ফতওয়াঃ চিন্তার জন্য ৯টি পয়েন্ট, মসজিদে তারাবীহ জুমা জামাত বিতর্ক

প্রকাশিত: ৬:১৬ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০২০

বাংলাদেশে ফতওয়াঃ চিন্তার জন্য ৯টি পয়েন্ট একটি পরিশিষ্ট
প্রসঙ্গ মসজিদে তারাবীহ জুমা জামাত বিতর্ক

#মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী
ভাইস চেয়ারম্যান, গ্লোবাল কন্সাল্টেটিভ কমিটি, ইন্টারন্যাশনাল ফিকাহ অ্যান্ড ফতওয়া কাউন্সিল (আইএফএফসি)

১.
মুসলিম উম্মাহর অভিজ্ঞ সদা কর্মতৎপর পরম সচেতন পরীক্ষিত ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন মুরব্বী মাওলানা সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী দামাত বারাকাতুহুম এর পরামর্শ হলো, ‘অন্যান্য নামাযের মত তারাবীও ঘরে পড়া ৷ মসজিদে পড়বেন ইমাম- মুয়াজ্জিন ও খাদেমগণ৷’

২.
পাকিস্তানের করোনা পরিস্থিতি এই মুহূর্তে বাংলাদেশের পর্যায়ে নয়। বিশ্ব মুসলিমের আস্থাভাজন মুখপাত্র ও যুগের সেরা ফকীহ আল্লামা মুফতি তাকী উসমানী দা বা বর্তমানে তাঁর দেশের পরিস্থিতি অনুযায়ী নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যা সারা দুনিয়ায় পালন করা সম্ভব নয়, যেমন আরবের উলামায়ে কেরামের সব সিদ্ধান্ত অক্ষরে অক্ষরে পালন করা সম্ভব নয়।

তাছাড়া, মুফতি তাকী উসমানী সাহেবের বর্তমান সিদ্ধান্ত পাকিস্তানের নানা মত ও পথের ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতাদের সাথে সমন্বিত। হযরতের প্রথম সিদ্ধান্তের মতো ফিকহী স্বাতন্ত্র্য ও অসাধারণত্ব এ সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে স্বাধীনভাবে কার্যকর থাকেনি।

৩.
বাংলাদেশের জন্য উলামায়ে কেরামের প্রথম দুই মিটিংয়ে প্রদত্ত দীনি নির্দেশনা সবদিক থেকে উত্তম ও গ্রহণযোগ্য, যা তারা ইসলামিক ফাউণ্ডেশনে বসে স্বাক্ষর করে জারি করে ছিলেন। এতে মসজিদে আজান ও সীমিত আকারে জামাত জুমা চালু রাখার ব্যাপারে আলেমগণ রায় দেন। তবে উল্লেখিত শর্ত ও নিয়ম মুসল্লীদের অনেকে না মানায় সরকার জামাত ও জুমা ‘সীমিত’ কথাটির ব্যাখ্যা মসজিদের ইমাম খতীব মুয়াজ্জিন ও খাদেমদের ৫ এবং ১০ জন আদায় করবেন বলে করে দেয়। অবশ্য এ সিদ্ধান্তটি কেবল মন্ত্রী সচিব ও কর্মকর্তা পর্যায়ে নেওয়ায় এতে মাসআলাগত একটি টেকনিক্যাল সমস্যা থেকে যায়। যে বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মুফতিয়ানে কেরাম সরকারের সমালোচনা করেন। এসময় কোনো ফকীহের সাথে যোগাযোগ করে নিলে ব্যাখ্যাটি ৫ জন ১০ জন না হয়ে হতে পারতো ‘জামাত ও জুমা শুদ্ধ হওয়া পরিমাণ নামাজি’। তাইলে আর সংখ্যা নির্ধারণ করার অনিয়মটি নিয়ে সমালোচিত হতে হতোনা। তাছাড়া এর আগে থেকেই দেশব্যাপী মানুষের জন্য সাধারণ চলাচল ও সমাগমও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সারাদেশে দীর্ঘ ছুটি ও সহনীয় পর্যায়ের লকডাউনও শুরু হয়ে গিয়েছে । এখানে বাইরে বের হওয়া সরকারের নিষেধ , নিজে না বুঝতে পেরে মারাত্মক রোগাক্রান্ত হওয়া বা পরিবার পরিজন সহ অন্যদের রুগ্ন করার সমূহ সম্ভাবনা ও ব্যাপক প্রাণহানির ভয়, মসজিদের জামাতে না গিয়ে নিজ নিজ অবস্থানে নামাজ পড়ার এমন বেশ ক’টি কারণে মসজিদে না যাওয়ার কথা সাব্যস্ত হতে পারে। মসজিদে যেতে বাধা দেওয়ার প্রসঙ্গ এখানে আসে কিনা তা উলামায়ে কেরামের জানা বিষয়।

