নীরবে নিভৃতে চলে গেলেন শতাব্দীর অন্যতম জ্ঞান-তাপস শাইখুল হাদীস হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)

প্রকাশিত: ১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৫, ২০২০

নীরবে নিভৃতে চলে গেলেন শতাব্দীর অন্যতম জ্ঞান-তাপস শাইখুল হাদীস হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)

আহমদ বদরুদ্দীন খানঃঃ
শাইখুল ইসলাম হযরত মাদানী (রাহ্.)-এর অন্যতম খলিফা ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের আমৃত্যু সভাপতি এবং এই উপমহাদেশের অন্যতম হাদীস শাস্ত্রবিদ হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.) দিন কয়েক আগে আমাদের ছেড়ে মহান মাওলা পাকের ডাকে সাড়া দিয়ে এই জগতের পর্ব অত্যন্ত সন্তোষজনক উপায়ে আঞ্জাম দিয়ে পরজীবনের অন্তহীন যাত্রা শুরু করেছেন।
দেশ-জাতির এই ভয়ানক সঙ্কটকালে খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে আমাদের আস্থাভাজন উলামায়ে কেরামের বড় একটি অংশের একের পর এক চলে যাওয়া সমগ্র জাতির জন্য নিঃসন্দেহে বেদনা-দায়ক ও ভয়াবহ আগামীর ইঙ্গিতবাহী। আর তাই হযরত শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)-এর মত একজন মুখলিস ও দুনিয়া-বিমূখ ওলি আল্লাহর চলে যাওয়াটা তাঁর নিজের জন্য শুভ হলেও আমাদের মত বদনসীবদের জন্য নিঃসন্দেহে দুর্ভাগ্যের বিষয়। কারণ, দেশ, জাতি ও গোটা মুসলিম উম্মাহ্ আজ কঠিন এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। আর গভীর এই সঙ্কটময় মূহুর্তে তাঁর ছায়া ও নেতৃত্ব আমাদের জন্য একান্ত প্রয়োজন ছিল। কিন্তু মহান রাব্বুল আলামীনের ফায়সালার সামনে কারো কিছুই করার নেই। কারণ, তিনিই আমাদের প্রকৃত মালিক এবং অভিভাবক। তাঁর ইচ্ছার সামনে আমরা শুধু এটুকুই বলতে পারি, ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।
আমি বিগত কুড়ি-পঁচিশ বছর যাবতই হযরত ইমামবাড়ী (রাহ্.)-কে খুব ঘনিষ্ঠভাবে চিনতাম-জানতাম। তাঁর বরকতময় একান্ত সান্নিধ্য সুখে আমি অসংখ্য বার ধন্য হয়েছি। রাজনৈতিক যোগসূত্র তথা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাংগঠনিক কর্মতৎপরতার সুবাদে আমার পিতা হযরত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রাহ্.) ছিলেন হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)-এর ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধা। একজন জমিয়তের সভাপতি অন্যজন নির্বাহী সভাপতি। আর সেই সুবাদেই বাবার বর্তমানে সাংগঠনিক কাজে ঢাকায় আসলে হযরত ইমামবাড়ী (রাহ্.) প্রায় সময় আমাদের পুরনো ঢাকার গেন্ডারিয়ার বাসায় রাত্রীযাপন করতেন। আমি তাঁকে তখন রাতে খুব অল্প সময়ই ঘুমাতে দেখেছি। বরং রাতের অধিকাংশ সময় তিনি ইবাদত-বন্দেগীতে কাটিয়ে দিতেন।
আমাকে তিনি সন্তানবৎ স্নেহ করতেন। জীবনে বহু বার তিনি আমাদের বাসায় এবং অফিসে এসেছেন। এমনি একবার সম্ভবতঃ দুই হাজার নয় সালের শীত মৌসুমে আরজাবাদ মাদরাসায় জমিয়তের মিটিং সেরে তিনি বাবার সাথে রাত আনুমানিক সাড়ে দশটার দিকে আমাদের গেন্ডারিয়ার বাসায় রাত্রীযাপন করার জন্য আসলেন। রাতের খাবার শেষ করতে করতে প্রায় সাড়ে এগারোটা বেজে গেলো। আমি তাঁকে বিছানা করে দিয়ে বললাম, হুজুর আরাম করুন। আমি ফজরে এসে আপনাকে ডেকে দিব। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কোথায় ঘুমাবে? আমি বললাম, উপরের তলায়। একথা শুনে তিনি বললেন, তুমি বরং আমার বিছানায় শুয়ে পড়, কারণ আমি ঘুমাবো না। আমি জিজ্ঞেস করলাম, আপনি দিনে হবিগঞ্জ থেকে সফর করে এসে পার্টির মিটিং এটেন্ড করে নিশ্চয়ই খুব ক্লান্ত- তাই এখন একটু বিশ্রাম করুন। তিনি তখন জায়নামায বিছাতে বিছাতে বললেন, কবরে যাওয়ার পর তো ঘুম ছাড়া আর কোন কাজ থাকবে না, তাই এখন না ঘুমিয়ে বরং রাতটা মহান মালিকের সান্নিধ্যে কাটিয়ে দেই। এরপর আমাকে উদ্দেশ্য করে হাসতে হাসতে বললেন, অনেক রাত তো পরিবারের সাথে কাটিয়েছো, আজ রাতটা না হয় মহান প্রতিপালকের সাথে কাটিয়ে দেখো! এমন সুখ-সান্নিধ্য এবং শান্তি আর কারো সাথে কাটানোর মধ্যে কল্পনাও করা যায় না। আমার ঠিক মনে নেই, তবে সম্ভবতঃ দুই দুই চার রাকাত তাহাজ্জুদ আমি তাঁর পাশে দাড়িয়ে আদায় করে অতঃপর ঘুমিয়ে পড়ি। আর তিনি সারা রাত জেগে তাহাজ্জুদ ও তাসবীহ্-তাহলীলের মধ্যে কাটিয়ে দেন। আর এটা আমার জন্য একদিনের অভিজ্ঞতা হলেও তাঁর আজীবনের আমল ছিল। আর তাই তিনি শত ক্লান্তি সত্ত্বেও অনায়াসে সারা রাত ইবাদত-বন্দেগীর মাঝে কাটিয়ে দিতে পারতেন। হযরত ইমামবাড়ী (রাহ্.)