পরকালের মিছিলে আল্লামা আব্দুল মুমিত শায়খে ঢেউপাশী রহ.

প্রকাশিত: ৪:৩৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৯, ২০২০

পরকালের মিছিলে আল্লামা আব্দুল মুমিত শায়খে ঢেউপাশী রহ.

মাওলানা শিব্বির আহমদ (ইউকে প্রবাসী)ঃ

১৯৯৫-৯৬ ইংরেজীর কথা। জামেয়া দ্বীনিয়া মৌলভীবাজার’র ছাত্র ছিলাম। দ্বীনিয়া তখন ছিল পড়া আর পড়ানোর সরব এক দারসগাহ। যাদের মেহনত, তদারকী, মহানুভবতা আর তাহাদ্জুদের রুনাজারিতে প্রানবন্ত ছিল জামেয়া দ্বীনিয়া তাঁদের অন্যতম আমার প্রিয়তম উস্তাদ শায়খে ঢেউপাশী রহ.।
অবশেষে আমাদের ঢেউপাশী হুজুরও আজ চলে গেলেন।ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজীউন!
তাঁর নামের শেষে রহ. লিখতে গিয়ে আমি আজ স্তব্দ। বাকরুদ্ধ। মনে হচ্ছে তিনি এখনও আমাদেরকে সিরাজী পড়াচ্ছেন। আহ! কত কঠিন মাসআলা গুলো এত সহজে বুঝিয়ে দিতেন। শায়খে বর্নভী রহ. এর ছোট সাহেবজাদা হাফিজ ওলিউর রহমান সহ আমরা তখন মুখতাছার জামাতে পড়তাম।

একদিন হুজুর তাহাজ্জুদের সময়ে আমাদেরকে তাক্বরার করতে দেখে বললেন আমি আসছি। এসেই আবারো ক্লাস টাইমেরমত দারস শুরু করলেন। একটানা ফজর পর্যন্ত। তারপর একটা দোয়া করলেন আমাদেরকে নিয়ে। সুবহানাল্লাহ! সে দোয়ার কান্নার আওয়াজ আজও আমি শুনতে পাই।

কোন লৌকিকতা ছাড়াই চলতেন। অনাড়াম্বর জীবন যাপন পছন্দ করতেন। ছাত্রদেরকে খুব বেশি মহব্বত করতেন। ছাত্রদের প্রয়োজনে নিজেকে সব সময় প্রস্তুত রাখতেন।

মুখতাছারের বৎসরের পর আমি আর দ্বীনিয়ায় যাবোনা এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে বাড়ীতে চলে আসলাম। রমজানের বন্ধ চলছে। রমজানের পরে একদিন হঠাৎ আমাদের বাড়ীতে ঢেউপাশী হুজুর, দ্বীনিয়ার মুহতামিম সাহেব শায়খ মাসউদ সাহেব ও ছাত্রদের প্রিয় ব্যক্তিত্ব মাওলানা আব্দুল মুগনী সাহেব হুজুর উপস্হিত।

যথাসাধ্য মেহমানদ্বারী করলাম। সবশেষে ঢেউপাশী হুজুর বললেন তোমাকে দ্বীনিয়ায় এ বৎসরও যেতে হবে। আল্লাহর ফজলে হুজুরের হুকুম মানতে পারছি। জালালাইনের বছরও দ্বীনিয়ায় ছিলাম।

তাঁদের আসার পিছনে একটাই কারন ছিল। ছাত্রদেরকে খুব বেশি গুরুত্ব দিতেন। ছাত্রদের সম্ভাবনাময় ভবিষ্যত তাঁদের আধ্যাত্মিক অন্তর চোখ দিয়ে দেখতে পারতেন। আহ! ঢেউপাশী হুজুর আজ আর আমাদের মাঝে নেই।

ইনশাআল্লাহ পরবর্তিতে কোন এক সুযোগে হুজুরের স্মৃতি চারণে আরো কিছু লিখার চেষ্টা করবো।

আল্লাহ তায়ালা হাজারো আলেম উলামার উস্তাদ শায়খে ঢেউপাশী রহ. কে জান্নাতের সম্মানিত স্হানে আসিন করুন। হুজুরের রেখে যাওয়া দ্বীনি খিদমাত সমুহ তাঁর জন্যে হোক চলমান সওয়াব হাসিলের উপায়।আমিন।
লেখকঃ প্রিন্সিপা, মাদরাসাতুল হাসানাইন সিলেট।

এই সংবাদটি 92 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com