৪.
সরকারের জামাত সীমিত করার সিদ্ধান্ত শুরুতেই অমান্য বা প্রয়োজনীয় সংশোধন না করে মুরব্বিদের অনেকে এটি মেনে নিয়ে একে শরীয়তসম্মত আখ্যা দিয়ে সরকারকে স্বাগত জানান। এরপর প্রয়োজনীয় সংশোধনী দিয়ে এ সিদ্ধান্তটি আরো ত্রুটিমুক্ত করা ছাড়া সংশ্লিষ্ট আলেমদের নীতিগতভাবে আর বেশী কিছু বলার সুযোগ থাকে না।

৫.
আরেক দল মুরব্বি এ সিদ্ধান্তকে ইসলাম বিরোধী আখ্যা দিয়ে কঠোর ভাষায় সরকারের নিন্দা ও প্রতিবাদ করেছেন। তারা একে সরাসরি কুফরি ও হারাম সিদ্ধান্ত বলে ফতওয়া দিয়েছেন।

৬.
এরপর ভিন্নমত পোষণকারী আলেমগণের সাথে এক হয়ে প্রথম দিকনির্দেশদানকারী আলেমরাও নতুন করে সরকারের প্রতি শর্ত ও নিয়ম দিয়ে মসজিদে ব্যাপকভাবে মুসল্লী যাতায়াত উন্মুক্ত করে দেওয়ার দাবী তোলেন। আজ রমজানের দুই অথবা তিন দিন আগে পর্যন্ত মানুষ জানে না, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কী আসবে।

৭.
আলেমরা এক হয়ে একইসাথে একটি শরীয়াসম্মত, স্বাস্থ্যসম্মত, রাষ্ট্রীয় আইনসম্মত সিদ্ধান্ত নিতে পারলে খুবই ভালো হতো। চোখের সামনে মহামারীতে রাতদিন মানুষ মরছে, সুচিকিতসা পাচ্ছে না, আক্রান্তের সংখ্যা বিপজ্জনক হারে বেড়ে চলেছে, কোভিড১৯ মহামারী নতুন রূপ নিয়ে এসেছে যার সাথে অতীতের মহামারীর চরিত্রগত কোনো মিল নেই, লাশ দাফনে জড়িত আলেমদের সাথে কথা বলে মুরব্বিরা পরিস্থিতি জানতে পারেন, চিকিৎসার সাথে জড়িত লোকজনের মাধ্যমে মহামারীর বিস্তার ও মৃত্যুর ভয়াল রূপ সম্পর্কে জানতে পারেন। এসব তথ্য আদান-প্রদান করা ও কোভিড১৯ বিশেষজ্ঞ পর্যায়ে মতবিনিময় ফতওয়া এবং সিদ্ধান্ত দিতে সহায়ক হবে।

৮.
দেশের ৯০% মানুষ কষ্ট করে হলেও লকডাউন মেনে চলছে। পেটের তাগিদে, বাজার, ব্যাংক, ওষুধ, ত্রাণ, চিকিৎসা, মৃত্যু ইত্যাদি প্রয়োজন আর কিছু অপ্রয়োজনে বাইরে বের হচ্ছে। এসব আমাদের জন্য দলিল হতে পারে না। আমাদের দলিল শরীয়তের জীবনমুখী পরম বিজ্ঞানময় নির্দেশনা। জনগণ আশা করে, উলামায়ে কেরাম এক হয়ে বাস্তব পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে এমন একটি সমাধান দিতে সক্ষম হবেন, যাতে ইসলামের মূল প্রেরণা, সৌন্দর্য্য এবং বিধান দানে শরীয়তের মহান মানবিক উদ্দেশ্যের প্রতিফলন ঘটে ।

৯.
#পরিশিষ্টঃ
সময় খুবই কম। হাফেজ সাহেবগণ মনস্থির করার মতো সময় পাবেন না। সরকারের উচিৎ সব মসজিদের ৩/৪ জন দায়িত্ব পালনরত ব্যক্তির জন্য দুই মাসের খাদ্য ও জরুরী সামগ্রী উপহার হিসেবে পৌঁছে দেয়া। এদের মধ্যে যারা নিজের জন্য নেবেন না, অন্য কোনো লোককে দিয়ে দিবেন। বড়ো আকারে তারাবী না হলেও প্রতি মসজিদের কর্তৃপক্ষ, যাদের মসজিদে হাদিয়া দেওয়ার নিয়ম আছে, তারা গতবারের মতোই আগের হাফেজ সাহেবদের এবারও হাদিয়া উপহার বা সম্মানী দিয়ে দিবেন। বৈশ্বিক সংকট মুহূর্তে, জাতীয় বিপর্যয়ের সময় এটি রাষ্ট্র সরকার এবং আমার আপনার সবার কর্তব্য।

*আমাদের সকলের মুরব্বি শাইখুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী দা বা এর সিহ্হতে কামিলা আজিলা দায়িমা এবং দীর্ঘ নেক হায়াতের জন্য সবাই দোয়া করবেন।

এই সংবাদটি 19 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com