্রে এখনো আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশী করোনায় মারা যাওয়ার হার বেশী এটি নিয়ন্ত্রনে আসেনি এই অবস্থায় আবার সব কিছু খোলে দেয়ার পরিবেশ সৃস্টি হয়নি। এবং উচিত সিদ্বান্ত হবেনা।যুক্তরাস্ট্রের সংবিধানের দ্বিতীয় সংশোধনীতে রাস্ট্রপতিকে ইমার্জেন্সী ঘোষনার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে ফলে লকডাউন তুলে দেয়ার ক্ষমতা রাজ্য গভর্নরদের এমন তথ্য দিয়ে তিনি বলেন রাজিৈনতক কিংবা অর্থনৈতিব অবস্থা বিবেচনা করে আবারো খোলে দেয়ার বিষয় আতœঘাতি হবে বলে তিনি মনে করেন। সিনিয়র সাংবাদিক ডাঃ ওয়াজেদ খান বলেন রাজনৈতিক চাপের চেয়ে এখন রাজনৈতিক ঐক্য বড় বিবেচনার বিষয়,কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প রিপাবলিকান গভর্নরদের উপর ভরসা করে তিনধাপে আবারো যুক্তরাস্ট্র খোলার চেস্টা করছেন। তার মতে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা এবং নিউইয়র্ক এর গভর্নও যা ভাবছেন করোনা পজেটিভ টেস্ট এবং এন্টিবডি টেস্ট এসব বিষয় এখন বেশী জরুরী।
নিউইয়র্কসহ আরো ৫টি রার্জে এ পর্যন্ত অন্তত ১৭০জন এর উপওে বাংলাদেশী মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আজ ১৯এপ্রিল যুক্তরাস্ট্র জুড়ে করোনা সনাক্তের সংখ্যা ৭লাখ ৬৪ হাজার প্রায় । মৃতের সংখ্যা ৪০ হাজার ৫৪৮জন,আর সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ৭১ হাজার এর উপরে। বৈশ্বিক তথ্যবাতায়ন ওয়ার্ল্ডোমেটারের তথ্য মতে ২৪ গন্টায় মারা গেছেন ১৫২১জন,এদিকে নিউইয়র্কে সনাক্ত হওয়া রোগী এখন আড়াই লাখের কাছাকাছি,২লাখ ৪৭,হাজারের উপরে। মোট মৃত্যু ১৮হাজার ২৯৮জনের। ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬২৭জনের। সামগ্রিক করোনা চিত্র উন্নতির দিকে। শীর্ষ করোনা আক্রান্ত রাজ্যেও মধ্যে নিউজার্সীতে অবনতি অব্যাহত আছে মোট আক্রান্ত এখন ৮৫হাজারের উপওে,নতুন মৃত্যু ১৩২জন,মোট মৃত্যু ৪২০২জনের। মেসাজুসেট রাজ্যে আক্রান্ত ৩৮হাজারের উপওে,মারা গেছেন ১৭০৬জন,নতুন মৃত্যু ১৪৬জনের। পেনসেলভিনায় আক্রান্ত প্রায় ৩৩হাজার,মারা গেছেন ১২৩৭জন,নতুন মৃত্যু ১৩৫জন,মিশিগানে আক্রান্ত ৩১হাজারের উপরে,মৃত্যু ২৩৯১জন,নতুন কওে মারা গেছেন ৮৩জন। এদিকে ক্যালিফোর্নিয়ায় উন্নতি হয়েছে কমেছে মৃত্যু এবং আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। এই রাজ্যে মাত্র ২জন মরা গেছেন নতুন আক্রান্ত ৩১ জনের উপরে। যেখানে মোট আক্রান্ত ৩১ হাজারের উপরে।
যুক্তরাস্ট্রে বাংলাদেশী হাজার হাজার ক্যাবচালকরা আনএমপ্লয়মেন্ট আবেদন নিয়ে বিপাকে পড়েছেন,বিপুল সংখ্যক আবেদনের জন্য উবার চালকদের মধ্যে অল্প সংখ্যক আববেদন প্রক্রিয়া শেষ করতে পারলেও বেশীরভাগ উবার চালক এবং ইয়েলো ক্যাব চালক রয়েছেন বিড়ম্বনার মাঝে। তারা আনএমপ্লয়মেন্ট সুবিধা পাবেন কিীনা এ বিষয়ে রয়েছে সন্দেহ সংশয়।

এই সংবাদটি 47 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com