-এর সে রাতের সেই মূল্যবান নসীহত আজো আমাকে আলোড়িত করে।
ইলমে হাদীসের ময়দানে তাঁর পান্ডিত্য ছিল বিস্ময়কর! অনেক দুর্লভ হাদীস তথা রিওয়ায়াত সম্পর্কে তাঁর গভীর জানা শোনা ও জ্ঞাতব্য আমাকে রীতিমত আশ্চর্যান্বিত ও বিস্ময়াভিভূত করেছে। অতি সরল ও নেহায়েত সাদা-মাটা মানুষটাকে দেখে অপরিচিত কেউ কল্পনাও করতে পারবে না যে, এই মানুষটার ভিতরে ইলমে ওহীর এতো বিশাল এক ভান্ডার লুকিয়ে আছে। আমাদের বরণীয় আকাবীর-আসলাফের সাক্ষাৎ প্রতিভু ছিলেন হযরত ইমামবাড়ী (রাহ্.)। প্রচার-বিমূখ, নিরহঙ্কার ও বিনয়ী এই মানুষটার সাথে আমার বৃটেন সফরের অত্যন্ত দীর্ঘ ও ঘটনা-বহুল এক অভিজ্ঞতা রয়েছে।
আমার বেশ কয়েক বারের অভিজ্ঞতা থাকলেও হযরত ইমামবাড়ী (রাহ্.)-এর জন্য সেবারই ছিল জীবনে প্রথম বারের মত সর্বোন্নত পশ্চিমা-বিশ্ব তথা ইউরোপ সফরের অভিজ্ঞতা। এমন একটি উন্নত ও সুন্দর দেশ ভ্রমণকালেও আমি তাঁর মধ্যে তেমন কোন উল্লেখযোগ্য মানসিক ও পারিপার্শ্বিক পরিবর্তন লক্ষ্য করিনি। বৃটেনের বিভিন্ন মনোরম স্থানসমূহ সফরকালে কোন নয়নাভিরাম স্থান কিংবা অবকাঠামোর দিকে তাঁর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলতেন, এই সব কিছু আমার আল্লাহর সৃষ্টি। তিনি এতটাই সরল ছিলেন যে, বৃটেনে অবস্থানকালে জমিয়তের বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মী ও তাঁর ভক্তবৃন্দ তাঁকে যে পাউন্ড তথা বৃটিশ মুদ্রা হাদিয়া দিয়েছিলেন, তা জমা করে একদিন তিনি সেগুলো আমাকে দেখিয়ে বললেন, আমি এগুলো দিয়ে কি করব। কেননা, এগুলো তো আর আমাদের দেশে চলবে না, তাই শুধু শুধু এগুলো দেশে নিয়ে কি লাভ হবে? তখন আমি এবং মুফতী সদরুদ্দীন সাহেব তাঁকে বৃটিশ পাউন্ডের আন্তর্জাতিক মূল্যমান বুঝিয়ে বলার পর তিনি সেগুলো পূণরায় যতœকরে রেখে দিলেন। সেবারকার সফরে আমি একমাস তাঁর সাথে বৃটেনে অবস্থান করার পর দেশে ফিরে আসি, কিন্তু তিনি লন্ডন ও বার্মিংহামে বসবাসরত তাঁর মেয়ে ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনের বাসায় আরো প্রায় মাস দুয়েক অবস্থান করার পর দেশে ফিরে আসেন।
এক বিংশ শতাব্দীর ন্যায় এমন সর্বাধুনিক যুগেও যে, সাহাবায়ে কেরাম রাদিয়াল্লাহু আনহুমদের ন্যায় আড়ম্বরহীন সাদা-মাটা ও সহজ-সরল, নিরহঙ্কার মানুষ থাকতে পারে তা হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)-কে না দেখলে হয়তবা আমিও বিশ্বাস করতাম না। মূলতঃ কিছু মনোনীত বান্দাকে আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন জীবনের শুরু থেকে শেষ তথা জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত তাঁর রেযামন্দি তথা সন্তুষ্টির পথেই পরিচালিত করে থাকেন। দুনিয়ার কোন ধোকাই তাঁদেরকে বিভ্রান্ত করতে পারে না। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতায় বলে, হযরত মাওলানা আবদুল মুমিন শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.) আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীনের তেমনি একজন মনোনীত প্রিয়ভাজন বান্দা ছিলেন। অতএব প্রার্থনা করি, পরজীবনেও মহান রাব্বুল আলামীন দল-মত নির্বিশেষে সকলের প্রিয় মানুষ হযরত শাইখে ইমামবাড়ী (রাহ্.)-কে তাঁর প্রিয় বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত করে নিন। আমীন।
আহমদ বদরুদ্দীন খান
সম্পাদক : মাসিক মদীনা, ঢাকা
১ রমযান ১৪৪১ হিজরী

এই সংবাদটি 68 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com